কোনবা পন্থে নিতাইগঞ্জ যাই- সরওয়ার আহমদ

উজ্জীবিত বাংলাদেশ:- নির্বাচনে হারলে কারচুপি আর জিতলে সুষ্ঠু- এমন প্রচারণা বাংলাদেশী জাতীয় নির্বাচন গুলোর ক্ষেত্রে বোধ হয় “বিধিলিপি” হয়ে উঠেছে। এমতাবস্থায় সবকটি নির্বাচনই  প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে আসছে। যাদের বয়স ষাটোর্দ্ধ, তাদের হয়তো স্মরণে আছে ১৯৭০ সনের নির্বাচনের কথা। সেই সময়ের সামরিক শাসক ইয়াহিয়া খানের ঐতিহাসিক দুর্নাম ও দুষ্কর্ম আছে অনেক। কিন্তু একটি কৃতিত্ব তার ছিলো। ৭০ সনে তিনি একটি অবাধ এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দিতে পেরেছিলেন। কারণ ইয়াহিয়া খান তার পরবর্তী উত্তরাধিকারীদের মতো কোন দল গঠন না করায় অনেকাংশেই ছিলেন নিরপেক্ষ। অন্যদিকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ছিলেন জাস্টিস আব্দুস সত্তার, যিনি পরবর্তীকালে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন। সত্তর সনের সেই নির্বাচনের বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন আওয়ামীলীগ নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করার পর কায়েমী স্বার্থে মহলের টনক নড়ে উঠেছিলো। তখন পূর্ব-পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামির আমীর অধ্যাপক গোলাম আযম নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তুলেছিলেন। তার বক্তব্য ছিলো- প্রিজাডিং ও পোলিং অফিসারদের সহায়তায় অধিকাংশ ভোটকেন্দ্রে জালভোট প্রদানের মহড়া সম্পন্ন হয়েছে। ২২ বৎসর বয়সী ছাত্রছাত্রীদের ভোটাধিকার সেই নির্বাচনে ছিলো না। কিন্তু নির্বাচনে সেই বয়স সীমা অগ্রাহ্য করে সকল কলেজ স্টুন্ডেন্টরা নাকি ফ্রি স্টাইলে ভোট দিয়েছিলো। কিন্তু বাস্তবতার মানদন্ডে সেই অভিযোগ না টিকলেও- গোলাম আজমের মূল উদ্দেশ্য ছিলো :- নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা। সত্তুর সনের আগে অনুষ্ঠিত ৫৪ সনের সাধারণ নির্বাচনে মুসলিমলীগের ভরাডুবির পার তারা নাকি বলেছিলেন, ইন্ডিয়া থেকে দলে দলে হিন্দুরা অনুপ্রবেশ করে যুক্তফ্রন্টের প্রার্থীদের স্বপক্ষে ভোট প্রদান করে নির্বাচনী রেজাল্ট পাল্টিয়ে দিয়েছে। পাকিস্তানের ইতি ঘটার পর বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন নিয়ে অভিযোগের তীর আরও প্রচ্ছন্ন হয়েছে নির্বাচনের সুষ্ঠুতার ব্যাপারে। তাই সুস্থ নির্বাচনের সন্ধান করতে গিয়ে বাউল গানের একটি কলি ভেসে উঠে- কোন বা পন্থে নিতাই গঞ্জে যাই। নিতাই গঞ্জ কতদূর এবং কোনদিকে যেতে হবে, সেই পাঞ্জেরী বা পথ প্রদর্শক এই ময়ালে কি আছে?

 

সদ্য সমাপ্ত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার পর এই নির্বাচনের স্বচ্ছতা এবং নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্নতোলার পাশাপাশি নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ এনেছে বিরোধী শিবিরের জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। শুধু অভিযোগ এনেই তারা ক্ষান্ত হননি, নির্বাচনের ফলাফল তারা প্রত্যাখান করেছেন। ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ দল বিএনপির অভিযোগের অন্ত নেই। শাসক দলের বিরুদ্ধে প্রতিদিনই বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের আবাসিক নেতা রুহুল কবীর রিজভী সকাল-বিকাল এবং মধ্যাহ্নে প্রেস ব্রিফিং এর মাধ্যমে অভিযোগ নামা উত্থাপন করে চলেছেন রুটিন ওয়ার্কের মতো। এমতাবস্থায় শাসক দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাহেব বিএনপির নামকরণ করেছেন“নালিশ পার্টি” হিসেবে। নালিশ নামার বাক্য গঠন সুবিন্যস্ত। তবে একটি শব্দ প্রয়োগ প্রণিধানযোগ্য এবং সেটি হচ্ছে “গায়েবী”। গায়েবী মামলা এবং গায়েবী ভোট প্রসঙ্গটি বারংবার আসছে নালিশ নামায়। গায়েবী মামলার অবশ্য একটি সমাধান আছে। মামলাটি ট্রায়েলের জন্য কোর্টে যাবে এবং এক পর্যায়ে নিষ্পত্তি হবে। কিন্তু গায়েবী ভোট প্রসঙ্গটি বিতর্কিত থেকেই যাবে। এবারের নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্ট ছাড়াও অন্যান্য দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলেও- কেবল ঐক্যফ্রন্ট তথা বিএনপি নেতৃবৃন্দ তারস্বরে ঘোষণা করেছেন:- নির্বাচনে জোরপূর্বক ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে তাতে সীল মেরে মহাজোট নেতা কর্মীরা নিজেদের বিজয়ের পথ পরিষ্কার করেছে। অন্যান্য দল এ নিয়ে তেমন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেনি। এমতাবস্থায় ঐক্যফন্ট্রের এক পাক্ষিক অবিযোগের নেপথ্যে কোন রহস্য নিহিত, তা এক সময় ফরসা হয়ে যাবে।

 

এবারের নির্বাচন নিয়ে সংশয়ের পাশাপাশি সঙ্গতভাবে কৌতুহল ছিল বিভিন্ন মহলে। কারণ গত ২০১৪ সনের সংসদ নির্বাচন বয়কট করা বিএনপি জোটকে নির্বাচনে নিয়ে আসার জন্য মহাজোট সরকারের চেষ্টা তদবীরের কমতি ছিলো না। অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি মন্ত্রণালয় তাদের হাতে তুলে দেয়ার পাশাপাশি অন্যান্য সুযোগ সুবিধা প্রদানের নিশ্চয়তাও দিয়েছিলো শাসকদল। সেই সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়ার টেলিফোন সংলাপও কেউ ভোলেননি। কিন্তু আপসহীন নেত্রী কে তখন আপসে আনা সম্ভব হয়নি। সেই আপসহীন নেত্রীর জোট যখন আপসে আসলো এবং নির্বাচন মুখী হলো নাকে খত দিয়ে, তখনই বিভিন্ন মহলে প্রশ্নবোধক কৌতুহলের সৃষ্ঠি হয়েছিলো। ইউ টার্নের অনুঘটক ছিলেন ড: কামাল হোসেন, আ.স.ম আব্দুর রব এবং গফ্ফার চৌধুরীর ভাষায় “ভঙ্গবীর” খ্যাত কাদের সিদ্দিকী প্রমুখরা। অন্যান্য দুর্বলতা বা অক্ষমতা তাদের যাই থাকুক, তারপরও তারা মুক্তিযুদ্ধের তকমা ধারী। এই রাজনৈতিক বৈরাগী বা তপস্বীরা অগ্রভাগে থাকলে জামাতবান্ধব জোটের স্বাধীনতা বিরোধী কালিমা কিছুটা হলেও দূর হবার কৌশল অবলম্বন করা হয়েছিলো। জাতিকে বেকুব সাজানোরও মত্তকা পাওয়া যাবে বলে হয়তো মনে করা হয়েছিলো। কিন্তু ধারণা বা বাস্তবতার মধ্যে অনেক ক্ষেত্রেই গড়মিল বাঁধে। তৈরী হয় গোঁলক ধাঁ ধাঁর। এক সময় গোলক ধাঁ ধাঁ ফর্সা হয়ে আসল স্বরূপও ভেসে উঠে যথা নিয়মে।

 

ড: কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বিএনপি ঐক্যজোট নির্বাচনমুখী হওয়ার নেপথ্যে নানামুখী কারণ রয়েছে বলে অভিজ্ঞ মহল মনে করছেন। নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য আন্তর্জাতিক চাপ এবং ভঙ্গুর অস্তিত্বকে ধরে রাখার পাশাপাশি দলীয় নিবন্ধন অক্ষুন্ন রাখাটাই ছিলো মুখ্য বিষয়। তাছাড়া উদ্দেশ্য ছিলো নেতিবাচক। গুঞ্জন আছে- নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর বিএনপি জোট ২০১৪ এবং ২০১৫ সনের অনুকরণে নির্বাচনী তৎপরতার ছদ্মাবরণে দেশব্যাপী ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপের মাধ্যমে নির্বাচনকে অসম্ভব করে ফেলা। কোন ভাবে নির্বাচনকে স্থগতি করতে পারলে সরকার মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যাবে। এবং মেয়াদ উত্তীর্ণ সরকারকে যেকোন ভাবে ফেলে দেয়ার পথ তখন পরিষ্কার হবে। কিন্তু সরকারি সতর্কতা এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সাড়াশি তৎপরতার মুখে সে লক্ষ্য পূরণ সম্ভব হয়নি। তারপর নির্বাচনকে প্রহসন , একপাক্ষিক এবং জবরদস্তি মূলক চিত্রিত করে দলীয় সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠান অসম্ভব প্রমাণ করাটাই ছিলো জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মূল টার্গেট। এই টার্গেট কতটুকু পূরণ হয়েছে, সময়ই তা বলে দেবে।

 

সদ্য অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ধারণাতীত ভরাডুবির নেপথ্যে নির্বাচনকে একপাক্ষিক প্রতিপন্ন করার পূর্ব-পরিকল্পিত ছকের পাশাপাশি নিজেদের সাংগঠনিক দেউলিয়াপনা সহ হ-য-ব-র-ল পলিসি অবলম্বনের ছবিটি স্পষ্ঠ হয়ে উঠেছে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরীকদের মধ্যে বিএনপি এবং জাময়াত ব্যতীত অন্যান্য দলগুলো সাংগঠনিকভাবে ফতুর বলেই গণ্য। গত ২০০৮ সনের সংসদ নির্বাচনের ফলাফলের আলোকে বিএনপি এবং জামায়াত অনেকাংশেই ভঙ্গুর বলে প্রতীয়মান হয়েছে। অত:পর ২০১৩, ২০১৪ এবং ২০১৫ সনের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ছদ্মবরণে জ্বালাও পোড়াও সহ ধ্বংসাত্মক তৎপরতার মাশুল দিতে গিয়ে এই দুই সহজাত সংগঠনের অবস্থান এখন ল্যাজে গোবরে দশার মতো। দলীয় কমান্ড ও প্রবাসী “ভাইয়ার” নির্দেশে লক্ষাধিক নেতাকর্মী দেশব্যাপী বোমাবাজী, মানুষ পোড়ানো, বৃক্ষনিধন সহ অপরাপর ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপে মেতে উঠেছিলো ঠিকই। কিন্তু পরবর্তী সময়ে সরকারি এ্যাকশনের মুখে ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা দাঁড়ায় সবার। মামলার এবং হুলিয়ার মুখে অনেকে হয়েছে ফেরারী, অনেকে হয়েছে কারাবন্দি। মামলা মোকাবেলা করতে গিয়ে গাটের কঁড়ি হয়েছে নিঃশেষ। যাদের নির্দেশে কর্মী বা ক্যাডার বাহিনী মাঠে নেমে ছিলো, তাদের কেউ তখন পাশে দাঁড়ায়নি সার্বিক সহযোগিতা নিয়ে। এমতাবস্থায় দলের প্রতি তাদের আনুগত্য থাকলেও দলীয় তৎপরতায় তারা হয়েছে নিষ্ক্রিয়।  আন্দোলনের ধপাস ব্যর্থতার মুখে জেলা ও থানা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দও শিরদাড়া খাঁড়া করতে অক্ষম। এহেন প্রেক্ষপটে নির্বাচনী রেইসে বিএনপি ও জামায়াতকে মনে হয়েছে ভাঁঙ্গা গাড়ীর মতো। ঠেলেঠুলেও তাতে গতি সঞ্চার করা সম্ভব হয়নি। নির্বাচনী প্রচার প্রচারণায় ঘাটতি ছিলো অনেক। অতীতে হরতাল ডেকে নেতৃবৃন্দ যেমনি ঘরে বসে থাকতেন, তেমনি নির্বাচনে প্রার্থী হয়েও অধিকাংশ প্রার্থী ঘরে বসে থাকায় অভ্যাস পাল্টাতে পারেন নি। অজুহাত খুজেঁছেন প্রতিপক্ষের অত্যাচার নির্যাতনের। অত্যাচার নির্যাতন সহ্য ও মোকাবিলার যদি হিম্মৎ না থাকে তাহলে, রাজনৈতিক মাঠে অবতীর্ণ হবার কোন যুক্তি  নেই।

 

বলা বাহুল্য, রাজনৈতিক মাঠ কখনও মসৃন ছিলো না। বরং আবহমান কাল থেকেই এ মাঠ বন্ধুর এবং কন্টকাকীর্ণ। নেতৃত্বের বলিষ্টতা এবং আদর্শিক অনুসারীদের পদচারণায় এ মাঠ শুধু সমতল হয়না, পথের দিশাও দান করে। কিন্তু  ভোটের ময়দানে ঐক্যফ্রন্ট সেই পথ খুঁজে পায়নি তাদের অবক্ষয়ের কারণে।

 

নির্বাচনে হেরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট অনুষ্ঠিত নির্বাচনকে প্রহসন হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। তাঁর বিপরীতে নির্বাচনকে সামনে রেখে তাদের প্রহসনও কি কমছিলো। জাতি তাদের প্রহসন দু’চোখ ভরে প্রত্যক্ষ করেছে। এবারের নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী অন্যান্য দল প্রতি আসনে একজন করে প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছিলো। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান দল বিএনপি ছিলো তাঁর ব্যতিক্রম। প্রতি আসনে ৩/৪ জন করে প্রার্থী মনোনয়ন দিয়ে মনোনয়নকে একপ্রকার “কোটেশন” এ পরিণত করেছিল। এ কোটেশন প্রক্রিয়ায় যে প্রার্থী ছিলেন ‘লয়েষ্ট’ তাঁর কোটেশন বাজেয়াপ্ত হয়েছে। মনোনয়ন  বঞ্চিতরা তাই ‘সিকিউরিটি’ মানি আদায়ের জন্য বিএনপি কার্যালয় ঘেরাও এমনকি তালাবদ্ধ করে। এমতাবস্থায় নেতৃবৃন্দের হাত জোড় করে ক্ষমা প্রার্থনার দৃশ্য জাতি উপভোগ করেছে। চুটকিও শুনেছে ‘টাকা যায় লন্ডনে, তালা পড়ে পল্টনে’। এই প্রহসনের পাশাপাশি প্রহসন আছে আরও। বিএনপির জামায়াত প্রীতি হচ্ছে মজ্জাগত বিষয়। জামায়াত যে ভাবাদর্শের ধারক, বিএনপি হচ্ছে তার বাহক। তাদের এই হরিহর সম্পর্ক ছিন্ন হবার নয়। মুক্তিযুদ্ধের তকমাধারীরা এই সুদৃঢ় সম্পর্ক জেনেও তাদের  সাথে গাঁটছড়া বেধেছিলেন। কিন্তু ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীদের মধ্যে ২২ জন জামায়াতী প্রার্থী নিয়ে বোদ্ধা মহলে যখন তোলপাড় উঠে এবং বিএনপি নেতৃবৃন্দ এ সমস্থ প্রার্থীদেরকে বিএনপির নিজের প্রার্থী বলে দাবী করে তখন ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেনের একটি মন্তব্যেই সব সিসিম ফাঁক হয়ে যায়। ঐক্যফ্রন্টে জামায়াতী নেতা শনাক্ত হবার পর তিনি বললেন-আগে জানলে এমন সখ্য করতামনা। এমন নাটুকে সংলাপ ‘ভোটের জোয়ারে’ ভাটার টান ধরিয়েছিলো। ভোটের দিন দ্বিপ্রহরে জামায়াতী প্যাডে দলীয় নেতা স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে দলীয় ২২ জন প্রার্থীর নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা আরেক নাটকের অবতারণা করে। এই ২২ জন প্রার্থী যদি বিএনপির হয়ে থাকে তাহলে জামায়াতী আলখেল্লা পরিধান করে ঐক্যমত্য ছাড়া এককভাবে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়ে নাটকের আরেক অংকের অবতারণা করেছিলো। নির্বাচনে বিএনপি দেশের অধিকাংশ ভোট কেন্দ্রে এজেন্ট দিতে পারেনি সাহসী কর্মীর অভাবে। সেই শূণ্য স্থানে পূরণ করা হয়েছিলো জামায়াতের সমর্থকরা। কিন্তু জামায়াতের বর্জন ঘোষণার পর দুপুরে তাদের এজেন্টরা বেরিয়ে আসলে মাঠ ফাঁকা হয়ে যায়। এমতাবস্থায় ফাঁকা মাঠে যা হবার তা হলে দোষ দেয়া যাবে কাকে?

 

নির্বাচনী মাঠে ঐক্যফ্রন্টের এই বেহাল অবস্থার পাশাপাশি আওয়ামীলীগ তথা মহাজোটের প্রস্তুতির দিকটি বিবেচনা করলে দেখা যাবে-নির্বাচনী লড়াই হয়েছে বাঘে আর শেয়ালে। নির্বাচনের তিনবছর আগ থেকেই আওয়ামীলীগ তার পূর্ব প্রস্তুতি শুরু করেছিলো। এ লক্ষ্যে দল গোছানোর পাশাপাশি দলীয় প্রার্থী বাছাইয়ের প্রক্রিয়াও চলছিলো। সাংগঠনিকভাবে বিএনপি জামায়াতের চাইতে আওয়ামীলীগের তৃনমূলের ভিত্তি অধিকতর মজবুত নেই ১৯৭০ সন থেকেই। এই শক্তিশালী অবস্থানকে আরও সুদৃঢ় করার প্রচেষ্টা ছিলো দলীয় হাইকমান্ডের। অন্যদিকে শাসকদল হিসেবে আওয়ামীলীগের আকাশচুম্বী অর্জনের হিসাব ছিলো ভিন্ন। আওয়ামীলীগকে ভোট দিলে দেশীয় স্বাধীনতা বিপন্ন হবে, দেশ পরিণত হবে ভারতের তাবেদার রাষ্ট্রে এবং বিছমিল্লাহ ও ইসলাম মুছে যাবে, মসজিদে তালা পড়বে, প্রতিপক্ষের এই অপপ্রচারণার ধার ভোঁতা হয়ে গেছে গত এক দশকের ধারাবাহিক শাসনামলে। নতুন প্রজন্ম এই ভাঙ্গা রেকর্ডের গানকে আমলে নিতে নারাজ। একই আতশবাজীর চমক বারবার ধাঁ ধাঁ সৃষ্টি করেনা কখনও। একই ভাবে আশির দশকের রাজনৈতিক গজল ’হাছিনাগো হাছিনা, তোর কথায় নাঁচিনা/তোর বাপের কথায় নাচিয়া/দেশ খাইছি বেচিয়া’ এই আবেদন এখন বুমেরাং হয়ে উল্টো কষাঘাত করছে।

 

শেখ হাসিনা এখন শুধু বাংলাদেশের নন্দিত নেতা নন, বর্তমান বিশ্ব প্রেক্ষাপটে দু’চারজন রাষ্ট্র নায়কদের মধ্যে অন্যতম। হাসিনা ক্যারিশমায় বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোলমডেল। ঋন করে আনা অর্থের মেকী উন্নয়ন ও লুটপাটের পরিবর্তে স্বাবলম্বী অর্থনীতির আলোকে স্থিতিশীল ও ফল প্রদায়ক উন্নয়নে অবগাহন করে বাংলাদেশ এখন অপার সম্ভাবনার দেশ। এবং তা সম্ভব হয়েছে শেখ হাসিনার গতিশীল ও দূরদর্শী নেতৃত্বের ফলে। মানুষ যদি তার আশার সমান উঁচু হয়ে থাকে, তাহলে শেখ হাসিনা যে উচ্চতায় পৌচেছেন, তার আলোকে তার প্রতিপক্ষ এখন উচ্চতার মাপে হাটু সমান। রাজনৈতিক কানালুলা মহল সেই পরিমাণ নির্ণয় করতে না পারলেও দেশীয় মেধাবী এবং চক্ষুষ্মান গোষ্টীসহ বিশ্ব মহলের নিকট শেখ হাসিনা এখন গগণচুম্বী মহীরুহ সমান। তাই শেখ হাসিনার ইমেজ, গত এক দশকে দেশীয় সার্বিক উন্নয়ন এবং আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সংহত অবস্থানের প্রেক্ষাপটে সংসদ নির্বাচনে দলীয় সংখ্যাগরিষ্টতা লাভ এক প্রকার নিশ্চিত ছিলো। নির্বাচনের আগে আন্তর্জাতিক মিডিয়াগুলোর প্রতিবেদনে এমন পূর্বাভাস দেখা গেছে।

 

নির্বাচনের আগে ফাঁকা মাঠে বিএনপি জামায়াত কর্মী সমর্থকরা অপপ্রচারণা চালিয়ে একপ্রকার ফাঁনুস তৈরী করেছিল। এবং তার উপর ভরসা করে ও “মাল মশল্লা” প্রয়োগ করে ঐক্যফ্রন্ট নেতৃবৃন্দ নির্বাচনে একটি গনজোয়ারের খোঁয়াব দেখেছিলেন ঠিকই। কিন্তু তৃণমূল পর্যায়ে আওয়ামী কর্মী সমর্থকরা অস্থিত্বের প্রশ্নে যখন সক্রিয় হয়ে উঠে, তখন সেই ফাঁনুস উড়ে যেতে সময় লাগেনি। অন্য দিকে নতুন প্রজন্মের ভোটারদের সক্রিয়তাও ছিল অনুভব যোগ্য। সব কিছু মিলিয়ে আওয়ামীলীগের বিজয় যে অবশ্যম্ভাবি এবং ২০০৮ সনের সংসদ নির্বাচনের ফলাফল (আওয়ামীলীগের প্রাপ্ত আসন ২৩০) অতিক্রম বা তার চেয়ে কিছুটা কম হবে বলে অভিজ্ঞমহলের ধারণা ছিল। কিন্তু ধারণার সাথে বাস্তবতার কিছুটা গড়মিল ধরেছে। তার নেপথ্যে নির্বাচনী তীব্রতা না কৃত্তিমতা কার্যকর ছিল সেটি আজ না হয় কাল পরিস্কার হয়ে যাবে। সময়য়ের দর্পণ সঠিক ছবি ধারনে কখনও ভুল করেনি।

 

নির্বাচনে ধারণাতীত পরাজয়ের বেপারে ঐক্যফ্রন্ট নেতৃবৃন্দ যে অভিযোগ তুলেছেন তাও কতটুকু বাস্তবানুগ এ নিয়েও প্রশ্ন আছে। পুলিশ, প্রশাসন এবং মহাজোট সমর্থকদের মাত্রাতিরিক্ত বাড়াবাড়ি, জালভোট প্রদান এবং দিনের ভোট আগ রাতেই সম্পূর্ণ করার ফলে ভূমিধস বিজয় বা পরাজয় যদি নির্ধারিত হয়ে থাকে, তাহলে দেশের ভোট কেন্দ্র  গুলোতে ভোটারদের বিপুল উপস্থিতি কি ফালতু হয়ে গেল? তারা কি আকাশের ঠিকানায় ভোট দিয়েছেন? বড় বড় শহর ছেড়ে শুধু ভোটাদিকার প্রয়োগের জন্য মানুষ ছুটে গিয়ে ছিল নিজ নিজ এলাকায়। ৩/৪ মাইল পায়ে হেটে মানুষ ভোট দিয়েছে লাইন ধরে। অবশ্য দুপুরের পর ভোট বর্জ্জনের গুজব ও গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়লে ভোট কেন্দ্রে  ভোটারদের উপস্থিতি কমে গিয়ে ছিল বিভিন্ন এলাকায়। তবে কি খালি ভোট কেন্দ্রে অশরীরীরা তৎপর হয়ে ভোটের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়ে ছিল? এবং এভাবেই আওয়ামীলীগ কারচুপির ভোটে বিজয়ের অধিকারী হয়েছে?

 

যে যাইক বলুক, আওয়ামীলীগের অবস্থান নির্ণিত হয়েছে ইতিহাসের গর্বিত অধ্যায়ে। বাঙালীর স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতা সংগ্রামের ঘটনাপ্রবাহের দিশারী হচ্ছে এই সংগঠন। ১৯৫৪ সন থেকে ২০১৮ সন পর্যন্ত যথাযথ জাতীয় নির্বাচনের ইতিহাসে আওয়ামীলীগ ধ্রোব জ্যোতির মতই গণ্য। বীর দর্পে লড়ে নির্বাচনে হারার পাশাপাশি বিজয়ের ক্ষেত্রে আওয়ামীলীগ অনন্য। সামরিক শাসক কর্তৃক ব্যঞ্জন ধর্মী দলগুলোর পিছনে ভোট ডাকাতি ও কারচুপির বদনাম থাকলেও আওয়ামীলীগের পিঠে এ কলঙ্ক নেই। এই অমোচনীয় কলঙ্ক কালিমা লেপনের জন্য অনুষ্ঠিত নির্বাচনের আগইে কি কোনো ছঁক আঁকা হয়েছিল?

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» ফতুল্লায় লবণ নিয়ে লঙ্কাকান্ড গুজবের পিছনে ছুটছে সবাই

» মৌলভীবাজারে লবণের দাম বেশি নেওয়ায় ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর কর্তৃক জরিমানা

» লবণ মুল্যে বৃদ্ধির গুজব ও অবৈধ মজুদ রোধে অভিযানে পুলিশ- আটক ১

» নবনিযুক্ত নির্বাহী অফিসার মর্তুজা আল মুইদ কে ফুল দিয়ে সংবর্ধনা জানালেন ডামুড্যা প্রেসক্লাব

» চাঁপাইনবাবগঞ্জে পর্যাপ্ত পরিমান লবন মজুদ আছে চলবে আগামী ৬ মাস

» বেনাপোল বাজারে লবণের দাম বৃদ্ধি গুজবে ক্রেতাদের ভিড়

»  লবন বিক্রেতা ও ক্রেতাকে ৪১ হাজার টাকা জরিমানা

» সাংবাদিক নয়নের মৃত্যুতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা প্রেস ক্লাবের শোক

» পাগলায় আফসার করিম প্লাজার ব্যবসায়ী সমিতির পুর্নাঙ্গ কমিটি গঠন

» নারায়ণগঞ্জের বক্তাবলীতে আবারো উত্তেজনা দুই হাজী গ্রুপের মাঝ’ আটক-৩




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯,

বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৫ই অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কোনবা পন্থে নিতাইগঞ্জ যাই- সরওয়ার আহমদ

উজ্জীবিত বাংলাদেশ:- নির্বাচনে হারলে কারচুপি আর জিতলে সুষ্ঠু- এমন প্রচারণা বাংলাদেশী জাতীয় নির্বাচন গুলোর ক্ষেত্রে বোধ হয় “বিধিলিপি” হয়ে উঠেছে। এমতাবস্থায় সবকটি নির্বাচনই  প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে আসছে। যাদের বয়স ষাটোর্দ্ধ, তাদের হয়তো স্মরণে আছে ১৯৭০ সনের নির্বাচনের কথা। সেই সময়ের সামরিক শাসক ইয়াহিয়া খানের ঐতিহাসিক দুর্নাম ও দুষ্কর্ম আছে অনেক। কিন্তু একটি কৃতিত্ব তার ছিলো। ৭০ সনে তিনি একটি অবাধ এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দিতে পেরেছিলেন। কারণ ইয়াহিয়া খান তার পরবর্তী উত্তরাধিকারীদের মতো কোন দল গঠন না করায় অনেকাংশেই ছিলেন নিরপেক্ষ। অন্যদিকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ছিলেন জাস্টিস আব্দুস সত্তার, যিনি পরবর্তীকালে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন। সত্তর সনের সেই নির্বাচনের বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন আওয়ামীলীগ নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করার পর কায়েমী স্বার্থে মহলের টনক নড়ে উঠেছিলো। তখন পূর্ব-পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামির আমীর অধ্যাপক গোলাম আযম নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তুলেছিলেন। তার বক্তব্য ছিলো- প্রিজাডিং ও পোলিং অফিসারদের সহায়তায় অধিকাংশ ভোটকেন্দ্রে জালভোট প্রদানের মহড়া সম্পন্ন হয়েছে। ২২ বৎসর বয়সী ছাত্রছাত্রীদের ভোটাধিকার সেই নির্বাচনে ছিলো না। কিন্তু নির্বাচনে সেই বয়স সীমা অগ্রাহ্য করে সকল কলেজ স্টুন্ডেন্টরা নাকি ফ্রি স্টাইলে ভোট দিয়েছিলো। কিন্তু বাস্তবতার মানদন্ডে সেই অভিযোগ না টিকলেও- গোলাম আজমের মূল উদ্দেশ্য ছিলো :- নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা। সত্তুর সনের আগে অনুষ্ঠিত ৫৪ সনের সাধারণ নির্বাচনে মুসলিমলীগের ভরাডুবির পার তারা নাকি বলেছিলেন, ইন্ডিয়া থেকে দলে দলে হিন্দুরা অনুপ্রবেশ করে যুক্তফ্রন্টের প্রার্থীদের স্বপক্ষে ভোট প্রদান করে নির্বাচনী রেজাল্ট পাল্টিয়ে দিয়েছে। পাকিস্তানের ইতি ঘটার পর বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন নিয়ে অভিযোগের তীর আরও প্রচ্ছন্ন হয়েছে নির্বাচনের সুষ্ঠুতার ব্যাপারে। তাই সুস্থ নির্বাচনের সন্ধান করতে গিয়ে বাউল গানের একটি কলি ভেসে উঠে- কোন বা পন্থে নিতাই গঞ্জে যাই। নিতাই গঞ্জ কতদূর এবং কোনদিকে যেতে হবে, সেই পাঞ্জেরী বা পথ প্রদর্শক এই ময়ালে কি আছে?

 

সদ্য সমাপ্ত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার পর এই নির্বাচনের স্বচ্ছতা এবং নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্নতোলার পাশাপাশি নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ এনেছে বিরোধী শিবিরের জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। শুধু অভিযোগ এনেই তারা ক্ষান্ত হননি, নির্বাচনের ফলাফল তারা প্রত্যাখান করেছেন। ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ দল বিএনপির অভিযোগের অন্ত নেই। শাসক দলের বিরুদ্ধে প্রতিদিনই বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের আবাসিক নেতা রুহুল কবীর রিজভী সকাল-বিকাল এবং মধ্যাহ্নে প্রেস ব্রিফিং এর মাধ্যমে অভিযোগ নামা উত্থাপন করে চলেছেন রুটিন ওয়ার্কের মতো। এমতাবস্থায় শাসক দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাহেব বিএনপির নামকরণ করেছেন“নালিশ পার্টি” হিসেবে। নালিশ নামার বাক্য গঠন সুবিন্যস্ত। তবে একটি শব্দ প্রয়োগ প্রণিধানযোগ্য এবং সেটি হচ্ছে “গায়েবী”। গায়েবী মামলা এবং গায়েবী ভোট প্রসঙ্গটি বারংবার আসছে নালিশ নামায়। গায়েবী মামলার অবশ্য একটি সমাধান আছে। মামলাটি ট্রায়েলের জন্য কোর্টে যাবে এবং এক পর্যায়ে নিষ্পত্তি হবে। কিন্তু গায়েবী ভোট প্রসঙ্গটি বিতর্কিত থেকেই যাবে। এবারের নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্ট ছাড়াও অন্যান্য দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলেও- কেবল ঐক্যফ্রন্ট তথা বিএনপি নেতৃবৃন্দ তারস্বরে ঘোষণা করেছেন:- নির্বাচনে জোরপূর্বক ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে তাতে সীল মেরে মহাজোট নেতা কর্মীরা নিজেদের বিজয়ের পথ পরিষ্কার করেছে। অন্যান্য দল এ নিয়ে তেমন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেনি। এমতাবস্থায় ঐক্যফন্ট্রের এক পাক্ষিক অবিযোগের নেপথ্যে কোন রহস্য নিহিত, তা এক সময় ফরসা হয়ে যাবে।

 

এবারের নির্বাচন নিয়ে সংশয়ের পাশাপাশি সঙ্গতভাবে কৌতুহল ছিল বিভিন্ন মহলে। কারণ গত ২০১৪ সনের সংসদ নির্বাচন বয়কট করা বিএনপি জোটকে নির্বাচনে নিয়ে আসার জন্য মহাজোট সরকারের চেষ্টা তদবীরের কমতি ছিলো না। অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি মন্ত্রণালয় তাদের হাতে তুলে দেয়ার পাশাপাশি অন্যান্য সুযোগ সুবিধা প্রদানের নিশ্চয়তাও দিয়েছিলো শাসকদল। সেই সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়ার টেলিফোন সংলাপও কেউ ভোলেননি। কিন্তু আপসহীন নেত্রী কে তখন আপসে আনা সম্ভব হয়নি। সেই আপসহীন নেত্রীর জোট যখন আপসে আসলো এবং নির্বাচন মুখী হলো নাকে খত দিয়ে, তখনই বিভিন্ন মহলে প্রশ্নবোধক কৌতুহলের সৃষ্ঠি হয়েছিলো। ইউ টার্নের অনুঘটক ছিলেন ড: কামাল হোসেন, আ.স.ম আব্দুর রব এবং গফ্ফার চৌধুরীর ভাষায় “ভঙ্গবীর” খ্যাত কাদের সিদ্দিকী প্রমুখরা। অন্যান্য দুর্বলতা বা অক্ষমতা তাদের যাই থাকুক, তারপরও তারা মুক্তিযুদ্ধের তকমা ধারী। এই রাজনৈতিক বৈরাগী বা তপস্বীরা অগ্রভাগে থাকলে জামাতবান্ধব জোটের স্বাধীনতা বিরোধী কালিমা কিছুটা হলেও দূর হবার কৌশল অবলম্বন করা হয়েছিলো। জাতিকে বেকুব সাজানোরও মত্তকা পাওয়া যাবে বলে হয়তো মনে করা হয়েছিলো। কিন্তু ধারণা বা বাস্তবতার মধ্যে অনেক ক্ষেত্রেই গড়মিল বাঁধে। তৈরী হয় গোঁলক ধাঁ ধাঁর। এক সময় গোলক ধাঁ ধাঁ ফর্সা হয়ে আসল স্বরূপও ভেসে উঠে যথা নিয়মে।

 

ড: কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বিএনপি ঐক্যজোট নির্বাচনমুখী হওয়ার নেপথ্যে নানামুখী কারণ রয়েছে বলে অভিজ্ঞ মহল মনে করছেন। নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য আন্তর্জাতিক চাপ এবং ভঙ্গুর অস্তিত্বকে ধরে রাখার পাশাপাশি দলীয় নিবন্ধন অক্ষুন্ন রাখাটাই ছিলো মুখ্য বিষয়। তাছাড়া উদ্দেশ্য ছিলো নেতিবাচক। গুঞ্জন আছে- নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর বিএনপি জোট ২০১৪ এবং ২০১৫ সনের অনুকরণে নির্বাচনী তৎপরতার ছদ্মাবরণে দেশব্যাপী ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপের মাধ্যমে নির্বাচনকে অসম্ভব করে ফেলা। কোন ভাবে নির্বাচনকে স্থগতি করতে পারলে সরকার মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যাবে। এবং মেয়াদ উত্তীর্ণ সরকারকে যেকোন ভাবে ফেলে দেয়ার পথ তখন পরিষ্কার হবে। কিন্তু সরকারি সতর্কতা এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সাড়াশি তৎপরতার মুখে সে লক্ষ্য পূরণ সম্ভব হয়নি। তারপর নির্বাচনকে প্রহসন , একপাক্ষিক এবং জবরদস্তি মূলক চিত্রিত করে দলীয় সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠান অসম্ভব প্রমাণ করাটাই ছিলো জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মূল টার্গেট। এই টার্গেট কতটুকু পূরণ হয়েছে, সময়ই তা বলে দেবে।

 

সদ্য অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ধারণাতীত ভরাডুবির নেপথ্যে নির্বাচনকে একপাক্ষিক প্রতিপন্ন করার পূর্ব-পরিকল্পিত ছকের পাশাপাশি নিজেদের সাংগঠনিক দেউলিয়াপনা সহ হ-য-ব-র-ল পলিসি অবলম্বনের ছবিটি স্পষ্ঠ হয়ে উঠেছে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরীকদের মধ্যে বিএনপি এবং জাময়াত ব্যতীত অন্যান্য দলগুলো সাংগঠনিকভাবে ফতুর বলেই গণ্য। গত ২০০৮ সনের সংসদ নির্বাচনের ফলাফলের আলোকে বিএনপি এবং জামায়াত অনেকাংশেই ভঙ্গুর বলে প্রতীয়মান হয়েছে। অত:পর ২০১৩, ২০১৪ এবং ২০১৫ সনের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ছদ্মবরণে জ্বালাও পোড়াও সহ ধ্বংসাত্মক তৎপরতার মাশুল দিতে গিয়ে এই দুই সহজাত সংগঠনের অবস্থান এখন ল্যাজে গোবরে দশার মতো। দলীয় কমান্ড ও প্রবাসী “ভাইয়ার” নির্দেশে লক্ষাধিক নেতাকর্মী দেশব্যাপী বোমাবাজী, মানুষ পোড়ানো, বৃক্ষনিধন সহ অপরাপর ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপে মেতে উঠেছিলো ঠিকই। কিন্তু পরবর্তী সময়ে সরকারি এ্যাকশনের মুখে ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা দাঁড়ায় সবার। মামলার এবং হুলিয়ার মুখে অনেকে হয়েছে ফেরারী, অনেকে হয়েছে কারাবন্দি। মামলা মোকাবেলা করতে গিয়ে গাটের কঁড়ি হয়েছে নিঃশেষ। যাদের নির্দেশে কর্মী বা ক্যাডার বাহিনী মাঠে নেমে ছিলো, তাদের কেউ তখন পাশে দাঁড়ায়নি সার্বিক সহযোগিতা নিয়ে। এমতাবস্থায় দলের প্রতি তাদের আনুগত্য থাকলেও দলীয় তৎপরতায় তারা হয়েছে নিষ্ক্রিয়।  আন্দোলনের ধপাস ব্যর্থতার মুখে জেলা ও থানা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দও শিরদাড়া খাঁড়া করতে অক্ষম। এহেন প্রেক্ষপটে নির্বাচনী রেইসে বিএনপি ও জামায়াতকে মনে হয়েছে ভাঁঙ্গা গাড়ীর মতো। ঠেলেঠুলেও তাতে গতি সঞ্চার করা সম্ভব হয়নি। নির্বাচনী প্রচার প্রচারণায় ঘাটতি ছিলো অনেক। অতীতে হরতাল ডেকে নেতৃবৃন্দ যেমনি ঘরে বসে থাকতেন, তেমনি নির্বাচনে প্রার্থী হয়েও অধিকাংশ প্রার্থী ঘরে বসে থাকায় অভ্যাস পাল্টাতে পারেন নি। অজুহাত খুজেঁছেন প্রতিপক্ষের অত্যাচার নির্যাতনের। অত্যাচার নির্যাতন সহ্য ও মোকাবিলার যদি হিম্মৎ না থাকে তাহলে, রাজনৈতিক মাঠে অবতীর্ণ হবার কোন যুক্তি  নেই।

 

বলা বাহুল্য, রাজনৈতিক মাঠ কখনও মসৃন ছিলো না। বরং আবহমান কাল থেকেই এ মাঠ বন্ধুর এবং কন্টকাকীর্ণ। নেতৃত্বের বলিষ্টতা এবং আদর্শিক অনুসারীদের পদচারণায় এ মাঠ শুধু সমতল হয়না, পথের দিশাও দান করে। কিন্তু  ভোটের ময়দানে ঐক্যফ্রন্ট সেই পথ খুঁজে পায়নি তাদের অবক্ষয়ের কারণে।

 

নির্বাচনে হেরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট অনুষ্ঠিত নির্বাচনকে প্রহসন হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। তাঁর বিপরীতে নির্বাচনকে সামনে রেখে তাদের প্রহসনও কি কমছিলো। জাতি তাদের প্রহসন দু’চোখ ভরে প্রত্যক্ষ করেছে। এবারের নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী অন্যান্য দল প্রতি আসনে একজন করে প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছিলো। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান দল বিএনপি ছিলো তাঁর ব্যতিক্রম। প্রতি আসনে ৩/৪ জন করে প্রার্থী মনোনয়ন দিয়ে মনোনয়নকে একপ্রকার “কোটেশন” এ পরিণত করেছিল। এ কোটেশন প্রক্রিয়ায় যে প্রার্থী ছিলেন ‘লয়েষ্ট’ তাঁর কোটেশন বাজেয়াপ্ত হয়েছে। মনোনয়ন  বঞ্চিতরা তাই ‘সিকিউরিটি’ মানি আদায়ের জন্য বিএনপি কার্যালয় ঘেরাও এমনকি তালাবদ্ধ করে। এমতাবস্থায় নেতৃবৃন্দের হাত জোড় করে ক্ষমা প্রার্থনার দৃশ্য জাতি উপভোগ করেছে। চুটকিও শুনেছে ‘টাকা যায় লন্ডনে, তালা পড়ে পল্টনে’। এই প্রহসনের পাশাপাশি প্রহসন আছে আরও। বিএনপির জামায়াত প্রীতি হচ্ছে মজ্জাগত বিষয়। জামায়াত যে ভাবাদর্শের ধারক, বিএনপি হচ্ছে তার বাহক। তাদের এই হরিহর সম্পর্ক ছিন্ন হবার নয়। মুক্তিযুদ্ধের তকমাধারীরা এই সুদৃঢ় সম্পর্ক জেনেও তাদের  সাথে গাঁটছড়া বেধেছিলেন। কিন্তু ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীদের মধ্যে ২২ জন জামায়াতী প্রার্থী নিয়ে বোদ্ধা মহলে যখন তোলপাড় উঠে এবং বিএনপি নেতৃবৃন্দ এ সমস্থ প্রার্থীদেরকে বিএনপির নিজের প্রার্থী বলে দাবী করে তখন ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেনের একটি মন্তব্যেই সব সিসিম ফাঁক হয়ে যায়। ঐক্যফ্রন্টে জামায়াতী নেতা শনাক্ত হবার পর তিনি বললেন-আগে জানলে এমন সখ্য করতামনা। এমন নাটুকে সংলাপ ‘ভোটের জোয়ারে’ ভাটার টান ধরিয়েছিলো। ভোটের দিন দ্বিপ্রহরে জামায়াতী প্যাডে দলীয় নেতা স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে দলীয় ২২ জন প্রার্থীর নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা আরেক নাটকের অবতারণা করে। এই ২২ জন প্রার্থী যদি বিএনপির হয়ে থাকে তাহলে জামায়াতী আলখেল্লা পরিধান করে ঐক্যমত্য ছাড়া এককভাবে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়ে নাটকের আরেক অংকের অবতারণা করেছিলো। নির্বাচনে বিএনপি দেশের অধিকাংশ ভোট কেন্দ্রে এজেন্ট দিতে পারেনি সাহসী কর্মীর অভাবে। সেই শূণ্য স্থানে পূরণ করা হয়েছিলো জামায়াতের সমর্থকরা। কিন্তু জামায়াতের বর্জন ঘোষণার পর দুপুরে তাদের এজেন্টরা বেরিয়ে আসলে মাঠ ফাঁকা হয়ে যায়। এমতাবস্থায় ফাঁকা মাঠে যা হবার তা হলে দোষ দেয়া যাবে কাকে?

 

নির্বাচনী মাঠে ঐক্যফ্রন্টের এই বেহাল অবস্থার পাশাপাশি আওয়ামীলীগ তথা মহাজোটের প্রস্তুতির দিকটি বিবেচনা করলে দেখা যাবে-নির্বাচনী লড়াই হয়েছে বাঘে আর শেয়ালে। নির্বাচনের তিনবছর আগ থেকেই আওয়ামীলীগ তার পূর্ব প্রস্তুতি শুরু করেছিলো। এ লক্ষ্যে দল গোছানোর পাশাপাশি দলীয় প্রার্থী বাছাইয়ের প্রক্রিয়াও চলছিলো। সাংগঠনিকভাবে বিএনপি জামায়াতের চাইতে আওয়ামীলীগের তৃনমূলের ভিত্তি অধিকতর মজবুত নেই ১৯৭০ সন থেকেই। এই শক্তিশালী অবস্থানকে আরও সুদৃঢ় করার প্রচেষ্টা ছিলো দলীয় হাইকমান্ডের। অন্যদিকে শাসকদল হিসেবে আওয়ামীলীগের আকাশচুম্বী অর্জনের হিসাব ছিলো ভিন্ন। আওয়ামীলীগকে ভোট দিলে দেশীয় স্বাধীনতা বিপন্ন হবে, দেশ পরিণত হবে ভারতের তাবেদার রাষ্ট্রে এবং বিছমিল্লাহ ও ইসলাম মুছে যাবে, মসজিদে তালা পড়বে, প্রতিপক্ষের এই অপপ্রচারণার ধার ভোঁতা হয়ে গেছে গত এক দশকের ধারাবাহিক শাসনামলে। নতুন প্রজন্ম এই ভাঙ্গা রেকর্ডের গানকে আমলে নিতে নারাজ। একই আতশবাজীর চমক বারবার ধাঁ ধাঁ সৃষ্টি করেনা কখনও। একই ভাবে আশির দশকের রাজনৈতিক গজল ’হাছিনাগো হাছিনা, তোর কথায় নাঁচিনা/তোর বাপের কথায় নাচিয়া/দেশ খাইছি বেচিয়া’ এই আবেদন এখন বুমেরাং হয়ে উল্টো কষাঘাত করছে।

 

শেখ হাসিনা এখন শুধু বাংলাদেশের নন্দিত নেতা নন, বর্তমান বিশ্ব প্রেক্ষাপটে দু’চারজন রাষ্ট্র নায়কদের মধ্যে অন্যতম। হাসিনা ক্যারিশমায় বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোলমডেল। ঋন করে আনা অর্থের মেকী উন্নয়ন ও লুটপাটের পরিবর্তে স্বাবলম্বী অর্থনীতির আলোকে স্থিতিশীল ও ফল প্রদায়ক উন্নয়নে অবগাহন করে বাংলাদেশ এখন অপার সম্ভাবনার দেশ। এবং তা সম্ভব হয়েছে শেখ হাসিনার গতিশীল ও দূরদর্শী নেতৃত্বের ফলে। মানুষ যদি তার আশার সমান উঁচু হয়ে থাকে, তাহলে শেখ হাসিনা যে উচ্চতায় পৌচেছেন, তার আলোকে তার প্রতিপক্ষ এখন উচ্চতার মাপে হাটু সমান। রাজনৈতিক কানালুলা মহল সেই পরিমাণ নির্ণয় করতে না পারলেও দেশীয় মেধাবী এবং চক্ষুষ্মান গোষ্টীসহ বিশ্ব মহলের নিকট শেখ হাসিনা এখন গগণচুম্বী মহীরুহ সমান। তাই শেখ হাসিনার ইমেজ, গত এক দশকে দেশীয় সার্বিক উন্নয়ন এবং আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সংহত অবস্থানের প্রেক্ষাপটে সংসদ নির্বাচনে দলীয় সংখ্যাগরিষ্টতা লাভ এক প্রকার নিশ্চিত ছিলো। নির্বাচনের আগে আন্তর্জাতিক মিডিয়াগুলোর প্রতিবেদনে এমন পূর্বাভাস দেখা গেছে।

 

নির্বাচনের আগে ফাঁকা মাঠে বিএনপি জামায়াত কর্মী সমর্থকরা অপপ্রচারণা চালিয়ে একপ্রকার ফাঁনুস তৈরী করেছিল। এবং তার উপর ভরসা করে ও “মাল মশল্লা” প্রয়োগ করে ঐক্যফ্রন্ট নেতৃবৃন্দ নির্বাচনে একটি গনজোয়ারের খোঁয়াব দেখেছিলেন ঠিকই। কিন্তু তৃণমূল পর্যায়ে আওয়ামী কর্মী সমর্থকরা অস্থিত্বের প্রশ্নে যখন সক্রিয় হয়ে উঠে, তখন সেই ফাঁনুস উড়ে যেতে সময় লাগেনি। অন্য দিকে নতুন প্রজন্মের ভোটারদের সক্রিয়তাও ছিল অনুভব যোগ্য। সব কিছু মিলিয়ে আওয়ামীলীগের বিজয় যে অবশ্যম্ভাবি এবং ২০০৮ সনের সংসদ নির্বাচনের ফলাফল (আওয়ামীলীগের প্রাপ্ত আসন ২৩০) অতিক্রম বা তার চেয়ে কিছুটা কম হবে বলে অভিজ্ঞমহলের ধারণা ছিল। কিন্তু ধারণার সাথে বাস্তবতার কিছুটা গড়মিল ধরেছে। তার নেপথ্যে নির্বাচনী তীব্রতা না কৃত্তিমতা কার্যকর ছিল সেটি আজ না হয় কাল পরিস্কার হয়ে যাবে। সময়য়ের দর্পণ সঠিক ছবি ধারনে কখনও ভুল করেনি।

 

নির্বাচনে ধারণাতীত পরাজয়ের বেপারে ঐক্যফ্রন্ট নেতৃবৃন্দ যে অভিযোগ তুলেছেন তাও কতটুকু বাস্তবানুগ এ নিয়েও প্রশ্ন আছে। পুলিশ, প্রশাসন এবং মহাজোট সমর্থকদের মাত্রাতিরিক্ত বাড়াবাড়ি, জালভোট প্রদান এবং দিনের ভোট আগ রাতেই সম্পূর্ণ করার ফলে ভূমিধস বিজয় বা পরাজয় যদি নির্ধারিত হয়ে থাকে, তাহলে দেশের ভোট কেন্দ্র  গুলোতে ভোটারদের বিপুল উপস্থিতি কি ফালতু হয়ে গেল? তারা কি আকাশের ঠিকানায় ভোট দিয়েছেন? বড় বড় শহর ছেড়ে শুধু ভোটাদিকার প্রয়োগের জন্য মানুষ ছুটে গিয়ে ছিল নিজ নিজ এলাকায়। ৩/৪ মাইল পায়ে হেটে মানুষ ভোট দিয়েছে লাইন ধরে। অবশ্য দুপুরের পর ভোট বর্জ্জনের গুজব ও গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়লে ভোট কেন্দ্রে  ভোটারদের উপস্থিতি কমে গিয়ে ছিল বিভিন্ন এলাকায়। তবে কি খালি ভোট কেন্দ্রে অশরীরীরা তৎপর হয়ে ভোটের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়ে ছিল? এবং এভাবেই আওয়ামীলীগ কারচুপির ভোটে বিজয়ের অধিকারী হয়েছে?

 

যে যাইক বলুক, আওয়ামীলীগের অবস্থান নির্ণিত হয়েছে ইতিহাসের গর্বিত অধ্যায়ে। বাঙালীর স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতা সংগ্রামের ঘটনাপ্রবাহের দিশারী হচ্ছে এই সংগঠন। ১৯৫৪ সন থেকে ২০১৮ সন পর্যন্ত যথাযথ জাতীয় নির্বাচনের ইতিহাসে আওয়ামীলীগ ধ্রোব জ্যোতির মতই গণ্য। বীর দর্পে লড়ে নির্বাচনে হারার পাশাপাশি বিজয়ের ক্ষেত্রে আওয়ামীলীগ অনন্য। সামরিক শাসক কর্তৃক ব্যঞ্জন ধর্মী দলগুলোর পিছনে ভোট ডাকাতি ও কারচুপির বদনাম থাকলেও আওয়ামীলীগের পিঠে এ কলঙ্ক নেই। এই অমোচনীয় কলঙ্ক কালিমা লেপনের জন্য অনুষ্ঠিত নির্বাচনের আগইে কি কোনো ছঁক আঁকা হয়েছিল?

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯,

বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD