কার্টুন বিনোদনে শিশুদের ভবিষ্যৎ কী ?

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সব শিশুরাই কার্টুন খুব ভালোবাসে, তাদের জন্য বিনোদনের অন্যতম উপাদান এটি। তথ্যপ্রযুক্তির এ যুগে শিশুরা দিনের অধিকাংশ সময় এই কার্টুনের পেছনে ব্যয় করে। এমনকি ঘুমানোর সময়ও তাদের কার্টুন দেখা চাই। তবে শিশুরা কি দেখে কি শিখছে সেটি বিবেচনার বিষয়। প্রত্যেক বাবা-মায়ের উচিত তাদের সন্তান কী ধরনের কার্টুন দেখছে তার ওপর নজর রাখা। আমি বলছি না শিশুদের কার্টুন দেখাবেন না, এগুলো দেখা যে একেবারেই অহেতুক তাও নয়।

 

একটি কার্টুন ছোটো বাচ্চাদের মানসিক বিকাশে অনেক বেশি ভূমিকা রাখে। কিছু কিছু কার্টুন থেকে এমন অনেক শিক্ষণীয় বিষয় আছে যা বাস্তব জীবনে শিশুদের অনেক কাজে লাগে। তবে মনে রাখতে হবে, সব কিছুর ভালো এবং মন্দ দুটো দিকই আছে। শিশুদের কার্টুন দেখার ক্ষেত্রে যথেষ্ট জটিল কিছু বিষয় পরোক্ষভাবে ঢুকে যায়, তবে সে বিষয়ে কেউ খেয়াল রাখেন না। আজ আপনাদের সঙ্গে তেমন কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো। আপনার দ্বিমত থাকতে পারে, তবে অস্বীকার করতে পারবেন না আশা করি। কথা না বাড়িয়ে মূল আলোচনায় যাই।

 

কুসংস্কার প্রবণতা

আমাদের দেশে প্রচলিত এমন অনেক রূপকথার গল্প আছে যেগুলো কুসংস্কার এবং অলৌকিক বিশ্বাসে ভর করে বানানো। এসব দেখে শিশুরা মিথ্যা এবং অলৌকিক বিশ্বাসে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে। আর বাস্তব জীবনে তারা এসব মানতে শুরু করে। তাই বাবা-মাকে এসব গল্প থেকে বেছে শিক্ষণীয় গল্পের কার্টুন দেখতে দিতে হবে যেটা তাদের বাস্তব জীবনে কাজে লাগবে।

 

অপসংস্কৃতির প্রভাব

আজকাল টিভি চ্যানেলগুলোতে যেসব কার্টুন দেখানো হয় সেগুলোর বেশিরভাগই বৈদেশিক (বিশেষ ভাবে ভারতীয়) সংস্কৃতিকে তুলে ধরা হয়। আর এসব দেখে বাচ্চারা বাংলার চেয়ে হিন্দি বলায় স্বাচ্ছন্দ্য অনুভব করছে। এতে নিজেদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের উপর খারাপ প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই বাচ্চাদের কার্টুন দেখার ক্ষেত্রে বাবা মায়ের সচেতন থাকা খুব জরুরি বলে মনে করছি।

 

অবাস্তব কল্পনা

শিশুদের কিছু কিছু কার্টুনে রূপকথার চরিত্র দেখানো হয়। এগুলা দেখার ফলে তাদের মনে হাজার কল্পনা বাসা বাঁধে। নিজেদের কল্পনার রাজ্যের রাজা-রানি ভাবতে শুরু করে। কিন্তু বাস্তবের সঙ্গে মেলাতে গিয়ে যখন কোনো ফল খুঁজে পায় না তখনি বাঁধে বিপত্তি, মানসিকভাবে হতাশ হয়ে পড়ে তারা। এতে অবাস্তব জিনিসে বিশ্বাস বৃদ্ধি এবং শিশুদের নিয়ে বিপদে পড়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই বাবা-মাকে শিক্ষণীয় কার্টুনগুলো দেখার প্রতি উৎসাহ দেওয়া উচিত।

 

মিথ্যা বলতে শেখা

অধিকাংশ কার্টুনগুলোতে মজার ছলে মিথ্যে বলার শিক্ষা দেওয়া হয়। কার্টুন চরিত্রগুলোতে বাবা-মায়ের অগোচরে বিভিন্ন কর্মকাণ্ড করাকে মজার ছলে উপস্থাপন করা হয়। হয়তো প্রস্ততকারকরা বিষয়টিকে ওভাবে ভাবেইনি কিন্তু শিশুদের মন যা দেখবে তাই শিখবে। কারণ, ভালো-মন্দ বোঝার ক্ষমতা তাদের নেই বা থাকে না। ফলে তারাও বড়দের সঙ্গে মিথ্যা বলতে বা সত্য গোপন করতে শুরু করে। আর এই ব্যাপারটি বাচ্চাদের ভবিষ্যতের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তাই বাচ্চাদের এমন কিছু দেখতে দেওয়া উচিত নয় যেটা দেখতে দেখতে আপনার সন্তান মিথ্যাকে আপন করে নেয়।

 

বৈষম্যের শিক্ষা

কার্টুন চরিত্রে রাজকুমারী বা মূল নায়িকাকে অনেক ফর্সা এবং আকর্ষণীয় শারীরিক গঠনের অধিকারী দেখানো হয়। আর খলনায়ক, খলনায়িকা, রাক্ষসী কিংবা দৈত্যরা হয়ে থাকে কালো রঙের এবং বিশাল আকৃতির। এছাড়া দৈবশক্তিতে পুকুরে ডুবে কালো মেয়ে দুধে-আলতা রং পেয়ে যাচ্ছে আবার কেউ পাপকাজ করে পুকুরে ডুবে কালো রং ধারণ করছে। ফলে একটি বাচ্চা যার গায়ের রং শ্যামবর্ণের সেই বাচ্চার মনে একটু হলেও ঢুকে যায় যে, সে কালো এবং কালো মানেই অসুন্দর। এর মাধ্যমে সে নিজেকে অভিশপ্ত মনে করতে থাকে। পাশ্চাত্যের অনেক বিখ্যাত ঔপন্যাসিকের লেখা কার্টুনগুলো বাংলায় ডাবিং করে শিশুদের দেখানো হয়। যেরকম একটি ডায়লগ, ‘বলো তো আয়না আমার চেয়ে বেশি ফর্সা এ দুনিয়ায় আর কেউ আছে কি না।’

 

বিরূপ সামাজিক ধারণা

এক রাজার সাত স্ত্রী কিংবা একের অধিক স্ত্রী। স্বভাবতই রূপকথার গল্পে এ বিষয়টি অহরহ দেখা যায়। আমরাও আমাদের ছোটবেলা পার করেছি এ ধরনের কার্টুন দেখে। কিন্তু আমার কাছে মনে হয় এ বিষয়টি একটি শিশুর মনে পরোক্ষভাবে ঢুকিয়ে দিচ্ছে যে, একজন ব্যক্তির একাধিক স্ত্রী থাকা অস্বাভাবিক কিছু নয়! শুধু রূপকথা কেন, এটা ঠিক যে রাজা-বাদশা কিংবা নবাবদের আমলেও একের অধিক স্ত্রী থাকা অস্বাভাবিক কিছু ছিল না। কিন্তু বর্তমান যুগে কি সেটি সমীচীন? যেহেতু কার্টুন বাচ্চাদের জন্য একটি শিক্ষণীয় মাধ্যম সুতরাং এসব বিষয়গুলোও এড়িয়ে যাওয়ার মতো নয় সম্ভবত।

 

আশাকরি কিছুটা ধারণা দিতে পেরেছি, আমার উদ্দেশ্য এতটুকুই ছিল। আশা রাখছি বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে নেবেন। সন্তানের ভবিষ্যৎ অনেকটা বাবা-মায়ের দেখভাল এবং সদিচ্ছার ওপর নির্ভরশীল। সূত্র : দৈনিক অধিকার

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



»  ঝিনাইদহে পুলিশ কর্মকর্তা দুই ভাইয়ের মৃত্যু, গ্রামজুড়ে চলছে শোকের মাতম!

» কাউন্সিলর ও মেয়রের সাথে বাকবিতন্ডা: কুয়াকাটায় অর্ধশতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

» গলাচিপায় নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রীর আগমনে উপজেলা আওয়ামী লীগের ফুলেল শুভেচ্ছা

» কলাপাড়ায় যুবলীগের বৃক্ষরোপণ

» ফতুল্লা থানায় এবার কাউন্সিলর খোরশেদের স্ত্রীর আফরোজার জিডি

» এক মাস ধরে নিখোঁজ ফতুল্লার যুবক রতন

» পেরুকে পাত্তাই দিলো না নেইমার-স্যান্দ্রোরা

» কুতুবপুরের অপরাধযজ্ঞের মুকুটবিহীন সম্রাট এরা…!

» ফতুল্লার চানমারী থে‌কে গাজাঁসহ তিন মাদক বি‌ক্রেতা গ্রেফতার

» ফতুল্লায় বাবার সাথে ঘুরতে বের হয়ে ট্রাক চাপায় শিশুর মৃত্যু




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, খ্রিষ্টাব্দ, ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কার্টুন বিনোদনে শিশুদের ভবিষ্যৎ কী ?

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সব শিশুরাই কার্টুন খুব ভালোবাসে, তাদের জন্য বিনোদনের অন্যতম উপাদান এটি। তথ্যপ্রযুক্তির এ যুগে শিশুরা দিনের অধিকাংশ সময় এই কার্টুনের পেছনে ব্যয় করে। এমনকি ঘুমানোর সময়ও তাদের কার্টুন দেখা চাই। তবে শিশুরা কি দেখে কি শিখছে সেটি বিবেচনার বিষয়। প্রত্যেক বাবা-মায়ের উচিত তাদের সন্তান কী ধরনের কার্টুন দেখছে তার ওপর নজর রাখা। আমি বলছি না শিশুদের কার্টুন দেখাবেন না, এগুলো দেখা যে একেবারেই অহেতুক তাও নয়।

 

একটি কার্টুন ছোটো বাচ্চাদের মানসিক বিকাশে অনেক বেশি ভূমিকা রাখে। কিছু কিছু কার্টুন থেকে এমন অনেক শিক্ষণীয় বিষয় আছে যা বাস্তব জীবনে শিশুদের অনেক কাজে লাগে। তবে মনে রাখতে হবে, সব কিছুর ভালো এবং মন্দ দুটো দিকই আছে। শিশুদের কার্টুন দেখার ক্ষেত্রে যথেষ্ট জটিল কিছু বিষয় পরোক্ষভাবে ঢুকে যায়, তবে সে বিষয়ে কেউ খেয়াল রাখেন না। আজ আপনাদের সঙ্গে তেমন কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো। আপনার দ্বিমত থাকতে পারে, তবে অস্বীকার করতে পারবেন না আশা করি। কথা না বাড়িয়ে মূল আলোচনায় যাই।

 

কুসংস্কার প্রবণতা

আমাদের দেশে প্রচলিত এমন অনেক রূপকথার গল্প আছে যেগুলো কুসংস্কার এবং অলৌকিক বিশ্বাসে ভর করে বানানো। এসব দেখে শিশুরা মিথ্যা এবং অলৌকিক বিশ্বাসে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে। আর বাস্তব জীবনে তারা এসব মানতে শুরু করে। তাই বাবা-মাকে এসব গল্প থেকে বেছে শিক্ষণীয় গল্পের কার্টুন দেখতে দিতে হবে যেটা তাদের বাস্তব জীবনে কাজে লাগবে।

 

অপসংস্কৃতির প্রভাব

আজকাল টিভি চ্যানেলগুলোতে যেসব কার্টুন দেখানো হয় সেগুলোর বেশিরভাগই বৈদেশিক (বিশেষ ভাবে ভারতীয়) সংস্কৃতিকে তুলে ধরা হয়। আর এসব দেখে বাচ্চারা বাংলার চেয়ে হিন্দি বলায় স্বাচ্ছন্দ্য অনুভব করছে। এতে নিজেদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের উপর খারাপ প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই বাচ্চাদের কার্টুন দেখার ক্ষেত্রে বাবা মায়ের সচেতন থাকা খুব জরুরি বলে মনে করছি।

 

অবাস্তব কল্পনা

শিশুদের কিছু কিছু কার্টুনে রূপকথার চরিত্র দেখানো হয়। এগুলা দেখার ফলে তাদের মনে হাজার কল্পনা বাসা বাঁধে। নিজেদের কল্পনার রাজ্যের রাজা-রানি ভাবতে শুরু করে। কিন্তু বাস্তবের সঙ্গে মেলাতে গিয়ে যখন কোনো ফল খুঁজে পায় না তখনি বাঁধে বিপত্তি, মানসিকভাবে হতাশ হয়ে পড়ে তারা। এতে অবাস্তব জিনিসে বিশ্বাস বৃদ্ধি এবং শিশুদের নিয়ে বিপদে পড়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই বাবা-মাকে শিক্ষণীয় কার্টুনগুলো দেখার প্রতি উৎসাহ দেওয়া উচিত।

 

মিথ্যা বলতে শেখা

অধিকাংশ কার্টুনগুলোতে মজার ছলে মিথ্যে বলার শিক্ষা দেওয়া হয়। কার্টুন চরিত্রগুলোতে বাবা-মায়ের অগোচরে বিভিন্ন কর্মকাণ্ড করাকে মজার ছলে উপস্থাপন করা হয়। হয়তো প্রস্ততকারকরা বিষয়টিকে ওভাবে ভাবেইনি কিন্তু শিশুদের মন যা দেখবে তাই শিখবে। কারণ, ভালো-মন্দ বোঝার ক্ষমতা তাদের নেই বা থাকে না। ফলে তারাও বড়দের সঙ্গে মিথ্যা বলতে বা সত্য গোপন করতে শুরু করে। আর এই ব্যাপারটি বাচ্চাদের ভবিষ্যতের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তাই বাচ্চাদের এমন কিছু দেখতে দেওয়া উচিত নয় যেটা দেখতে দেখতে আপনার সন্তান মিথ্যাকে আপন করে নেয়।

 

বৈষম্যের শিক্ষা

কার্টুন চরিত্রে রাজকুমারী বা মূল নায়িকাকে অনেক ফর্সা এবং আকর্ষণীয় শারীরিক গঠনের অধিকারী দেখানো হয়। আর খলনায়ক, খলনায়িকা, রাক্ষসী কিংবা দৈত্যরা হয়ে থাকে কালো রঙের এবং বিশাল আকৃতির। এছাড়া দৈবশক্তিতে পুকুরে ডুবে কালো মেয়ে দুধে-আলতা রং পেয়ে যাচ্ছে আবার কেউ পাপকাজ করে পুকুরে ডুবে কালো রং ধারণ করছে। ফলে একটি বাচ্চা যার গায়ের রং শ্যামবর্ণের সেই বাচ্চার মনে একটু হলেও ঢুকে যায় যে, সে কালো এবং কালো মানেই অসুন্দর। এর মাধ্যমে সে নিজেকে অভিশপ্ত মনে করতে থাকে। পাশ্চাত্যের অনেক বিখ্যাত ঔপন্যাসিকের লেখা কার্টুনগুলো বাংলায় ডাবিং করে শিশুদের দেখানো হয়। যেরকম একটি ডায়লগ, ‘বলো তো আয়না আমার চেয়ে বেশি ফর্সা এ দুনিয়ায় আর কেউ আছে কি না।’

 

বিরূপ সামাজিক ধারণা

এক রাজার সাত স্ত্রী কিংবা একের অধিক স্ত্রী। স্বভাবতই রূপকথার গল্পে এ বিষয়টি অহরহ দেখা যায়। আমরাও আমাদের ছোটবেলা পার করেছি এ ধরনের কার্টুন দেখে। কিন্তু আমার কাছে মনে হয় এ বিষয়টি একটি শিশুর মনে পরোক্ষভাবে ঢুকিয়ে দিচ্ছে যে, একজন ব্যক্তির একাধিক স্ত্রী থাকা অস্বাভাবিক কিছু নয়! শুধু রূপকথা কেন, এটা ঠিক যে রাজা-বাদশা কিংবা নবাবদের আমলেও একের অধিক স্ত্রী থাকা অস্বাভাবিক কিছু ছিল না। কিন্তু বর্তমান যুগে কি সেটি সমীচীন? যেহেতু কার্টুন বাচ্চাদের জন্য একটি শিক্ষণীয় মাধ্যম সুতরাং এসব বিষয়গুলোও এড়িয়ে যাওয়ার মতো নয় সম্ভবত।

 

আশাকরি কিছুটা ধারণা দিতে পেরেছি, আমার উদ্দেশ্য এতটুকুই ছিল। আশা রাখছি বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে নেবেন। সন্তানের ভবিষ্যৎ অনেকটা বাবা-মায়ের দেখভাল এবং সদিচ্ছার ওপর নির্ভরশীল। সূত্র : দৈনিক অধিকার

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD