ভরা পূর্ণিমা- সেলিম মিয়া

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ভরা পূর্ণিমার রাতে, ধনু নদীর তীরে গিয়েছিলাম। সবুজ ঘাসের বিছানায়, বসে ছিলাম। চাঁদের বুকে, চাঁদের বুড়ির, সুতো কাটা দেখছিলাম। মাঝে মধ্যে নদীর পানি বয়ে যাওয়া স্রোত আর মাছ ধরা জেলেদের নৌকা চলাচল আবছা আবছা আলোয় দেখতে খুব ভালো লাগছিল। দক্ষিণা বাতাসের, শীতলতা অনুভবে, কখন যেন নয়ন জুড়িয়ে ঝিম ঝিম আসছিল। হঠাৎ ক্ষিরে ক্ষেতের তিনজন পাহারাদার এসে টর্চ লাইট জ্বালিয়ে আমার মুখটা দেখে। নাম ঠিকানা জিজ্ঞাসা করে। আমার ঝিম কেটে যায়। দেখি, ওদের মুখে মাস্ক নেই। আমি প্রশ্ন স্বরে বললাম; জ্যোৎস্না রাত তবুও টর্চ লাইট জ্বালিয়ে দেখছো কেন? তোমাদের মুখে মাস্ক নেই কেন? আমার এত কাছে এসেছো, কেন? পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে চলো। একজন বললো ও স্যার। বড় স্যার একা একা এখানে। খুব ভালো হলো। আমরা স্যারের পাশে বসি। গল্প করি। যেই কথা সেই কাজ। মাত্র এক ফিট ব্যাবধাণ রেখে বসে পড়ল। আমি বললাম একা না। আমার সঙ্গে তিনজন আছে। নদী, চাঁদ, আর সৃষ্টি কর্তা। আরেকজন অতি আস্তে ফিসফিসিয়ে বলল, স্যার মনে হয় আধ পাগল। আধ পাগল কথাটা বাতাসে ভেসে আমার কানে আসে। ওঁরা আমার কাছাকাছি বসে আছে। শান্তির খোঁজে নিস্তব্ধ নিরবে আসলাম। এখানে ও মহামারী ভাইরাস ছোঁয়াচে করোনা রোগের বিষয়ে সচেতন থাকার উপায় নেই। ভাবলাম নিজেকে সচেতন রাখছি। সচেতনতার লক্ষ্যে প্রতিদিন আমার দায়িত্ব প্রাপ্ত তিনটি ইউনিয়নে মাইকিংয়ের মাধ্যমে সচেতন থাকতে বলছি। বলা পর্যন্তই কি শেষ? লজ্জা দিতে কান ধরানোর একটা রেওয়াজ ছিল। জনৈক এসি ল্যান্ডকে প্রত্যাহার করার কারণে তাও বন্ধ হয়ে গেছে। লাঠি পেটা করতে ও ভয় হয়। একবার এক ছেলেকে লাঠি দিয়ে একটা বাড়ি দিতেই অসতর্কতার কারনে, জোরে লেগে ফুলে যায়। প্রভাবশালীর ছেলে বিধায় আত্মসম্মান রক্ষার্থে আমার নামে মামলা করে। ঐ মামলা ঠেকাতে আমার অনেক বেগ পেতে হয়। অনেক কিছু ম্যানেজ করতে, সেসময় আমি ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ি। সেই কথা মনে করে ভাবলাম, হে বিধাতা তুমিই একমাত্র ভরসা। আমি সচেতন থাকছি, অথচ অন্যরা তো সচেতন হচ্ছে না। তাহলে করোনা মুক্ত বাংলাদেশ হবে কবে? সৃষ্টি কর্তার উপর ভরসা করে, অবশেষে ফিরে এলাম চার দেয়ালের ছোট্ট ঘরে।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» নড়াইলে প্রেসিডেন্ট গ্রাম প্রতিরক্ষা দল সেবা পদক পেলেন রেখা পারভীন

» মার্চ ফর ডেমোক্রেসির ৬৯তম দিনে বগুড়ায় হানিফ বাংলাদেশী

» ১২ দফা দাবি আদায়ে বাংলাদেশ রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটির কর্মসূচি ঘোষণা

» ঝিনাইদহে ঘর বুঝে পেল ১’শ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার

» চুয়াডাঙ্গায় যুবলীগ নেতা মিলনকে কুপিয়ে হত্যাচেষ্টা

» বেনাপোলে ১৫৫ পিচ ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

» নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রেস ক্লাব’র সহ-সভাপতি প্রিন্স সাংগঠনিক সম্পাদক ডালিম 

» ফতুল্লায় পরকীয়ায় ঘর ছাড়লেন প্রবাসীর স্ত্রী

» স্টার্টআপ যশোর এর “স্টার্টআপ ক্যাম্প ২০২১” এর সফল সমাপ্তি

» গলাচিপায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন-২০২১




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, খ্রিষ্টাব্দ, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভরা পূর্ণিমা- সেলিম মিয়া

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ভরা পূর্ণিমার রাতে, ধনু নদীর তীরে গিয়েছিলাম। সবুজ ঘাসের বিছানায়, বসে ছিলাম। চাঁদের বুকে, চাঁদের বুড়ির, সুতো কাটা দেখছিলাম। মাঝে মধ্যে নদীর পানি বয়ে যাওয়া স্রোত আর মাছ ধরা জেলেদের নৌকা চলাচল আবছা আবছা আলোয় দেখতে খুব ভালো লাগছিল। দক্ষিণা বাতাসের, শীতলতা অনুভবে, কখন যেন নয়ন জুড়িয়ে ঝিম ঝিম আসছিল। হঠাৎ ক্ষিরে ক্ষেতের তিনজন পাহারাদার এসে টর্চ লাইট জ্বালিয়ে আমার মুখটা দেখে। নাম ঠিকানা জিজ্ঞাসা করে। আমার ঝিম কেটে যায়। দেখি, ওদের মুখে মাস্ক নেই। আমি প্রশ্ন স্বরে বললাম; জ্যোৎস্না রাত তবুও টর্চ লাইট জ্বালিয়ে দেখছো কেন? তোমাদের মুখে মাস্ক নেই কেন? আমার এত কাছে এসেছো, কেন? পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে চলো। একজন বললো ও স্যার। বড় স্যার একা একা এখানে। খুব ভালো হলো। আমরা স্যারের পাশে বসি। গল্প করি। যেই কথা সেই কাজ। মাত্র এক ফিট ব্যাবধাণ রেখে বসে পড়ল। আমি বললাম একা না। আমার সঙ্গে তিনজন আছে। নদী, চাঁদ, আর সৃষ্টি কর্তা। আরেকজন অতি আস্তে ফিসফিসিয়ে বলল, স্যার মনে হয় আধ পাগল। আধ পাগল কথাটা বাতাসে ভেসে আমার কানে আসে। ওঁরা আমার কাছাকাছি বসে আছে। শান্তির খোঁজে নিস্তব্ধ নিরবে আসলাম। এখানে ও মহামারী ভাইরাস ছোঁয়াচে করোনা রোগের বিষয়ে সচেতন থাকার উপায় নেই। ভাবলাম নিজেকে সচেতন রাখছি। সচেতনতার লক্ষ্যে প্রতিদিন আমার দায়িত্ব প্রাপ্ত তিনটি ইউনিয়নে মাইকিংয়ের মাধ্যমে সচেতন থাকতে বলছি। বলা পর্যন্তই কি শেষ? লজ্জা দিতে কান ধরানোর একটা রেওয়াজ ছিল। জনৈক এসি ল্যান্ডকে প্রত্যাহার করার কারণে তাও বন্ধ হয়ে গেছে। লাঠি পেটা করতে ও ভয় হয়। একবার এক ছেলেকে লাঠি দিয়ে একটা বাড়ি দিতেই অসতর্কতার কারনে, জোরে লেগে ফুলে যায়। প্রভাবশালীর ছেলে বিধায় আত্মসম্মান রক্ষার্থে আমার নামে মামলা করে। ঐ মামলা ঠেকাতে আমার অনেক বেগ পেতে হয়। অনেক কিছু ম্যানেজ করতে, সেসময় আমি ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ি। সেই কথা মনে করে ভাবলাম, হে বিধাতা তুমিই একমাত্র ভরসা। আমি সচেতন থাকছি, অথচ অন্যরা তো সচেতন হচ্ছে না। তাহলে করোনা মুক্ত বাংলাদেশ হবে কবে? সৃষ্টি কর্তার উপর ভরসা করে, অবশেষে ফিরে এলাম চার দেয়ালের ছোট্ট ঘরে।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD