বয়সের ভারে নুঁয়ে পড়লেও থেমে নেই ডিম বিক্রেতা মোনছোপ আলী

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

মোঃ রাসেল ইসলাম, যশোর প্রতিনিধি: শতবছর বয়সী মোনছোপ আলী পায়ে হেঁটে গ্রামে গ্রামে ঝালমুড়ি, দুধ, ডিম ইত্যাদি খাদ্যসামগ্রী বিক্রি করেন তিনি। বয়সের ভারে নুঁয়ে পড়লেও থেমে নেই তার সংগ্রামী জীবনের পথ চলা।

 

জীবিকার তাগিদে প্রতিদিন তিনি মাইলের পর মাইল ছুটে চলেন পায়ে হেঁটে। জীবনের শেষ সময়েও সংগ্রামী জীবনে যুদ্ধ করে যাচ্ছেন তিনি। শত বছর পার করলেও জোটেনি বয়স্ক ভাতার কার্ড।

 

বলছিলাম যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর ইউনিয়নের বকুলিয়া গ্রামের ১ শত ২ বছর বয়সের মোনছোপ আলীর কথা।

 

১৯১৯ সালে বকুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। সে অনুযায়ী বর্তমানে তার বয়স ১০২ বছর। তার পিতার নাম- মৃত আব্দুল হামিদ, মাতার নাম- মৃত বেশো বেগম।

 

স্ত্রী মারা গেছেন প্রায় ২৫ বছর আগে। নিঃসঙ্গ মোনছোপ আলীর চার সন্তানের মধ্যে ২ ছেলে ও ২ মেয়ে। তার চার সন্তানই বিবাহিত। তিনি বর্তমানে এক ছেলের সংসারে থাকেন।

 

মোনছোপ আলী জীবনের অধিকাংশ সময় পার করেছেন গ্রামে গ্রামে পায়ে হেঁটে ডিম ফেরি করে। দিন শেষে তার আয় হয় ১০০-১৫০ টাকা। এতেই তিনি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন।

 

৬৫ বছর পূর্ণ হলে সরকারি ভাবে বয়স্ক ভাতার ব্যবস্থা থাকলেও তিনি পাননা কোন সরকারি সুবিধা। ফলে ছেলের অভাবি সংসারে নড়বড়ে শরীর নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করেন মোনছোপ আলী।

 

মোনছোপ আলী বলেন, এখন অনেক বয়স হয়েছে। চোখে ঠিকঠাক দেখতে পায়না। ভাল ভাবে চলতে কষ্ট হয়। গত ৩ বছর ধরে বয়স্ক ভাতার কার্ড করার জন্য ইউনিয়ন পরিষদে ধর্ণা দিয়েও কোন লাভ হয়নি।

 

গেলেই বলে এবারও তোমার কার্ড হবেনা। আজ শুধু একটা কথা জানতে ইচ্ছে করে আর কত বয়স হলে কার্ড পাওয়া যাবে।

 

তিনি আরো বলেন, আমার বড় বোনের বয়স ১শত ৫ বছর দুঃখের বিষয় সেও এখনো বয়স্ক ভাতার আওতাই পড়েনি।

 

ছোট ছোট কন্ঠে মোনছেপ আলী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিনিত অনুরোধ যতদিন বেঁচে থাকি তিনি যেন আমাকে একটি বয়স্ক ভাতার কার্ড করে দেন।

 

উল্লেখ্য : সম্প্রতি শার্শা উপজেলার এক নিষ্ঠাবান সাংবাদিকের মাধ্যমে ফেইসবুকের পাতায় প্রকাশ পায় মোনছোপ আলীকে নিয়ে ছোট্ট একটি প্রতিবেদন।

 

পরে শার্শার কৃতি সন্তান দেশ সেরা উদ্ভাবক খ্যাত সমাজ সেবক মিজানের নজরে আসলে বিষয়টিকে সামনে আনেন তিনি। শনিবার দুপুরে চাল, ডাল, তেল সহ বিভিন্ন সামগ্রী নিয়ে মোনছোপ আলীর বাড়িতে হাজির হন তিনি।

 

মোনছেপ আলীর বাড়িতে কেন এলেন তিনি জানতে চাইলে মিজানুর রহমান বলেন, বিষয়টি আমার ফেইসবুক পেজে আপলোড করার পর নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সচিব আবদুস সামাদ ফারুক মহোদয় লিংকে কমেন্ট করে মোনছেপ আলীর বাড়িতে আসতে বলেন এবং তাকে সাহায্য করার জন্য সার্বিক সহযোগিতা করবেন বলে মনস্থির করেন।
সে কারনেই আজ আমার এখানে আসা। আশা করছি খুব দ্রুতই মোনছোপ আলীর জন্য তার বাড়ির পাশেই একটা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে। গ্রামে গ্রামে আর ঘুরতে হবেনা তার।

 

পাশাপাশি মোনছোপ আলীর বয়স্ক ভাতার জন্য শংকরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নেছার আলীর সাতে কথা হয়েছে। তিনি বয়স্ক ভাতার কার্ড দ্রুত করে দেবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন।

 

উদ্ভাবক মিজান এসময় আরো বলেন, শতবর্ষী এক বাবাকে দেখতে এসেছিলাম। এখানে এসে আরও এক শতবর্ষী মাকে পেলাম। এই মায়ের জন্যও একটি হুইলচেয়ারের পাশাপাশি বয়স্ক ভাতার কার্ডের ব্যবস্থা করতে চাই।

 

সমাজের বৃত্তবান এবং মানবপ্রেমীরা যদি এমন একজন করে শতবর্ষী বৃদ্ধ বাবা মাকে খুঁজে খুঁজে বের করে পাশে দাঁড়ান তাহলে শতবর্ষী বাবার কাঁধে থাকবেনা ডিমের ঝুঁলি, থাকবেনা শতবর্ষী মায়ের কষ্ট।

 

আমরা সবাই যদি স্বস্ব অবস্থান থেকে তার মতো পরিশ্রমী হতে পারতাম, দেশমাতৃকার জন্য ভূমিকা রাখতে পারতাম! তাহলে আজ বাংলাদেশের অবস্থান থাকতো সুউচ্চ শিখরে।
স্যালুট জানাই আমাদের দেশের আইকন একজন কঠোর পরিশ্রমী মুরব্বিকে যিনি অন্যের কাছে হাত পেতে নয়, পরিশ্রম করে খেয়ে বেঁচে থাকার চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

 

শংকরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নেছার উদ্দিন বলেন, মনছোপ আলীর বিষয়টি আমরা গুরুত্বের সাথে দেখছি। এই মুহুর্তে বয়স্ক ভাতার কার্ড নেই তবে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে তার জন্য একটি বয়স্ক ভাতার কার্ডের ব্যবস্থা করার জন্য চেষ্টা করবো।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» নারায়ণগঞ্জে ১৬ ইউপিতে চেয়ারম্যান ৬৪, মেম্বার ৬১১ ও জন সংরক্ষিত ১৬৯

» কুতুবপুর ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ডে’র মনোনয়ন পত্র দাখিল করলেন মোঃ জুয়েল আরমান

» ফতুল্লা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯১ ব্যাচ`র ৩০ বছর পূর্তি উদযাপন

» প্রজনন মৌসুমে ইলিশ আহরনে বিরত থাকা জেলেদের মাঝে চাল বিতরণ!

» ফতুল্লায় ইজিবাইক চালককে গলা কেটে হত্যা

» ইউপি নির্বাচনে মেম্বার পদপ্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিলেন আলাউদ্দিন হাওলাদার

» ইউপি নির্বাচনে মহিলা মেম্বার পদে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন অনামিকা হক প্রিয়াঙ্কা

» সরকার নির্ধারিত ১০ টাকা মূল্যে” ৩০ কেজি করে চাল বিতরণ

» আমতলীতে জেলা প্রশাসকের পূজা মন্ডপগুলো পরিদর্শন

» শ্রমিক লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ফতুল্লা থানা মটর শ্রমিক লীগের আনন্দ র‍্যালি

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, খ্রিষ্টাব্দ, ২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বয়সের ভারে নুঁয়ে পড়লেও থেমে নেই ডিম বিক্রেতা মোনছোপ আলী

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

মোঃ রাসেল ইসলাম, যশোর প্রতিনিধি: শতবছর বয়সী মোনছোপ আলী পায়ে হেঁটে গ্রামে গ্রামে ঝালমুড়ি, দুধ, ডিম ইত্যাদি খাদ্যসামগ্রী বিক্রি করেন তিনি। বয়সের ভারে নুঁয়ে পড়লেও থেমে নেই তার সংগ্রামী জীবনের পথ চলা।

 

জীবিকার তাগিদে প্রতিদিন তিনি মাইলের পর মাইল ছুটে চলেন পায়ে হেঁটে। জীবনের শেষ সময়েও সংগ্রামী জীবনে যুদ্ধ করে যাচ্ছেন তিনি। শত বছর পার করলেও জোটেনি বয়স্ক ভাতার কার্ড।

 

বলছিলাম যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর ইউনিয়নের বকুলিয়া গ্রামের ১ শত ২ বছর বয়সের মোনছোপ আলীর কথা।

 

১৯১৯ সালে বকুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। সে অনুযায়ী বর্তমানে তার বয়স ১০২ বছর। তার পিতার নাম- মৃত আব্দুল হামিদ, মাতার নাম- মৃত বেশো বেগম।

 

স্ত্রী মারা গেছেন প্রায় ২৫ বছর আগে। নিঃসঙ্গ মোনছোপ আলীর চার সন্তানের মধ্যে ২ ছেলে ও ২ মেয়ে। তার চার সন্তানই বিবাহিত। তিনি বর্তমানে এক ছেলের সংসারে থাকেন।

 

মোনছোপ আলী জীবনের অধিকাংশ সময় পার করেছেন গ্রামে গ্রামে পায়ে হেঁটে ডিম ফেরি করে। দিন শেষে তার আয় হয় ১০০-১৫০ টাকা। এতেই তিনি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন।

 

৬৫ বছর পূর্ণ হলে সরকারি ভাবে বয়স্ক ভাতার ব্যবস্থা থাকলেও তিনি পাননা কোন সরকারি সুবিধা। ফলে ছেলের অভাবি সংসারে নড়বড়ে শরীর নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করেন মোনছোপ আলী।

 

মোনছোপ আলী বলেন, এখন অনেক বয়স হয়েছে। চোখে ঠিকঠাক দেখতে পায়না। ভাল ভাবে চলতে কষ্ট হয়। গত ৩ বছর ধরে বয়স্ক ভাতার কার্ড করার জন্য ইউনিয়ন পরিষদে ধর্ণা দিয়েও কোন লাভ হয়নি।

 

গেলেই বলে এবারও তোমার কার্ড হবেনা। আজ শুধু একটা কথা জানতে ইচ্ছে করে আর কত বয়স হলে কার্ড পাওয়া যাবে।

 

তিনি আরো বলেন, আমার বড় বোনের বয়স ১শত ৫ বছর দুঃখের বিষয় সেও এখনো বয়স্ক ভাতার আওতাই পড়েনি।

 

ছোট ছোট কন্ঠে মোনছেপ আলী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিনিত অনুরোধ যতদিন বেঁচে থাকি তিনি যেন আমাকে একটি বয়স্ক ভাতার কার্ড করে দেন।

 

উল্লেখ্য : সম্প্রতি শার্শা উপজেলার এক নিষ্ঠাবান সাংবাদিকের মাধ্যমে ফেইসবুকের পাতায় প্রকাশ পায় মোনছোপ আলীকে নিয়ে ছোট্ট একটি প্রতিবেদন।

 

পরে শার্শার কৃতি সন্তান দেশ সেরা উদ্ভাবক খ্যাত সমাজ সেবক মিজানের নজরে আসলে বিষয়টিকে সামনে আনেন তিনি। শনিবার দুপুরে চাল, ডাল, তেল সহ বিভিন্ন সামগ্রী নিয়ে মোনছোপ আলীর বাড়িতে হাজির হন তিনি।

 

মোনছেপ আলীর বাড়িতে কেন এলেন তিনি জানতে চাইলে মিজানুর রহমান বলেন, বিষয়টি আমার ফেইসবুক পেজে আপলোড করার পর নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সচিব আবদুস সামাদ ফারুক মহোদয় লিংকে কমেন্ট করে মোনছেপ আলীর বাড়িতে আসতে বলেন এবং তাকে সাহায্য করার জন্য সার্বিক সহযোগিতা করবেন বলে মনস্থির করেন।
সে কারনেই আজ আমার এখানে আসা। আশা করছি খুব দ্রুতই মোনছোপ আলীর জন্য তার বাড়ির পাশেই একটা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে। গ্রামে গ্রামে আর ঘুরতে হবেনা তার।

 

পাশাপাশি মোনছোপ আলীর বয়স্ক ভাতার জন্য শংকরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নেছার আলীর সাতে কথা হয়েছে। তিনি বয়স্ক ভাতার কার্ড দ্রুত করে দেবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন।

 

উদ্ভাবক মিজান এসময় আরো বলেন, শতবর্ষী এক বাবাকে দেখতে এসেছিলাম। এখানে এসে আরও এক শতবর্ষী মাকে পেলাম। এই মায়ের জন্যও একটি হুইলচেয়ারের পাশাপাশি বয়স্ক ভাতার কার্ডের ব্যবস্থা করতে চাই।

 

সমাজের বৃত্তবান এবং মানবপ্রেমীরা যদি এমন একজন করে শতবর্ষী বৃদ্ধ বাবা মাকে খুঁজে খুঁজে বের করে পাশে দাঁড়ান তাহলে শতবর্ষী বাবার কাঁধে থাকবেনা ডিমের ঝুঁলি, থাকবেনা শতবর্ষী মায়ের কষ্ট।

 

আমরা সবাই যদি স্বস্ব অবস্থান থেকে তার মতো পরিশ্রমী হতে পারতাম, দেশমাতৃকার জন্য ভূমিকা রাখতে পারতাম! তাহলে আজ বাংলাদেশের অবস্থান থাকতো সুউচ্চ শিখরে।
স্যালুট জানাই আমাদের দেশের আইকন একজন কঠোর পরিশ্রমী মুরব্বিকে যিনি অন্যের কাছে হাত পেতে নয়, পরিশ্রম করে খেয়ে বেঁচে থাকার চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

 

শংকরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নেছার উদ্দিন বলেন, মনছোপ আলীর বিষয়টি আমরা গুরুত্বের সাথে দেখছি। এই মুহুর্তে বয়স্ক ভাতার কার্ড নেই তবে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে তার জন্য একটি বয়স্ক ভাতার কার্ডের ব্যবস্থা করার জন্য চেষ্টা করবো।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD