কুয়াকাটারয় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের দাবিতে রাখাইনদের মানববন্ধন

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

কুয়াকাটা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: কুয়াকাটার মিশ্রিপাড়া রাখাইন সীমা বৌদ্ধ মন্দিরের জায়গা থেকে অবৈধ স্থাপণা অপসারনের দাবিতে মন্দির কমিটির উদ্যোগে (শনিবার) বেলা ১১ টায় মানব বন্ধন কর্মসুচি পালন করেছে। মানববন্ধনে রাখাইন সম্প্রদায়ের শতাধিক নারী-পুরুষ অংশ গ্রহন করেন। এ কর্মসুচিতে সীমা বৌদ্ধ মন্দিরের পুরোহিত উত্তম ভিক্ষু, বেতকাটা বৌদ্ধ বিহারের প্রতিনিধি মংচো তালুকদার, পক্ষিয়াপাড়া বৌদ্ধ মন্দিরের প্রতিনিধি অংজোয়ে, পটুয়াখালী বুড্ডিস্ট ওয়েল ফেয়ার এসাসিয়েশনের সভাপতি এমং তালুকদার ও নারী রাখাইন মাচুষে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন।

 

মন্দিরের পুরোহিত উত্তম ভিক্ষু জানান, ১৯১১ সালে স্থানীয় রাখাইন সম্প্রদয়ের লোকজনের উপাসনা ও ধর্মীয় শিক্ষার লক্ষ্যে এ সীমা বৌদ্ধ মন্দিরটি স্থাপিত হয়। এশিয়া মহাদশের অন্যতম বৃহৎ বৌদ্ধ মূর্তিটি এ মন্দিরে স্থাপিত হওয়ার কারনে এখানে দেশি বিদেশী অনেক পর্যটকের সমাগম ঘটে। জার্মান সরকারের অর্থায়নের ১.৮৬ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত এ মন্দিরটি ২০১৩ সালে রুপায়ন করা হয় এবং চারদিকে সীমনা দেয়াল ও কাটা তারের বেড়া দেয়া হয়। কিন্তু স্থানীয় কতিপয় অসাধু লোক মন্দিরের সামনের জায়গা দখল করে ব্যবসায়িক স্থাপনা তুলে দখলে নেয়। মানবিক কারনে মন্দির কর্তৃপক্ষ ওইসব স্থাপনা এতদিন বহাল রাখলেও সেগুলো মন্দিরের সৌন্দর্য বিনষ্ট করায় সম্প্রতি দখলদারকে তাদের স্থাপনা সরিয়ে নিতে অনুরোধ করে কিন্তু দখলকারিরা এতে কর্নপাত করছেন না। উল্টো জমির মালিকানা দাবী করে স্থানীয় হাজী মোহাম্মাদ সেকান্দার আলী রাখাইনদের বিরুদ্ধে পটুয়াখালী বিজ্ঞ সিনিয়র যুগ্ম জেলা জজ ১ম আদালতে মামলা করে। যার দেওয়ানী মোকাদ্দমা মামলা নং ৫৯/২০২১।

 

এ ব্যাপারে মন্দির কর্তৃপক্ষ গত ২৮ ফেব্রæয়ারি পটুয়াখালী জেলা প্রশাসকের কাছে প্রয়োজনীয় সহায়তা কামনা করে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। মন্দিরের সামনে স্থানীয় ৮ জন ব্যবসায়ী দোকান ঘর তুলে হোটেলসহ নানা ধরনের ব্যবসা পরিচালনা করছেন। এদের একজন চা দোকানী মাইনুদ্দিন জানান, আমরা কয়েক বছর ধরে এখানে ব্যবসা করছি। তবে স্থানীয় প্রশাসনকে জানিয়েছি তারা যে সিদ্ধান্ত দেবে তাই মেনে নেব। এ ব্যাপারে পটুয়াখালী অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জি এম সরফরাজ সাংবাদিকদের জানান, রাখাইনদের অভিযোগ পেয়েছি। কাগজপত্রসহ উভয়পক্ষকে ডেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» আহমদ শফীকে হত্যা প্ররোচনা মামলায় বাবুনগরী-মামুনুলসহ ৪৩ জন অভিযুক্ত

» লকডাউনের কারণে পাটুরিয়ায় পারের অপেক্ষায় শত শত যানবাহন

» তারাবি ও মসজিদে জামাত নিয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা

» কর্মহীন পরিবার লকডাউনে পাবে ৫০০ টাকা ও খাবার

» দোয়া চেয়ে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বললেন খালেদা জিয়া

» আগের সব রেকর্ড ভেঙে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নতুন রেকর্ড গড়ল বাংলাদেশ

» একাধিক অভিযোগ সস্তাপুরের ভূমিদস্যু রাজিয়ার বিরুদ্ধে

» সোনারগাঁয়ে ছোট ভাইকে বাচাঁতে গিয়ে বোনের মৃত্যু

» বান্দরবানে করোনা প্রতিরোধে পার্বত্যমন্ত্রী বীর বাহাদুর

» হাজী সুমনকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছে পঞ্চায়েত কমিটি




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, খ্রিষ্টাব্দ, ১লা বৈশাখ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কুয়াকাটারয় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের দাবিতে রাখাইনদের মানববন্ধন

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

কুয়াকাটা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: কুয়াকাটার মিশ্রিপাড়া রাখাইন সীমা বৌদ্ধ মন্দিরের জায়গা থেকে অবৈধ স্থাপণা অপসারনের দাবিতে মন্দির কমিটির উদ্যোগে (শনিবার) বেলা ১১ টায় মানব বন্ধন কর্মসুচি পালন করেছে। মানববন্ধনে রাখাইন সম্প্রদায়ের শতাধিক নারী-পুরুষ অংশ গ্রহন করেন। এ কর্মসুচিতে সীমা বৌদ্ধ মন্দিরের পুরোহিত উত্তম ভিক্ষু, বেতকাটা বৌদ্ধ বিহারের প্রতিনিধি মংচো তালুকদার, পক্ষিয়াপাড়া বৌদ্ধ মন্দিরের প্রতিনিধি অংজোয়ে, পটুয়াখালী বুড্ডিস্ট ওয়েল ফেয়ার এসাসিয়েশনের সভাপতি এমং তালুকদার ও নারী রাখাইন মাচুষে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন।

 

মন্দিরের পুরোহিত উত্তম ভিক্ষু জানান, ১৯১১ সালে স্থানীয় রাখাইন সম্প্রদয়ের লোকজনের উপাসনা ও ধর্মীয় শিক্ষার লক্ষ্যে এ সীমা বৌদ্ধ মন্দিরটি স্থাপিত হয়। এশিয়া মহাদশের অন্যতম বৃহৎ বৌদ্ধ মূর্তিটি এ মন্দিরে স্থাপিত হওয়ার কারনে এখানে দেশি বিদেশী অনেক পর্যটকের সমাগম ঘটে। জার্মান সরকারের অর্থায়নের ১.৮৬ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত এ মন্দিরটি ২০১৩ সালে রুপায়ন করা হয় এবং চারদিকে সীমনা দেয়াল ও কাটা তারের বেড়া দেয়া হয়। কিন্তু স্থানীয় কতিপয় অসাধু লোক মন্দিরের সামনের জায়গা দখল করে ব্যবসায়িক স্থাপনা তুলে দখলে নেয়। মানবিক কারনে মন্দির কর্তৃপক্ষ ওইসব স্থাপনা এতদিন বহাল রাখলেও সেগুলো মন্দিরের সৌন্দর্য বিনষ্ট করায় সম্প্রতি দখলদারকে তাদের স্থাপনা সরিয়ে নিতে অনুরোধ করে কিন্তু দখলকারিরা এতে কর্নপাত করছেন না। উল্টো জমির মালিকানা দাবী করে স্থানীয় হাজী মোহাম্মাদ সেকান্দার আলী রাখাইনদের বিরুদ্ধে পটুয়াখালী বিজ্ঞ সিনিয়র যুগ্ম জেলা জজ ১ম আদালতে মামলা করে। যার দেওয়ানী মোকাদ্দমা মামলা নং ৫৯/২০২১।

 

এ ব্যাপারে মন্দির কর্তৃপক্ষ গত ২৮ ফেব্রæয়ারি পটুয়াখালী জেলা প্রশাসকের কাছে প্রয়োজনীয় সহায়তা কামনা করে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। মন্দিরের সামনে স্থানীয় ৮ জন ব্যবসায়ী দোকান ঘর তুলে হোটেলসহ নানা ধরনের ব্যবসা পরিচালনা করছেন। এদের একজন চা দোকানী মাইনুদ্দিন জানান, আমরা কয়েক বছর ধরে এখানে ব্যবসা করছি। তবে স্থানীয় প্রশাসনকে জানিয়েছি তারা যে সিদ্ধান্ত দেবে তাই মেনে নেব। এ ব্যাপারে পটুয়াখালী অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জি এম সরফরাজ সাংবাদিকদের জানান, রাখাইনদের অভিযোগ পেয়েছি। কাগজপত্রসহ উভয়পক্ষকে ডেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD