সহযোগিতায় পুলিশ,সাংবাদিকসহ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ” কুতুবপুরে আড়াইশ’ মাদক কুতুবে জিম্মি যুবসমাজ! 

সত্য প্রকাশ রায়:- মাদকের ভয়াবহতা থেকে দেশের যুব সমাজকে রক্ষার্থে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক জেহাদ ঘোষনা পরেও কোনভাবেই মাদক নির্মুলে সফলতার মুখ দেখতে পারছেনা নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ। মাদক নির্মুলের অভিযানের নামে চুনোপুটিকে ২০/৫০ পিস ইয়াবা,শতাধিক পুরিয়া হেরোইন বা গাজা কিংবা ১০/১৫ বোতল ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার করেই যেন বিশাল সফলতার ব্যাজ গলায় ঝুলিয়ে বেড়াচ্ছেন জেলার বিভিন্ন থানায় কর্মরত পুলিশ সদস্যরা। অথচ রাঘোব বোয়ালরা যেন অধরাই রয়ে যাচ্ছে অদৃশ্য ইশারায়। যদিও “হঠাৎ বৃৃস্টির’ মত মাঝে-মধ্যে দু/একটি বড় আকৃতির চালান ধরে বিশাল বাহবা যোগাতে এসপি অফিসে সংবাদ সম্মেলন করে জেলা জুড়ে আলোচনায় আসেন মিডিয়ার সুবাদে। আবার বড় মাপের মাদক স¤্রাটরা কেউ-কেউ ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদে কিংবা কেউ কেউ পুলিশের সোর্স হওয়ার সুবাদে রেহাই পাচ্ছেন বলেও অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন এলাকা থেকে। শহর ও শহরতলীতে অনেক মাদক ব্যবসায়ী রয়েছেন যারা আওয়ামীলীগের বিভিন্ন সংগঠনের ভাই অথবা ঘনিষ্টজন আবার অনেকেই রয়েছে নারায়ণগঞ্জে কর্মরত বিভিন্ন সাংবাদিকদের ঘনিষ্টজন হিসেবে। যে কারনে পুলিশ তাদেরকে ধরছে না আবার ধরলেও বিদ্যুৎ গতিতে তাদের ছাড়িয়ে নিতে থানায় আসেন অথবা মুঠোফোনে যোগাযোগ করে থাকেন পুলিশের সাথে।

 

বর্তমান পুলিশ সুপার নারায়ণগঞ্জে যোগদানের পরই বিভিন্ন থানা এলাকায় মাদক বিক্রেতাদের ধরিয়ে দিতে পুরস্কারের ঘোষনা দিয়েছেন । তবে পুলিশ সুপারের ঘোষিত পুরস্কারের তালিকাতে নেই শহর ও শহরতরীর নামীদামী মাদক বিক্রেতারা। বর্তমানে ফতুল্লা থানা এলাকার পাগলা কুতুবপুর,আলীগঞ্জ ও ফতুল্লা রেলস্টেশন এলাকাতে রয়েছে মাদকের ভয়াবহ প্রবনতা। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য কিছু মাদক বিক্রেতারা হলেন,পাগলা রেল স্টেশন এলাকার রেজাউল,পাগলা রেল স্টেশন এলাকার কালা জাহাঙ্গীর,পাগলা স্টুডিও এলাকার মৃত আলমাছ এর ছেলে শাহ আলম,পাগলা স্টুডিও এলাকার লাল এবং জাহাঙ্গীর,পাগলা জেলে পাড়ার মৃত রাশেদ আলীর মেয়ে শীলা ও তার স্বামী বাবুল,আক্তার,জেলে পাড়ার মৃত বাবুলের বউ রাহেলা,মৃত হারেজ পাঠানের ছেলে কামাল ও তার স্ত্রী সুমি,জেলে পাড়ার মোকলেছ এর ছেলে মিটুন ও কাউসার,জেলে পাড়ার সম্ভুর ছেলে উত্তম, জেলে পাড়ার সুমন দাস,পাগলা বাজার এর তোতলা মনির,তালতলার কালা কাউসার, আওলাদ,আলহাজ কাউসার আহমেদ পলাশের বাড়ীর পাশে জজ মিয়ার ছেলে রবিন,আলীগঞ্জ গার্মেন্টস এর পাশে রিক্সাসার গ্যারেজের মালিক জালাল, ড্রাইভার কুদ্দুস এর ছেলে সিফাত ও শাকিল,মিয়ার ছেলে সোর্স শান্ত ছোট ভাই হিমেল, আলীগঞ্জ নতুন বাজারের নাইম, পাগলা বৈড়াগী বাড়ীর রজ্জব মোস্তাফিজ, বৈড়াগী বাড়ী উচা পাড়ার কাল্লু,পিচ্চি বাবু,রসুলপুর আচার পট্রির ফরহাদ, রসুলপুর পাচঁতলা এলাকার মদওয়ালা আবুলের ছেলে কানা সজীব, মাসুম,মেয়ে পিপলী,রসুলপুর বাগান বাড়ী এলাকার সেলিম,রসুলপুর পাচঁতালার রাজ্জাক বেপারীর ছেলে সোর্স শান্ত এর ভাই হৃদয়,রসুলপুর এলাকার রহিম,বৈড়াগী বাড়ী উচাপড়ার পিচ্চি বাবু,রসুলপুরের টুন্ডা আমিন,তার ভাই মমিন,মৃত আলী আকবর এর ছেলে শরিফ ও আওয়াল, বউ বাজার বটতলার চয়ন , কাজল,হাশুর ছেলে ভিপি রাজিব,হারুনের ছেলে রাকিব,সোহান,শরিফবাগ এলাকার বাবলু,শাহীবাজার এলাকার কুত্তা আমিন,শাহীবাজার এলাকার পাকনা শাকিল, শরিফবাগ এলাকার পিচ্চি মোক্তার,শরিফবাগের রনি,শাহীবাজার আকন পট্রির চান্দু,সজল,রানু বেগম,মনির,বশির,ইউনুস মেম্বারের ছোট ভাই জাফর,শাহীবাজার আমতলা এলাকার কাইল্লা রিপন,নিচিন্তপুরের রকি,মন্ত্র

 

অনিক,আলমগীর,রাজন,মোহাম্মদ বাগের ডিস সাদ্দাম, আমতলার লিটন,বিটিশ শাহিন,আদর্শ নগরের টেলি নুর হোসেন, চিতাশাল খালপাড় এলাকার সালাউদ্দিন ভূঁইয়ার ভাই মজিবর ও তার স্ত্রী,চিতাশালের সোর্স পেটকাটা লিটন,কাদির ড্রাইভার এর ছেলে কানা মিলন,চিতাশাল জামাইপাড়ার রুবেল,মানিক,ইউনুসের ছেলে সজল,সুজন,আঃরফ এর ছেলে সোহেল, মনির,চিতাশাল খালপাড়ের ইকবাল,শহর আলীর ছেলে শফিক, কেলেনপাড় এলাকার সোর্স আকবর,সোর্স পাত্তি পারভেজ,সালাউদ্দিন,চুল্লা মাসুম,দৌলতপুরের সোর্স কালা সিপন,জাহাঙ্গীর এর নাতি রাসেল,নুরবাগ মাদ্রাসার পাশে বাবুল,নয়ামাটি এলাকার পিংকী, মৃত হাফিজ উদ্দিনের ছেলে খোরশেদ আলম, পেয়ারী তার মেয়ে নাছরিন, স্বামী নুরু,দক্ষিণ নয়ামাটি এলাকার গনি মিয়ার ছেলে রফিক,সফিক,মোহাম্মদ আলী,মেয়ের জামাই বাবু,চোর আকাশ,সোর্স পতিবন্ধী আরিফ,সুমন,দুলাল এর ছেলে আলমগীর, জিন্নাত আলীর ছেলে কেতরা বাবু,বিদুৎ মিস্ত্রী এনামুল,রাজ্জাক ভাংঙারীর ছেলে লিটন,বাবুলের ছেলে সোর্স নাদিম,নয়ামাটির কাজল,নয়ামাটি মুসলিম পাড়ার দিদার,পশ্চিম নয়ামাটির ফয়সাল, পশ্চিম নন্দলালপুর এলাকার চায়ের দোকানদার সালাম ও তার ছেলে ডাকাত নয়ন এর বিরুদ্ধে ঢাকা কদমতলী থানা সাতক্ষীরা থানা সিদ্ধিরগঞ্জ থানা ফতুল্লা মডেল থানাসহ বিভিন্ন থানায় ১৫-২০টা মামলার রয়েছে, এবং সালামের মেঝো ছেলে মুন্না,সালামের সেঝো ছেলে পেচাঁ রনি তার স্ত্রী দেলোয়ারের মেয়ে পপি,দেলোয়ার ছেলে শান্ত, এবং দেলোয়ার, সালামের ছেলে সোর্স মিনআলী,আজম অরোফে সোহেল,পশ্চিম নন্দলালপুর রেললাইনের মৃত দেলোয়ারের ছেলে সোর্স নিশাদ, শাহীন এর ছেলে সোর্স শাওন,হযরত আলীর ছেলে আসাদ,এবং পশ্চিম নন্দলালপুর রেললাইন চায়ের দোকানদার গাঁজা ব্যবসায়ী পতিবন্ধী রহিম,বস্তির রুমান,জাকির ড্রাইভার, নন্দলালপুর বিরিং ফ্যাক্টরির গল্লিতে মানিক,কাইয়ুম,জসীম,রিক্সা ওয়ালা হাসান,গনি,চোর শফিক,হাওলাদার বাড়ীর ভারাটিয়া রফিক, নন্দলালপুর বটতলার মতুর ছেলে রুবেল,চোর মামুন,
দেলপাড়া টাওয়ার পাড় এর ডাঃ সজীব,অটো রাসেল,কারী মোল্লার ছেলে আলম,মনির,আরমান,মুন্না পাকিস্তানি, পশ্চিম দেলপাড়া এলাকার অনিক,দেলপাড়ার জামান,ইকবাল,দেলপাড়া রাইস মিলের মৃত হান্নান এর ছেলে বোইরা মামুন,পূর্ব দেলপাড়ার রাসেল,ইস্রফিল,চেয়ারম্যান বাড়ী মোড়ের সোর্স আলামিন,চেয়ারম্যান বাড়ী রোডের সোর্স শুভ,চেয়ারম্যান বাড়ীর জামাই সালাম,মাসুম,মধ্য দেলপাড়া এলাকার বুইট্রা অনিক,সিরাজুল কসাই এর ছেলে জুয়েল,দেলপাড়া চানাচুর ফ্যাক্টরির গল্লিতে চান্দু কসাই, ভূইঘর ভূইয়া বাড়ীর জামাল ভূইয়ার ছেলে রনি,বুইক্কার পোলা ফারুক,কামালের ছেলে সোর্স লিটন,ভূইঘর চৌধুরী বাড়ীর আনোয়ার চৌধুরীর ছেলে আরিফ,ভূইঘর ভূইয়া বাড়ীর জামাল ভূইয়ার ছেলে কাউসার,দেলপাড়া করইতলার কাদির খন্দকার এর ছেলে ইসমাইল,চেয়ারম্যান বাড়ীর আওলাদের ছেলে ফেন্সী সেলিম,তার ভাই আলামিন,একি এলাকার গেসুর ছেলে সাইদুল,দেলপাড়া খানবাড়ীর রাইজ উদ্দিনের ছেলে রাজীব,চেয়ারম্যান বাড়ী রোডের সোহরাব,রাইস মিলে মিয়া বাড়ীর মোতালেবের ছেলে আলমগীর,ভূইঘর পশ্চিম পাড়ার জালাল,আলাল,চানাচুর ফ্যাক্টরি গল্লিতে বাবু,চেয়ারম্যান বাড়ী রোডে বাংলা মনির,চেয়ারম্যান বাড়ী রোডে চৌধুরী বাড়ীর গাঁজা ব্যবসায়ী শুভ,রাইস মিল মিয়াবাড়ীর নাজিম বাবুর্চি ছেলে সাইদ,দেলপাড়া কলেজ রোডের হাকিম বাবুর্চির মেয়ের জামাই সোহেল,ভূইঘর কাজী বাড়ীর আলামিন,জালকুড়ীর সবুজ,ভূইঘরের সোর্স সিএনজি লিটন,দেলপাড়া চেয়ারম্যান বাড়ীর পাশে ভূইয়া বাড়ীর কাল্লু,দেলপাড়া চেয়ারম্যান বাড়ী রোডের ফারুক,সোর্স সবুজ,লতিফ ভূইয়া,পূর্ব দেলপাড়া এলাকার ডান্সার কামাল,ভূইঘর ভূইয়া বাড়ীর রাব্বি,তক্কার মাঠের হবু,রাসেল,শাকিল,চোর মামুন, আলীগঞ্জ রেললাইনের পূর্ব পাশে গাঁজা ব্যবসায়ী খোকা,মেহারীর ছেলে সোহেল,রেললাইন মসজিদের সাথে আফসার ড্রাইভার, রসুলপুর মাডা পট্রি মুডো সুমন,একি এলাকার দুলালের ছেলে রুহুল আমিন,মাডা পট্রির মিজান,মাডা পট্রির রশিদ সরদার এর ছেলে মিলনের মদি দোকানের পাশাপাশি জুয়া সহ রাতভর চলে মিলনের রমরমা মাদক ব্যবসা, আলীগঞ্জ পূর্বপাড়ার বক্কর মেম্বার এর ভাই শেক্কুয়া,আলীগঞ্জ রেললাইনের পূর্ব পাশে মাদ্রাসা রোডে পোকনের ছেলে জসিম, আলীগঞ্জ রেললাইন মসজিদের পাশে আফসার ড্রইভারের ছেলে ইকবাল ড্রাইভার,আলীগঞ্জ তিন রাস্তার মোড় এলাকার ওয়াসিম,একি এলাকার বারেক এর ছেলে ড্রইভার জুয়েল,ও তার ছোট ভাই আহাম্মদ এবং কালা বিল্লাল,ইজ্জৎ মহাজন এর বাড়ীর গল্লিতে সাবু মিয়ার ছেলে চোর শাহীন,একি গল্লি এলাকার ইসহাক মিস্ত্রীর ছেলে কেপ রুহুল তার ছোট ভাই সজীব এবং বড়জাহানের ছেলে আত্তার,অলীহাজ্বীর ছেলে হাফিজ, আলীগঞ্জ মসজিদ রোডের সালাম ড্রাইভারের ছেলে রাশু,আলীগঞ্জ পাচঁতলার মোড়ে মোল্লার ছেলে মোস্তাকিম,আব্দুল মজিদের ছেলে সল্টু রাসেল,পাচঁতলার আলীগঞ্জ মোল্লা বাড়ীর মৃত আলমাছ মরল এর ছেলে চোল্লা মাসুম,কাজীপাড়ার নাজমুল,

 

মোক্তার, আলীগঞ্জ জং বাড়ী মধ্যপাড়ার মৃত আবুল এর ছেলে লম্বা জুয়েল,জং বাড়ী মধ্যপাড়ার রাজীব,জং বাড়ীর টেবলেট সুমন,আলীগঞ্জ তিন রাস্তার মোড় এর হাইদু,ইসহাক মিস্ত্রীর ছেলে সজীব,আহাম্মদ,আরমান,আলীগঞ্জ মেইন রোডের বিপ্লব, মোফাজ্জল কাজীর ছেলে টার্নিং জুয়েল,আলীগঞ্জ অটো গ্যারেজের ইসলার ছেলে মুটো রুবেল,আলীগঞ্জ স’মিল রোড বাসেদ এর বাড়ীর ভাড়াটিয়া মৃত আব্দুর সাত্তার মিয়ার ছেলে বাবু ড্রাইভার,স”মিল এর পাশে জরিনার ছেলে সুন্দর রনি,ইজ্জৎ মহাজন এর বাড়ীর গল্লিতে পোটলা রুবেল,বাইট্টা ইমরান,আলীগঞ্জ পাচঁ তলার মোড়ে লেহার নাতি ইমরান, ইলিয়াসের ছেলে আওলাদ, আলীগঞ্জ নতুন বাজারের নাইম,

 

আলীগঞ্জ পূর্বপাড়ার বক্কর মেম্বার এর ভাই শেক্কুয়া,আলীগঞ্জ রেললাইনের পূর্ব পাশে মাদ্রাসা রোডে পোকনের ছেলে জসিম, আলীগঞ্জ রেললাইন মসজিদের পাশে আফসার ড্রইভারের ছেলে ইকবাল ড্রাইভার প্রমুখ। তবে এদের মধ্যে বৈরাগী বাড়ির রজ্জব মুস্তাফিজ মৃত্যুবরন করেন। আবার এ তালিকার কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী জেলহাজতেও বর্তমানে অবস্থান করছে। যারা জেলহাজতে অবস্থান করছেন তাদের সঙ্গীরা দিব্ব্যি প্রকাশ্যে মাদক বিক্রি করছে বলেও অভিযোগ রয়েছে স্থানীয়দের।

 

সরেজমিনে ঘুরে এবং স্থানীয়দের দেয়া তথ্যানুযায়ী কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টুর বাড়ির চর্তুপাশে মাদক বিক্রেতাদের বসবাস এবং ক্রয়/বিক্রয়ের ঘাটি হলেও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি হিসেবে মাদক নির্মুলে তার তেমন কোন উদ্দ্যোগ দেখতে পায়নি সেখানে বসবাসকারীরা। তবে মাঝে মধ্যে ইভটিজারদেরকে ধরে মাথা ন্যাড়া করার বিষয়টি সর্ম্পকে স্থানীয়রা অনেকভাবেই অবগত। তাদের মতে ইভটিজারের চেয়েও অত্যাধিক ভয়ংকর মাদক বিক্রেতারা হলেও সে বিষয়ে তেমন কোন ভ্রুক্ষেপ নেই স্থানীয় জনপ্রতিনিধির। স্থানীয় বাসিন্দাগন মাদক নির্মুলে পুলিশ প্রশাসনকে আরো বেশী সচেতন হওয়ার আহবান জানান।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» কলকাতায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুই বাংলাদেশী নিহত

» সেভ দ্য রোড ও অনলাইন প্রেস ইউনিটির উদ্যেগে বন্যাদূর্গত পরিবারকে ত্রাণ প্রদান

» মিরপুরের চলন্তিকা বস্তিতে বস্তির আগুনে ৩ হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত

» বাংলাদেশের নতুন কোচ রাসেল ডমিঙ্গো

» ঈদের ছুটি কাটিয়ে রাংঙ্গাবালী থেকে ভোগান্তি ছাড়াই নৌপথে ঢাকা ফিরছেন কর্মঠ মানুষ

»  কর্মক্ষেত্রে ফিরা মানুষের বিড়ম্বনা” ট্রেনের টিকিট হলো সোনার হরিণ!

» আর কতো বাবা’রা প্যারালাইসিস হলে এই রাস্তাটা ঠিক হবে ?

» মহানগর স্বোচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আশার সাথে নেতা কর্মীদের সৌজন্য সাক্ষাত

» সিদ্ধিরগঞ্জে হাজী শফিকুল ইসলামের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী পালন

» প্রতিদিনের কথা এবং দৈনিক আলোকিত সকাল এ প্রকাশিত রেলওয়ে পুলিশ সম্পর্কিত সংবাদটি ভিত্তিহীন এবং বানোয়াট




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : রবিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৩রা ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সহযোগিতায় পুলিশ,সাংবাদিকসহ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ” কুতুবপুরে আড়াইশ’ মাদক কুতুবে জিম্মি যুবসমাজ! 

সত্য প্রকাশ রায়:- মাদকের ভয়াবহতা থেকে দেশের যুব সমাজকে রক্ষার্থে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক জেহাদ ঘোষনা পরেও কোনভাবেই মাদক নির্মুলে সফলতার মুখ দেখতে পারছেনা নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ। মাদক নির্মুলের অভিযানের নামে চুনোপুটিকে ২০/৫০ পিস ইয়াবা,শতাধিক পুরিয়া হেরোইন বা গাজা কিংবা ১০/১৫ বোতল ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার করেই যেন বিশাল সফলতার ব্যাজ গলায় ঝুলিয়ে বেড়াচ্ছেন জেলার বিভিন্ন থানায় কর্মরত পুলিশ সদস্যরা। অথচ রাঘোব বোয়ালরা যেন অধরাই রয়ে যাচ্ছে অদৃশ্য ইশারায়। যদিও “হঠাৎ বৃৃস্টির’ মত মাঝে-মধ্যে দু/একটি বড় আকৃতির চালান ধরে বিশাল বাহবা যোগাতে এসপি অফিসে সংবাদ সম্মেলন করে জেলা জুড়ে আলোচনায় আসেন মিডিয়ার সুবাদে। আবার বড় মাপের মাদক স¤্রাটরা কেউ-কেউ ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদে কিংবা কেউ কেউ পুলিশের সোর্স হওয়ার সুবাদে রেহাই পাচ্ছেন বলেও অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন এলাকা থেকে। শহর ও শহরতলীতে অনেক মাদক ব্যবসায়ী রয়েছেন যারা আওয়ামীলীগের বিভিন্ন সংগঠনের ভাই অথবা ঘনিষ্টজন আবার অনেকেই রয়েছে নারায়ণগঞ্জে কর্মরত বিভিন্ন সাংবাদিকদের ঘনিষ্টজন হিসেবে। যে কারনে পুলিশ তাদেরকে ধরছে না আবার ধরলেও বিদ্যুৎ গতিতে তাদের ছাড়িয়ে নিতে থানায় আসেন অথবা মুঠোফোনে যোগাযোগ করে থাকেন পুলিশের সাথে।

 

বর্তমান পুলিশ সুপার নারায়ণগঞ্জে যোগদানের পরই বিভিন্ন থানা এলাকায় মাদক বিক্রেতাদের ধরিয়ে দিতে পুরস্কারের ঘোষনা দিয়েছেন । তবে পুলিশ সুপারের ঘোষিত পুরস্কারের তালিকাতে নেই শহর ও শহরতরীর নামীদামী মাদক বিক্রেতারা। বর্তমানে ফতুল্লা থানা এলাকার পাগলা কুতুবপুর,আলীগঞ্জ ও ফতুল্লা রেলস্টেশন এলাকাতে রয়েছে মাদকের ভয়াবহ প্রবনতা। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য কিছু মাদক বিক্রেতারা হলেন,পাগলা রেল স্টেশন এলাকার রেজাউল,পাগলা রেল স্টেশন এলাকার কালা জাহাঙ্গীর,পাগলা স্টুডিও এলাকার মৃত আলমাছ এর ছেলে শাহ আলম,পাগলা স্টুডিও এলাকার লাল এবং জাহাঙ্গীর,পাগলা জেলে পাড়ার মৃত রাশেদ আলীর মেয়ে শীলা ও তার স্বামী বাবুল,আক্তার,জেলে পাড়ার মৃত বাবুলের বউ রাহেলা,মৃত হারেজ পাঠানের ছেলে কামাল ও তার স্ত্রী সুমি,জেলে পাড়ার মোকলেছ এর ছেলে মিটুন ও কাউসার,জেলে পাড়ার সম্ভুর ছেলে উত্তম, জেলে পাড়ার সুমন দাস,পাগলা বাজার এর তোতলা মনির,তালতলার কালা কাউসার, আওলাদ,আলহাজ কাউসার আহমেদ পলাশের বাড়ীর পাশে জজ মিয়ার ছেলে রবিন,আলীগঞ্জ গার্মেন্টস এর পাশে রিক্সাসার গ্যারেজের মালিক জালাল, ড্রাইভার কুদ্দুস এর ছেলে সিফাত ও শাকিল,মিয়ার ছেলে সোর্স শান্ত ছোট ভাই হিমেল, আলীগঞ্জ নতুন বাজারের নাইম, পাগলা বৈড়াগী বাড়ীর রজ্জব মোস্তাফিজ, বৈড়াগী বাড়ী উচা পাড়ার কাল্লু,পিচ্চি বাবু,রসুলপুর আচার পট্রির ফরহাদ, রসুলপুর পাচঁতলা এলাকার মদওয়ালা আবুলের ছেলে কানা সজীব, মাসুম,মেয়ে পিপলী,রসুলপুর বাগান বাড়ী এলাকার সেলিম,রসুলপুর পাচঁতালার রাজ্জাক বেপারীর ছেলে সোর্স শান্ত এর ভাই হৃদয়,রসুলপুর এলাকার রহিম,বৈড়াগী বাড়ী উচাপড়ার পিচ্চি বাবু,রসুলপুরের টুন্ডা আমিন,তার ভাই মমিন,মৃত আলী আকবর এর ছেলে শরিফ ও আওয়াল, বউ বাজার বটতলার চয়ন , কাজল,হাশুর ছেলে ভিপি রাজিব,হারুনের ছেলে রাকিব,সোহান,শরিফবাগ এলাকার বাবলু,শাহীবাজার এলাকার কুত্তা আমিন,শাহীবাজার এলাকার পাকনা শাকিল, শরিফবাগ এলাকার পিচ্চি মোক্তার,শরিফবাগের রনি,শাহীবাজার আকন পট্রির চান্দু,সজল,রানু বেগম,মনির,বশির,ইউনুস মেম্বারের ছোট ভাই জাফর,শাহীবাজার আমতলা এলাকার কাইল্লা রিপন,নিচিন্তপুরের রকি,মন্ত্র

 

অনিক,আলমগীর,রাজন,মোহাম্মদ বাগের ডিস সাদ্দাম, আমতলার লিটন,বিটিশ শাহিন,আদর্শ নগরের টেলি নুর হোসেন, চিতাশাল খালপাড় এলাকার সালাউদ্দিন ভূঁইয়ার ভাই মজিবর ও তার স্ত্রী,চিতাশালের সোর্স পেটকাটা লিটন,কাদির ড্রাইভার এর ছেলে কানা মিলন,চিতাশাল জামাইপাড়ার রুবেল,মানিক,ইউনুসের ছেলে সজল,সুজন,আঃরফ এর ছেলে সোহেল, মনির,চিতাশাল খালপাড়ের ইকবাল,শহর আলীর ছেলে শফিক, কেলেনপাড় এলাকার সোর্স আকবর,সোর্স পাত্তি পারভেজ,সালাউদ্দিন,চুল্লা মাসুম,দৌলতপুরের সোর্স কালা সিপন,জাহাঙ্গীর এর নাতি রাসেল,নুরবাগ মাদ্রাসার পাশে বাবুল,নয়ামাটি এলাকার পিংকী, মৃত হাফিজ উদ্দিনের ছেলে খোরশেদ আলম, পেয়ারী তার মেয়ে নাছরিন, স্বামী নুরু,দক্ষিণ নয়ামাটি এলাকার গনি মিয়ার ছেলে রফিক,সফিক,মোহাম্মদ আলী,মেয়ের জামাই বাবু,চোর আকাশ,সোর্স পতিবন্ধী আরিফ,সুমন,দুলাল এর ছেলে আলমগীর, জিন্নাত আলীর ছেলে কেতরা বাবু,বিদুৎ মিস্ত্রী এনামুল,রাজ্জাক ভাংঙারীর ছেলে লিটন,বাবুলের ছেলে সোর্স নাদিম,নয়ামাটির কাজল,নয়ামাটি মুসলিম পাড়ার দিদার,পশ্চিম নয়ামাটির ফয়সাল, পশ্চিম নন্দলালপুর এলাকার চায়ের দোকানদার সালাম ও তার ছেলে ডাকাত নয়ন এর বিরুদ্ধে ঢাকা কদমতলী থানা সাতক্ষীরা থানা সিদ্ধিরগঞ্জ থানা ফতুল্লা মডেল থানাসহ বিভিন্ন থানায় ১৫-২০টা মামলার রয়েছে, এবং সালামের মেঝো ছেলে মুন্না,সালামের সেঝো ছেলে পেচাঁ রনি তার স্ত্রী দেলোয়ারের মেয়ে পপি,দেলোয়ার ছেলে শান্ত, এবং দেলোয়ার, সালামের ছেলে সোর্স মিনআলী,আজম অরোফে সোহেল,পশ্চিম নন্দলালপুর রেললাইনের মৃত দেলোয়ারের ছেলে সোর্স নিশাদ, শাহীন এর ছেলে সোর্স শাওন,হযরত আলীর ছেলে আসাদ,এবং পশ্চিম নন্দলালপুর রেললাইন চায়ের দোকানদার গাঁজা ব্যবসায়ী পতিবন্ধী রহিম,বস্তির রুমান,জাকির ড্রাইভার, নন্দলালপুর বিরিং ফ্যাক্টরির গল্লিতে মানিক,কাইয়ুম,জসীম,রিক্সা ওয়ালা হাসান,গনি,চোর শফিক,হাওলাদার বাড়ীর ভারাটিয়া রফিক, নন্দলালপুর বটতলার মতুর ছেলে রুবেল,চোর মামুন,
দেলপাড়া টাওয়ার পাড় এর ডাঃ সজীব,অটো রাসেল,কারী মোল্লার ছেলে আলম,মনির,আরমান,মুন্না পাকিস্তানি, পশ্চিম দেলপাড়া এলাকার অনিক,দেলপাড়ার জামান,ইকবাল,দেলপাড়া রাইস মিলের মৃত হান্নান এর ছেলে বোইরা মামুন,পূর্ব দেলপাড়ার রাসেল,ইস্রফিল,চেয়ারম্যান বাড়ী মোড়ের সোর্স আলামিন,চেয়ারম্যান বাড়ী রোডের সোর্স শুভ,চেয়ারম্যান বাড়ীর জামাই সালাম,মাসুম,মধ্য দেলপাড়া এলাকার বুইট্রা অনিক,সিরাজুল কসাই এর ছেলে জুয়েল,দেলপাড়া চানাচুর ফ্যাক্টরির গল্লিতে চান্দু কসাই, ভূইঘর ভূইয়া বাড়ীর জামাল ভূইয়ার ছেলে রনি,বুইক্কার পোলা ফারুক,কামালের ছেলে সোর্স লিটন,ভূইঘর চৌধুরী বাড়ীর আনোয়ার চৌধুরীর ছেলে আরিফ,ভূইঘর ভূইয়া বাড়ীর জামাল ভূইয়ার ছেলে কাউসার,দেলপাড়া করইতলার কাদির খন্দকার এর ছেলে ইসমাইল,চেয়ারম্যান বাড়ীর আওলাদের ছেলে ফেন্সী সেলিম,তার ভাই আলামিন,একি এলাকার গেসুর ছেলে সাইদুল,দেলপাড়া খানবাড়ীর রাইজ উদ্দিনের ছেলে রাজীব,চেয়ারম্যান বাড়ী রোডের সোহরাব,রাইস মিলে মিয়া বাড়ীর মোতালেবের ছেলে আলমগীর,ভূইঘর পশ্চিম পাড়ার জালাল,আলাল,চানাচুর ফ্যাক্টরি গল্লিতে বাবু,চেয়ারম্যান বাড়ী রোডে বাংলা মনির,চেয়ারম্যান বাড়ী রোডে চৌধুরী বাড়ীর গাঁজা ব্যবসায়ী শুভ,রাইস মিল মিয়াবাড়ীর নাজিম বাবুর্চি ছেলে সাইদ,দেলপাড়া কলেজ রোডের হাকিম বাবুর্চির মেয়ের জামাই সোহেল,ভূইঘর কাজী বাড়ীর আলামিন,জালকুড়ীর সবুজ,ভূইঘরের সোর্স সিএনজি লিটন,দেলপাড়া চেয়ারম্যান বাড়ীর পাশে ভূইয়া বাড়ীর কাল্লু,দেলপাড়া চেয়ারম্যান বাড়ী রোডের ফারুক,সোর্স সবুজ,লতিফ ভূইয়া,পূর্ব দেলপাড়া এলাকার ডান্সার কামাল,ভূইঘর ভূইয়া বাড়ীর রাব্বি,তক্কার মাঠের হবু,রাসেল,শাকিল,চোর মামুন, আলীগঞ্জ রেললাইনের পূর্ব পাশে গাঁজা ব্যবসায়ী খোকা,মেহারীর ছেলে সোহেল,রেললাইন মসজিদের সাথে আফসার ড্রাইভার, রসুলপুর মাডা পট্রি মুডো সুমন,একি এলাকার দুলালের ছেলে রুহুল আমিন,মাডা পট্রির মিজান,মাডা পট্রির রশিদ সরদার এর ছেলে মিলনের মদি দোকানের পাশাপাশি জুয়া সহ রাতভর চলে মিলনের রমরমা মাদক ব্যবসা, আলীগঞ্জ পূর্বপাড়ার বক্কর মেম্বার এর ভাই শেক্কুয়া,আলীগঞ্জ রেললাইনের পূর্ব পাশে মাদ্রাসা রোডে পোকনের ছেলে জসিম, আলীগঞ্জ রেললাইন মসজিদের পাশে আফসার ড্রইভারের ছেলে ইকবাল ড্রাইভার,আলীগঞ্জ তিন রাস্তার মোড় এলাকার ওয়াসিম,একি এলাকার বারেক এর ছেলে ড্রইভার জুয়েল,ও তার ছোট ভাই আহাম্মদ এবং কালা বিল্লাল,ইজ্জৎ মহাজন এর বাড়ীর গল্লিতে সাবু মিয়ার ছেলে চোর শাহীন,একি গল্লি এলাকার ইসহাক মিস্ত্রীর ছেলে কেপ রুহুল তার ছোট ভাই সজীব এবং বড়জাহানের ছেলে আত্তার,অলীহাজ্বীর ছেলে হাফিজ, আলীগঞ্জ মসজিদ রোডের সালাম ড্রাইভারের ছেলে রাশু,আলীগঞ্জ পাচঁতলার মোড়ে মোল্লার ছেলে মোস্তাকিম,আব্দুল মজিদের ছেলে সল্টু রাসেল,পাচঁতলার আলীগঞ্জ মোল্লা বাড়ীর মৃত আলমাছ মরল এর ছেলে চোল্লা মাসুম,কাজীপাড়ার নাজমুল,

 

মোক্তার, আলীগঞ্জ জং বাড়ী মধ্যপাড়ার মৃত আবুল এর ছেলে লম্বা জুয়েল,জং বাড়ী মধ্যপাড়ার রাজীব,জং বাড়ীর টেবলেট সুমন,আলীগঞ্জ তিন রাস্তার মোড় এর হাইদু,ইসহাক মিস্ত্রীর ছেলে সজীব,আহাম্মদ,আরমান,আলীগঞ্জ মেইন রোডের বিপ্লব, মোফাজ্জল কাজীর ছেলে টার্নিং জুয়েল,আলীগঞ্জ অটো গ্যারেজের ইসলার ছেলে মুটো রুবেল,আলীগঞ্জ স’মিল রোড বাসেদ এর বাড়ীর ভাড়াটিয়া মৃত আব্দুর সাত্তার মিয়ার ছেলে বাবু ড্রাইভার,স”মিল এর পাশে জরিনার ছেলে সুন্দর রনি,ইজ্জৎ মহাজন এর বাড়ীর গল্লিতে পোটলা রুবেল,বাইট্টা ইমরান,আলীগঞ্জ পাচঁ তলার মোড়ে লেহার নাতি ইমরান, ইলিয়াসের ছেলে আওলাদ, আলীগঞ্জ নতুন বাজারের নাইম,

 

আলীগঞ্জ পূর্বপাড়ার বক্কর মেম্বার এর ভাই শেক্কুয়া,আলীগঞ্জ রেললাইনের পূর্ব পাশে মাদ্রাসা রোডে পোকনের ছেলে জসিম, আলীগঞ্জ রেললাইন মসজিদের পাশে আফসার ড্রইভারের ছেলে ইকবাল ড্রাইভার প্রমুখ। তবে এদের মধ্যে বৈরাগী বাড়ির রজ্জব মুস্তাফিজ মৃত্যুবরন করেন। আবার এ তালিকার কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী জেলহাজতেও বর্তমানে অবস্থান করছে। যারা জেলহাজতে অবস্থান করছেন তাদের সঙ্গীরা দিব্ব্যি প্রকাশ্যে মাদক বিক্রি করছে বলেও অভিযোগ রয়েছে স্থানীয়দের।

 

সরেজমিনে ঘুরে এবং স্থানীয়দের দেয়া তথ্যানুযায়ী কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টুর বাড়ির চর্তুপাশে মাদক বিক্রেতাদের বসবাস এবং ক্রয়/বিক্রয়ের ঘাটি হলেও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি হিসেবে মাদক নির্মুলে তার তেমন কোন উদ্দ্যোগ দেখতে পায়নি সেখানে বসবাসকারীরা। তবে মাঝে মধ্যে ইভটিজারদেরকে ধরে মাথা ন্যাড়া করার বিষয়টি সর্ম্পকে স্থানীয়রা অনেকভাবেই অবগত। তাদের মতে ইভটিজারের চেয়েও অত্যাধিক ভয়ংকর মাদক বিক্রেতারা হলেও সে বিষয়ে তেমন কোন ভ্রুক্ষেপ নেই স্থানীয় জনপ্রতিনিধির। স্থানীয় বাসিন্দাগন মাদক নির্মুলে পুলিশ প্রশাসনকে আরো বেশী সচেতন হওয়ার আহবান জানান।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD