কুতুবপুরে সুদখোর লায়লা বেগম’র ঋণের জালে পড়ে নিঃস্ব শতাধিক পরিবার!

নিজেস্ব প্রতিবেদক :- সুদখোর লায়লা বেগমের ঋণের জালে পড়ে নিঃস্ব কুতুবপুরের শতাধিক পরিবার। নিয়মিত সুদের টাকা না দেওয়ায় মারধর, মিথ্যা মামলা ও হয়রানির অভিযোগও পাওয়া গেছে।

 

ভুক্তভোগীদের দাবি, বাংলাদেশ গ্রাম পুলিশের কমান্ডার মোস্তফা কামালের স্ত্রী লায়লা বেগমের ‘আনসার ভিডিপি উন্নয়ন সমিতি’ থেকে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে তাদের এ অবস্থা। সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পারলে চক্রবৃদ্ধি হারে তা বাড়ে। সেই টাকা দিতে না পারলে ঘরের আসবাবপত্র, রিকশা, ভ্যান ও ঠেলা গাড়ীসহ যা পায় নিয়ে যায়। থানায় দায়ের করা হয় মিথ্যা অভিযোগ।

 

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা থানাধীন কুতুবপুর ইউনিয়নের পাগলা, নয়ামাটি ও নন্দলালপুর এলাকার অধিকাংশ মানুষ নিম্নআয়ের ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। স্থানীয়দের অভিযোগ, জীবিকার প্রয়োজনে তারা চড়া সুদে ঋণ নিতে বাধ্য হয় দাদন ব্যবসায়ী ও সরকারী কাগজ পত্র বিহীন ভুয়া আনসার ভিডিপি উন্নয়ন সমিতির লায়লা বেগমের কাছ থেকে। ১ হাজার টাকায় মাসিক ৮/৯ শত টাকা সুদ দিতে হয়। এই সুদ কেউ দৈনিক বা সপ্তাহে দিতে সম্মত হয়ে সাদা কাগজে সই করে। দিন বা সপ্তাহে কিস্তির টাকা দিতে না পারলে চক্রবৃদ্ধি হারে সুদ বেড়ে ধারায় তিন থেকে চার গুণ।

 

ভুক্তভোগীদের দাবি, টাকা পরিশোধ করলেও অনেক সময় নির্যাতন, অত্যাচার করা হয়। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন জানার পরও কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় তাদের দৌরাত্ম বেড়েছে। তারা আরও জানায়, কিস্তি দিয়ে মাস শেষে টাকা পরিশোধ না করলে প্রথমে হুমকি দেওয়া হয়। এরপর ঘরের মালামাল সহ আসবাবপত্র নিয়ে যায়। এছাড়া মারধরসহ নির্যাতন করা হয়। সুদের টাকা দিতে না পেরে অনেকে এলাকা ছেড়ে পরিবার নিয়ে পালিয়ে গেছে।

 

সুদখোর লায়লা বেগমের স্বামী কমান্ডার মোস্তফা কামাল বাংলাদেশ গ্রাম পুলিশ কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি, পদবীর নাম বিক্রি করে কুতুবপুরের পাগলা নন্দলালপুর রোড, নাককাটার বাড়ী সংলগ্ন সরকারী খালের উপর অবৈধ ভাবে দখল করে বিদুৎ লাইন চুরির মাধ্যমে ‘আনসার ভিডিপি উন্নয়ন সমিতি’র নাম দিয়ে গড়ে তোলেছেন একটি অফিস।

 

ভুক্তভোগী ফারুকের অভিযোগ, ‘অভাবের কারণে লায়লা বেগমের কাছে সাপ্তাহিক কিস্তিতে ৩০ হাজার টাকা নেই। কিছুদিন ঠিকভাবে কিস্তি দেওয়ার পর হঠাৎ কিস্তি দিতে ২/৩ সপ্তাহ দেড়ি হয়। তার বেধে দেওয়া সময়ের মধ্যে কিস্তির টাকা পরিশোধ না করায় ৩০ হাজার টাকার ঋণ নিয়ে , ৭০ হাজার টাকা দিতে হয়েছ। দ্বিগুণেরও বেশি টাকা আদায় করতে লায়লা বেগম নানাভাবে আমাকে হুমকি দিতে থাকে। এক পর্যায়ে অজ্ঞাত কিছু যুবক দিয়ে আমাকে আটক করে মারধর করে।’

 

ফরিদ নামের একজন শ্রমিক বলেন, আমার ছেলেকে বিদেশে পাঠানোর জন্য লায়লার কাছথেকে তিন ভাগে ১ লাখ ৫২ হাজার টাকায়, প্রতি সপ্তাহে ৩৬শত টাকা করে কিস্তি পরিশোধের পরেও সুদে আসলে ৪ লাখ টাকা দিতে হয়। অসহায় এই ব্যক্তি বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ থানাধীন ইসলামপুর গ্রাম থেকে বেশ কয়েক বছর আগে কাজের খোজে নারায়ণগঞ্জে এসেছিলেন। এখন পাগলা, নন্দলালপুর এলাকায় বিক্রমপুর মেটাল নামীয় একটি প্রতিষ্ঠানে ১২ হাজার টাকা বেতনে তাপায় মেস্ত্রী হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি আরো বলেন, এখন তার কাছে আর টাকা না নেওয়ায় বারবার লায়লা হুমকি দিয়ে বলেন, কেন টাকা নিবি না? টাকা নিলেও হুমকি দেয়, না নিলেও দেয়। তাদের অত্যাচারে ভয়ে অনেকে মুখ খুলতে পারেন না।’

 

বিষয়টি দ্রুত প্রতিকারের দাবি করেন তিনি। এ বিষয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অনেকেই উজ্জীবিত বাংলাদেশকে বলেন, ‘নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে ভুয়া সমিতির নামে সুদখোর মহাজনের সুদ ব্যবসার বিষয়ে উদ্বিগ্ন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও। কেউ যদি অতিরিক্ত কয়েকগুণ সুদের টাকা দিতে দেড়ি করে, তাহলেই নিরীহ মানুষকে ফাঁসাতে মিথ্যা অভিযোগও করছেন। যা তদন্তে ইতোমধ্যে মিথ্যা প্রমাণ হয়েছে।’ তবে এ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পুলিশ ও প্রশাসনের নিকট দাবি জানিয়েছেন তারা।

 

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা বারিক বলেন, সমবায় সমিতির বাইরে এবং অনুমোদন ছাড়া কেউ ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে না। তারপরেও কেউ সমিতির নাম ব্যবহার করে বা ব্যক্তিগত সুদ ব্যবসা করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

-লায়লা বেগম ও কমান্ডার মোস্তফা কামালের সীমাহীন অপরাধ জগতের আরো অজানা তথ্য জানতে চোখ রাখুন উজ্জীবিত বিডি ডটকমে…!
Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» ফতুল্লায় ডিবি’র সাথে বন্দুকযুদ্ধে মাদক সম্রাট বিপ্লব নিহত

» নারায়ণগঞ্জে যায়যায়দিন পত্রিকার প্রতিষ্ঠা বাষির্কী পালন

» রাণীনগরে যায়যায় দিন পত্রিকার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন

» স্থানীয়দের নির্মমতা থেকে মুক্তি চায় রাবিয়ানরা

» কলাপাড়ায় খসে পরছে বিদ্যালয় ভবননের ছাদের প্লেস্টার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা আতঙ্কে

» কলাপাড়ায় মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে ধর্ষনের দায়ে আটক-১

» রাজাপুরে খালে ভেসে এলো বিপন্ন মৃত শুশুক, উৎসুক জনতার ভীড়

» ডামুড্যায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাদ ধসে পড়েছে

» ডামুড্যায় যায়যায়দিন পত্রিকার বর্ণাঢ্য প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

» মদনপুরে সেতু থাকলেও চলাচলের সড়ক না থাকায় জনদুর্ভোগ চরমে




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD




আজ : মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ১লা শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কুতুবপুরে সুদখোর লায়লা বেগম’র ঋণের জালে পড়ে নিঃস্ব শতাধিক পরিবার!

নিজেস্ব প্রতিবেদক :- সুদখোর লায়লা বেগমের ঋণের জালে পড়ে নিঃস্ব কুতুবপুরের শতাধিক পরিবার। নিয়মিত সুদের টাকা না দেওয়ায় মারধর, মিথ্যা মামলা ও হয়রানির অভিযোগও পাওয়া গেছে।

 

ভুক্তভোগীদের দাবি, বাংলাদেশ গ্রাম পুলিশের কমান্ডার মোস্তফা কামালের স্ত্রী লায়লা বেগমের ‘আনসার ভিডিপি উন্নয়ন সমিতি’ থেকে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে তাদের এ অবস্থা। সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পারলে চক্রবৃদ্ধি হারে তা বাড়ে। সেই টাকা দিতে না পারলে ঘরের আসবাবপত্র, রিকশা, ভ্যান ও ঠেলা গাড়ীসহ যা পায় নিয়ে যায়। থানায় দায়ের করা হয় মিথ্যা অভিযোগ।

 

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা থানাধীন কুতুবপুর ইউনিয়নের পাগলা, নয়ামাটি ও নন্দলালপুর এলাকার অধিকাংশ মানুষ নিম্নআয়ের ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। স্থানীয়দের অভিযোগ, জীবিকার প্রয়োজনে তারা চড়া সুদে ঋণ নিতে বাধ্য হয় দাদন ব্যবসায়ী ও সরকারী কাগজ পত্র বিহীন ভুয়া আনসার ভিডিপি উন্নয়ন সমিতির লায়লা বেগমের কাছ থেকে। ১ হাজার টাকায় মাসিক ৮/৯ শত টাকা সুদ দিতে হয়। এই সুদ কেউ দৈনিক বা সপ্তাহে দিতে সম্মত হয়ে সাদা কাগজে সই করে। দিন বা সপ্তাহে কিস্তির টাকা দিতে না পারলে চক্রবৃদ্ধি হারে সুদ বেড়ে ধারায় তিন থেকে চার গুণ।

 

ভুক্তভোগীদের দাবি, টাকা পরিশোধ করলেও অনেক সময় নির্যাতন, অত্যাচার করা হয়। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন জানার পরও কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় তাদের দৌরাত্ম বেড়েছে। তারা আরও জানায়, কিস্তি দিয়ে মাস শেষে টাকা পরিশোধ না করলে প্রথমে হুমকি দেওয়া হয়। এরপর ঘরের মালামাল সহ আসবাবপত্র নিয়ে যায়। এছাড়া মারধরসহ নির্যাতন করা হয়। সুদের টাকা দিতে না পেরে অনেকে এলাকা ছেড়ে পরিবার নিয়ে পালিয়ে গেছে।

 

সুদখোর লায়লা বেগমের স্বামী কমান্ডার মোস্তফা কামাল বাংলাদেশ গ্রাম পুলিশ কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি, পদবীর নাম বিক্রি করে কুতুবপুরের পাগলা নন্দলালপুর রোড, নাককাটার বাড়ী সংলগ্ন সরকারী খালের উপর অবৈধ ভাবে দখল করে বিদুৎ লাইন চুরির মাধ্যমে ‘আনসার ভিডিপি উন্নয়ন সমিতি’র নাম দিয়ে গড়ে তোলেছেন একটি অফিস।

 

ভুক্তভোগী ফারুকের অভিযোগ, ‘অভাবের কারণে লায়লা বেগমের কাছে সাপ্তাহিক কিস্তিতে ৩০ হাজার টাকা নেই। কিছুদিন ঠিকভাবে কিস্তি দেওয়ার পর হঠাৎ কিস্তি দিতে ২/৩ সপ্তাহ দেড়ি হয়। তার বেধে দেওয়া সময়ের মধ্যে কিস্তির টাকা পরিশোধ না করায় ৩০ হাজার টাকার ঋণ নিয়ে , ৭০ হাজার টাকা দিতে হয়েছ। দ্বিগুণেরও বেশি টাকা আদায় করতে লায়লা বেগম নানাভাবে আমাকে হুমকি দিতে থাকে। এক পর্যায়ে অজ্ঞাত কিছু যুবক দিয়ে আমাকে আটক করে মারধর করে।’

 

ফরিদ নামের একজন শ্রমিক বলেন, আমার ছেলেকে বিদেশে পাঠানোর জন্য লায়লার কাছথেকে তিন ভাগে ১ লাখ ৫২ হাজার টাকায়, প্রতি সপ্তাহে ৩৬শত টাকা করে কিস্তি পরিশোধের পরেও সুদে আসলে ৪ লাখ টাকা দিতে হয়। অসহায় এই ব্যক্তি বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ থানাধীন ইসলামপুর গ্রাম থেকে বেশ কয়েক বছর আগে কাজের খোজে নারায়ণগঞ্জে এসেছিলেন। এখন পাগলা, নন্দলালপুর এলাকায় বিক্রমপুর মেটাল নামীয় একটি প্রতিষ্ঠানে ১২ হাজার টাকা বেতনে তাপায় মেস্ত্রী হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি আরো বলেন, এখন তার কাছে আর টাকা না নেওয়ায় বারবার লায়লা হুমকি দিয়ে বলেন, কেন টাকা নিবি না? টাকা নিলেও হুমকি দেয়, না নিলেও দেয়। তাদের অত্যাচারে ভয়ে অনেকে মুখ খুলতে পারেন না।’

 

বিষয়টি দ্রুত প্রতিকারের দাবি করেন তিনি। এ বিষয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অনেকেই উজ্জীবিত বাংলাদেশকে বলেন, ‘নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে ভুয়া সমিতির নামে সুদখোর মহাজনের সুদ ব্যবসার বিষয়ে উদ্বিগ্ন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও। কেউ যদি অতিরিক্ত কয়েকগুণ সুদের টাকা দিতে দেড়ি করে, তাহলেই নিরীহ মানুষকে ফাঁসাতে মিথ্যা অভিযোগও করছেন। যা তদন্তে ইতোমধ্যে মিথ্যা প্রমাণ হয়েছে।’ তবে এ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পুলিশ ও প্রশাসনের নিকট দাবি জানিয়েছেন তারা।

 

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা বারিক বলেন, সমবায় সমিতির বাইরে এবং অনুমোদন ছাড়া কেউ ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে না। তারপরেও কেউ সমিতির নাম ব্যবহার করে বা ব্যক্তিগত সুদ ব্যবসা করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

-লায়লা বেগম ও কমান্ডার মোস্তফা কামালের সীমাহীন অপরাধ জগতের আরো অজানা তথ্য জানতে চোখ রাখুন উজ্জীবিত বিডি ডটকমে…!
Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD