কালনাগিনী সাপ ঠিক কতটা বিষাক্ত

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার:- কালনাগিনী দংশন করলে আর রক্ষে নেই! প্রাণ বায়ু বিসর্জন দিয়ে দিতে হবে। সত্যি বলতে এই সব ধারণাই আমাদের অজ্ঞতা ও আমাদের ভুল ধারণা। বাস্তবিকপক্ষে কালনাগিনী অমন বিষাক্ত কোনো সাপ তো নয় ই আর অলৌকিক ও ভয়ানক কিছুই নয়। বাংলা সিনেমাতে কালনাগিনী সাপের ভয়ংকর কালো রূপ দেখে আমাদের সবার মনে এটা বদ্ধ ধারণা হয়ে গেছে যে কালনাগিনী সাপটা আসলেই মারাত্মক ভয়ানক এক সাপ। কেউ কেউ তো এটাকে অলৌকিক ক্ষমতাধর সাপ ও ভেবে থাকেন। প্রকৃত পক্ষে এই সাপটি শান্ত প্রকৃতির এবং দিবাচর। অর্থাৎ দিনে চলাফেরা করে। গ্রাম এলাকার মানুষ যেটাকে “উড়াল মহারাজ বা উড়াল গাড়া” নামে ডেকে থাকেন। তারা এ সাপটাকে যেভাবে বর্ণনা করতো শুনে গায়ে কাঁটা দিতো। কিন্তু এখন জেনেছি আসলে এটাই কালনাগিনী আর এটা কোনো আহামরি বিষাক্ত ও ভয়ানক কোনো সাপ নয়। কালনাগিনীর ইংরেজি নাম অর্নেট ফ্লাইয়িং স্নেইক। আর বাংলায় একে উড়ন্ত সাপ, উড়াল মহারাজ, কাল নাগিনী, কাল নাগ, নাগিন, আর হিন্দিতে কালা জিন নামে ডাকা হয়। এর বৈজ্ঞানিক নাম- ঈৎুংড়ঢ়বষবধ ড়ৎহধঃধ যার তিনটি সাবস্পিশিস রয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশে যেটা পাওয়া যায় সেটা হচ্ছে ঈ.ড়.ড়ৎহধঃরংংরসধ। সাপটির মূলত দুই ধরণের রং হয়ে থাকে। একটা সবুজাভ হলুদ যার মাঝে ডোরা ডোরা রয়েছে আরেকটা কালচে যার মাঝে লালচে ও হলদে ডোরা রয়েছে। পৃথিবীতে এখন অবধি জানা তথ্যমতে ৫ প্রজাতির উড়ন্ত সাপ রয়েছে অর্থাৎ যারা উড়তে পারে আর কালনাগিনী তাদের একটা। এরা আর্বোরিয়াল তথা বৃক্ষবাসী এবং এক গাছ হতে অন্য গাছে লাফিয়ে যেতে পারে যাকে গাইডিং বলে। আর এই ব্যাপারটাকেই উড়ে যাওয়া বলা হয়। সাপটি মৃদুমাত্রায় বিষাক্ত এবং এ বিষ মানুষের জন্য মোটেই ক্ষতিকর নয়। উলেখ- বিপন্ন প্রজাতির কালনাগিনী সাপ গত ৫ জুলাই দুপুরে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার মেয়র মো. মহসীন মিয়া মধুর বাসার সামনের একটি কলাগাছ থেকে উদ্ধার করা হয়। শেষে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব এর সহযোগীতায় ‘কালনাগিনী সাপটি গত শুক্রবার বিকালে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে অবমুক্ত করা হয়।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» ডামুড্যায় জয়ন্তীর পক্ষ থেকে দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যে বই বিতরণ 

» মুন্সীগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি অনুমোদন 

» নওগাঁয় অটিজম ও বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

» শার্শার কলেজ ছাত্রীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় পরিবারের ওপর হামলা

» রাণীনগরের সেই বেড়ি বাঁধ ভেঙ্গে ৩টি গ্রাম প্লাবিত” পানি বন্দি প্রায় ১৫ হাজার মানুষ

» ঔষধ কোম্পানী প্রতিনিধিদের পাঁচ দফা দাবি নিয়ে মানববন্ধন ও সমাবেশ

» সরকারি হাসপাতালে নবজাতকের গলা কেটে পালিয়ে গেলেন নার্স

» ফতুল্লায় বহু অপকর্মের হোতা চিহ্নিত সোর্স পান্নাসহ তার সহযোগী গ্রেফতার

» মৎস্য বন্দর মহিপুরে চলছে খাস জমি দখলের মাহোৎসব

» বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD




আজ : শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৫ই শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কালনাগিনী সাপ ঠিক কতটা বিষাক্ত

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার:- কালনাগিনী দংশন করলে আর রক্ষে নেই! প্রাণ বায়ু বিসর্জন দিয়ে দিতে হবে। সত্যি বলতে এই সব ধারণাই আমাদের অজ্ঞতা ও আমাদের ভুল ধারণা। বাস্তবিকপক্ষে কালনাগিনী অমন বিষাক্ত কোনো সাপ তো নয় ই আর অলৌকিক ও ভয়ানক কিছুই নয়। বাংলা সিনেমাতে কালনাগিনী সাপের ভয়ংকর কালো রূপ দেখে আমাদের সবার মনে এটা বদ্ধ ধারণা হয়ে গেছে যে কালনাগিনী সাপটা আসলেই মারাত্মক ভয়ানক এক সাপ। কেউ কেউ তো এটাকে অলৌকিক ক্ষমতাধর সাপ ও ভেবে থাকেন। প্রকৃত পক্ষে এই সাপটি শান্ত প্রকৃতির এবং দিবাচর। অর্থাৎ দিনে চলাফেরা করে। গ্রাম এলাকার মানুষ যেটাকে “উড়াল মহারাজ বা উড়াল গাড়া” নামে ডেকে থাকেন। তারা এ সাপটাকে যেভাবে বর্ণনা করতো শুনে গায়ে কাঁটা দিতো। কিন্তু এখন জেনেছি আসলে এটাই কালনাগিনী আর এটা কোনো আহামরি বিষাক্ত ও ভয়ানক কোনো সাপ নয়। কালনাগিনীর ইংরেজি নাম অর্নেট ফ্লাইয়িং স্নেইক। আর বাংলায় একে উড়ন্ত সাপ, উড়াল মহারাজ, কাল নাগিনী, কাল নাগ, নাগিন, আর হিন্দিতে কালা জিন নামে ডাকা হয়। এর বৈজ্ঞানিক নাম- ঈৎুংড়ঢ়বষবধ ড়ৎহধঃধ যার তিনটি সাবস্পিশিস রয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশে যেটা পাওয়া যায় সেটা হচ্ছে ঈ.ড়.ড়ৎহধঃরংংরসধ। সাপটির মূলত দুই ধরণের রং হয়ে থাকে। একটা সবুজাভ হলুদ যার মাঝে ডোরা ডোরা রয়েছে আরেকটা কালচে যার মাঝে লালচে ও হলদে ডোরা রয়েছে। পৃথিবীতে এখন অবধি জানা তথ্যমতে ৫ প্রজাতির উড়ন্ত সাপ রয়েছে অর্থাৎ যারা উড়তে পারে আর কালনাগিনী তাদের একটা। এরা আর্বোরিয়াল তথা বৃক্ষবাসী এবং এক গাছ হতে অন্য গাছে লাফিয়ে যেতে পারে যাকে গাইডিং বলে। আর এই ব্যাপারটাকেই উড়ে যাওয়া বলা হয়। সাপটি মৃদুমাত্রায় বিষাক্ত এবং এ বিষ মানুষের জন্য মোটেই ক্ষতিকর নয়। উলেখ- বিপন্ন প্রজাতির কালনাগিনী সাপ গত ৫ জুলাই দুপুরে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার মেয়র মো. মহসীন মিয়া মধুর বাসার সামনের একটি কলাগাছ থেকে উদ্ধার করা হয়। শেষে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব এর সহযোগীতায় ‘কালনাগিনী সাপটি গত শুক্রবার বিকালে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে অবমুক্ত করা হয়।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD