ফতুল্লায় সেক্সকুইন শান্তা ইসলাম ময়নার রমরমা বিয়ে বাণিজ্য ও প্রতারনা!

নিজেস্ব প্রতিবেদক উজ্জীবিত বাংলাদেশ: প্রথমে কোন ব্যক্তি দেখলে মনে করবে কোন নামীদামী পরিবারের সন্তান। আসলে সে কোন নামীদামী পরিবারের সন্তান না। সে একজন সামান্য পরিবারের মেয়ে। এবং তার মুলকাজ খানদানী পরিবারের কোন যুবককে প্রেমে আকৃষ্ট করে অবাধ চলাচল এবং বিয়ে করে কয়েকদিন সংসার করে তালাক প্রদান করা এবং একাধিক নিকট অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার তার মুল কাজ।

 

মেয়েটির নাম শান্তা ইসলাম ময়না। সে বর্তমান নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা থানাধীন পাগলা পশ্চিম নন্দলালপুর এলাকাতে একটি ভাড়া বাড়ীতে বসবাস করেন। তার প্রতারনার শিকার হয়ে ইতিমধ্যে একজন এলাকা ছেড়ে চলে গেছেন। আর যাতে কোন যুবককে প্রেমে আকৃষ্ট করে সর্বশান্ত না করতে পারে সে বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের নজর দাবী করেছেন ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।

 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা থানাধীন পাগলা পশ্চিম নন্দলালপুর এলাকায় দীর্ঘ দিন যবত হালিম মিয়ার ২ ছেলে ৪ মেয়েকে নিয়ে সপরিবারে অত্র এলাকায় বসবাস করছেন । ইতিমধ্যে তার ছোট মেয়ে শান্তা ইসলাম (ময়না) শরিয়তপুর জেলার মোঃ জিবনকে প্রেমের ফাদে ফেলে বিবাহ করে। কিছুদিন যেতে না যেতে ময়না তার কার্জকলাপে বিব্রত হয়ে মোটা অংকের টাকা নিয়ে জিবনকে তালাক দেয়।

 

এতেও থেমে নেই শান্তা ইসলাম ময়না। তালাকের বিষয়টি ময়না গোপন রেখে কিছুদিন পর কুয়েত প্রবাসী এক যুবকের সাথে অর্থ আত্মসাৎ করার জন্য এক বছর প্রেমের অভিনয় করে তাকে গত ৫ বছর আগে নোটারি পাবলিক এ গিয়ে মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদীখান থানাধীন কংসপুর এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে মোঃ রাকিব খান নামের এক যুবককে বিয়ে করে।

 

বিয়ের তিন মাসপর ময়নাকে তার পরিবারের সাথে রেখে পুর্নরায় রাকিব কুয়েত চলে যান। কুয়েত প্রবাসী রাকিবের কস্টের উপার্জিত অর্থ দিয়ে ময়না পাগলা নন্দলালপুর এলাকায় রাকিবের নামে দলিল করে জমি কিনার কথা বলে ময়না। তারপর ময়নার ব্যাংক একাউন্টে কয়েক বারে প্রায় ২৭ লাখ টাকা পাঠান রাকিব। রাকিবের পাঠানো অর্থ দিয়ে দেড় কাটা জমিও কিনেন ময়না। বিয়ের পরথেকে ময়নাকে ১৬ ভরি স্বর্ণ অলংকার কিনে দেন রাকিব। হঠাৎ ছুটিতে বাংলাদেশে এলেন রাকিব। তার কস্টে উপার্জিত অর্থে কিনা জমির দলিল দেখতে চাইলে ময়না বলেন আগে বাড়ী ভানিয়ে দাও পরে দলিল দিবো। রাকিব তখনো বুঝে উঠতে পারেনি যে জমিটি ময়না তার নিজের নামে দলিল করেছে।তারপরও থেমে থাকেনী শান্তা ইসলামের একের পর এক কলগার্ল বাণিজ্য। উক্ত অসামাজিক কার্যকলাপ দেখে তৎকালীন স্বামী নিষেধ করলে ময়না একপর্যায়ে রাকিবকে ময়নার পক্ষথেকে তালাকনামা পাঠিয়ে দেওয়া হয়।তালাকপত্র পাঠিয়ে দেওয়ার সুবাদে ময়নার কাছে রাকিবের দেওয়া অর্থ ফেরত চাওয়া হলে, রাকিবকে হত্যার হুমকি প্রদান করে ময়না ও তার পরিবারের লোকজন। ময়নার বাড়ী থেকে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন মোবাইল নাম্বারের মাধ্যমে ফোন করে রাকিবকে প্রাণনাশের হুমকি অব্যাহত রয়েছে। রাকিবের ৫ বছরের প্রবাস জিবনের কস্টে উপার্জিত সর্বশ অর্থ আত্মসাৎ এর বেদনা ও যন্ত্রণায় মানসিক দিশেহারা হয়ে দিন যাপন করছেন বলেও একাধিক সুত্রে জানা যায়।

 

শুধু তাই নয় গত কয়েক সপ্তাহ যাবত শান্তা ইসলাম (ময়না) তিন সন্তানের জনক আলমগীর ইসলাম পাঠানকে জরিয়ে ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি ছবি পোষ্ট করেন । উক্ত ছবি সামাজিক ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে এলাকার বিভিন্ন স্থানে শুরু হয় নানা গুঞ্জন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ফতুল্লা থেকে নদীর ওপার কাউটাইলে আলমগীর ইসলাম পাঠানের প্রথম স্ত্রী ও তার এক মেয়ে ফারিয়া মীম(১৮), দুই ছেলে সাহিদ (১২), ওমর ফারুক (১০),কে রেখে তার স্ত্রীকে না জানিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করে। এখন আলমগীর ইসলামকে নিয়ে স্বামী স্ত্রীর পরিচয়ে ময়নার ভাড়া বাড়িতে বসবাস করছেন বলেও জানাগেছে।

 

এলাকা সুত্রে জানা যায়, আলমগীরের কাউটাইল ও আলীগঞ্জসহ কয়েকটি বাড়ী রয়েছে, আর সেই সুবাদে ময়না তাকে অর্থে লোভে বিয়ে করেছে। শুধু তাই নয় অনুসন্ধানে জানা গেছে শান্তা ইসলাম (ময়না) বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, ইমু, টিকটকে অশ্লীল ভিডিও এবং ছবির মাধ্যমে পাগলা বৌবাজার এলাকার সাদেক, আলীগঞ্জের নাজমুল, নাম না বলা আরো একাধিক যুবককে প্রেমের ফাদে ফেলে অর্থ আদায় করাসহ জড়িয়ে ধরা ও চুমা খাওয়া অবস্থায় অসংখ্য ছবি পাওয়া গেছে।

 

ময়নার এমন অসামাজিক কর্মকান্ডের প্রতিবাদ জানিয়ে অত্র এলাকার একাধিক সমাজকর্মীরা বলেন, সমাজে যারা সামান্য অর্থের লোভে একাধিক যুবকদের জিবন ও অসংখ্য পরিবারের সংসার নষ্ট করছে, তাদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবী জানিয়েছেন। এখন থেকে এইসব অসামাজিক কজের বিরুদ্ধে রোখে না দাড়ালে পরবর্তিতে এর তীব্র আকার ধারন করতে পারে বলেও জানান অত্র এলাকার সমাজকর্মীরা।
(শান্তা ইসলাম ময়নার অজানা আরো তথ্য জানতে আমাদের সাথেই থাকুন)
Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» দেশের মানুষ কষ্ট পেলে আমার বাবার আত্মা কষ্ট পাবে

» কলাপাড়ায় যাত্রীবাহি বাস নিয়ন্ত্রন হারিয়ে পুকুরে- আহত-১৫

» মৌলভীবাজারে দিনব্যাপী দাবা প্রতিযোগিতা

» বেনাপোল সীমান্তে চোরাচালানী সিন্ডিকেট প্রধান জাহিদ আটক, ৬ নারী পুরুষ উদ্ধার

» সিডনিতে শরীয়তপুর এসোসিয়েশন অব অস্ট্রেলিয়া এর ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

» যে কারণে বিশ্বকাপে আলো ছড়িয়েই যাচ্ছেন সাকিব

» পল্টনে ছাত্রদলের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, ককটেল বিস্ফোরণ

» অব্যাহতি

» ৩০ কোটি টাকার সড়ক নির্মাণে অনিয়ম : ঢালাইয়ের পরেরদিন উঠে যাচ্ছে কার্পেটিং

» বাল্য বিয়ে দিতে গিয়ে হরিণাকুন্ডুর ৪ ইউপি চেয়ারম্যানকে জরিমানা !




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
বার্তা সম্পাদকঃ সাদ্দাম হো‌সেন শুভ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD




আজ : মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ১১ই আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ফতুল্লায় সেক্সকুইন শান্তা ইসলাম ময়নার রমরমা বিয়ে বাণিজ্য ও প্রতারনা!

নিজেস্ব প্রতিবেদক উজ্জীবিত বাংলাদেশ: প্রথমে কোন ব্যক্তি দেখলে মনে করবে কোন নামীদামী পরিবারের সন্তান। আসলে সে কোন নামীদামী পরিবারের সন্তান না। সে একজন সামান্য পরিবারের মেয়ে। এবং তার মুলকাজ খানদানী পরিবারের কোন যুবককে প্রেমে আকৃষ্ট করে অবাধ চলাচল এবং বিয়ে করে কয়েকদিন সংসার করে তালাক প্রদান করা এবং একাধিক নিকট অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার তার মুল কাজ।

 

মেয়েটির নাম শান্তা ইসলাম ময়না। সে বর্তমান নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা থানাধীন পাগলা পশ্চিম নন্দলালপুর এলাকাতে একটি ভাড়া বাড়ীতে বসবাস করেন। তার প্রতারনার শিকার হয়ে ইতিমধ্যে একজন এলাকা ছেড়ে চলে গেছেন। আর যাতে কোন যুবককে প্রেমে আকৃষ্ট করে সর্বশান্ত না করতে পারে সে বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের নজর দাবী করেছেন ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।

 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা থানাধীন পাগলা পশ্চিম নন্দলালপুর এলাকায় দীর্ঘ দিন যবত হালিম মিয়ার ২ ছেলে ৪ মেয়েকে নিয়ে সপরিবারে অত্র এলাকায় বসবাস করছেন । ইতিমধ্যে তার ছোট মেয়ে শান্তা ইসলাম (ময়না) শরিয়তপুর জেলার মোঃ জিবনকে প্রেমের ফাদে ফেলে বিবাহ করে। কিছুদিন যেতে না যেতে ময়না তার কার্জকলাপে বিব্রত হয়ে মোটা অংকের টাকা নিয়ে জিবনকে তালাক দেয়।

 

এতেও থেমে নেই শান্তা ইসলাম ময়না। তালাকের বিষয়টি ময়না গোপন রেখে কিছুদিন পর কুয়েত প্রবাসী এক যুবকের সাথে অর্থ আত্মসাৎ করার জন্য এক বছর প্রেমের অভিনয় করে তাকে গত ৫ বছর আগে নোটারি পাবলিক এ গিয়ে মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদীখান থানাধীন কংসপুর এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে মোঃ রাকিব খান নামের এক যুবককে বিয়ে করে।

 

বিয়ের তিন মাসপর ময়নাকে তার পরিবারের সাথে রেখে পুর্নরায় রাকিব কুয়েত চলে যান। কুয়েত প্রবাসী রাকিবের কস্টের উপার্জিত অর্থ দিয়ে ময়না পাগলা নন্দলালপুর এলাকায় রাকিবের নামে দলিল করে জমি কিনার কথা বলে ময়না। তারপর ময়নার ব্যাংক একাউন্টে কয়েক বারে প্রায় ২৭ লাখ টাকা পাঠান রাকিব। রাকিবের পাঠানো অর্থ দিয়ে দেড় কাটা জমিও কিনেন ময়না। বিয়ের পরথেকে ময়নাকে ১৬ ভরি স্বর্ণ অলংকার কিনে দেন রাকিব। হঠাৎ ছুটিতে বাংলাদেশে এলেন রাকিব। তার কস্টে উপার্জিত অর্থে কিনা জমির দলিল দেখতে চাইলে ময়না বলেন আগে বাড়ী ভানিয়ে দাও পরে দলিল দিবো। রাকিব তখনো বুঝে উঠতে পারেনি যে জমিটি ময়না তার নিজের নামে দলিল করেছে।তারপরও থেমে থাকেনী শান্তা ইসলামের একের পর এক কলগার্ল বাণিজ্য। উক্ত অসামাজিক কার্যকলাপ দেখে তৎকালীন স্বামী নিষেধ করলে ময়না একপর্যায়ে রাকিবকে ময়নার পক্ষথেকে তালাকনামা পাঠিয়ে দেওয়া হয়।তালাকপত্র পাঠিয়ে দেওয়ার সুবাদে ময়নার কাছে রাকিবের দেওয়া অর্থ ফেরত চাওয়া হলে, রাকিবকে হত্যার হুমকি প্রদান করে ময়না ও তার পরিবারের লোকজন। ময়নার বাড়ী থেকে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন মোবাইল নাম্বারের মাধ্যমে ফোন করে রাকিবকে প্রাণনাশের হুমকি অব্যাহত রয়েছে। রাকিবের ৫ বছরের প্রবাস জিবনের কস্টে উপার্জিত সর্বশ অর্থ আত্মসাৎ এর বেদনা ও যন্ত্রণায় মানসিক দিশেহারা হয়ে দিন যাপন করছেন বলেও একাধিক সুত্রে জানা যায়।

 

শুধু তাই নয় গত কয়েক সপ্তাহ যাবত শান্তা ইসলাম (ময়না) তিন সন্তানের জনক আলমগীর ইসলাম পাঠানকে জরিয়ে ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি ছবি পোষ্ট করেন । উক্ত ছবি সামাজিক ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে এলাকার বিভিন্ন স্থানে শুরু হয় নানা গুঞ্জন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ফতুল্লা থেকে নদীর ওপার কাউটাইলে আলমগীর ইসলাম পাঠানের প্রথম স্ত্রী ও তার এক মেয়ে ফারিয়া মীম(১৮), দুই ছেলে সাহিদ (১২), ওমর ফারুক (১০),কে রেখে তার স্ত্রীকে না জানিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করে। এখন আলমগীর ইসলামকে নিয়ে স্বামী স্ত্রীর পরিচয়ে ময়নার ভাড়া বাড়িতে বসবাস করছেন বলেও জানাগেছে।

 

এলাকা সুত্রে জানা যায়, আলমগীরের কাউটাইল ও আলীগঞ্জসহ কয়েকটি বাড়ী রয়েছে, আর সেই সুবাদে ময়না তাকে অর্থে লোভে বিয়ে করেছে। শুধু তাই নয় অনুসন্ধানে জানা গেছে শান্তা ইসলাম (ময়না) বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, ইমু, টিকটকে অশ্লীল ভিডিও এবং ছবির মাধ্যমে পাগলা বৌবাজার এলাকার সাদেক, আলীগঞ্জের নাজমুল, নাম না বলা আরো একাধিক যুবককে প্রেমের ফাদে ফেলে অর্থ আদায় করাসহ জড়িয়ে ধরা ও চুমা খাওয়া অবস্থায় অসংখ্য ছবি পাওয়া গেছে।

 

ময়নার এমন অসামাজিক কর্মকান্ডের প্রতিবাদ জানিয়ে অত্র এলাকার একাধিক সমাজকর্মীরা বলেন, সমাজে যারা সামান্য অর্থের লোভে একাধিক যুবকদের জিবন ও অসংখ্য পরিবারের সংসার নষ্ট করছে, তাদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবী জানিয়েছেন। এখন থেকে এইসব অসামাজিক কজের বিরুদ্ধে রোখে না দাড়ালে পরবর্তিতে এর তীব্র আকার ধারন করতে পারে বলেও জানান অত্র এলাকার সমাজকর্মীরা।
(শান্তা ইসলাম ময়নার অজানা আরো তথ্য জানতে আমাদের সাথেই থাকুন)
Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
বার্তা সম্পাদকঃ সাদ্দাম হো‌সেন শুভ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD