পাগলা বাজারে নিয়ম-নীতির (স্বাস্থ্যবিধি) তোয়াক্কা করছেন না কেউ

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

নারায়ণঞ্জ সদর উপ‌জেলার পাগলা বাজারের বিপণি বিতান গুলোতে ঈদের কেনাকাটায় ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ করা গেছে। পণ্য কেনাবেচার সময় সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না কেউই। ব্যবসায়ীদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করার কথা থাকলেও এ ব্যাপারে নেই কোনও পদক্ষেপ।

 

সরজমিনে মঙ্গলবার (১৯ মে) দুপুরে পাগলা বাজার ঘুরে দেখা যায় দোকানগুলোতে রয়েছে শিশু কিশোরসহ ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়।

 

স্বাস্থ্যবিধি মানার জন্য দোকানের সামনে টাঙানোর কথা ছিল সতর্কবাণী সংবলিত ব্যানার ও ফেস্টুন। তবে তা মানছেন না ব্যবসায়ীরা। মালিক ও কর্মচারীদের মুখে নেই মাস্ক, হাতে নেই গ্লাভস। নিয়ম-নীতির (স্বাস্থ্যবিধি) তোয়াক্কা করছেন না কেউ। ঈদের কেনাকাটায় অগনিত মানুষের আনাগোনা লক্ষ করা গেছে ওই বাজারে। বিশেষ করে জুতা, স্যান্ডেল ও কাপড়ের দোকানে নারী-পুরুষের উপচে পড়া ভিড় ছিল লক্ষ‌নিয়। মাস্কবিহীন শিশুরাও রয়েছে গার্ডিয়ানদের সঙ্গে।

গাদাগাদি করে পছন্দের পণ্য কিনছেন তারা। সরকারি নিয়ম অমান্য করে দোকানের মালিক-কর্মচারীরা অনায়াসে ব্যবসা করে যাচ্ছেন। এ ছাড়াও সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখার কথা থাকলেও অনেকেই মানছে না সেই নিয়ম। ত‌বে দোকানীরা বল‌ছেন, ক্রেতারাই অ‌সচেন, বাচ্চাদের নি‌য়ে মা‌র্কে‌টে আসছে অনন‌্যা পোশা‌কের তুলনায় বাচ্চা‌দের পোশাকই বে‌শি বি‌ক্রি হ‌চ্ছে।

 

পাগলা বাজারের এক কাপড় ব্যবসায়ী জানান, মাস্ক পরে কথা বললে গ্রাহকরা শুনতে পান না। তাই তিনি মাস্ক পরেননি। বোতলে জীবাণুনাশক পানি রেখেছেন, তবে নেই তার কোনও ব্যবহার। এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ‘খরিদদার চলে গেলে পানি ছিটানো হবে।

 

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশ অনিচ্ছুক ব্যবসায়ী বলেন, ‘করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মানার সব ব্যবস্থা করেছি। কিন্তু ক্রেতারা এসব নিয়ম মানছেন না। আবার তাদের কিছু বললে ক্ষুব্ধ হয়ে দোকান ছেড়ে চলে যাচ্ছেন। বেচাকেনার স্বার্থে ক্রেতাদের বেশি কিছু বলতেও পারছি না।’

 

পাগলা বাজারে  ঈদের শপিং করতে আসা শরিফ উদ্দীন জানান, বাচ্চা নিয়ে মার্কেটে শপিং করতে আসতে সকার নিষেধ করেছে, তাই বাচ্চা কে না এনে তার জন্য কিছু কেনা কাটা করতে আসছি, ভিতরে যাওয়ার আর সাহস হলো না যা দেখছি কি বলবো তা আপনি আপনার নিজের চোখেই দেখুন ছোট ছোট বাচ্চা নিয়ে কি ভাবে ভিতরে যাচ্ছে, সরকার করোনা প্রতিরোধে যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে, ব্যবসায়ীরা তা মানছেন না। দোকানের সামনে সতর্কতামূলক নেই পোস্টার, নেই জীবাণুমুক্ত পানির বোতল। এ ছাড়াও সামাজিক দূরত্বের নেই কোনও প্রচারণা। এতে লোকজন বাজার থেকে সংক্রমিত হয়ে বাড়িসহ পাড়া মহল্লায় ছড়িয়ে দেবে করোনাভাইরাস।

 

পাগলা বাজার মা‌লিক স‌মি‌তির সভাপ‌তি জাঙ্গাগীর আলম নি‌জে‌দের ব‌্যর্থতার কথা শিকার ক‌রে ব‌লেন,আমার চেষ্টা কর‌ছি ক্রেতা‌দের স‌চেতন কর‌তে। ত‌বে শতভাগ সম্ভব না। এ‌তে নিয়মনি‌তি না মে‌নে ক‌রোনা প‌রি‌স্থি‌তি ভয়াবহতার দি‌কে যা‌চ্ছে ব‌লে আশংকা কর‌ছেন স‌চেতন নাগ‌রিক সমাজ।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» বেনাপোলে ৩৮ কেজি গাঁজা,ফেনসিডিল ও মদ উদ্ধার করে বিজিবি

» দুই সন্তানকে পুকুরের পানিতে চুবিয়ে হত্যা মা আটক, হত্যার রহস্য কি?

» চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা ও শিবগঞ্জ উপজেলার ইউএনওর বদলি

» বিশেষ ব্যবস্থায় বেনাপোল রেলপথে আমদানি হলো প্রথম খাদ্যদ্রব্য জাতীয় পণ্য

» জিপিএ-৫ না পাওয়ায় এসএসসি পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা

» ফতুল্লায় অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজশে চলছে অবৈধ বিদ্যুৎ ব্যবহার

» ফতুল্লায় শহীদ রাস্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৯ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালন

» ২জুন থেকে জমে উঠবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম বাজার

»  আজ সাংবাদিক কন্যা সুমাইয়া আক্তারের জন্মদিন

» ফতুল্লা মানব কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে মসজিদে জীবানুনাশক সামগ্রী বিতরণ




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : সোমবার, ১ জুন ২০২০, খ্রিষ্টাব্দ, ১৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পাগলা বাজারে নিয়ম-নীতির (স্বাস্থ্যবিধি) তোয়াক্কা করছেন না কেউ

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

নারায়ণঞ্জ সদর উপ‌জেলার পাগলা বাজারের বিপণি বিতান গুলোতে ঈদের কেনাকাটায় ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ করা গেছে। পণ্য কেনাবেচার সময় সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না কেউই। ব্যবসায়ীদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করার কথা থাকলেও এ ব্যাপারে নেই কোনও পদক্ষেপ।

 

সরজমিনে মঙ্গলবার (১৯ মে) দুপুরে পাগলা বাজার ঘুরে দেখা যায় দোকানগুলোতে রয়েছে শিশু কিশোরসহ ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়।

 

স্বাস্থ্যবিধি মানার জন্য দোকানের সামনে টাঙানোর কথা ছিল সতর্কবাণী সংবলিত ব্যানার ও ফেস্টুন। তবে তা মানছেন না ব্যবসায়ীরা। মালিক ও কর্মচারীদের মুখে নেই মাস্ক, হাতে নেই গ্লাভস। নিয়ম-নীতির (স্বাস্থ্যবিধি) তোয়াক্কা করছেন না কেউ। ঈদের কেনাকাটায় অগনিত মানুষের আনাগোনা লক্ষ করা গেছে ওই বাজারে। বিশেষ করে জুতা, স্যান্ডেল ও কাপড়ের দোকানে নারী-পুরুষের উপচে পড়া ভিড় ছিল লক্ষ‌নিয়। মাস্কবিহীন শিশুরাও রয়েছে গার্ডিয়ানদের সঙ্গে।

গাদাগাদি করে পছন্দের পণ্য কিনছেন তারা। সরকারি নিয়ম অমান্য করে দোকানের মালিক-কর্মচারীরা অনায়াসে ব্যবসা করে যাচ্ছেন। এ ছাড়াও সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখার কথা থাকলেও অনেকেই মানছে না সেই নিয়ম। ত‌বে দোকানীরা বল‌ছেন, ক্রেতারাই অ‌সচেন, বাচ্চাদের নি‌য়ে মা‌র্কে‌টে আসছে অনন‌্যা পোশা‌কের তুলনায় বাচ্চা‌দের পোশাকই বে‌শি বি‌ক্রি হ‌চ্ছে।

 

পাগলা বাজারের এক কাপড় ব্যবসায়ী জানান, মাস্ক পরে কথা বললে গ্রাহকরা শুনতে পান না। তাই তিনি মাস্ক পরেননি। বোতলে জীবাণুনাশক পানি রেখেছেন, তবে নেই তার কোনও ব্যবহার। এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ‘খরিদদার চলে গেলে পানি ছিটানো হবে।

 

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশ অনিচ্ছুক ব্যবসায়ী বলেন, ‘করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মানার সব ব্যবস্থা করেছি। কিন্তু ক্রেতারা এসব নিয়ম মানছেন না। আবার তাদের কিছু বললে ক্ষুব্ধ হয়ে দোকান ছেড়ে চলে যাচ্ছেন। বেচাকেনার স্বার্থে ক্রেতাদের বেশি কিছু বলতেও পারছি না।’

 

পাগলা বাজারে  ঈদের শপিং করতে আসা শরিফ উদ্দীন জানান, বাচ্চা নিয়ে মার্কেটে শপিং করতে আসতে সকার নিষেধ করেছে, তাই বাচ্চা কে না এনে তার জন্য কিছু কেনা কাটা করতে আসছি, ভিতরে যাওয়ার আর সাহস হলো না যা দেখছি কি বলবো তা আপনি আপনার নিজের চোখেই দেখুন ছোট ছোট বাচ্চা নিয়ে কি ভাবে ভিতরে যাচ্ছে, সরকার করোনা প্রতিরোধে যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে, ব্যবসায়ীরা তা মানছেন না। দোকানের সামনে সতর্কতামূলক নেই পোস্টার, নেই জীবাণুমুক্ত পানির বোতল। এ ছাড়াও সামাজিক দূরত্বের নেই কোনও প্রচারণা। এতে লোকজন বাজার থেকে সংক্রমিত হয়ে বাড়িসহ পাড়া মহল্লায় ছড়িয়ে দেবে করোনাভাইরাস।

 

পাগলা বাজার মা‌লিক স‌মি‌তির সভাপ‌তি জাঙ্গাগীর আলম নি‌জে‌দের ব‌্যর্থতার কথা শিকার ক‌রে ব‌লেন,আমার চেষ্টা কর‌ছি ক্রেতা‌দের স‌চেতন কর‌তে। ত‌বে শতভাগ সম্ভব না। এ‌তে নিয়মনি‌তি না মে‌নে ক‌রোনা প‌রি‌স্থি‌তি ভয়াবহতার দি‌কে যা‌চ্ছে ব‌লে আশংকা কর‌ছেন স‌চেতন নাগ‌রিক সমাজ।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD