কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের কান্ডারী হচ্ছেন কারা?

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ফয়সাল বিন সিদ্দিক:- মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন আগামী ডিসেম্বরে। তার আগেই ঢেলে সাজানো হবে অন্যান্য সহযোগী সংগঠনকে। আগামীতে পরিচ্ছন্ন, সৎ, ত্যাগী, সুসময়ে দুঃসময়ের পরীক্ষিত নেতাদের হাতেই উঠবে নেতৃত্ব। কেননা দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকায় এসব সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতাদের মধ্যে অনেকে অবৈধ কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েছেন। ফলে ত্যাগী মেধাবী নেতৃত্ব আসছে না। এর প্রভাব পড়ছে মূল দলেও।

 

অতীতে দেখা গেছে সহযোগী সংগঠনের সফল নেতৃত্ব মূল দলে ঠাঁই পেয়েছে এবং এক সময় দেশ পরিচালনার দায়িত্বও তাদের কাঁধে বর্তায়। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চাইছেন পরিচ্ছন্ন সৎ, ত্যাগী নেতারা আগামীর নেতৃত্বে আসুক। তারাই দলের হাল ধরুক। এই প্রত্যয় নিয়ে তিনি সব সহযোগী সংগঠন সাজানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

 

ইতিমধ্যে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় চার নেতাকে বিশেষ দায়িত্ব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দলের চার অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের জন্য সৎ এবং যোগ্য নেতা বাছাই করবেন তারা। দায়িত্বপ্রাপ্ত এই চার নেতার মধ্যে রয়েছেন দলের দুই যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান এবং দুই সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক ও আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

 

যুবলীগের জন্য সৎ ও যোগ্য নেতৃত্ব খুঁজতে অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানককে বিশেষ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তিনি যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যান। স্বেচ্ছাসেবক লীগের ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব অনুসন্ধানের বিশেষ দায়িত্ব পেয়েছেন আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। তিনি স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সভাপতি। এই দুই সংগঠনের শীর্ষ নেতারাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সা¤প্রতিক দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে সবচেয়ে বেশি প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছেন। এ কারণে এই দুই সংগঠনের ভবিষ্যৎ নেতা নির্বাচনে সততা, যোগ্যতা, স্বচ্ছ ও উজ্জ্বল ভাবমূর্তির প্রসঙ্গ বিশেষভাবে প্রাধান্য পাচ্ছে।

 

দলীয় প্রধানের নির্দেশনায় এরইমধ্যে সহযোগী সংগঠনগুলোর মধ্যে শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে। বাদ পড়েছেন অনেক বাঘা বাঘা নেতা। তাই রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে এবারে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনে যারা আসবে তারা অবশ্যই সৎ হবে। নতুন নেতৃত্বের মধ্য দিয়ে দলের ভাবমূর্তি মানুষের কাছে আরও উজ্জল হবে বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

 

আগামী ১৬ নভেম্বর শনিবার সকাল ১১টায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বেচ্ছাসেবক লীগের তৃতীয় জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনের দ্বিতীয় সেশন ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে অনুষ্ঠিত হবে। এই সম্মেলনকে ঘিরে একটি আহŸায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। যে কমিটির আহবায়ক বর্তমান কমিটির সহ সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ আর সদস্য সচিব বর্তমান কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গাজী মেসবাউল হোসেন সাচ্চু।

 

এবার স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতৃত্বে যে নতুন কেউ আসছে সেটা এরই মধ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সংগঠনের শীর্ষ দুই নেতার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় তাদেরকে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

 

আগামীতে যারা স্বেচ্ছাসেবক লীগের শীর্ষ নেতৃত্বে আসবেন তাদের মধ্যে আলোচনায় শীর্ষে আছেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক ও বর্তমান কমিটির সহ সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ। তাকে সভাপতি পদে দেখলে অবাক হওয়ার কিছু নেই। কেননা তিনি এরই মধ্যে শীর্ষ মহলের গুড বুকে রয়েছেন। নির্মল রঞ্জন গুহ স্কুল জীবনে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দিয়ে শুরু করে পরবর্তীতে কলেজ, জেলা ও কেন্দ্রীয় ছাত্র রাজনীতিতে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঢাকা জেলার আহব্বায়ক, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও পরবর্তী কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। স্বেচ্ছাসেবক লীগে দায়িত্ব পালন কালে খালেদা -নিজামী জোট সরকার বিরোধী আন্দোলনে একাধিক বার জেল জুলুমের স্বীকার হয়েছেন এই নেতা।

 

এছাড়া সভাপতি পদে আলোচনায় রয়েছেন আফজালুর রহমান বাবু তিনি বর্তমান কমিটির সহ সভাপতি। এছাড়া আলোচনায় আছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি মঈন উদ্দীন মঈন। মঈন উদ্দীন মঈন একই সাথে বি. বাড়ীয়া আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসন থেকে সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে বিএনপি প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন।

 

অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে আসতে পারেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব মেসবাউল হোসেন সাচ্চু। যিনি বর্তমান কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। তিনিও উচ্চ মহলের গুড বুকে রয়েছেন।

 

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের দু’বারের সহ সভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু এরশাদ বিরোধী আন্দোলন, ১৯৯৬ সালের অসহযোগ আন্দোলন, ১/১১ তে জননেত্রী মুক্তি আন্দোলনে বিশেষ ভূমিকা রেখেছিলেন। তিনি মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে বৃহত্তর ক্যান্টনমেন্ট থানা সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের আহবায়ক, বৃহত্তর ক্যান্টনমেন্ট থানা ছাত্রলীগ দু’বারে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলায় গুরুতর আহত হয়ে দেশ-বিদেশে চিকিৎসা গ্রহণ করেণ। ২০০১ সালে জাতীয় নির্বাচনের পর বার বার গ্রেফতার ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে দীর্ঘদিন যাবৎ কারাবরণ এবং অসংখ্য মিথ্যা মামলার স্বীকার হয়েছিলেন।

 

বর্তমান সদস্য সচিব ও বারবার কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবকলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক থাকার কারণে স্বেচ্ছাসেবকলীগের সারা দেশের নেতা-কর্মীদের সাথেও রয়েছে নিবিড় যোগাযোগ।

 

আলোচনায় আরও রয়েছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের দফতর সম্পাদক সালেহ মোহাম্মদ টুটুল। এছাড়াও আলোচনায় রয়েছেন এ কে এম আজিম। যিনি বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক। আলোচনায় রয়েছেন খায়রুল হাসান ‍জুয়েল, সাজ্জাদ সাকিব বাদশা (সাংগঠনিক সম্পাদক), শেখ সোহেল রানা টিপু (সাংগঠনিক সম্পাদক), রফিকুল ইসলাম বিটু (সহ গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক)।

 

তবে আওয়ামীলীগ সূত্রে জানা গেছে বর্তমান আহবায়ক নির্মল রঞ্জন গুহকে সভাপতি এবং সদস্য সচিব গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চুকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আগামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে দেখা যাওয়ার সম্ভবনা বেশী। সম্মেলন পর্যন্ত দায়িত্ব প্রদানের মাধ্যমে তাদের শীর্ষ নেতৃত্বে আসার বার্তা প্রদান করা হয়েছে। এই দু’জনের কার বিরুদ্ধেই কোন প্রকার দূর্ণিতির অভিযোগ নেই। নিবেদিত প্রাণ, ত্যাগী নেতা হিসেবে দু’জনই পরিচিত।

 

কেমন নেতৃত্ব আসতে পারে এমন এক প্রশ্নের জবাবে স্বেচ্ছাসেবক লীগের আসন্ন কাউন্সিল সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘আমরা সৎ যোগ্য পরিচ্ছন্ন নেতা চাই। যারা ত্যাগী দলে দীর্ঘ দিন সময় দিয়েছে যাদের বিরুদ্ধে কোনো অসততার অভিযোগ নেই এমন লোকই হবেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা। এখানে অনুপ্রবেশকারীদের ঢুকার কোনো সুযোগ নেই। যারা কোনো দিন এই দল করেনি তাদেরও কোনো পদে থাকার সুযোগ থাকবে না।।’

 

স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন সম্পর্কে প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু বলেন, যারা রাজপথে থেকেছেন, আন্দোলন করেছেন, যাদের বিরুদ্ধে কোন প্রকার দূর্ণিতির অভিযোগ নেই তারা নেতৃত্ব আসুক। এতে সংগঠন যেমন শক্ত হবে; তেমনি জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতও শক্তিশালী হবে।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» ফতুল্লায় অসহায় ১৫০ পরিবারকে ঈদ সামগ্রী ও নতুন জামা দিলেন আব্দুল বাতেন

» সবাইকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মোঃ বিপ্লব

» মানবিক তানভীর আহমেদ টিটুর প্রতি আমরা ব্লাড ডোনার্সের কৃতজ্ঞতা

» ফতুল্লা মানব কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে কবর খননকারীদের মাঝে পিপিই, মাস্ক ও গ্লোভস বিতরণ

» পথ শিশুদের ঈদের জামা দিলেন উজ্জীবিত বাংলাদেশ পত্রিকার সাংবাদিক ফয়সাল

» পাগলা বাজারের প্রতি দোকান থেকে ৩’শ টাকা করে চাদাঁ আদায়ের অভিযোগ

» সবাইকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মোঃ দ্বীন ইসলাম

» পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মোঃ সেলিম মিয়া 

» পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মাসুম আহম্মেদ রাজ

» পাগলা বাজারে জাহাঙ্গীরের শেল্টা‌রেই‌ বাচ্চু বেপরোয়া




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : সোমবার, ২৫ মে ২০২০, খ্রিষ্টাব্দ, ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের কান্ডারী হচ্ছেন কারা?

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ফয়সাল বিন সিদ্দিক:- মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন আগামী ডিসেম্বরে। তার আগেই ঢেলে সাজানো হবে অন্যান্য সহযোগী সংগঠনকে। আগামীতে পরিচ্ছন্ন, সৎ, ত্যাগী, সুসময়ে দুঃসময়ের পরীক্ষিত নেতাদের হাতেই উঠবে নেতৃত্ব। কেননা দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকায় এসব সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতাদের মধ্যে অনেকে অবৈধ কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েছেন। ফলে ত্যাগী মেধাবী নেতৃত্ব আসছে না। এর প্রভাব পড়ছে মূল দলেও।

 

অতীতে দেখা গেছে সহযোগী সংগঠনের সফল নেতৃত্ব মূল দলে ঠাঁই পেয়েছে এবং এক সময় দেশ পরিচালনার দায়িত্বও তাদের কাঁধে বর্তায়। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চাইছেন পরিচ্ছন্ন সৎ, ত্যাগী নেতারা আগামীর নেতৃত্বে আসুক। তারাই দলের হাল ধরুক। এই প্রত্যয় নিয়ে তিনি সব সহযোগী সংগঠন সাজানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

 

ইতিমধ্যে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় চার নেতাকে বিশেষ দায়িত্ব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দলের চার অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের জন্য সৎ এবং যোগ্য নেতা বাছাই করবেন তারা। দায়িত্বপ্রাপ্ত এই চার নেতার মধ্যে রয়েছেন দলের দুই যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান এবং দুই সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক ও আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

 

যুবলীগের জন্য সৎ ও যোগ্য নেতৃত্ব খুঁজতে অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানককে বিশেষ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তিনি যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যান। স্বেচ্ছাসেবক লীগের ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব অনুসন্ধানের বিশেষ দায়িত্ব পেয়েছেন আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। তিনি স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সভাপতি। এই দুই সংগঠনের শীর্ষ নেতারাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সা¤প্রতিক দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে সবচেয়ে বেশি প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছেন। এ কারণে এই দুই সংগঠনের ভবিষ্যৎ নেতা নির্বাচনে সততা, যোগ্যতা, স্বচ্ছ ও উজ্জ্বল ভাবমূর্তির প্রসঙ্গ বিশেষভাবে প্রাধান্য পাচ্ছে।

 

দলীয় প্রধানের নির্দেশনায় এরইমধ্যে সহযোগী সংগঠনগুলোর মধ্যে শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে। বাদ পড়েছেন অনেক বাঘা বাঘা নেতা। তাই রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে এবারে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনে যারা আসবে তারা অবশ্যই সৎ হবে। নতুন নেতৃত্বের মধ্য দিয়ে দলের ভাবমূর্তি মানুষের কাছে আরও উজ্জল হবে বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

 

আগামী ১৬ নভেম্বর শনিবার সকাল ১১টায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বেচ্ছাসেবক লীগের তৃতীয় জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনের দ্বিতীয় সেশন ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে অনুষ্ঠিত হবে। এই সম্মেলনকে ঘিরে একটি আহŸায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। যে কমিটির আহবায়ক বর্তমান কমিটির সহ সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ আর সদস্য সচিব বর্তমান কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গাজী মেসবাউল হোসেন সাচ্চু।

 

এবার স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতৃত্বে যে নতুন কেউ আসছে সেটা এরই মধ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সংগঠনের শীর্ষ দুই নেতার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় তাদেরকে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

 

আগামীতে যারা স্বেচ্ছাসেবক লীগের শীর্ষ নেতৃত্বে আসবেন তাদের মধ্যে আলোচনায় শীর্ষে আছেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক ও বর্তমান কমিটির সহ সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ। তাকে সভাপতি পদে দেখলে অবাক হওয়ার কিছু নেই। কেননা তিনি এরই মধ্যে শীর্ষ মহলের গুড বুকে রয়েছেন। নির্মল রঞ্জন গুহ স্কুল জীবনে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দিয়ে শুরু করে পরবর্তীতে কলেজ, জেলা ও কেন্দ্রীয় ছাত্র রাজনীতিতে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঢাকা জেলার আহব্বায়ক, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও পরবর্তী কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। স্বেচ্ছাসেবক লীগে দায়িত্ব পালন কালে খালেদা -নিজামী জোট সরকার বিরোধী আন্দোলনে একাধিক বার জেল জুলুমের স্বীকার হয়েছেন এই নেতা।

 

এছাড়া সভাপতি পদে আলোচনায় রয়েছেন আফজালুর রহমান বাবু তিনি বর্তমান কমিটির সহ সভাপতি। এছাড়া আলোচনায় আছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি মঈন উদ্দীন মঈন। মঈন উদ্দীন মঈন একই সাথে বি. বাড়ীয়া আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসন থেকে সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে বিএনপি প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন।

 

অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে আসতে পারেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব মেসবাউল হোসেন সাচ্চু। যিনি বর্তমান কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। তিনিও উচ্চ মহলের গুড বুকে রয়েছেন।

 

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের দু’বারের সহ সভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু এরশাদ বিরোধী আন্দোলন, ১৯৯৬ সালের অসহযোগ আন্দোলন, ১/১১ তে জননেত্রী মুক্তি আন্দোলনে বিশেষ ভূমিকা রেখেছিলেন। তিনি মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে বৃহত্তর ক্যান্টনমেন্ট থানা সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের আহবায়ক, বৃহত্তর ক্যান্টনমেন্ট থানা ছাত্রলীগ দু’বারে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলায় গুরুতর আহত হয়ে দেশ-বিদেশে চিকিৎসা গ্রহণ করেণ। ২০০১ সালে জাতীয় নির্বাচনের পর বার বার গ্রেফতার ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে দীর্ঘদিন যাবৎ কারাবরণ এবং অসংখ্য মিথ্যা মামলার স্বীকার হয়েছিলেন।

 

বর্তমান সদস্য সচিব ও বারবার কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবকলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক থাকার কারণে স্বেচ্ছাসেবকলীগের সারা দেশের নেতা-কর্মীদের সাথেও রয়েছে নিবিড় যোগাযোগ।

 

আলোচনায় আরও রয়েছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের দফতর সম্পাদক সালেহ মোহাম্মদ টুটুল। এছাড়াও আলোচনায় রয়েছেন এ কে এম আজিম। যিনি বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক। আলোচনায় রয়েছেন খায়রুল হাসান ‍জুয়েল, সাজ্জাদ সাকিব বাদশা (সাংগঠনিক সম্পাদক), শেখ সোহেল রানা টিপু (সাংগঠনিক সম্পাদক), রফিকুল ইসলাম বিটু (সহ গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক)।

 

তবে আওয়ামীলীগ সূত্রে জানা গেছে বর্তমান আহবায়ক নির্মল রঞ্জন গুহকে সভাপতি এবং সদস্য সচিব গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চুকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আগামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে দেখা যাওয়ার সম্ভবনা বেশী। সম্মেলন পর্যন্ত দায়িত্ব প্রদানের মাধ্যমে তাদের শীর্ষ নেতৃত্বে আসার বার্তা প্রদান করা হয়েছে। এই দু’জনের কার বিরুদ্ধেই কোন প্রকার দূর্ণিতির অভিযোগ নেই। নিবেদিত প্রাণ, ত্যাগী নেতা হিসেবে দু’জনই পরিচিত।

 

কেমন নেতৃত্ব আসতে পারে এমন এক প্রশ্নের জবাবে স্বেচ্ছাসেবক লীগের আসন্ন কাউন্সিল সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘আমরা সৎ যোগ্য পরিচ্ছন্ন নেতা চাই। যারা ত্যাগী দলে দীর্ঘ দিন সময় দিয়েছে যাদের বিরুদ্ধে কোনো অসততার অভিযোগ নেই এমন লোকই হবেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা। এখানে অনুপ্রবেশকারীদের ঢুকার কোনো সুযোগ নেই। যারা কোনো দিন এই দল করেনি তাদেরও কোনো পদে থাকার সুযোগ থাকবে না।।’

 

স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন সম্পর্কে প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু বলেন, যারা রাজপথে থেকেছেন, আন্দোলন করেছেন, যাদের বিরুদ্ধে কোন প্রকার দূর্ণিতির অভিযোগ নেই তারা নেতৃত্ব আসুক। এতে সংগঠন যেমন শক্ত হবে; তেমনি জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতও শক্তিশালী হবে।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD