ফতুল্লায় হকারদের দখলে ফুটপাত, জনচলাচলে সীমাহীন দুর্ভোগ

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ফুটপাত নির্মাণ করা হয় জনচলাচলের জন্য। নির্বিঘেœ হাঁটাচলা করতে কিংবা জনচলাচলের জন্য সড়কে ফুটপাত রাখার বিধান রয়েছে আইনে। দিন দিন হকারদের দখলে ফুটপাতের কারণে জনচলাচলে সীমাহীন দুর্ভোগ বেড়েই চলেছে।

 

তবে বাস্তবে, যানবাহন চলাচলের জন্য রাস্তা আর হাঁটার জন্য ফুটপাত এর সত্যতা পাওয়া বড়ই দুষ্কর। ফতুল্লার গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোর বেশিরভাগ এলাকার ফুটপাত এখন ব্যবসায়ীদের দখলে। হকার ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ফুটপাতেই ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। ভাসমান হকাররাও ফুটপাতের বিশাল একটি অংশ দখল করে রেখেছে। সব ফুটপাতগুলো পথচারীদের নাকি হকারদের তা বোঝা মুশকিল।

 

ফুটপাত আর রাস্তার একাংশ দখল করে, অর্থাৎ হাটার অধিকারকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ব্যবসা করাটা যেন অঘোষিত, অলিখিত নিয়মে পরিণত হয়ে গেছে।

 

কিছু কিছু দোকান রাস্তার ওপর রীতিমতো স্থায়ী রূপ নেয়। বাহারি রকমের ফল, কার্পেট, কম্বল, বই, স্টেশনারী- এমন কিছু নেই যা এখানে বিক্রি হয় না। এসব দোকানের সামনে ক্রেতাদের ভিড় লেগেই থাকে। ক্রেতাদের এসব ভীড় ঠেলে হাটঁতে পথচারীদের দুর্ভোগের যেন শেষ নেই। এমতাবস্থায় ভিড় ঠেলে পথচারীদের নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছতে অনেক ভোগান্তিতে পড়তে হয়। সময়েরও যথেষ্ট অপচয় হয়। নারায়ণগঞ্জের সব ফুটপাতগুলোর চিত্র যেন একই। কোন কোন জায়গায় দোকানের সঙ্গে ভ্রাম্যমান ভিক্ষুক ও টোকাইদের উপদ্রবও অতিষ্ঠ করে পথচারীকে।

 

ফুটপাতে পথচারীদের, বিশেষ করে নারীদের চলতে গিয়ে বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে বেশি। তাদের সঙ্গে ঘটছে অহরহ অপ্রীতিকর ঘটনা। ধাক্কাধাক্কি লেগেই থাকে। অনেকে ইচ্ছে করেই গায়ের উপর এসে পড়ে। এসব ফুটপাতে হাঁটতে গেলে পকেটমারের আতঙ্কেও থাকতে হয়।

 

এসব কারণে অনেকে মেইন রোডে হাঁটতে বাধ্য হয়, ফলে দূর্ঘটনার আশঙ্কাও থেকে যায়। ফতুল্লার প্রায় সব এলাকায়ই দিনের সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে ফুটপাত গুলো হকার ও ব্যবসায়িদের দখলে চলে যায়। এলাকা ভেদে রাত ১০ টা বা ১১ টা পর্যন্ত তাদের দখলেই থাকে ফুটপাত। পথচারীদের ফুটপাতে ফেরার আগেই আবারও হকারদের দখলে চলে যায় ফুটপাত।

 

এ দুর্ভোগ যেন শেষ হবার নয়। যে যার মতো ফুটপাত দখল করে আছে। ফুটপাতের এ অবাধ দখলদারিত্ব কোনভাবেই মানা যায় না। পথচলায় নেই কোন স্বস্তি। বাড়ছে যানজট, বৃদ্ধি পাচ্ছে সড়ক দুর্ঘটনা। বাড়ছে অপরিচ্ছন্নতা। ফতুল্লা ক্রমেই হচ্ছে বসবাসের অনুপযোগী, হারাচ্ছে তার সৌন্দর্য। আর এসব সমস্যার মূলে ফুটপাত বাণিজ্য।

 

ফুটপাত নির্মাণ করা হয় জনচলাচলের জন্য। সেসব দখল করে যদি ব্যবসা পরিচালনা করা হয় তাতে জনগণকেই তার হাঁটার অধিকার, চলার অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়। ফুটপাত দখল ও এর ব্যবসা নিয়ন্ত্রণে নেপথ্যে থাকা রাঘব বোয়ালদের চিহ্নিত করা উচিত। হকারদের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা নিশ্চিত করে ফুটপাত উন্মুক্ত করে দেওয়া উচিত, যাতে পথচারীরা নির্বিঘেœ যাতায়াত করতে পারে। এ ব্যাপারে স্থায়ী পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

 

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ রকিবুজ্জামানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি তা রিসিভ করেননি।

 

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» বেনাপোলে ২৫০ বোতল ফেনসিডিলসহ চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী আলম আটক

» আমতলীতে ইয়াবাসহ দুই মাদক কারবারী গ্রেফতার!

» বাবা ফাইন্ডেশনের উদ্যোগে ছিন্নমূল শীতার্ত মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

» আমতলীতে পর্ণগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে নারীর মামলা, গ্রেফতার দুই!

» আমতলীতে একটি খালের লিজ বাতিলের দাবিতে ভূক্তভোগী কৃষকদের মানববন্ধন!

» কুয়েতে এসএটিভি’র ১০তম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে আলোচনা সভা

» হেযবুত তওহীদের কেন্দ্রীয় সম্মেলন-২০২২ অনুষ্ঠিত

» ফতুল্লায় দুই পক্ষের সংঘর্ষ’ আহত দুই পক্ষের ৬’ থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

» কুতুবপুরে কালাম গংয়ের হামলায় আহত এক

» শার্শার গোগায় সস্ত্রাসীরা কেটে নিল ৩ লাখ টাকার গাছ

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : সোমবার, ২৪ জানুয়ারি ২০২২, খ্রিষ্টাব্দ, ১০ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফতুল্লায় হকারদের দখলে ফুটপাত, জনচলাচলে সীমাহীন দুর্ভোগ

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ফুটপাত নির্মাণ করা হয় জনচলাচলের জন্য। নির্বিঘেœ হাঁটাচলা করতে কিংবা জনচলাচলের জন্য সড়কে ফুটপাত রাখার বিধান রয়েছে আইনে। দিন দিন হকারদের দখলে ফুটপাতের কারণে জনচলাচলে সীমাহীন দুর্ভোগ বেড়েই চলেছে।

 

তবে বাস্তবে, যানবাহন চলাচলের জন্য রাস্তা আর হাঁটার জন্য ফুটপাত এর সত্যতা পাওয়া বড়ই দুষ্কর। ফতুল্লার গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোর বেশিরভাগ এলাকার ফুটপাত এখন ব্যবসায়ীদের দখলে। হকার ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ফুটপাতেই ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। ভাসমান হকাররাও ফুটপাতের বিশাল একটি অংশ দখল করে রেখেছে। সব ফুটপাতগুলো পথচারীদের নাকি হকারদের তা বোঝা মুশকিল।

 

ফুটপাত আর রাস্তার একাংশ দখল করে, অর্থাৎ হাটার অধিকারকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ব্যবসা করাটা যেন অঘোষিত, অলিখিত নিয়মে পরিণত হয়ে গেছে।

 

কিছু কিছু দোকান রাস্তার ওপর রীতিমতো স্থায়ী রূপ নেয়। বাহারি রকমের ফল, কার্পেট, কম্বল, বই, স্টেশনারী- এমন কিছু নেই যা এখানে বিক্রি হয় না। এসব দোকানের সামনে ক্রেতাদের ভিড় লেগেই থাকে। ক্রেতাদের এসব ভীড় ঠেলে হাটঁতে পথচারীদের দুর্ভোগের যেন শেষ নেই। এমতাবস্থায় ভিড় ঠেলে পথচারীদের নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছতে অনেক ভোগান্তিতে পড়তে হয়। সময়েরও যথেষ্ট অপচয় হয়। নারায়ণগঞ্জের সব ফুটপাতগুলোর চিত্র যেন একই। কোন কোন জায়গায় দোকানের সঙ্গে ভ্রাম্যমান ভিক্ষুক ও টোকাইদের উপদ্রবও অতিষ্ঠ করে পথচারীকে।

 

ফুটপাতে পথচারীদের, বিশেষ করে নারীদের চলতে গিয়ে বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে বেশি। তাদের সঙ্গে ঘটছে অহরহ অপ্রীতিকর ঘটনা। ধাক্কাধাক্কি লেগেই থাকে। অনেকে ইচ্ছে করেই গায়ের উপর এসে পড়ে। এসব ফুটপাতে হাঁটতে গেলে পকেটমারের আতঙ্কেও থাকতে হয়।

 

এসব কারণে অনেকে মেইন রোডে হাঁটতে বাধ্য হয়, ফলে দূর্ঘটনার আশঙ্কাও থেকে যায়। ফতুল্লার প্রায় সব এলাকায়ই দিনের সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে ফুটপাত গুলো হকার ও ব্যবসায়িদের দখলে চলে যায়। এলাকা ভেদে রাত ১০ টা বা ১১ টা পর্যন্ত তাদের দখলেই থাকে ফুটপাত। পথচারীদের ফুটপাতে ফেরার আগেই আবারও হকারদের দখলে চলে যায় ফুটপাত।

 

এ দুর্ভোগ যেন শেষ হবার নয়। যে যার মতো ফুটপাত দখল করে আছে। ফুটপাতের এ অবাধ দখলদারিত্ব কোনভাবেই মানা যায় না। পথচলায় নেই কোন স্বস্তি। বাড়ছে যানজট, বৃদ্ধি পাচ্ছে সড়ক দুর্ঘটনা। বাড়ছে অপরিচ্ছন্নতা। ফতুল্লা ক্রমেই হচ্ছে বসবাসের অনুপযোগী, হারাচ্ছে তার সৌন্দর্য। আর এসব সমস্যার মূলে ফুটপাত বাণিজ্য।

 

ফুটপাত নির্মাণ করা হয় জনচলাচলের জন্য। সেসব দখল করে যদি ব্যবসা পরিচালনা করা হয় তাতে জনগণকেই তার হাঁটার অধিকার, চলার অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়। ফুটপাত দখল ও এর ব্যবসা নিয়ন্ত্রণে নেপথ্যে থাকা রাঘব বোয়ালদের চিহ্নিত করা উচিত। হকারদের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা নিশ্চিত করে ফুটপাত উন্মুক্ত করে দেওয়া উচিত, যাতে পথচারীরা নির্বিঘেœ যাতায়াত করতে পারে। এ ব্যাপারে স্থায়ী পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

 

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ রকিবুজ্জামানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি তা রিসিভ করেননি।

 

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD