পর্দার আড়ালের অন্তরালে অনেক ঘটনার নায়ক : কিং মেকার মোহাম্মদ আলী”

বিশেষ সংবাদদাতা :- নারায়ণগঞ্জের রাজনীতি অঙ্গনে বেশ পরিচিত মুখ কমান্ডার মোহাম্মদ আলী। সুদর্শন এ ব্যক্তি নারায়ণগঞ্জ তো বটেই বাংলাদেশে বেশ আলোচিত। তবে ফতুল্লার লোকজনদের জন্য তিনি আশীর্বাদ বটে। তিনি বিএনপির ঘরনার হিসেবে পরিচিতি পেলেও তাঁর কাছে রাজনৈতিক কোন ভেদাভেদ নাই। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিভিন্ন স্তরের নেতাদের কাছে তিনি ‘কিং মেকার’ হিসেবেই পরিচিত। পর্দার আড়ালের অন্তরালে অনেক ঘটনার নায়ক তিনি। জনপ্রতিনিধি বানানো, এমপি বানানো অনেক কাজেই তিনি বেশ সিদ্ধহস্ত। জাতীয় একাদশ আসন্ন নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের জাতীয় পার্টির পদপ্রার্থী সেলিম ওসমান আর নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী একেএম শামীম ওসমানের পক্ষে ভোট চাইছেন মোহাম্মদ আলী।

 

জানাগেছে, ১৯৯১ সালে দেয়াল ঘড়ি প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছিলেন মোহাম্মদ আলী। ওই সময় তিনি বক্তাবলী, আলীর টেক, গোগনগর, মাসদাইরসহ বিভিন্ন এলাকায় কথা দিয়ে বলেছিলেন, ‘আমি নির্বাচিত হই বা না হই এলাকার উন্নয়ণে নিজেকে সম্পৃক্ত রাখবো’। সে নির্বাচনে সামান্য ভোট ব্যবধানে বিএনপির প্রার্থী কমান্ডার সিরাজুল ইসলামের কাছে হেরেছিলেন তিনি। তারপরও নিজ উদ্যোগে ওই সমস্ত এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ণ করেছেন। বক্তাবলীবাসীর কাছে মোহাম্মদ আলীর ভিন্ন এক গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। তাদের কাছে বক্তাবলীর উন্নয়ণের রূপকার মোহাম্মদ আলী। শুধু বক্তাবলীই নয় নারায়ণগঞ্জে তিনি দানবীর হিসেবেও তাঁর পরিচিতি ব্যাপক।

 

পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির বিতর্কিত নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন থেকে তিনি বিএনপির টিকেটে এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। আর তখন থেকেই তিনি বিএনপির প্রতি দুর্বল হয়ে উঠেন। শিল্পপতি এ নেতার সঙ্গে তখন থেকেই বিএনপির বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের যোগাযোগ। মোহাম্মদ আলীর ঘনিষ্টজনেরা জানান, যাদেরকে তিনি উঠিয়েছেন পরে তারাই মোহাম্মদ আলীর ঘোর বিরোধী হয়ে উঠেন।

 

সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানা গেছে, ২০০১ সালের অক্টোবরে নির্বাচন হলেও জুলাই থেকেই সংসদ নির্বাচনের দামামা তখন শুরু। বিএনপি তখন প্রার্থী খুজে পাচ্ছিল না। সবাই মোহাম্মদ আলীকে চাপ দিতে থাকে নির্বাচনের জন্য। কিন্তু কিং মেকার নির্বাচনে সরাসরি যেতে রাজী না। নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি করতেই প্রয়াস তার। বিএনপির প্রার্থী ভালো না থাকায় যে কোন মূল্যে ফতুল্লা আসনটি নিজেদের নিয়ন্ত্রনে রাখতে শুরু হয় পরিকল্পনা। প্রথমে কিংমেকারের আর্শিবাদ লাভ করেছিল সিদ্ধিরগঞ্জের ধনকুবের বিএনপি নেতা সফর আলী ভূইয়া। বিএনপি থেকে প্রথমে তাকেই নমিনেশন দেয়া হয়। তবে তাকে নিয়ে নির্বাচনী তরী পার হওয়া নিয়ে সংশয় থাকায় কিংমেকার মোহাম্মদ আলী বেছে নেন গিয়াসউদ্দিনকে। ওই বছরের ১৪ আগস্ট গিয়াসউদ্দিন কৃষক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতির পদ ছেড়ে বিএনপিতে যোগ দেয়। আর সেই ঘটনার পুরো পরিকল্পনায় ছিলেন মোহাম্মদ আলী। পরে তিনিই গিয়াসউদ্দিনকে ওই বছরের ১ অক্টোবর সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন এনে দেন। মোহাম্মদ আলীর কারিশমায় নির্বাচনে গিয়াসউদ্দিন বিপুল ভোটে শামীম ওসমানকে পরাজিত করে। গিয়াস উদ্দিন এমপি নির্বাচিত হয়ে বিএনপির রাজনৈতিক অঙ্গনে রাতারাতি আলোচনায় ওঠে আসেন। কিন্তু জোট সরকারের শুরুতেই প্রথম দিকেই নানা বির্তকে জড়িয়ে পড়েন তিনি। এক পর্যায়ে মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধচারণ শুরু করে গিয়াসউদ্দিন। মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে ঘড়ি চুরিসহ ছিনতাই মামলা দেওয়ারও চেষ্টা হয়। ওই সময় মোহাম্মদ আলী সমর্থক ফতুল্লা থানা বিএনপির সভাপতি খন্দকার মনিরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মনিরুল আলম সেন্টু, বিএনপি নেতা স ম নুরুল ইসলাম, ছাত্রদল নেতা রিয়াদ মোহাম্মদ চৌধুরী সহ বিএনপি ও এর অঙ্গদলের নেতাকর্মীরা সংসদ সদস্য গিয়াসউদ্দিনের চরম বিরোধীতা করতে থাকে। এতে করে চারদলীয় জোট সরকারের আমলে অনেকটা বেকায়দায় ছিলেন সংসদ সদস্য গিয়াসউদ্দিন।

 

বিগত ২০০৮ সালের ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনের আগে আবারও প্রার্থী সংকটে পড়ে বিএনপি। এবারের নির্বাচনে বিএনপির সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিন মনোনয়ন দাখিল করলেও ঋণখেলাপীর কারণে বাতিল হয়ে যায়। মোহাম্মদ আলী নতুন নেতার তালাশ শুরু করেন। আবিস্কার করেন শিল্পপতি শাহআলমকে। নির্বাচনের শুরু থেকেই মোহাম্মদ আলী নিজেই পুরো বিষয়গুলো মনিটরিং করতে থাকেন। অল্প দিনেই শাহআলম ফতুল্লায় জনপ্রিয় হয়ে উঠতে থাকে ভোটের আগে। আর এর পুরো কারিশমা ছিল মোহাম্মদ আলীর। শেষ দিকে যখন অবস্থা খুবই ভালো তখন শাহআলমের ভাই সহ অন্যদের কিছু বিতর্কিত সিদ্ধান্তে মনক্ষুন্ন হন মোহাম্মদ আলী। আর এতে করে সেখানকার নেতাকর্মীরাও ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন। এ নিয়ে যখন নির্বাচনের আগে অন্তকলহ তখন নানা কারণে মোহাম্মদ আলীর পঞ্চবটিতে ডালডা মিলে সমাবেশ করে নিজের অবস্থান পরিস্কার করে। সবার সামনে স্বীকার করেন তাঁর সঙ্গে মোহাম্মদ আলীর কোন দূরত্ব নাই। তবে সেটা বিশ^াস করতে পারেনি লোকজন। সেই নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী শাহআলম পরাজিত হন। আর শাহআলমের বিপক্ষে আওয়ামীলীগ প্রার্থী সারাহ বেগম কবরী নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে জয় লাভ করেন।

 

স্থানীয়রা বলছেন, মোহাম্মদ আলী ভিন্ন প্রকৃতির মানুষ। তিনি মানুষকে উপরে উঠাতেই চেষ্টা করেন। আর সে কাজটি করতে গিয়ে নিজেও দেন অনেক ভর্তুকি। তাছাড়া ফতুল্লার বিভিন্ন ইউনিয়নে তিনি আগে থেকেই বেশ জনপ্রিয়। স্ব উদ্যোগে বিভিন্ন স্থানে টিউবওয়েল স্থাপন সহ অনেক উন্নয়নমূলক কাজের পৃষ্ঠপোষক তিনি।

 

আওয়ামী লীগ কিংবা বিএনপি নয়, দলমত নির্বিশেষে সকলের কাছেই আলাদা এক গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে মোহাম্মদ আলীর। স্থানীয় পর্যায় ছাড়াও নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে অনেক আগেই কিং মেকার খ্যাতি পেয়েছেন। এছাড়া ব্যবসায়ী মহলেও তার রয়েছে ভিন্ন এক আমেজ। অনেকের কাছেই তিনি মুরব্বি হিসেবে সম্মানিত।

 

জাতীয় রাজনীতিতেও বেশ পরিচিতমুখ তিনি। জাতীয় রাজনীতিতে অবদান রাখা অনেক ব্যক্তির সাথেই তার রয়েছে সুসম্পর্ক। এছাড়া বাংলাদেশের রাজনীতিতে রহস্য পুুরুষখ্যাত সিরাজুল আলম খান দাদা ভাইয়ের শিষ্য হিসেবে অনেকের কাছেই তার ব্যাপক খ্যাতি রয়েছে। কেউ কেউ বলে থাকেন, মোহাম্মদ আলীর প্রভাব প্রতিপত্তির নেপথ্যে দাদা ভাইয়ের আশীর্বাদ।

 

কারো কারো মতে, দেশের রাজনীতিতে বিশাল এক ফ্যাক্টর দাদা ভাই। বিভিন্ন রাজনীতিকের জন্য তিনি পথপ্রদর্শক। আর সেই পথপ্রদর্শকের বেশ আস্থাভাজন এই মোহাম্মদ আলী।

 

গত বছরের ২৬ জুন অনুষ্ঠিত হয় নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের উপ-নির্বাচন। এতে প্রার্থী হয় ব্যবসায়ী নেতা সেলিম ওসমান যাঁর সঙ্গে মোহাম্মদ আলীর সম্পর্ক বেয়াই। ওই নির্বাচনটি ছিল ওসমান পরিবারের জন্য প্রেস্টিজ ইস্যু। মাঠে নামেন মোহাম্মদ আলী। সেলিম ওসমানের পক্ষে বিভিন্ন স্থানে ক্যাম্পেইন শুরু করেন। বিএনপির অনেক নেতাকর্মী যারা সেলিম ওসমানের বিরুদ্ধে কাজ করার প্রয়াস চালিয়েছিল স্ব কারিশমায় তাদেরকে বশে আনেন মোহাম্মদ আলী। বদলে যায় ভোটের চিত্র।

 

সবার আস্থায় কিংমেকার: এদিকে শুধু জাতীয় সংসদ সদস্যই নয় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি নির্বাচনের ক্ষেত্রেও তাঁর ভূমিকা অতুলনীয়। গত বছর অনুষ্ঠিত এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে নিজের ভাইপো হাবিবুর রহমান লিটনকে প্রার্থী করিয়ে জয় ছিনিয়ে আনে। এছাড়া আসন্ন সদর উপজেলার বাকী ৬টি ইউনিয়ন পরিষদের সম্ভাব্য প্রার্থীরাও ইতিমধ্যে তার আর্শিবাদ নিতে উঠে পড়ে লেগেছেন। দলীয় প্রতীকে আগামী নির্বাচন হলেও সকল দলের প্রার্থীরাই তার আর্শিবাদ নিতে যোগাযোগ করছেন। জনশ্রুতি রয়েছে তার আর্শিবাদ ছাড়া জয়ের মালা ভাগ্যে জোটা দুস্কর।

 

নাম না প্রকাশ করা শর্তে কয়েকজন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা বলেন, বহু বিশেষনে ভূষিত হলেও মোহাম্মদ আলী জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা। জাতির পিতার নির্দেশে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেন। বর্তমানে জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা দেশনেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখার লক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে নৌকার পক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» ফতুল্লার মাদক সম্রাট লিপু ওরফে বোমা লিপু বন্ধুকযুদ্ধে নিহত

» ঝিনাইদহ র‌্যাব-৬’র অভিযানে ইয়াবা গাঁজা ও হেরোইনসহ আটক ২

»  পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ” নেপথ্যে পরকীয়া !

»  আদম ব্যাপারি দালালদের খপ্পরে পড়ে ৬ বছরেও সন্ধান মেলেনি ১৯ যুবকের

» ঝিনাইদহ পুলিশ সুপারের নেত্রীত্বে ২৪ ঘন্টার পুর্বেই হত্যা মামলার আসামি গ্রেফতার

» সিদ্ধিরগঞ্জে দুই কাউন্সিলর সমর্থকদের মধ্যে দুই দফায় সংঘর্ষ গ্রেফতার- ১১

» এমপি শামীম ওসমানের বিশেষ বরাদ্দকৃত পানির পাম্প উদ্বোধন করেন প্যানেল মেয়র 

» আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলেন ছাত্রদলের সজীবগং

» আনোয়ার হত্যায় শ্যামলের যাবজ্জীবন কারাদন্ড!

» শনিবার ৪ লাখ শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন এ প্লাস




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD




আজ : বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৬ই আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পর্দার আড়ালের অন্তরালে অনেক ঘটনার নায়ক : কিং মেকার মোহাম্মদ আলী”

বিশেষ সংবাদদাতা :- নারায়ণগঞ্জের রাজনীতি অঙ্গনে বেশ পরিচিত মুখ কমান্ডার মোহাম্মদ আলী। সুদর্শন এ ব্যক্তি নারায়ণগঞ্জ তো বটেই বাংলাদেশে বেশ আলোচিত। তবে ফতুল্লার লোকজনদের জন্য তিনি আশীর্বাদ বটে। তিনি বিএনপির ঘরনার হিসেবে পরিচিতি পেলেও তাঁর কাছে রাজনৈতিক কোন ভেদাভেদ নাই। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিভিন্ন স্তরের নেতাদের কাছে তিনি ‘কিং মেকার’ হিসেবেই পরিচিত। পর্দার আড়ালের অন্তরালে অনেক ঘটনার নায়ক তিনি। জনপ্রতিনিধি বানানো, এমপি বানানো অনেক কাজেই তিনি বেশ সিদ্ধহস্ত। জাতীয় একাদশ আসন্ন নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের জাতীয় পার্টির পদপ্রার্থী সেলিম ওসমান আর নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী একেএম শামীম ওসমানের পক্ষে ভোট চাইছেন মোহাম্মদ আলী।

 

জানাগেছে, ১৯৯১ সালে দেয়াল ঘড়ি প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছিলেন মোহাম্মদ আলী। ওই সময় তিনি বক্তাবলী, আলীর টেক, গোগনগর, মাসদাইরসহ বিভিন্ন এলাকায় কথা দিয়ে বলেছিলেন, ‘আমি নির্বাচিত হই বা না হই এলাকার উন্নয়ণে নিজেকে সম্পৃক্ত রাখবো’। সে নির্বাচনে সামান্য ভোট ব্যবধানে বিএনপির প্রার্থী কমান্ডার সিরাজুল ইসলামের কাছে হেরেছিলেন তিনি। তারপরও নিজ উদ্যোগে ওই সমস্ত এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ণ করেছেন। বক্তাবলীবাসীর কাছে মোহাম্মদ আলীর ভিন্ন এক গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। তাদের কাছে বক্তাবলীর উন্নয়ণের রূপকার মোহাম্মদ আলী। শুধু বক্তাবলীই নয় নারায়ণগঞ্জে তিনি দানবীর হিসেবেও তাঁর পরিচিতি ব্যাপক।

 

পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির বিতর্কিত নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন থেকে তিনি বিএনপির টিকেটে এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। আর তখন থেকেই তিনি বিএনপির প্রতি দুর্বল হয়ে উঠেন। শিল্পপতি এ নেতার সঙ্গে তখন থেকেই বিএনপির বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের যোগাযোগ। মোহাম্মদ আলীর ঘনিষ্টজনেরা জানান, যাদেরকে তিনি উঠিয়েছেন পরে তারাই মোহাম্মদ আলীর ঘোর বিরোধী হয়ে উঠেন।

 

সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানা গেছে, ২০০১ সালের অক্টোবরে নির্বাচন হলেও জুলাই থেকেই সংসদ নির্বাচনের দামামা তখন শুরু। বিএনপি তখন প্রার্থী খুজে পাচ্ছিল না। সবাই মোহাম্মদ আলীকে চাপ দিতে থাকে নির্বাচনের জন্য। কিন্তু কিং মেকার নির্বাচনে সরাসরি যেতে রাজী না। নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি করতেই প্রয়াস তার। বিএনপির প্রার্থী ভালো না থাকায় যে কোন মূল্যে ফতুল্লা আসনটি নিজেদের নিয়ন্ত্রনে রাখতে শুরু হয় পরিকল্পনা। প্রথমে কিংমেকারের আর্শিবাদ লাভ করেছিল সিদ্ধিরগঞ্জের ধনকুবের বিএনপি নেতা সফর আলী ভূইয়া। বিএনপি থেকে প্রথমে তাকেই নমিনেশন দেয়া হয়। তবে তাকে নিয়ে নির্বাচনী তরী পার হওয়া নিয়ে সংশয় থাকায় কিংমেকার মোহাম্মদ আলী বেছে নেন গিয়াসউদ্দিনকে। ওই বছরের ১৪ আগস্ট গিয়াসউদ্দিন কৃষক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতির পদ ছেড়ে বিএনপিতে যোগ দেয়। আর সেই ঘটনার পুরো পরিকল্পনায় ছিলেন মোহাম্মদ আলী। পরে তিনিই গিয়াসউদ্দিনকে ওই বছরের ১ অক্টোবর সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন এনে দেন। মোহাম্মদ আলীর কারিশমায় নির্বাচনে গিয়াসউদ্দিন বিপুল ভোটে শামীম ওসমানকে পরাজিত করে। গিয়াস উদ্দিন এমপি নির্বাচিত হয়ে বিএনপির রাজনৈতিক অঙ্গনে রাতারাতি আলোচনায় ওঠে আসেন। কিন্তু জোট সরকারের শুরুতেই প্রথম দিকেই নানা বির্তকে জড়িয়ে পড়েন তিনি। এক পর্যায়ে মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধচারণ শুরু করে গিয়াসউদ্দিন। মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে ঘড়ি চুরিসহ ছিনতাই মামলা দেওয়ারও চেষ্টা হয়। ওই সময় মোহাম্মদ আলী সমর্থক ফতুল্লা থানা বিএনপির সভাপতি খন্দকার মনিরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মনিরুল আলম সেন্টু, বিএনপি নেতা স ম নুরুল ইসলাম, ছাত্রদল নেতা রিয়াদ মোহাম্মদ চৌধুরী সহ বিএনপি ও এর অঙ্গদলের নেতাকর্মীরা সংসদ সদস্য গিয়াসউদ্দিনের চরম বিরোধীতা করতে থাকে। এতে করে চারদলীয় জোট সরকারের আমলে অনেকটা বেকায়দায় ছিলেন সংসদ সদস্য গিয়াসউদ্দিন।

 

বিগত ২০০৮ সালের ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনের আগে আবারও প্রার্থী সংকটে পড়ে বিএনপি। এবারের নির্বাচনে বিএনপির সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিন মনোনয়ন দাখিল করলেও ঋণখেলাপীর কারণে বাতিল হয়ে যায়। মোহাম্মদ আলী নতুন নেতার তালাশ শুরু করেন। আবিস্কার করেন শিল্পপতি শাহআলমকে। নির্বাচনের শুরু থেকেই মোহাম্মদ আলী নিজেই পুরো বিষয়গুলো মনিটরিং করতে থাকেন। অল্প দিনেই শাহআলম ফতুল্লায় জনপ্রিয় হয়ে উঠতে থাকে ভোটের আগে। আর এর পুরো কারিশমা ছিল মোহাম্মদ আলীর। শেষ দিকে যখন অবস্থা খুবই ভালো তখন শাহআলমের ভাই সহ অন্যদের কিছু বিতর্কিত সিদ্ধান্তে মনক্ষুন্ন হন মোহাম্মদ আলী। আর এতে করে সেখানকার নেতাকর্মীরাও ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন। এ নিয়ে যখন নির্বাচনের আগে অন্তকলহ তখন নানা কারণে মোহাম্মদ আলীর পঞ্চবটিতে ডালডা মিলে সমাবেশ করে নিজের অবস্থান পরিস্কার করে। সবার সামনে স্বীকার করেন তাঁর সঙ্গে মোহাম্মদ আলীর কোন দূরত্ব নাই। তবে সেটা বিশ^াস করতে পারেনি লোকজন। সেই নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী শাহআলম পরাজিত হন। আর শাহআলমের বিপক্ষে আওয়ামীলীগ প্রার্থী সারাহ বেগম কবরী নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে জয় লাভ করেন।

 

স্থানীয়রা বলছেন, মোহাম্মদ আলী ভিন্ন প্রকৃতির মানুষ। তিনি মানুষকে উপরে উঠাতেই চেষ্টা করেন। আর সে কাজটি করতে গিয়ে নিজেও দেন অনেক ভর্তুকি। তাছাড়া ফতুল্লার বিভিন্ন ইউনিয়নে তিনি আগে থেকেই বেশ জনপ্রিয়। স্ব উদ্যোগে বিভিন্ন স্থানে টিউবওয়েল স্থাপন সহ অনেক উন্নয়নমূলক কাজের পৃষ্ঠপোষক তিনি।

 

আওয়ামী লীগ কিংবা বিএনপি নয়, দলমত নির্বিশেষে সকলের কাছেই আলাদা এক গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে মোহাম্মদ আলীর। স্থানীয় পর্যায় ছাড়াও নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে অনেক আগেই কিং মেকার খ্যাতি পেয়েছেন। এছাড়া ব্যবসায়ী মহলেও তার রয়েছে ভিন্ন এক আমেজ। অনেকের কাছেই তিনি মুরব্বি হিসেবে সম্মানিত।

 

জাতীয় রাজনীতিতেও বেশ পরিচিতমুখ তিনি। জাতীয় রাজনীতিতে অবদান রাখা অনেক ব্যক্তির সাথেই তার রয়েছে সুসম্পর্ক। এছাড়া বাংলাদেশের রাজনীতিতে রহস্য পুুরুষখ্যাত সিরাজুল আলম খান দাদা ভাইয়ের শিষ্য হিসেবে অনেকের কাছেই তার ব্যাপক খ্যাতি রয়েছে। কেউ কেউ বলে থাকেন, মোহাম্মদ আলীর প্রভাব প্রতিপত্তির নেপথ্যে দাদা ভাইয়ের আশীর্বাদ।

 

কারো কারো মতে, দেশের রাজনীতিতে বিশাল এক ফ্যাক্টর দাদা ভাই। বিভিন্ন রাজনীতিকের জন্য তিনি পথপ্রদর্শক। আর সেই পথপ্রদর্শকের বেশ আস্থাভাজন এই মোহাম্মদ আলী।

 

গত বছরের ২৬ জুন অনুষ্ঠিত হয় নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের উপ-নির্বাচন। এতে প্রার্থী হয় ব্যবসায়ী নেতা সেলিম ওসমান যাঁর সঙ্গে মোহাম্মদ আলীর সম্পর্ক বেয়াই। ওই নির্বাচনটি ছিল ওসমান পরিবারের জন্য প্রেস্টিজ ইস্যু। মাঠে নামেন মোহাম্মদ আলী। সেলিম ওসমানের পক্ষে বিভিন্ন স্থানে ক্যাম্পেইন শুরু করেন। বিএনপির অনেক নেতাকর্মী যারা সেলিম ওসমানের বিরুদ্ধে কাজ করার প্রয়াস চালিয়েছিল স্ব কারিশমায় তাদেরকে বশে আনেন মোহাম্মদ আলী। বদলে যায় ভোটের চিত্র।

 

সবার আস্থায় কিংমেকার: এদিকে শুধু জাতীয় সংসদ সদস্যই নয় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি নির্বাচনের ক্ষেত্রেও তাঁর ভূমিকা অতুলনীয়। গত বছর অনুষ্ঠিত এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে নিজের ভাইপো হাবিবুর রহমান লিটনকে প্রার্থী করিয়ে জয় ছিনিয়ে আনে। এছাড়া আসন্ন সদর উপজেলার বাকী ৬টি ইউনিয়ন পরিষদের সম্ভাব্য প্রার্থীরাও ইতিমধ্যে তার আর্শিবাদ নিতে উঠে পড়ে লেগেছেন। দলীয় প্রতীকে আগামী নির্বাচন হলেও সকল দলের প্রার্থীরাই তার আর্শিবাদ নিতে যোগাযোগ করছেন। জনশ্রুতি রয়েছে তার আর্শিবাদ ছাড়া জয়ের মালা ভাগ্যে জোটা দুস্কর।

 

নাম না প্রকাশ করা শর্তে কয়েকজন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা বলেন, বহু বিশেষনে ভূষিত হলেও মোহাম্মদ আলী জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা। জাতির পিতার নির্দেশে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেন। বর্তমানে জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা দেশনেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখার লক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে নৌকার পক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD