ঈদের ছোঁয়া লেগেছে ফুটপাতে, চলছে জমজমাট বেচাকেনা

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

উজ্জীবিত বিডি ডটকম:  হাতে আর মাত্র সপ্তাহ খানেক বাকি। পরিবার-পরিজনদের জন্য নতুন পোশাক কিনতে বিপণী-বিতানগুলোতে ভীড় করছেন নানা বয়সী মানুষ। শেষ মুহূর্তের কেনাবেচায় ব্যস্ত ক্রেতা-বিক্রেতারা।

এদিকে শুধু বিপনী বিতান গুলোতে নয় ঈদের ছোঁয়া লেগেছে ফুটপাতের দোকানগুলোতেও। ক্রেতা-বিক্রেতাদের দরদামে সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্তও চলছে জমজমাট বেচাকেনা।

 বড় বড় অভিজাত বিপণী বিতানের সঙ্গে পাল¬া দিয়ে জমে উঠেছে ফুটপাতে ভাসমান ঈদ-বাজার। এই বাজারের বেশিরভাগ বিক্রেতাই ভাসমান, ঈদকে কেন্দ্র করে গ্রাম থেকে ঢাকায় এসেছেন মৌসুমি আয়ের উদ্দেশ্যে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, বঙ্গবন্ধু সড়ক, নবাব সলিমুল্লাহ্ রোড, কালির বাজার শায়েস্তাখান রোড, ২নং রেলগেট,ডিআইটিসহ  শহরের অলিতে গলিতে ভাসমান ঈদের বাজার গড়ে তোলা হয়েছে।

এই ঈদ বাজারগুলোর বেশিরভাগই ফুটপাত দখল করে গড়ে উঠেছে। ফুটপাতে অস্থায়ীভাবে টেবিল বসিয়ে পণ্যের পসার নিয়ে বসা এই শহরের পুরোনো চিত্র। তার সঙ্গে এখন যোগ হয়েছে তিন চাকার ভ্যানগাড়ি। ফুটপাতের পাশে ভ্যান গাড়িতেও ঈদের বাজারের কেনাকাটা চলছে পুরোদমে।

কি নেই এখানে। পোশাক, জুতা থেকে শুরু করে প্রসাধনী সামগ্রী, দৈনন্দিন গৃহস্থালী প্রয়োজনীয় তৈজসপত্রসহ আরো কত কি! চাষাঢ়া বঙ্গবন্ধু সড়কে  ভ্যান গাড়িতে প্যান্টের দোকান সাজিয়ে বেচাকেনা করছে আব্দুল্লাহ ও তার ভাই মামুন। তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, গত এক সপ্তাহ আগে শহরে কুমিল্লা থেকে এসেছেন দুই ভাই। পরীক্ষা শেষ হাতে তেমন কাজ না থাকায় উপবৃত্তির টাকা নিয়ে দুই ভাই চলে আসেন নারায়ণগঞ্জে। পরে রোজায় এক পরিচিতের বাড়িতে থেকে ফুটপাতে ব্যবসায় শুরু করে ।

মামুন জানায়, সবাইকে নিয়ে যাতে ঈদটা ভালোভাবে কাটানো যায় এটাই প্রত্যাশা। তারা জানায়, সবকিছু দিয়ে প্রতিদিন ৫‘শ টাকার মত আয় হয়। 
ফুটপাতের দোকানগুলোতে লাগাম ছাড়া ভীড়। ছোট থেকে বড় সকলেই এখন কেনাকাটায় ব্যস্ত। এদিকে সাধারণ মানুষের ভীড় আর ফুটপাত দোকানীদের কবলে ফুটপাতের রাস্তা প্রায় নিশ্চিহ্ন। তাই বাধ্য হয়ে অনেকে রাস্তা দিয়েই নিজ গন্তব্যে পৌঁছাতে হচ্ছে। 

পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদের কেনাকাটা করতে এসেছেন পুলিশ কর্মকর্তা এহসানুল্লাহ্। এহসানুল্লাহ্ জানান, শুধু ঈদেই না, সব সময়েই ফুটপাত থেকে কেনাকাটা করেন তিনি। কেননা বড় বড় বিপণী বিতানে যা পাওয়া যায়, ফুটপাতের দোকানেও তা সুলভ মূল্যে পাওয়া যায়। তাছাড়া ঈদে জুতা পোশাক ছাড়াও অনেক কিছু থাকে যা ফুটপাত থেকেই কিনতে স্বাচ্ছন্দ্যে বোধ করি। 

কেনাকাটা  করতে আসা এক গৃহিনী জানান, ঈদের কেনাকাটাটা অবশ্যই মার্কেট থেকে করি। তবে এমন অনেক কেনাকাটা থাকে যা ফুটপাত থেকে কেনাটাই শ্রেয় মনে করি। তাছাড়া আমাদের মত মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোর জন্য ফুটপাতই একমাত্র ভরসা।

 ফুটপাতের বিক্রেতারা জানান, এলাকাভেদে ফুটপাতের একটি দোকানের ভাড়া প্রতিদিন ৩‘শ টাকা থেকে ৮‘শ টাকা দিতে হয়। তবে কে বা কারা এ টাকা নেয় সে বিষয়ে মুখ খুলতে রাজি হয়নি তারা।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» নারায়নগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত ছাড়াল সাড়ে ৫ হাজার, নতুন ৩৭ জন

» বাংলাবাজারে সেলিমের আইপিএল’র দোকানই রাজু গংদের অপরাধের আখড়া !

» বান্দরবানে দূর্গম এলাকায় সেনাবাহিনীর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

» নারায়ণগঞ্জ নিউজ ২৪ ডট কম’র ৪র্থ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

» খোচাঁখুচি করবেননা সাংবাদিকদের সেলিম ওসমান এমপি

» ছাঁটাইকৃত শ্রমিকদের বকেয়া বেতন ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে শ্রমিকদের মিছিল

» ফতুল্লায় ৩৩ কেভি বৈদ্যুতিক আগুনে জ্বলছে গেলো অনিক

» ফতুল্লায় চাঁদা না দেওয়ায় ব্যবসায়ীকে হুমকি’ সানাউল্লাহ’র বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ

» করোনা মহামারীতে মা হারানো কিশোরের গল্প ‘ফেরা’

» ফতুল্লায় ছাত্রলীগের উদ্যোগে পিলকুনী হাক্কনী জান্নাতুল বাকী কবরস্থানে বৃক্ষরোপন




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০, খ্রিষ্টাব্দ, ২৮শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ঈদের ছোঁয়া লেগেছে ফুটপাতে, চলছে জমজমাট বেচাকেনা

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

উজ্জীবিত বিডি ডটকম:  হাতে আর মাত্র সপ্তাহ খানেক বাকি। পরিবার-পরিজনদের জন্য নতুন পোশাক কিনতে বিপণী-বিতানগুলোতে ভীড় করছেন নানা বয়সী মানুষ। শেষ মুহূর্তের কেনাবেচায় ব্যস্ত ক্রেতা-বিক্রেতারা।

এদিকে শুধু বিপনী বিতান গুলোতে নয় ঈদের ছোঁয়া লেগেছে ফুটপাতের দোকানগুলোতেও। ক্রেতা-বিক্রেতাদের দরদামে সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্তও চলছে জমজমাট বেচাকেনা।

 বড় বড় অভিজাত বিপণী বিতানের সঙ্গে পাল¬া দিয়ে জমে উঠেছে ফুটপাতে ভাসমান ঈদ-বাজার। এই বাজারের বেশিরভাগ বিক্রেতাই ভাসমান, ঈদকে কেন্দ্র করে গ্রাম থেকে ঢাকায় এসেছেন মৌসুমি আয়ের উদ্দেশ্যে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, বঙ্গবন্ধু সড়ক, নবাব সলিমুল্লাহ্ রোড, কালির বাজার শায়েস্তাখান রোড, ২নং রেলগেট,ডিআইটিসহ  শহরের অলিতে গলিতে ভাসমান ঈদের বাজার গড়ে তোলা হয়েছে।

এই ঈদ বাজারগুলোর বেশিরভাগই ফুটপাত দখল করে গড়ে উঠেছে। ফুটপাতে অস্থায়ীভাবে টেবিল বসিয়ে পণ্যের পসার নিয়ে বসা এই শহরের পুরোনো চিত্র। তার সঙ্গে এখন যোগ হয়েছে তিন চাকার ভ্যানগাড়ি। ফুটপাতের পাশে ভ্যান গাড়িতেও ঈদের বাজারের কেনাকাটা চলছে পুরোদমে।

কি নেই এখানে। পোশাক, জুতা থেকে শুরু করে প্রসাধনী সামগ্রী, দৈনন্দিন গৃহস্থালী প্রয়োজনীয় তৈজসপত্রসহ আরো কত কি! চাষাঢ়া বঙ্গবন্ধু সড়কে  ভ্যান গাড়িতে প্যান্টের দোকান সাজিয়ে বেচাকেনা করছে আব্দুল্লাহ ও তার ভাই মামুন। তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, গত এক সপ্তাহ আগে শহরে কুমিল্লা থেকে এসেছেন দুই ভাই। পরীক্ষা শেষ হাতে তেমন কাজ না থাকায় উপবৃত্তির টাকা নিয়ে দুই ভাই চলে আসেন নারায়ণগঞ্জে। পরে রোজায় এক পরিচিতের বাড়িতে থেকে ফুটপাতে ব্যবসায় শুরু করে ।

মামুন জানায়, সবাইকে নিয়ে যাতে ঈদটা ভালোভাবে কাটানো যায় এটাই প্রত্যাশা। তারা জানায়, সবকিছু দিয়ে প্রতিদিন ৫‘শ টাকার মত আয় হয়। 
ফুটপাতের দোকানগুলোতে লাগাম ছাড়া ভীড়। ছোট থেকে বড় সকলেই এখন কেনাকাটায় ব্যস্ত। এদিকে সাধারণ মানুষের ভীড় আর ফুটপাত দোকানীদের কবলে ফুটপাতের রাস্তা প্রায় নিশ্চিহ্ন। তাই বাধ্য হয়ে অনেকে রাস্তা দিয়েই নিজ গন্তব্যে পৌঁছাতে হচ্ছে। 

পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদের কেনাকাটা করতে এসেছেন পুলিশ কর্মকর্তা এহসানুল্লাহ্। এহসানুল্লাহ্ জানান, শুধু ঈদেই না, সব সময়েই ফুটপাত থেকে কেনাকাটা করেন তিনি। কেননা বড় বড় বিপণী বিতানে যা পাওয়া যায়, ফুটপাতের দোকানেও তা সুলভ মূল্যে পাওয়া যায়। তাছাড়া ঈদে জুতা পোশাক ছাড়াও অনেক কিছু থাকে যা ফুটপাত থেকেই কিনতে স্বাচ্ছন্দ্যে বোধ করি। 

কেনাকাটা  করতে আসা এক গৃহিনী জানান, ঈদের কেনাকাটাটা অবশ্যই মার্কেট থেকে করি। তবে এমন অনেক কেনাকাটা থাকে যা ফুটপাত থেকে কেনাটাই শ্রেয় মনে করি। তাছাড়া আমাদের মত মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোর জন্য ফুটপাতই একমাত্র ভরসা।

 ফুটপাতের বিক্রেতারা জানান, এলাকাভেদে ফুটপাতের একটি দোকানের ভাড়া প্রতিদিন ৩‘শ টাকা থেকে ৮‘শ টাকা দিতে হয়। তবে কে বা কারা এ টাকা নেয় সে বিষয়ে মুখ খুলতে রাজি হয়নি তারা।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD