ভরা পূর্ণিমা- সেলিম মিয়া

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ভরা পূর্ণিমার রাতে, ধনু নদীর তীরে গিয়েছিলাম। সবুজ ঘাসের বিছানায়, বসে ছিলাম। চাঁদের বুকে, চাঁদের বুড়ির, সুতো কাটা দেখছিলাম। মাঝে মধ্যে নদীর পানি বয়ে যাওয়া স্রোত আর মাছ ধরা জেলেদের নৌকা চলাচল আবছা আবছা আলোয় দেখতে খুব ভালো লাগছিল। দক্ষিণা বাতাসের, শীতলতা অনুভবে, কখন যেন নয়ন জুড়িয়ে ঝিম ঝিম আসছিল। হঠাৎ ক্ষিরে ক্ষেতের তিনজন পাহারাদার এসে টর্চ লাইট জ্বালিয়ে আমার মুখটা দেখে। নাম ঠিকানা জিজ্ঞাসা করে। আমার ঝিম কেটে যায়। দেখি, ওদের মুখে মাস্ক নেই। আমি প্রশ্ন স্বরে বললাম; জ্যোৎস্না রাত তবুও টর্চ লাইট জ্বালিয়ে দেখছো কেন? তোমাদের মুখে মাস্ক নেই কেন? আমার এত কাছে এসেছো, কেন? পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে চলো। একজন বললো ও স্যার। বড় স্যার একা একা এখানে। খুব ভালো হলো। আমরা স্যারের পাশে বসি। গল্প করি। যেই কথা সেই কাজ। মাত্র এক ফিট ব্যাবধাণ রেখে বসে পড়ল। আমি বললাম একা না। আমার সঙ্গে তিনজন আছে। নদী, চাঁদ, আর সৃষ্টি কর্তা। আরেকজন অতি আস্তে ফিসফিসিয়ে বলল, স্যার মনে হয় আধ পাগল। আধ পাগল কথাটা বাতাসে ভেসে আমার কানে আসে। ওঁরা আমার কাছাকাছি বসে আছে। শান্তির খোঁজে নিস্তব্ধ নিরবে আসলাম। এখানে ও মহামারী ভাইরাস ছোঁয়াচে করোনা রোগের বিষয়ে সচেতন থাকার উপায় নেই। ভাবলাম নিজেকে সচেতন রাখছি। সচেতনতার লক্ষ্যে প্রতিদিন আমার দায়িত্ব প্রাপ্ত তিনটি ইউনিয়নে মাইকিংয়ের মাধ্যমে সচেতন থাকতে বলছি। বলা পর্যন্তই কি শেষ? লজ্জা দিতে কান ধরানোর একটা রেওয়াজ ছিল। জনৈক এসি ল্যান্ডকে প্রত্যাহার করার কারণে তাও বন্ধ হয়ে গেছে। লাঠি পেটা করতে ও ভয় হয়। একবার এক ছেলেকে লাঠি দিয়ে একটা বাড়ি দিতেই অসতর্কতার কারনে, জোরে লেগে ফুলে যায়। প্রভাবশালীর ছেলে বিধায় আত্মসম্মান রক্ষার্থে আমার নামে মামলা করে। ঐ মামলা ঠেকাতে আমার অনেক বেগ পেতে হয়। অনেক কিছু ম্যানেজ করতে, সেসময় আমি ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ি। সেই কথা মনে করে ভাবলাম, হে বিধাতা তুমিই একমাত্র ভরসা। আমি সচেতন থাকছি, অথচ অন্যরা তো সচেতন হচ্ছে না। তাহলে করোনা মুক্ত বাংলাদেশ হবে কবে? সৃষ্টি কর্তার উপর ভরসা করে, অবশেষে ফিরে এলাম চার দেয়ালের ছোট্ট ঘরে।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» নারায়ণগঞ্জে ১৬ ইউপিতে চেয়ারম্যান ৬৪, মেম্বার ৬১১ ও জন সংরক্ষিত ১৬৯

» কুতুবপুর ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ডে’র মনোনয়ন পত্র দাখিল করলেন মোঃ জুয়েল আরমান

» ফতুল্লা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯১ ব্যাচ`র ৩০ বছর পূর্তি উদযাপন

» প্রজনন মৌসুমে ইলিশ আহরনে বিরত থাকা জেলেদের মাঝে চাল বিতরণ!

» ফতুল্লায় ইজিবাইক চালককে গলা কেটে হত্যা

» ইউপি নির্বাচনে মেম্বার পদপ্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিলেন আলাউদ্দিন হাওলাদার

» ইউপি নির্বাচনে মহিলা মেম্বার পদে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন অনামিকা হক প্রিয়াঙ্কা

» সরকার নির্ধারিত ১০ টাকা মূল্যে” ৩০ কেজি করে চাল বিতরণ

» আমতলীতে জেলা প্রশাসকের পূজা মন্ডপগুলো পরিদর্শন

» শ্রমিক লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ফতুল্লা থানা মটর শ্রমিক লীগের আনন্দ র‍্যালি

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, খ্রিষ্টাব্দ, ২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ভরা পূর্ণিমা- সেলিম মিয়া

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ভরা পূর্ণিমার রাতে, ধনু নদীর তীরে গিয়েছিলাম। সবুজ ঘাসের বিছানায়, বসে ছিলাম। চাঁদের বুকে, চাঁদের বুড়ির, সুতো কাটা দেখছিলাম। মাঝে মধ্যে নদীর পানি বয়ে যাওয়া স্রোত আর মাছ ধরা জেলেদের নৌকা চলাচল আবছা আবছা আলোয় দেখতে খুব ভালো লাগছিল। দক্ষিণা বাতাসের, শীতলতা অনুভবে, কখন যেন নয়ন জুড়িয়ে ঝিম ঝিম আসছিল। হঠাৎ ক্ষিরে ক্ষেতের তিনজন পাহারাদার এসে টর্চ লাইট জ্বালিয়ে আমার মুখটা দেখে। নাম ঠিকানা জিজ্ঞাসা করে। আমার ঝিম কেটে যায়। দেখি, ওদের মুখে মাস্ক নেই। আমি প্রশ্ন স্বরে বললাম; জ্যোৎস্না রাত তবুও টর্চ লাইট জ্বালিয়ে দেখছো কেন? তোমাদের মুখে মাস্ক নেই কেন? আমার এত কাছে এসেছো, কেন? পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে চলো। একজন বললো ও স্যার। বড় স্যার একা একা এখানে। খুব ভালো হলো। আমরা স্যারের পাশে বসি। গল্প করি। যেই কথা সেই কাজ। মাত্র এক ফিট ব্যাবধাণ রেখে বসে পড়ল। আমি বললাম একা না। আমার সঙ্গে তিনজন আছে। নদী, চাঁদ, আর সৃষ্টি কর্তা। আরেকজন অতি আস্তে ফিসফিসিয়ে বলল, স্যার মনে হয় আধ পাগল। আধ পাগল কথাটা বাতাসে ভেসে আমার কানে আসে। ওঁরা আমার কাছাকাছি বসে আছে। শান্তির খোঁজে নিস্তব্ধ নিরবে আসলাম। এখানে ও মহামারী ভাইরাস ছোঁয়াচে করোনা রোগের বিষয়ে সচেতন থাকার উপায় নেই। ভাবলাম নিজেকে সচেতন রাখছি। সচেতনতার লক্ষ্যে প্রতিদিন আমার দায়িত্ব প্রাপ্ত তিনটি ইউনিয়নে মাইকিংয়ের মাধ্যমে সচেতন থাকতে বলছি। বলা পর্যন্তই কি শেষ? লজ্জা দিতে কান ধরানোর একটা রেওয়াজ ছিল। জনৈক এসি ল্যান্ডকে প্রত্যাহার করার কারণে তাও বন্ধ হয়ে গেছে। লাঠি পেটা করতে ও ভয় হয়। একবার এক ছেলেকে লাঠি দিয়ে একটা বাড়ি দিতেই অসতর্কতার কারনে, জোরে লেগে ফুলে যায়। প্রভাবশালীর ছেলে বিধায় আত্মসম্মান রক্ষার্থে আমার নামে মামলা করে। ঐ মামলা ঠেকাতে আমার অনেক বেগ পেতে হয়। অনেক কিছু ম্যানেজ করতে, সেসময় আমি ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ি। সেই কথা মনে করে ভাবলাম, হে বিধাতা তুমিই একমাত্র ভরসা। আমি সচেতন থাকছি, অথচ অন্যরা তো সচেতন হচ্ছে না। তাহলে করোনা মুক্ত বাংলাদেশ হবে কবে? সৃষ্টি কর্তার উপর ভরসা করে, অবশেষে ফিরে এলাম চার দেয়ালের ছোট্ট ঘরে।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD