দেশের মানুষের জন্য ‘ল্যাম্বগিনি‘র মতো গাড়ী তৈরী করতে চায় না’গঞ্জের আকাশ

উজ্জীবিত বাংলাদেশ রিপোর্ট: কথায় আছে ‘মানুষ তত বড় হয় যত বড় তার স্বপ্ন হয়’।  চেষ্টা করলেই  যে যেকোনো অসম্ভবকেও সম্ভব করা সম্ভব তারই আরো একটি উদাহরণ নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পশ্চিম লামাপাড়া এলাকার আকাশ আহমেদ।

কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়াই সম্পূর্ণ নিজের প্রচেষ্টায় তৈরী করেছে বিশ^খ্যাত বিলাসবহুল স্পোর্টস কার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ‘ল্যাম্বরগিনি’র মডেলের গাড়ি। যা এখন নারায়ণগঞ্জে টক অব দ্যা টাউন। ইতিমধ্যেই ফেসবুক পেজ থেকে শুরু করে সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে এ গাড়ির ছবি। সবার মুখে মুখে এখন আকাশে কৃতিত্বের কথা। 

তবে এ কৃতিত্ব অর্জন করা সহজ ছিলো না আকাশের কাছে। অনেক চরাই উৎরাই পেরিয়ে দীর্ঘ ১৪ মাস প্রচেষ্টার পর স্বপ্ন পূরণ হয়েছে তার। যুগের চিন্তার সাথে এক সাক্ষাৎকারে এমনটাই বলছিলেন আকাশ।

গাড়ি তৈরীর স্বপ্নটা ছোটবেলা থেকেই ছিলো। ছোটবেলা থেকেই আমার গাড়িদের মাঝেই বেড়ে ওঠা। গাড়ির মেশিনারিজ ছিলো আমার খেলার উপকরণ। বাবা অন্যের গ্যারেজে চাকরি করতো। 

দাদাও গাড়ি মেরামতের সাথে যুক্ত ছিলো। মাঝে মাঝে বাবা ও দাদার সাথে দেখতাম ভাঙা গাড়ি মেরামত করছে আবার কারো গাড়ি পার্টস বানিয়ে লাগিয়ে দিতে। তখন থেকেই আমি স্বপ্ন দেখতাম গাড়ির।


গ্যারেজে যখন নতুন মডেলের কোনো গাড়ি আসতো বা রাস্তায় দেখতাম তখন ভেতরটা কেমন মোচর দিয়ে উঠতো। কিন্তু বাবাকে বলার সাহস পেতাম না। কারণ  আমার এ স্বপ্ন পূরণের সামর্থ্য নেই আমার পরিবারের। 

তাই মনে মনে স্বপ্ন দেখতাম কিনতে পারি না তো কি হয়েছে নিজেই একটা গাড়ি বানাবো। আর এ গাড়িতে করেই দেশ বিদেশ ঘুরে বেড়াবো। 
ঐ থেকেই মাথায় এ স্বপ্নটা থিতু হয়ে ছিলো। আমার ঘরে ক্যালেন্ডারে দেয়ালে পর্যন্ত গাড়ির ছবি দেয়া। 

ক্যালেন্ডারের পাতায়ই প্রথম ইতালির বিখ্যাত গাড়ি প্রতিষ্ঠানের ‘ল্যাম্বোরগিনি’র গাড়ির একটি  মডেল দেখে চোখ আটকে যায়। তখনই মনে হয় গাড়ি যদি বানাই তবে এ গাড়িটাই। বাবাকে বলি। তারপরই  থেকেই লেগে পড়ি। লক্ষ্যে স্থির করে এগোতে থাকি।

শুরুতে আমার এ চিন্তাকে নিয়ে অনেকেই উপহাস করতো। অনেকে অনেক কটুক্তিও করতো। কিন্তু আমি তা কানে নিতাম না। আমি আমার মত কাজ চালিয়ে যেতাম।  

আমার এ কাজে আমাকে আমার পরিবার অনেক সার্পোট দিয়েছে। অর্থের যোগান থেকে শুরু করে মানসিকভাবে অনেক সাহস জুগিয়েছে। তাদের সার্পোট না পেলে আমার এ স্বপ্নপূরণ সম্ভব হত না।  


বাবার কাছ থেকে প্রতিদিন ১০০/২০০ করে নিয়েই অল্প অল্প করে কাজ শুরু করি। এ রকম গাড়ি তৈরীর কোনো অভিজ্ঞতা না থাকায় প্রথম প্রথম বেশ বেগ পেতে হয়েছে। একবার তৈরী হয়ে গেলে একটু ভুল হলে আবার নতুন করে শুরু করতে হত। 

তাছাড়া আমার কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাও নেই। শুধু মাদ্রসায় নবম শ্রেণীর পর্যন্ত পড়াশুনা করেছি। আর অভিজ্ঞতা বলতে ছিলো কেবল গ্যারেজে গাড়ির পার্টস তৈরী, জাহাজ কাটার অভিজ্ঞতাটাই। আর শেখার একমাত্র উৎসই ছিলো ইউটিউব থেকে টিউটোরিয়াল। 

গাড়িটি তৈরী করতে প্রথমে আমি জাহাজ কাটার অভিজ্ঞতা থেকে ইস্পাতের পাত কেটে কেটে গাড়ির বডির শেপ তৈরী করি। টিউটিরিয়াল দেখে দেখে চাকার সাসপেশন, হেডলাইট ব্যাকলাইট, গিয়ার নিজেই নির্মাণ করি। শুধুমাত্র গাড়ির চাকা আর স্টিয়ারিং হুইলটাই কেবল কিনে আনা হয়েছে। 

আকাশ জানায়, গাড়িটি সম্পূর্ণ দেশীয় ও পরিবেশ বান্ধব। গাড়িটি  ব্যাটরি চালিত। গাড়িটিতে লাগানো হয়েছে ৫টি ব্যাটারী। যেটি প্রায় ১০ ঘণ্টা চলতে সক্ষম। আর এই ব্যাটারি পূর্ণ চার্জ হতে লাগবে ৫ঘণ্টা। 

আর রাস্তায় নামলে ২জন আরোহীকে নিয়ে ঘণ্টা ৪৫ কিলোমিটার বেগে ছুটতে পারবে সে। আর পুরো গাড়িটি এই অবস্থায় দাঁড় করাতে তার ব্যয় হয়েছে সাড়ে ৩ লাখ টাকা। 


তবে গাড়ির বডি কার্বন ফাইবারে নিয়ে আসলে ৩ লাখ টাকাতেও বানানোও যাবে। এ গাড়িটির আরো কাজ বাকি রয়েছে।  দরজা যাতে সুইচের মাধ্যমে বন্ধ এবং খোলা যায় সে ব্যবস্থাও করা হবে।

সন্তানের কৃতিত্ব নিয়ে কথা হয় আকাশের বাবা নবী হোসেনের সাথে। ছেলের কৃতিত্বে গর্বিত সে। তিনি বলেন,অনেক কষ্ট করেছে আমার ছেলেটা। দিনরাত খেয়ে না খেয়ে এটার পেছনে শ্রম দিয়েছে। 

কত রাত যে নির্ঘুম কাটিয়েছে তার ঠিক নেই। কত বকা দিছি। কিন্তু যে দিন গাড়িটি আমার সামনে এনে রাখলো সেদিন নিজের চোখেই বিশ^াস করছিলাম না। যে এটা আমার ছেলের তৈরী। সবাই আমার ছেলের জন্য দোয়া করবেন।

আকাশের ইচ্ছা শুধু নিজের জন্য নয় দেশের মানুষের জন্য এমন আরো গাড়ী তৈরী করতে চায় সে। আকাশ বলেন, গাড়িটি বের করে বেশ সাড়া পেয়েছি। ইতিমধ্যেই দেশীয় প্রযুক্তি ও পরিবেশ বান্ধব হওয়ায় এই গাড়িটি দেখে আরও ২৫টি গাড়ি তৈরীর অর্ডার পেয়েছি। 

আমি সরকারের কাছে অনুরোধ করবো যাতে আমাকে গাড়িটি বাজারজাত করার অনুমতি দেয়। অন্য কারো কাছে আমি এটির নকশা বিক্রি করতে চাই না। 

অনুমতি দিলেই আমার জন্য অনেক বড় সুবিধা হবে। বাজারজাত করলে ৪ থেকে সাড়ে ৪ লাখ টাকাতেই মানুষ পরিবেশবান্ধব এই গাড়িটি ব্যবহার করতে পারবে। 
 

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» যশোরের বেনাপোল ফেনসিডিলসহ নারী মাদক ব্যবসায়ী আটক

» শিশু তুহিন হত্যাকারিদের সর্ব্বোচ্য শাস্তি ও দ্রুত বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

» বেনাপোলের সাংবাদিকদের সাথে ৪৯ বিজিবি’র মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

» মসজিদের পাশে পড়ে ছিলো ফুটফুটে নবজাতক

» জামিন পাবেন আশা খালেদা জিয়ার

» ইতিহাস গড়ে দেশের প্রথম হিজড়া ভাইস চেয়ারম্যান পিংকি

» চাঁপাইনবাবগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তসিকুল-নজরুল-নাসরিনের জয়

» ফতুল্লায় মায়ের হাতে সন্তান খুন!

» সোনারগাঁয়ে ওমর ফারুক ও শুকুর আলী সাংবাদিক রিপনকে মারধর’থানায় অভিযোগ

» ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রাঙ্গাবালীর চরমোন্তাজে ভবন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯,

বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৩০শে আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দেশের মানুষের জন্য ‘ল্যাম্বগিনি‘র মতো গাড়ী তৈরী করতে চায় না’গঞ্জের আকাশ

উজ্জীবিত বাংলাদেশ রিপোর্ট: কথায় আছে ‘মানুষ তত বড় হয় যত বড় তার স্বপ্ন হয়’।  চেষ্টা করলেই  যে যেকোনো অসম্ভবকেও সম্ভব করা সম্ভব তারই আরো একটি উদাহরণ নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পশ্চিম লামাপাড়া এলাকার আকাশ আহমেদ।

কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়াই সম্পূর্ণ নিজের প্রচেষ্টায় তৈরী করেছে বিশ^খ্যাত বিলাসবহুল স্পোর্টস কার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ‘ল্যাম্বরগিনি’র মডেলের গাড়ি। যা এখন নারায়ণগঞ্জে টক অব দ্যা টাউন। ইতিমধ্যেই ফেসবুক পেজ থেকে শুরু করে সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে এ গাড়ির ছবি। সবার মুখে মুখে এখন আকাশে কৃতিত্বের কথা। 

তবে এ কৃতিত্ব অর্জন করা সহজ ছিলো না আকাশের কাছে। অনেক চরাই উৎরাই পেরিয়ে দীর্ঘ ১৪ মাস প্রচেষ্টার পর স্বপ্ন পূরণ হয়েছে তার। যুগের চিন্তার সাথে এক সাক্ষাৎকারে এমনটাই বলছিলেন আকাশ।

গাড়ি তৈরীর স্বপ্নটা ছোটবেলা থেকেই ছিলো। ছোটবেলা থেকেই আমার গাড়িদের মাঝেই বেড়ে ওঠা। গাড়ির মেশিনারিজ ছিলো আমার খেলার উপকরণ। বাবা অন্যের গ্যারেজে চাকরি করতো। 

দাদাও গাড়ি মেরামতের সাথে যুক্ত ছিলো। মাঝে মাঝে বাবা ও দাদার সাথে দেখতাম ভাঙা গাড়ি মেরামত করছে আবার কারো গাড়ি পার্টস বানিয়ে লাগিয়ে দিতে। তখন থেকেই আমি স্বপ্ন দেখতাম গাড়ির।


গ্যারেজে যখন নতুন মডেলের কোনো গাড়ি আসতো বা রাস্তায় দেখতাম তখন ভেতরটা কেমন মোচর দিয়ে উঠতো। কিন্তু বাবাকে বলার সাহস পেতাম না। কারণ  আমার এ স্বপ্ন পূরণের সামর্থ্য নেই আমার পরিবারের। 

তাই মনে মনে স্বপ্ন দেখতাম কিনতে পারি না তো কি হয়েছে নিজেই একটা গাড়ি বানাবো। আর এ গাড়িতে করেই দেশ বিদেশ ঘুরে বেড়াবো। 
ঐ থেকেই মাথায় এ স্বপ্নটা থিতু হয়ে ছিলো। আমার ঘরে ক্যালেন্ডারে দেয়ালে পর্যন্ত গাড়ির ছবি দেয়া। 

ক্যালেন্ডারের পাতায়ই প্রথম ইতালির বিখ্যাত গাড়ি প্রতিষ্ঠানের ‘ল্যাম্বোরগিনি’র গাড়ির একটি  মডেল দেখে চোখ আটকে যায়। তখনই মনে হয় গাড়ি যদি বানাই তবে এ গাড়িটাই। বাবাকে বলি। তারপরই  থেকেই লেগে পড়ি। লক্ষ্যে স্থির করে এগোতে থাকি।

শুরুতে আমার এ চিন্তাকে নিয়ে অনেকেই উপহাস করতো। অনেকে অনেক কটুক্তিও করতো। কিন্তু আমি তা কানে নিতাম না। আমি আমার মত কাজ চালিয়ে যেতাম।  

আমার এ কাজে আমাকে আমার পরিবার অনেক সার্পোট দিয়েছে। অর্থের যোগান থেকে শুরু করে মানসিকভাবে অনেক সাহস জুগিয়েছে। তাদের সার্পোট না পেলে আমার এ স্বপ্নপূরণ সম্ভব হত না।  


বাবার কাছ থেকে প্রতিদিন ১০০/২০০ করে নিয়েই অল্প অল্প করে কাজ শুরু করি। এ রকম গাড়ি তৈরীর কোনো অভিজ্ঞতা না থাকায় প্রথম প্রথম বেশ বেগ পেতে হয়েছে। একবার তৈরী হয়ে গেলে একটু ভুল হলে আবার নতুন করে শুরু করতে হত। 

তাছাড়া আমার কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাও নেই। শুধু মাদ্রসায় নবম শ্রেণীর পর্যন্ত পড়াশুনা করেছি। আর অভিজ্ঞতা বলতে ছিলো কেবল গ্যারেজে গাড়ির পার্টস তৈরী, জাহাজ কাটার অভিজ্ঞতাটাই। আর শেখার একমাত্র উৎসই ছিলো ইউটিউব থেকে টিউটোরিয়াল। 

গাড়িটি তৈরী করতে প্রথমে আমি জাহাজ কাটার অভিজ্ঞতা থেকে ইস্পাতের পাত কেটে কেটে গাড়ির বডির শেপ তৈরী করি। টিউটিরিয়াল দেখে দেখে চাকার সাসপেশন, হেডলাইট ব্যাকলাইট, গিয়ার নিজেই নির্মাণ করি। শুধুমাত্র গাড়ির চাকা আর স্টিয়ারিং হুইলটাই কেবল কিনে আনা হয়েছে। 

আকাশ জানায়, গাড়িটি সম্পূর্ণ দেশীয় ও পরিবেশ বান্ধব। গাড়িটি  ব্যাটরি চালিত। গাড়িটিতে লাগানো হয়েছে ৫টি ব্যাটারী। যেটি প্রায় ১০ ঘণ্টা চলতে সক্ষম। আর এই ব্যাটারি পূর্ণ চার্জ হতে লাগবে ৫ঘণ্টা। 

আর রাস্তায় নামলে ২জন আরোহীকে নিয়ে ঘণ্টা ৪৫ কিলোমিটার বেগে ছুটতে পারবে সে। আর পুরো গাড়িটি এই অবস্থায় দাঁড় করাতে তার ব্যয় হয়েছে সাড়ে ৩ লাখ টাকা। 


তবে গাড়ির বডি কার্বন ফাইবারে নিয়ে আসলে ৩ লাখ টাকাতেও বানানোও যাবে। এ গাড়িটির আরো কাজ বাকি রয়েছে।  দরজা যাতে সুইচের মাধ্যমে বন্ধ এবং খোলা যায় সে ব্যবস্থাও করা হবে।

সন্তানের কৃতিত্ব নিয়ে কথা হয় আকাশের বাবা নবী হোসেনের সাথে। ছেলের কৃতিত্বে গর্বিত সে। তিনি বলেন,অনেক কষ্ট করেছে আমার ছেলেটা। দিনরাত খেয়ে না খেয়ে এটার পেছনে শ্রম দিয়েছে। 

কত রাত যে নির্ঘুম কাটিয়েছে তার ঠিক নেই। কত বকা দিছি। কিন্তু যে দিন গাড়িটি আমার সামনে এনে রাখলো সেদিন নিজের চোখেই বিশ^াস করছিলাম না। যে এটা আমার ছেলের তৈরী। সবাই আমার ছেলের জন্য দোয়া করবেন।

আকাশের ইচ্ছা শুধু নিজের জন্য নয় দেশের মানুষের জন্য এমন আরো গাড়ী তৈরী করতে চায় সে। আকাশ বলেন, গাড়িটি বের করে বেশ সাড়া পেয়েছি। ইতিমধ্যেই দেশীয় প্রযুক্তি ও পরিবেশ বান্ধব হওয়ায় এই গাড়িটি দেখে আরও ২৫টি গাড়ি তৈরীর অর্ডার পেয়েছি। 

আমি সরকারের কাছে অনুরোধ করবো যাতে আমাকে গাড়িটি বাজারজাত করার অনুমতি দেয়। অন্য কারো কাছে আমি এটির নকশা বিক্রি করতে চাই না। 

অনুমতি দিলেই আমার জন্য অনেক বড় সুবিধা হবে। বাজারজাত করলে ৪ থেকে সাড়ে ৪ লাখ টাকাতেই মানুষ পরিবেশবান্ধব এই গাড়িটি ব্যবহার করতে পারবে। 
 

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯,

বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD