দেশে প্রথমবার বুক না কেটে ‘এওর্টিক ভাল্ব’ প্রতিস্থাপন করলেন বাংলাদেশের চিকিৎসকরা

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে বুক না কেটে এক রোগীর ‘এওর্টিক ভাল্ব’ প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। পূর্ণ সফল হয়েছেন বাংলাদেশের কৃতি চিকিৎসকগন।

 

জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ডা. বিজয় দত্ত জানান, We have done TAVR(Transcatheter Aortic Valve Replacement) successfully for the first time in the history of NICVD, Bangladesh under the guidance of Dr. Ashok Seth, Dr. Vijay Kumar, Prof. Dr. Mir Jamal Uddin & Dr Prodip Pradip Kumar Karmakar sir on 05/01/20. In this procedure we can replace Aortic Valve without opening the chest just like Angioplasty. Hope in the near future we can continue the program regularly for patient’s comfort & safety.

 

জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. প্রদীপ কুমার কর্মকার মিডিয়াকে বলেন, ‘এওর্টিক ভাল্ব’ দিয়ে হৃৎপিণ্ড থেকে শরীরে রক্ত সঞ্চালিত হয়। এই ভাল্বটি সরু হয়ে গেলে এওর্টিক স্টেনোসিস হৃৎপিণ্ড থেকে রক্ত শরীরে সঞ্চালন করতে পারে না এবং রোগী হাঁটলে শ্বাসকষ্ট, বুকে ব্যথা ও অজ্ঞান হয়ে যেতে পারে। এই রোগের নিরাময়ে বুক কেটে ভাল্ব প্রতিস্থাপন করা যায় । এ পদ্ধতিতে রোগীকে সম্পূর্ণ অজ্ঞান করতে হয়। রোগীর বুকের হাড়কে কাটতে হয় এবং প্রক্রিয়াটি ঝুঁকিপূর্ণ। এ ছাড়া পরিপূর্ণ সুস্থ হতে রোগীর কয়েক সপ্তাহ সময় লাগে।

 

আর আমরা যেটা করেছি তা হল, বুক না কেটে এবং অজ্ঞান না করে পায়ের কুচকি দিয়ে ‘এওর্টিক ভাল্ব’ প্রতিস্থাপন করেছি। এটা কম ঝুঁকিপূর্ণ। গত রোববার তার নেতৃত্বে এবং হাসপাতালটির পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীর জামাল উদ্দিনের তত্ত্বাবধানে ৬০ বছর বয়সী এক নারী রোগীর শরীরে সফলভাবে ‘এওর্টিক ভাল্ব’ প্রতিস্থাপন করেন। অপারেশনের পর এক রোগী ২-৩ দিনের মধ্যে বাসায় চলে যেতে পারবেন এবং এক সপ্তাহের মধ্যে কাজে যোগ দিতে পারবেন । বর্তমানে রোগীটি সম্পূর্ণ সুস্থ আছে।

 

 

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» বাঙালি জাতির ইতিহাসে এক বেদনাবিধুর দিন ১৫ই আগস্ট

» বান্দরবানে রিভারভিউ যুবকল্যাণ পরিষদ কার্যালয়ের শুভ উদ্বোধন

» শরীয়তপুরে তিন মোটরসাইকেল চোর আটক করেছেন ডিবি

» পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রুহুল আমিন প্রধান

» পবিত্র ঈদুল আযহা’র শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মো. বাবর সরকার

» পবিত্র ঈদুল আযহা’র শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রফিকুল ইসলাম লাল

» পবিত্র ঈদুল আযহা’র শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আলাউদ্দিন হাওলাদার

» পবিত্র ঈদুল আযহা’র শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আলাউদ্দিন হাওলাদার

» পবিত্র ঈদুল আযহা শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মনিরুল আলম সেন্টু

» পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে দেশবাসীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মীর হোসেন মীরু




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : বুধবার, ৫ আগস্ট ২০২০, খ্রিষ্টাব্দ, ২১শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দেশে প্রথমবার বুক না কেটে ‘এওর্টিক ভাল্ব’ প্রতিস্থাপন করলেন বাংলাদেশের চিকিৎসকরা

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে বুক না কেটে এক রোগীর ‘এওর্টিক ভাল্ব’ প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। পূর্ণ সফল হয়েছেন বাংলাদেশের কৃতি চিকিৎসকগন।

 

জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ডা. বিজয় দত্ত জানান, We have done TAVR(Transcatheter Aortic Valve Replacement) successfully for the first time in the history of NICVD, Bangladesh under the guidance of Dr. Ashok Seth, Dr. Vijay Kumar, Prof. Dr. Mir Jamal Uddin & Dr Prodip Pradip Kumar Karmakar sir on 05/01/20. In this procedure we can replace Aortic Valve without opening the chest just like Angioplasty. Hope in the near future we can continue the program regularly for patient’s comfort & safety.

 

জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. প্রদীপ কুমার কর্মকার মিডিয়াকে বলেন, ‘এওর্টিক ভাল্ব’ দিয়ে হৃৎপিণ্ড থেকে শরীরে রক্ত সঞ্চালিত হয়। এই ভাল্বটি সরু হয়ে গেলে এওর্টিক স্টেনোসিস হৃৎপিণ্ড থেকে রক্ত শরীরে সঞ্চালন করতে পারে না এবং রোগী হাঁটলে শ্বাসকষ্ট, বুকে ব্যথা ও অজ্ঞান হয়ে যেতে পারে। এই রোগের নিরাময়ে বুক কেটে ভাল্ব প্রতিস্থাপন করা যায় । এ পদ্ধতিতে রোগীকে সম্পূর্ণ অজ্ঞান করতে হয়। রোগীর বুকের হাড়কে কাটতে হয় এবং প্রক্রিয়াটি ঝুঁকিপূর্ণ। এ ছাড়া পরিপূর্ণ সুস্থ হতে রোগীর কয়েক সপ্তাহ সময় লাগে।

 

আর আমরা যেটা করেছি তা হল, বুক না কেটে এবং অজ্ঞান না করে পায়ের কুচকি দিয়ে ‘এওর্টিক ভাল্ব’ প্রতিস্থাপন করেছি। এটা কম ঝুঁকিপূর্ণ। গত রোববার তার নেতৃত্বে এবং হাসপাতালটির পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীর জামাল উদ্দিনের তত্ত্বাবধানে ৬০ বছর বয়সী এক নারী রোগীর শরীরে সফলভাবে ‘এওর্টিক ভাল্ব’ প্রতিস্থাপন করেন। অপারেশনের পর এক রোগী ২-৩ দিনের মধ্যে বাসায় চলে যেতে পারবেন এবং এক সপ্তাহের মধ্যে কাজে যোগ দিতে পারবেন । বর্তমানে রোগীটি সম্পূর্ণ সুস্থ আছে।

 

 

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD