আলীগঞ্জ খেলার মাঠ দখলের সংবাদে চাঞ্চল্য ও বিস্ময়!

উজ্জীবিত বিডি রিপোর্ট :- আলীগঞ্জ খেলার মাঠে উচ্ছাদাভিযান চালিয়ে বুধবার (২৪ এপ্রিল) দখল করে নেয়া হতে পারে এমন সংবাদে আলীগঞ্জবাসী ও সচেতন সমাজের ভেতরে চাঞ্চল্য ও বিস্ময় তৈরি করেছে। তাদের ধারণা একটি পক্ষ ইচ্ছাকৃত পানি ঘোলা করে মূল ঘটনাকে ধাপাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে।  

 

তারা জানান, আলীগঞ্জ খেলার মাঠে দখলের উপর ৬ মাসের জন্য স্থগিতাদেশ দিয়েছেন উচ্চ আদালত। ১৬ এপ্রিল উচ্চ আদালতের বিচারপতি একেএম জহিরুল হক এ রায় দেন। এর আগে আলীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ দখল বন্ধের আদেশ চেয়ে উচ্চ আদালতে একটি রিট পিটিশন দাখিল করেন। স্কুলটির পক্ষে এই পিটিশন দাখিল করেন সুপ্রীম  কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. মোতালেব ভূঁইয়া।

 

তিনি জানান, আলগীগঞ্জ হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক শ্রী নিখিল চন্দ্র সরকার বাদী হয়ে উচ্চ আদালতে ওই রিট পিটিশন করেন। শুনানি শেষে মাহামান্য আদালত ১৬ এপ্রিল এ সংক্রান্ত রায় প্রদান করেন। রায়ে মাঠে সকল প্রকার দখলীয় কর্মকান্ডের উপর ৬ মাসের স্থগীতাদেশ প্রদান করা হয়। রায়ে বলা হয়েছে, ১৬ এপ্রিল থেকে আগামী ৬ মাস মাঠ দখল সম্পূর্ণ বেআইনী এবং আদালত অবমাননা হবে।

 

অ্যাডভোকেট মোতালেব ভূঁইয়া আরও জানিয়েছেন, মহামান্য আদালত গণপূর্ত বিভাগের সচিব, গণপূর্ত বিভাগের নারায়ণগঞ্জ জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী, জেলা পুলিশ সুপার এবং ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশকে এ রায় সংক্রান্ত বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

 

আলীগঞ্জ ক্লাব ও আলীগঞ্জ হাইস্কুলের সভাপতি কাউসার আহমেদ পলাশ বলেন, যেখানে উচ্চ আদালতের আদেশ আছে আইন অনুযায়ী মাঠের মধ্যে অন্য কিছু হতে পারবে না। পোস্তগোলা থেকে পঞ্চবটি পর্যন্ত কোন খেলার মাঠ নাই। পুরো এলাকায় প্রায় ২০-২৫ লক্ষ মানুষের বসবাস। সুস্থ্য ও সুন্দর মানসিক বিকাশের জন্য খেলাধুলার বিকল্প নেই। 

 

তিনি বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ থাকার পরও এই মাঠটি কে বা কারা দখল করতে আজ আসছে এমন সংবাদ পুরোটাই অসত্য। উচ্চ আদালত আগেও অনেকগুলো নির্দেশ আছে  যেখানে বলা হয়েছে মাঠ মাঠই থাকবে জলাশয় জলাশয়ই থাকবে। আমাদের  মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও প্রত্যোকটা উপজেলায় একটি করে মিনি স্টেডিয়াম আর প্রতিটি এলাকায় একটি করে খেলার মাঠ থাকবে বলে নির্দেশনা দিয়েছেন।  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন ঘোষণাকে আমরা স্বাগত জানিয়ে এই এলাকার ২৫ হাজার লোক গণস্বাক্ষর দিয়েছে মাঠ রক্ষার জন্য। সেই স্মারকলিপিটি জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর পাঠানো হয়েছে। 

 

তিনি জানান, এ স্মারকলিপিটি পাঠানোর দুমাস পর মাঠটিকে অন্তর্ভূক্ত করে পিডব্লিউডি একটি প্রজেক্ট পাশ করিয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদি প্রজেক্টে এ মাঠের অন্তর্ভূক্তির ব্যাপারটি জানতেন তাহলে আমরা বিশ্বাস করি তিনি এই মাঠকে বাদ দিয়েই বাকি কাজগুলো করার নির্দেশ দিতেন। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সমগ্র দেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের মানসিক বিকাশের জন্য খেলার পাঠ সংরক্ষণ করার ব্যাপারে তাগিদ ও নির্দেশনা দিচ্ছেন। 

 

পলাশ বলেন, আইনেও লেখা রয়েছে খেলার মাঠ, উন্মুক্ত স্থান এবং প্রাকৃতিক জলধারা চিহ্নিত জায়গা শ্রেণি পরিবর্তন করা যাবেনা । এছাড়া এসব ব্যবহারের জন্য ভারা ইজারা বা অন্য কোনভাবে হস্তান্তর করা যাবেনা। আলীগঞ্জ মাঠটি ১৯৮৫ সাল থেকে যখন জলাশয় ভরাট করে করা হয় তখন থেকেই এটা একটা খেলাম মাঠ হিসেবে চিহ্নিত, পরিচিত এবং প্রতিষ্ঠিত। বাংলাদেশের জাতীয় এমন কোন খেলোযার নাই যে এই মাঠে এসে না খেলেছে! কি  ফুটবল ব আর ক্রিকেট বলেন। আমার কাছে বোধগম্য হয়না এখন কিভাবেএই মাঠটাকে ছাপিয়ে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ থাকার পরও মাঠ দখল করার যে সিদ্ধান্ত হচ্ছে। 

 

কাউসার আহমেদ পলাশ বলেন, আলীগঞ্জ খেলার মাঠে সব সময় বিভিন্ন টুর্ণামেন্ট হতে থাকে। ডিসি কাপ টুর্ণামেন্ট, শেখ রাসেল টুর্ণামেন্ট এবং আলীগঞ্জ প্রিমিয়ার লীগ এরকম বিভিন্ন নামে খেলাধুলা হয় । যদি এই মাঠটা দখল হয়ে যায় খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত থাকবে এই সমাজের এদেশের যুবসমাজ। এর আগে আমরা মাঠ রক্ষার সার্থে প্রজেক্ট বাতিলে জন্য আদালতে রিট করেছিলাম। তখন  আলীগঞ্জ মাঠ রেখে প্রজেক্ট করার জন্য আদেশ করেছিল।

 

উচ্চ আদালত আদেশ করেছিল সাড়ে চার একর জায়গা রেখে এর বাহিরেও পর্যাপ্ত জায়গা রেখে অর্থাৎ মিনি স্টেডিয়ামের জায়গা রেখে তাদের প্রজেক্ট করার জন্য । উচ্চ আদালতের এসব আদেশ  জেলা প্রশাসক বাস্তবায়ন করার কথা। কিন্তু সেটি না করে যদি জনগণের খেলার মাঠ দখল করার আয়োজন করা হয় তবে সেটি দুঃখজনক ছাড়া আর কিছুই হতে পারেনা।   

 

এদিকে একটি সূত্র জানিয়েছে, উচ্চ আদালতের এই রায়ের বিপরীতে অফিসার্স কোয়ার্টার নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান ইকবাল এন্টারপ্রাইজ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে এই আদেশসহ মাঠ সংকান্ত সমস্ত মামলা স্থায়ীভাবে স্থগিত করার আর্জি জানায়। যা আগামী ২০ মে শুনানির দিন ধার্য রাখা হয়েছে।

 

তবে, সূত্র বলছে, ২০ মে আদালত ইকবাল এন্টারপ্রাইজের শুনানির দিন ধার্য রাখলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আদালতের ওই রায়কে উপেক্ষা করে মাঠ উচ্ছেদ করাসহ তা দখলের পাঁয়তারা করছে। আর এ খবরে স্থানীয় ক্রীড়ামোদী থেকে শুরু করে বিভিন্নস্তরের মানুষের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভ সঞ্চার হয়েছে।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» শৈলকুপায় হুইল চেয়ার ও স্মার্ট কার্ড বিতরণ করলেন-এমপি আব্দুল হাই

» ঝিনাইদহের দুর্গাপুর গ্রামে আদালতের নির্দেশ ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে প্রাচীর নির্মান

»  ভূয়া পরিচয়পত্রসহ শৈলকুপায় ভূয়া ডিবি ওসি আটক

» ঝিনাইদহের দোকানের টিন কেটে চুরি,সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়ল চোর

» বন্দরের গাজীপুর পেপার মিলে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

» ফতুল্লায় দাবীকৃত চাঁদা না পেয়ে ইজিবাইক চালককে মারধর

» নদী দখলে প্রধান মন্ত্রীর ছবি সহ দলিল দেখালেও ছাড় দিতে না করেছেন প্রধান মন্ত্রী- মাসুদ রানা

» আজ মাগফিরাতের ৫ম দিবস আল্লাহর আদেশ -নিষেধ মেনে চলার নামই ইবাদত

» বিপিএলে আসছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা?

» ঈদের ছুটির আগেই বেতন-বোনাস পাবেন সরকারি চাকরিজীবীরা



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD



আজ : মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আলীগঞ্জ খেলার মাঠ দখলের সংবাদে চাঞ্চল্য ও বিস্ময়!

উজ্জীবিত বিডি রিপোর্ট :- আলীগঞ্জ খেলার মাঠে উচ্ছাদাভিযান চালিয়ে বুধবার (২৪ এপ্রিল) দখল করে নেয়া হতে পারে এমন সংবাদে আলীগঞ্জবাসী ও সচেতন সমাজের ভেতরে চাঞ্চল্য ও বিস্ময় তৈরি করেছে। তাদের ধারণা একটি পক্ষ ইচ্ছাকৃত পানি ঘোলা করে মূল ঘটনাকে ধাপাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে।  

 

তারা জানান, আলীগঞ্জ খেলার মাঠে দখলের উপর ৬ মাসের জন্য স্থগিতাদেশ দিয়েছেন উচ্চ আদালত। ১৬ এপ্রিল উচ্চ আদালতের বিচারপতি একেএম জহিরুল হক এ রায় দেন। এর আগে আলীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ দখল বন্ধের আদেশ চেয়ে উচ্চ আদালতে একটি রিট পিটিশন দাখিল করেন। স্কুলটির পক্ষে এই পিটিশন দাখিল করেন সুপ্রীম  কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. মোতালেব ভূঁইয়া।

 

তিনি জানান, আলগীগঞ্জ হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক শ্রী নিখিল চন্দ্র সরকার বাদী হয়ে উচ্চ আদালতে ওই রিট পিটিশন করেন। শুনানি শেষে মাহামান্য আদালত ১৬ এপ্রিল এ সংক্রান্ত রায় প্রদান করেন। রায়ে মাঠে সকল প্রকার দখলীয় কর্মকান্ডের উপর ৬ মাসের স্থগীতাদেশ প্রদান করা হয়। রায়ে বলা হয়েছে, ১৬ এপ্রিল থেকে আগামী ৬ মাস মাঠ দখল সম্পূর্ণ বেআইনী এবং আদালত অবমাননা হবে।

 

অ্যাডভোকেট মোতালেব ভূঁইয়া আরও জানিয়েছেন, মহামান্য আদালত গণপূর্ত বিভাগের সচিব, গণপূর্ত বিভাগের নারায়ণগঞ্জ জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী, জেলা পুলিশ সুপার এবং ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশকে এ রায় সংক্রান্ত বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

 

আলীগঞ্জ ক্লাব ও আলীগঞ্জ হাইস্কুলের সভাপতি কাউসার আহমেদ পলাশ বলেন, যেখানে উচ্চ আদালতের আদেশ আছে আইন অনুযায়ী মাঠের মধ্যে অন্য কিছু হতে পারবে না। পোস্তগোলা থেকে পঞ্চবটি পর্যন্ত কোন খেলার মাঠ নাই। পুরো এলাকায় প্রায় ২০-২৫ লক্ষ মানুষের বসবাস। সুস্থ্য ও সুন্দর মানসিক বিকাশের জন্য খেলাধুলার বিকল্প নেই। 

 

তিনি বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ থাকার পরও এই মাঠটি কে বা কারা দখল করতে আজ আসছে এমন সংবাদ পুরোটাই অসত্য। উচ্চ আদালত আগেও অনেকগুলো নির্দেশ আছে  যেখানে বলা হয়েছে মাঠ মাঠই থাকবে জলাশয় জলাশয়ই থাকবে। আমাদের  মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও প্রত্যোকটা উপজেলায় একটি করে মিনি স্টেডিয়াম আর প্রতিটি এলাকায় একটি করে খেলার মাঠ থাকবে বলে নির্দেশনা দিয়েছেন।  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন ঘোষণাকে আমরা স্বাগত জানিয়ে এই এলাকার ২৫ হাজার লোক গণস্বাক্ষর দিয়েছে মাঠ রক্ষার জন্য। সেই স্মারকলিপিটি জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর পাঠানো হয়েছে। 

 

তিনি জানান, এ স্মারকলিপিটি পাঠানোর দুমাস পর মাঠটিকে অন্তর্ভূক্ত করে পিডব্লিউডি একটি প্রজেক্ট পাশ করিয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদি প্রজেক্টে এ মাঠের অন্তর্ভূক্তির ব্যাপারটি জানতেন তাহলে আমরা বিশ্বাস করি তিনি এই মাঠকে বাদ দিয়েই বাকি কাজগুলো করার নির্দেশ দিতেন। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সমগ্র দেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের মানসিক বিকাশের জন্য খেলার পাঠ সংরক্ষণ করার ব্যাপারে তাগিদ ও নির্দেশনা দিচ্ছেন। 

 

পলাশ বলেন, আইনেও লেখা রয়েছে খেলার মাঠ, উন্মুক্ত স্থান এবং প্রাকৃতিক জলধারা চিহ্নিত জায়গা শ্রেণি পরিবর্তন করা যাবেনা । এছাড়া এসব ব্যবহারের জন্য ভারা ইজারা বা অন্য কোনভাবে হস্তান্তর করা যাবেনা। আলীগঞ্জ মাঠটি ১৯৮৫ সাল থেকে যখন জলাশয় ভরাট করে করা হয় তখন থেকেই এটা একটা খেলাম মাঠ হিসেবে চিহ্নিত, পরিচিত এবং প্রতিষ্ঠিত। বাংলাদেশের জাতীয় এমন কোন খেলোযার নাই যে এই মাঠে এসে না খেলেছে! কি  ফুটবল ব আর ক্রিকেট বলেন। আমার কাছে বোধগম্য হয়না এখন কিভাবেএই মাঠটাকে ছাপিয়ে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ থাকার পরও মাঠ দখল করার যে সিদ্ধান্ত হচ্ছে। 

 

কাউসার আহমেদ পলাশ বলেন, আলীগঞ্জ খেলার মাঠে সব সময় বিভিন্ন টুর্ণামেন্ট হতে থাকে। ডিসি কাপ টুর্ণামেন্ট, শেখ রাসেল টুর্ণামেন্ট এবং আলীগঞ্জ প্রিমিয়ার লীগ এরকম বিভিন্ন নামে খেলাধুলা হয় । যদি এই মাঠটা দখল হয়ে যায় খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত থাকবে এই সমাজের এদেশের যুবসমাজ। এর আগে আমরা মাঠ রক্ষার সার্থে প্রজেক্ট বাতিলে জন্য আদালতে রিট করেছিলাম। তখন  আলীগঞ্জ মাঠ রেখে প্রজেক্ট করার জন্য আদেশ করেছিল।

 

উচ্চ আদালত আদেশ করেছিল সাড়ে চার একর জায়গা রেখে এর বাহিরেও পর্যাপ্ত জায়গা রেখে অর্থাৎ মিনি স্টেডিয়ামের জায়গা রেখে তাদের প্রজেক্ট করার জন্য । উচ্চ আদালতের এসব আদেশ  জেলা প্রশাসক বাস্তবায়ন করার কথা। কিন্তু সেটি না করে যদি জনগণের খেলার মাঠ দখল করার আয়োজন করা হয় তবে সেটি দুঃখজনক ছাড়া আর কিছুই হতে পারেনা।   

 

এদিকে একটি সূত্র জানিয়েছে, উচ্চ আদালতের এই রায়ের বিপরীতে অফিসার্স কোয়ার্টার নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান ইকবাল এন্টারপ্রাইজ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে এই আদেশসহ মাঠ সংকান্ত সমস্ত মামলা স্থায়ীভাবে স্থগিত করার আর্জি জানায়। যা আগামী ২০ মে শুনানির দিন ধার্য রাখা হয়েছে।

 

তবে, সূত্র বলছে, ২০ মে আদালত ইকবাল এন্টারপ্রাইজের শুনানির দিন ধার্য রাখলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আদালতের ওই রায়কে উপেক্ষা করে মাঠ উচ্ছেদ করাসহ তা দখলের পাঁয়তারা করছে। আর এ খবরে স্থানীয় ক্রীড়ামোদী থেকে শুরু করে বিভিন্নস্তরের মানুষের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভ সঞ্চার হয়েছে।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ





সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD