ডিজে পার্টি নামক এই যন্ত্রণার অবসান জরুরি!

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সানজানা (ছদ্মনাম) প্রেগন্যান্ট। ইদানীং রাত নয়টার মধ্যে না ঘুমালে খুব খারাপ লাগে। ঘুমে ব্যাঘাত ঘটলে শারীরিক বিভিন্ন সমস্যা ফুটে ওঠে। এসবের মধ্যে বমি হওয়া, হাত পা জ্বালা পোড়া করা, মাথা ব্যথা অন্যতম। সানজানার বাসা সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন ভূঁইয়াপাড়া সংলগ্ন হোসাইনি নগরে। রাত তিনটা বাজে তখন। সানজানার বাসা থেকে সামান্য দূরে কোথাও হাই ভলিউমে ডিজে বাজছে। সন্ধ্যার পর থেকেই শুরু হয়েছে ডিজে পার্টি। কিছুটা দূরে হওয়া সত্তে¡ও উচ্চস্বরের কারণে ঘুমানো অসম্ভব হয়ে গেছে। গর্ভবতী অবস্থায় এমন নিদারুণ যন্ত্রণা কতটা কষ্টকর তা বলে বোঝানো যাবে না। এই অসহায়ত্ব জাহেলী যুগকেও ম্লান করে দেয়। এই ঘটনাটা গতরাতের।

 

গত সপ্তাহে মোবারক সাহেব রাত চারটা পর্যন্ত জেগে ছিলেন। পাশের বাসায় গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে ডিজে পার্টির কড়া শব্দ নির্যাতনের শিকার হয়ে নির্ঘুম কাটাতে হয়েছে মোবারক সাহেবকে। যার বাড়িতে আদরের ছোট নাতির কারণে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটলে বাসার সবাইকে কথা শুনতে হয় আজ সারারাত না ঘুমাতে পারার জন্য অসহায়ের মতো চুপচাপ বসে থাকতে হয়েছে তাকে। সময়ের এই নিষ্ঠুর বাস্তবতা সারারাত ভাবিয়েছে মোবারক সাহেবকে। সারাটা রাত সে ভেবেছে “এ কেমন দেশে আছি আমরা!” “দেশে কী আইন বলে কিছু নেই!!” “এভাবে পুরো এলাকার মানুষকে সারারাত ধরে বিরক্ত করে যাবে, চুপচাপ সবাইকে তা সয়ে যেতে হবে!!” বিরক্তি আর ক্ষোভ নিয়ে ফজরের নামাজ পড়েই ঘুমাতে হয়েছিল তাকে।

 

এমন হাজারো দীর্ঘশ্বাস ফেলা প্রশ্ন বিলীন হচ্ছে বাংলাদেশের আকাশে বাতাসে। প্রতি সপ্তাহান্তে প্রতি মহল্লার কোথাও না কোথাও অনুষ্ঠানে রাতভর ডিজে পার্টির অত্যাচারে অতিষ্ঠ মানুষ। মহল্লার কারো সাথে সম্পর্কের অবনতি হবে ভেবে চুপচাপ এসব সহ্য করে যায় মানুষ। মূলত প্রভাবশালী ব্যাক্তিরা এমন আয়োজন করে থাকে বলেও অনেক সময় এসব নিয়ে প্রতিবাদ করার সাহস পায় মানুষ। বিভিন্ন এলাকা থেকে ভাড়া থাকার কারণেও কেউ এসব নিয়ে প্রতিবাদ করাটা বাড়াবাড়ি হিসেবে দেখে। তাই সব কষ্ট নিরবে সয়ে যায়।

 

আইনের আশ্রয় নিতেও অনাগ্রহ রয়েছে মানুষের। এমতাবস্থায় আইনের বিকল্প পথ কি সে বিষয় জানা গেছে বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫-এর অধীনে ২০০৬ সালে শব্দ দূষণ (নিয়ন্ত্রণ) বিধিমালা প্রণয়ন করা হয়। এই বিধিমালার ৯ ধারায় বলা আছে, কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের অনুমতি না পেয়ে আবাসিক এলাকায় শব্দের সর্বোচ্চ মানমাত্রা অতিক্রম করতে পারবে না। আবাসিক এলাকায় দিনের বেলায় ৫৫ ডেসিবেল ও রাতের বেলায় ৪৫ ডেসিবেলের বেশি শব্দ অতিক্রম করতে পারবে না। তবে কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে খোলা বা আংশিক খোলা জায়গায় বিয়ে বা অন্য কোনো কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানে গান, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, কনসার্ট, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, রাজনৈতিক বা অন্য কোনো ধরনের সভা, মেলা, যাত্রাগানের অনুষ্ঠান করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে অনুষ্ঠান আয়োজককারী ব্যক্তিকে পুলিশ কমিশনার বা সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে আবেদন করতে হবে। আবেদন মঞ্জুর হলে দৈনিক ৫ ঘণ্টা শব্দের মানমাত্রা অতিক্রমকারী যন্ত্র বাজানো যাবে এবং রাত ১০টার পরে তা আর বাজানো যাবে না।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» বাঙালি জাতির ইতিহাসে এক বেদনাবিধুর দিন ১৫ই আগস্ট

» বান্দরবানে রিভারভিউ যুবকল্যাণ পরিষদ কার্যালয়ের শুভ উদ্বোধন

» শরীয়তপুরে তিন মোটরসাইকেল চোর আটক করেছেন ডিবি

» পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রুহুল আমিন প্রধান

» পবিত্র ঈদুল আযহা’র শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মো. বাবর সরকার

» পবিত্র ঈদুল আযহা’র শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রফিকুল ইসলাম লাল

» পবিত্র ঈদুল আযহা’র শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আলাউদ্দিন হাওলাদার

» পবিত্র ঈদুল আযহা’র শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আলাউদ্দিন হাওলাদার

» পবিত্র ঈদুল আযহা শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মনিরুল আলম সেন্টু

» পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে দেশবাসীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মীর হোসেন মীরু




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : বুধবার, ৫ আগস্ট ২০২০, খ্রিষ্টাব্দ, ২১শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ডিজে পার্টি নামক এই যন্ত্রণার অবসান জরুরি!

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সানজানা (ছদ্মনাম) প্রেগন্যান্ট। ইদানীং রাত নয়টার মধ্যে না ঘুমালে খুব খারাপ লাগে। ঘুমে ব্যাঘাত ঘটলে শারীরিক বিভিন্ন সমস্যা ফুটে ওঠে। এসবের মধ্যে বমি হওয়া, হাত পা জ্বালা পোড়া করা, মাথা ব্যথা অন্যতম। সানজানার বাসা সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন ভূঁইয়াপাড়া সংলগ্ন হোসাইনি নগরে। রাত তিনটা বাজে তখন। সানজানার বাসা থেকে সামান্য দূরে কোথাও হাই ভলিউমে ডিজে বাজছে। সন্ধ্যার পর থেকেই শুরু হয়েছে ডিজে পার্টি। কিছুটা দূরে হওয়া সত্তে¡ও উচ্চস্বরের কারণে ঘুমানো অসম্ভব হয়ে গেছে। গর্ভবতী অবস্থায় এমন নিদারুণ যন্ত্রণা কতটা কষ্টকর তা বলে বোঝানো যাবে না। এই অসহায়ত্ব জাহেলী যুগকেও ম্লান করে দেয়। এই ঘটনাটা গতরাতের।

 

গত সপ্তাহে মোবারক সাহেব রাত চারটা পর্যন্ত জেগে ছিলেন। পাশের বাসায় গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে ডিজে পার্টির কড়া শব্দ নির্যাতনের শিকার হয়ে নির্ঘুম কাটাতে হয়েছে মোবারক সাহেবকে। যার বাড়িতে আদরের ছোট নাতির কারণে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটলে বাসার সবাইকে কথা শুনতে হয় আজ সারারাত না ঘুমাতে পারার জন্য অসহায়ের মতো চুপচাপ বসে থাকতে হয়েছে তাকে। সময়ের এই নিষ্ঠুর বাস্তবতা সারারাত ভাবিয়েছে মোবারক সাহেবকে। সারাটা রাত সে ভেবেছে “এ কেমন দেশে আছি আমরা!” “দেশে কী আইন বলে কিছু নেই!!” “এভাবে পুরো এলাকার মানুষকে সারারাত ধরে বিরক্ত করে যাবে, চুপচাপ সবাইকে তা সয়ে যেতে হবে!!” বিরক্তি আর ক্ষোভ নিয়ে ফজরের নামাজ পড়েই ঘুমাতে হয়েছিল তাকে।

 

এমন হাজারো দীর্ঘশ্বাস ফেলা প্রশ্ন বিলীন হচ্ছে বাংলাদেশের আকাশে বাতাসে। প্রতি সপ্তাহান্তে প্রতি মহল্লার কোথাও না কোথাও অনুষ্ঠানে রাতভর ডিজে পার্টির অত্যাচারে অতিষ্ঠ মানুষ। মহল্লার কারো সাথে সম্পর্কের অবনতি হবে ভেবে চুপচাপ এসব সহ্য করে যায় মানুষ। মূলত প্রভাবশালী ব্যাক্তিরা এমন আয়োজন করে থাকে বলেও অনেক সময় এসব নিয়ে প্রতিবাদ করার সাহস পায় মানুষ। বিভিন্ন এলাকা থেকে ভাড়া থাকার কারণেও কেউ এসব নিয়ে প্রতিবাদ করাটা বাড়াবাড়ি হিসেবে দেখে। তাই সব কষ্ট নিরবে সয়ে যায়।

 

আইনের আশ্রয় নিতেও অনাগ্রহ রয়েছে মানুষের। এমতাবস্থায় আইনের বিকল্প পথ কি সে বিষয় জানা গেছে বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫-এর অধীনে ২০০৬ সালে শব্দ দূষণ (নিয়ন্ত্রণ) বিধিমালা প্রণয়ন করা হয়। এই বিধিমালার ৯ ধারায় বলা আছে, কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের অনুমতি না পেয়ে আবাসিক এলাকায় শব্দের সর্বোচ্চ মানমাত্রা অতিক্রম করতে পারবে না। আবাসিক এলাকায় দিনের বেলায় ৫৫ ডেসিবেল ও রাতের বেলায় ৪৫ ডেসিবেলের বেশি শব্দ অতিক্রম করতে পারবে না। তবে কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে খোলা বা আংশিক খোলা জায়গায় বিয়ে বা অন্য কোনো কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানে গান, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, কনসার্ট, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, রাজনৈতিক বা অন্য কোনো ধরনের সভা, মেলা, যাত্রাগানের অনুষ্ঠান করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে অনুষ্ঠান আয়োজককারী ব্যক্তিকে পুলিশ কমিশনার বা সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে আবেদন করতে হবে। আবেদন মঞ্জুর হলে দৈনিক ৫ ঘণ্টা শব্দের মানমাত্রা অতিক্রমকারী যন্ত্র বাজানো যাবে এবং রাত ১০টার পরে তা আর বাজানো যাবে না।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD