ইংলিশ অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ পৌঁছাবে বিশ্বব্যাপ’ ইংরেজীতে দক্ষ তরুণসমাজ

ওয়ার্ল্ডওয়াইড অর্গানাইজেশন ফর চ্যারিটি (ডাব্লিওওসি) এবং ইংলিশ অলিম্পিয়াডের যৌথ উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয় আন্তর্জাতিক মানের এ প্রতিযোগিতা। এবছর সারাদেশে আয়োজিত হয়েছে জাতীয় ইংলিশ অলিম্পিয়াড সিজন-২। ইতোমধ্যে দেশের ৮ টি বিভাগ ও ৩০ টি জেলা থেকে ৫০ হাজার ছাত্র- ছাত্রীদের নিয়ে বাছাই পর্ব এবং থিয়েটার পর্ব সম্পন্ন করে দেশজুড়ে বেশ ভালো সাড়া ফেলে দিয়েছে তারা। এবার তারা বাংলাদেশের ৬৪টি জেলায় এবং আরো ২৫টি দেশে আয়োজন করছে ইংলিশ অলিম্পিয়াড সিজন-৩। দেশের প্রতিটি প্রান্তের শিশু কিশোর এবং তরুণদের মাঝে ইংরেজীকে আরও জনপ্রিয় এবং প্রতিযোগিতামূলক করতে কাজ করে যাচ্ছে ইংলিশ অলিম্পিয়াড। একইসাথে ভবিষ্যত বাংলাদেশের জন্য শক্তিশালী নেতৃত্ব তৈরীতেও ইংলিশ অলিম্পিয়াড গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।(এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্যের জন্য ভিজিট করুন englisholympiad.net)

‘ইন্সপায়ারিং লিডারশিপ’ শ্লোগান নিয়ে এগিয়ে চলা ন্যাশনাল ইংলিশ অলিম্পিয়াডের দ্বিতীয় আসর নিয়ে বেশ উৎসাহ ও উদ্দীপনার সৃষ্টি হয় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে। প্রতিযোগিতাটি যথাক্রমে বাছাই পর্ব(জেলাভিত্তিক), থিয়েটার পর্ব(বিভাগীয়) এবং গ্র‍্যান্ড ফিনালে এই তিনটি আলাদা আলাদা পর্বে আয়োজিত হয়। বাছাই পর্বে পরীক্ষার মাধ্যমে ইংরেজিতে দক্ষতা যাচাই করা হয়। ক্লাস অনুযায়ী প্রতিযোগীদের এই প্রতিযোগিতার জন্য ৬টি গ্রুপে ভাগ করা হয়েছে। গ্রুপগুলো হচ্ছে:

১. কিডস (প্লে- ২য় শ্রেণী পর্যন্ত)

২. স্মল স্টার্টস (৩য়-৫ম শ্রেণী পর্যন্ত)

৩. জুনিয়র্স (৬ষ্ঠ-৮ম শ্রেণী পর্যন্ত)

৪. হাই ফ্লায়ার্স (৯ম-১০ম শ্রেণী)

৫. ট্রেইল ব্লেজার্স (১১শ-১২শ শ্রেণী)

৬. সিনিয়র্স (উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের পর যেকোনো শিক্ষার্থী)। ‘ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৪০০০ জন ক্যাম্পাস এম্বেসেডরদের সার্বিক পরিচালনা ও প্রচারণায় অনুষ্ঠিত হয় এই বাছাই পর্ব।

 

থিয়েটার রাউন্ড এ মূলত শিক্ষার্থীদের ইংরেজি বিষয়ে দক্ষতার চারটি ধাপ যাচাই করা হয়। পরীক্ষা শেষে প্রত্যেক শিক্ষার্থীদের মেডেল ও সার্টিফিকেট প্রদান করেন আয়োজক এবং বিচারকরা।থিয়েটার রাউন্ড থেকে প্রতি গ্রুপের সেরা প্রতিযোগীরা ঢাকায় গ্র্যান্ড ফিনালেতে অংশ নেয়ার সুযোগ পাবে এবং মেধা ও যোগ্যতা প্রমাণের লড়াই করবে সারা দেশের ৮টি বিভাগের বিভাগীয় সেরাদের সঙ্গে। এই সেরাদের মাঝে যারা সেরা বলে বিবেচিত হবে তারাই হবে ইংলিশ অলিম্পিয়াড সিজন-২ এর বিজয়ী।

ইংলিশ অলিম্পিয়াডের বর্তমান পরিকল্পনা- ২০১৯ সালের মধ্যে ২৫ টি দেশে (যাদের মাতৃভাষা ইংরেজি নয়) অলিম্পিয়াড আয়োজন করা। আর ২০২০ সালের মধ্যে প্রায় ১০০টি দেশে এই প্রতিযোগিতা ছড়িয়ে দেয়া। ইংলিশ অলিম্পিয়াডের চিফ অরগানাইজার মোহাম্মদ আমান উল্লাহ জানান, “বর্তমান বিশ্বে নিজেকে সেরা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য প্রয়োজন যোগাযোগ, সৃজনশীলতা, সমন্বয় এবং যৌক্তিক চিন্তাধারা। ইংলিশ অলিম্পিয়াড এই গুণগুলো চর্চা করে এবং অন্যদেরও চর্চায় উৎসাহিত করে। আমরা যদি এখন থেকে আমাদের তরুণ সমাজকে এই দক্ষতাগুলি অর্জনে উৎসাহ দিই তাহলে ভবিষ্যতে আমরা এমন একটি জেনারেশন আশা করতে পারব যারা দেশের চেহারাটাই বদলে দিতে পারবে।”। কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটির সিন্ডিকেট সদস্য ও ইংলিশ অলিম্পিয়াডের উপদেষ্টা এস এম আরিফুজ্জামান বলেন, ‘আমরা ম্যানেজমেন্ট ও ইনোভেশনে পিছিয়ে আছি। এর মূল কারণ হলো ইংরেজিতে দুর্বলতা। ইংলিশ অলিম্পিয়াড শুধু যে আমাদের এই দিকগুলি এগিয়ে যেতে সাহায্য করছে তাই নয়। বরং আমাদের প্রতিযোগিতামূলক পৃথিবীর সাথে পরিচিত হতে এবং সেই পৃথিবীর অংশ হয়ে উঠতে সাহায্য করছে। যথাযথ পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এটি আমাদের অর্থনৈতিক উন্নতিতে ভূমিকা রাখবে এবং প্রাইভেট সেক্টরে দক্ষ জনশক্তি তৈরিতেও সহযোগিতা করবে।” ইংলিশ অলিম্পিয়াডের ন্যাশনাল ইভেন্ট কোঅর্ডিনেটর আবদুল্লাহ আল জাফরি বলেন, “পৃথিবীব্যাপী বাংলাদেশকে তুলে ধরার জন্য ইংলিশ অলিম্পিয়াডের যাত্রা। আমাদের লক্ষ্য দেশের সীমানা পেরিয়ে বিশ্বব্যাপী আমাদের কর্ম পরিধি বৃদ্ধি করা। আমরা বাংলাদেশে গ্লোবাল লিডার তৈরি করতে চাই যারা ভবিষ্যতে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবে। আমারা ইতোমধ্যে এমন অনেককে খুঁজে পেয়েছি যাদের নেতৃত্বদানের ইচ্ছা এবং যোগ্যতা রয়েছে কিন্তু সঠিক পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে এবং ইংরেজি ভালোভাবে না জানার কারণে তারা সামনে আসতে পারছে না। আমরা তাদের সামনে নিয়ে আসার চেষ্টা করছি।”

দেশের প্রথম ইংলিশ অলিম্পিয়াডের গ্র্যান্ড ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়েছেলো গতবছর। রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় এ আয়োজন করা হয়। ইংরেজি দৈনিক ডেইলি সানের সহযোগিতায় ওয়ার্ল্ডওয়াইড অর্গানাইজেশন অ্যান্ড চ্যারিটি (ডব্লিউওসি) অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে। এ আয়োজনকে ঘিরে অনুষ্ঠানস্থল সাজানো হয় বর্ণাঢ্য সাজে। সারা দেশ থেকে শিক্ষার্থীরা দিনভর গ্র্যান্ড ফাইনালের নানা আয়োজনে অংশ নেন। এতে অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান, ঢাকা উত্তরের মাননীয় মেয়র আতিকুল ইসলাম।

 

মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন “ইংরেজি শেখা মানেই বাংলাকে অবহেলা করা নয়। বাংলার পাশাপাশি আমরা ইংরেজি শিখব।“

ইংলিশ আলিম্পিয়াডের প্রতি মানুষের আগ্রহও চোখে পড়ার মতো। ছাত্রছাত্রী এবং তাদের অভিভাবকরা সকলেই প্রচন্ড উৎসাহী ইংলিশ অলিম্পিয়াডে অংশ নেয়ার ব্যপারে। একজন অভিভাবক বলেন,”আমার মেয়ে টিফিনের টাকা বাঁচিয়ে ইংরেজী পত্রিকা কিনে পড়ে। আমি যখন জিজ্ঞাসা করি তখন সে জানায়, সে ইংলিশ আলিম্পিয়াডের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। ইংলিশ আলিম্পিয়াড আমার সন্তানের শেখার আগ্রহটাকে নিয়ন্ত্রণ করছে, এটা সত্যিই অনেক বড় একটা ব্যাপার।” ইংলিশ অলিম্পিয়াডের আয়োজকরা আশা করছেন এভাবে ইংরেজী শেখার আগ্রহটা সারাদেশ এবং সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দেয়া সম্ভব হবে একদিন।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২ দিনের তথ্য মেলা শুরু

» বন্দরের অভ্যন্তরে পণ্য লোড আনলোড করতে আসা কয়েকশ‘ ট্রাক এক সাথে বন্দরে প্রবেশ

» পেঁয়াজের দাম বেঁধে দিলেন শ্যামবাজারের পাইকাররা

» বৃহস্পতিবার অর্ধদিবস হরতালের সমর্থনে গুলশান-বাড্ডা লিংক রোডে বিক্ষোভ মিছিল

» ফতুল্লায় লবণ নিয়ে লঙ্কাকান্ড গুজবের পিছনে ছুটছে সবাই

» মৌলভীবাজারে লবণের দাম বেশি নেওয়ায় ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর কর্তৃক জরিমানা

» লবণ মুল্যে বৃদ্ধির গুজব ও অবৈধ মজুদ রোধে অভিযানে পুলিশ- আটক ১

» নবনিযুক্ত নির্বাহী অফিসার মর্তুজা আল মুইদ কে ফুল দিয়ে সংবর্ধনা জানালেন ডামুড্যা প্রেসক্লাব

» চাঁপাইনবাবগঞ্জে পর্যাপ্ত পরিমান লবন মজুদ আছে চলবে আগামী ৬ মাস

» বেনাপোল বাজারে লবণের দাম বৃদ্ধি গুজবে ক্রেতাদের ভিড়




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯,

বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ইংলিশ অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ পৌঁছাবে বিশ্বব্যাপ’ ইংরেজীতে দক্ষ তরুণসমাজ

ওয়ার্ল্ডওয়াইড অর্গানাইজেশন ফর চ্যারিটি (ডাব্লিওওসি) এবং ইংলিশ অলিম্পিয়াডের যৌথ উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয় আন্তর্জাতিক মানের এ প্রতিযোগিতা। এবছর সারাদেশে আয়োজিত হয়েছে জাতীয় ইংলিশ অলিম্পিয়াড সিজন-২। ইতোমধ্যে দেশের ৮ টি বিভাগ ও ৩০ টি জেলা থেকে ৫০ হাজার ছাত্র- ছাত্রীদের নিয়ে বাছাই পর্ব এবং থিয়েটার পর্ব সম্পন্ন করে দেশজুড়ে বেশ ভালো সাড়া ফেলে দিয়েছে তারা। এবার তারা বাংলাদেশের ৬৪টি জেলায় এবং আরো ২৫টি দেশে আয়োজন করছে ইংলিশ অলিম্পিয়াড সিজন-৩। দেশের প্রতিটি প্রান্তের শিশু কিশোর এবং তরুণদের মাঝে ইংরেজীকে আরও জনপ্রিয় এবং প্রতিযোগিতামূলক করতে কাজ করে যাচ্ছে ইংলিশ অলিম্পিয়াড। একইসাথে ভবিষ্যত বাংলাদেশের জন্য শক্তিশালী নেতৃত্ব তৈরীতেও ইংলিশ অলিম্পিয়াড গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।(এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্যের জন্য ভিজিট করুন englisholympiad.net)

‘ইন্সপায়ারিং লিডারশিপ’ শ্লোগান নিয়ে এগিয়ে চলা ন্যাশনাল ইংলিশ অলিম্পিয়াডের দ্বিতীয় আসর নিয়ে বেশ উৎসাহ ও উদ্দীপনার সৃষ্টি হয় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে। প্রতিযোগিতাটি যথাক্রমে বাছাই পর্ব(জেলাভিত্তিক), থিয়েটার পর্ব(বিভাগীয়) এবং গ্র‍্যান্ড ফিনালে এই তিনটি আলাদা আলাদা পর্বে আয়োজিত হয়। বাছাই পর্বে পরীক্ষার মাধ্যমে ইংরেজিতে দক্ষতা যাচাই করা হয়। ক্লাস অনুযায়ী প্রতিযোগীদের এই প্রতিযোগিতার জন্য ৬টি গ্রুপে ভাগ করা হয়েছে। গ্রুপগুলো হচ্ছে:

১. কিডস (প্লে- ২য় শ্রেণী পর্যন্ত)

২. স্মল স্টার্টস (৩য়-৫ম শ্রেণী পর্যন্ত)

৩. জুনিয়র্স (৬ষ্ঠ-৮ম শ্রেণী পর্যন্ত)

৪. হাই ফ্লায়ার্স (৯ম-১০ম শ্রেণী)

৫. ট্রেইল ব্লেজার্স (১১শ-১২শ শ্রেণী)

৬. সিনিয়র্স (উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের পর যেকোনো শিক্ষার্থী)। ‘ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৪০০০ জন ক্যাম্পাস এম্বেসেডরদের সার্বিক পরিচালনা ও প্রচারণায় অনুষ্ঠিত হয় এই বাছাই পর্ব।

 

থিয়েটার রাউন্ড এ মূলত শিক্ষার্থীদের ইংরেজি বিষয়ে দক্ষতার চারটি ধাপ যাচাই করা হয়। পরীক্ষা শেষে প্রত্যেক শিক্ষার্থীদের মেডেল ও সার্টিফিকেট প্রদান করেন আয়োজক এবং বিচারকরা।থিয়েটার রাউন্ড থেকে প্রতি গ্রুপের সেরা প্রতিযোগীরা ঢাকায় গ্র্যান্ড ফিনালেতে অংশ নেয়ার সুযোগ পাবে এবং মেধা ও যোগ্যতা প্রমাণের লড়াই করবে সারা দেশের ৮টি বিভাগের বিভাগীয় সেরাদের সঙ্গে। এই সেরাদের মাঝে যারা সেরা বলে বিবেচিত হবে তারাই হবে ইংলিশ অলিম্পিয়াড সিজন-২ এর বিজয়ী।

ইংলিশ অলিম্পিয়াডের বর্তমান পরিকল্পনা- ২০১৯ সালের মধ্যে ২৫ টি দেশে (যাদের মাতৃভাষা ইংরেজি নয়) অলিম্পিয়াড আয়োজন করা। আর ২০২০ সালের মধ্যে প্রায় ১০০টি দেশে এই প্রতিযোগিতা ছড়িয়ে দেয়া। ইংলিশ অলিম্পিয়াডের চিফ অরগানাইজার মোহাম্মদ আমান উল্লাহ জানান, “বর্তমান বিশ্বে নিজেকে সেরা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য প্রয়োজন যোগাযোগ, সৃজনশীলতা, সমন্বয় এবং যৌক্তিক চিন্তাধারা। ইংলিশ অলিম্পিয়াড এই গুণগুলো চর্চা করে এবং অন্যদেরও চর্চায় উৎসাহিত করে। আমরা যদি এখন থেকে আমাদের তরুণ সমাজকে এই দক্ষতাগুলি অর্জনে উৎসাহ দিই তাহলে ভবিষ্যতে আমরা এমন একটি জেনারেশন আশা করতে পারব যারা দেশের চেহারাটাই বদলে দিতে পারবে।”। কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটির সিন্ডিকেট সদস্য ও ইংলিশ অলিম্পিয়াডের উপদেষ্টা এস এম আরিফুজ্জামান বলেন, ‘আমরা ম্যানেজমেন্ট ও ইনোভেশনে পিছিয়ে আছি। এর মূল কারণ হলো ইংরেজিতে দুর্বলতা। ইংলিশ অলিম্পিয়াড শুধু যে আমাদের এই দিকগুলি এগিয়ে যেতে সাহায্য করছে তাই নয়। বরং আমাদের প্রতিযোগিতামূলক পৃথিবীর সাথে পরিচিত হতে এবং সেই পৃথিবীর অংশ হয়ে উঠতে সাহায্য করছে। যথাযথ পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এটি আমাদের অর্থনৈতিক উন্নতিতে ভূমিকা রাখবে এবং প্রাইভেট সেক্টরে দক্ষ জনশক্তি তৈরিতেও সহযোগিতা করবে।” ইংলিশ অলিম্পিয়াডের ন্যাশনাল ইভেন্ট কোঅর্ডিনেটর আবদুল্লাহ আল জাফরি বলেন, “পৃথিবীব্যাপী বাংলাদেশকে তুলে ধরার জন্য ইংলিশ অলিম্পিয়াডের যাত্রা। আমাদের লক্ষ্য দেশের সীমানা পেরিয়ে বিশ্বব্যাপী আমাদের কর্ম পরিধি বৃদ্ধি করা। আমরা বাংলাদেশে গ্লোবাল লিডার তৈরি করতে চাই যারা ভবিষ্যতে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবে। আমারা ইতোমধ্যে এমন অনেককে খুঁজে পেয়েছি যাদের নেতৃত্বদানের ইচ্ছা এবং যোগ্যতা রয়েছে কিন্তু সঠিক পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে এবং ইংরেজি ভালোভাবে না জানার কারণে তারা সামনে আসতে পারছে না। আমরা তাদের সামনে নিয়ে আসার চেষ্টা করছি।”

দেশের প্রথম ইংলিশ অলিম্পিয়াডের গ্র্যান্ড ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়েছেলো গতবছর। রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় এ আয়োজন করা হয়। ইংরেজি দৈনিক ডেইলি সানের সহযোগিতায় ওয়ার্ল্ডওয়াইড অর্গানাইজেশন অ্যান্ড চ্যারিটি (ডব্লিউওসি) অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে। এ আয়োজনকে ঘিরে অনুষ্ঠানস্থল সাজানো হয় বর্ণাঢ্য সাজে। সারা দেশ থেকে শিক্ষার্থীরা দিনভর গ্র্যান্ড ফাইনালের নানা আয়োজনে অংশ নেন। এতে অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান, ঢাকা উত্তরের মাননীয় মেয়র আতিকুল ইসলাম।

 

মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন “ইংরেজি শেখা মানেই বাংলাকে অবহেলা করা নয়। বাংলার পাশাপাশি আমরা ইংরেজি শিখব।“

ইংলিশ আলিম্পিয়াডের প্রতি মানুষের আগ্রহও চোখে পড়ার মতো। ছাত্রছাত্রী এবং তাদের অভিভাবকরা সকলেই প্রচন্ড উৎসাহী ইংলিশ অলিম্পিয়াডে অংশ নেয়ার ব্যপারে। একজন অভিভাবক বলেন,”আমার মেয়ে টিফিনের টাকা বাঁচিয়ে ইংরেজী পত্রিকা কিনে পড়ে। আমি যখন জিজ্ঞাসা করি তখন সে জানায়, সে ইংলিশ আলিম্পিয়াডের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। ইংলিশ আলিম্পিয়াড আমার সন্তানের শেখার আগ্রহটাকে নিয়ন্ত্রণ করছে, এটা সত্যিই অনেক বড় একটা ব্যাপার।” ইংলিশ অলিম্পিয়াডের আয়োজকরা আশা করছেন এভাবে ইংরেজী শেখার আগ্রহটা সারাদেশ এবং সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দেয়া সম্ভব হবে একদিন।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯,

বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD