মানবতাবোধের চরম নিষ্ঠুরতার সাক্ষী ‘জেল হত্যা দিবস’

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

বাঙালি জাতির ইতিহাসে এক কলঙ্কময় দিন আজ (৩ নভেম্বর)। ইতিহাসের এই দিনে সৃষ্টি হয়েছিল এক কলঙ্কিত অধ্যায়ের। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর কারাগারের অভ্যন্তরে বিনাবিচারে হত্যা করা হয় জাতীয় চার নেতাকে। এই চার নেতার নৃশংস মৃত্যুর স্মরণে প্রতিবছর ৩ নভেম্বর পালন করা হয় জেল হত্যা দিবস।

 

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট স্বাধীনতাবিরোধী দেশি-বিদেশি চক্র বর্বরোচিতভাবে সপরিবারে হত্যা করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ সেই নেতাকে হারানোর ঘা শুকিয়ে ওঠার আগেই ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ইতিহাসের আরেকটি বর্বর হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হয়। বাংলাদেশকে নেতৃত্বশূন্য করতে হত্যা করা হয় বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সহযোদ্ধা জাতীয় চার নেতাকে।

 

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর স্বাধীনতাবিরোধী ঘাতকচক্র বঙ্গবন্ধুর আজীবন রাজনৈতিক সহকর্মী, তার অবর্তমানে যারা মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়ে দেশকে স্বাধীন করেন সেই জাতীয় চার নেতা— সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমেদ, ক্যাপ্টেন মুনসুর আলী ও এ এইচ এম কামারুজ্জামানকে জেলখানার ভেতরে গুলি করে ও বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে।

 

১৯৭১ সালে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে বাংলাদেশ জয়ী হলেও, পরাজিত শত্রুরা এ দেশের স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেননি। পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে স্বাধীনতাবিরোধী দেশি-বিদেশি ওই চক্রটি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ’৭৫ এর ১৫ আগস্ট সপরিবারে হত্যা করে। এতে থেমে থাকেনি তারা। বাংলাদেশকে পুনরায় পাকিস্তান বানানোর ষড়যন্ত্রে মেতে ওঠে।

 

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বাংলাদেশ যেন আর ঘুরে দাঁড়াতে না পারে, স্বাধীনতা যেন ব্যর্থ হয়, সর্বোপরি বাংলাদেশ যেন ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত হয় সেই লক্ষ্যেই নতুন চক্রান্ত করে তারা। এরই অংশ হিসেবে এবং এ দেশে যাতে কোনো দিন স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তি মাথা তুলে দাঁড়াতে না পারে, সে জন্য রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের ওপর অত্যাচার, হত্যা, নির্যাতনের ষড়যন্ত্র শুরু করে। সেই ষড়যন্ত্র থেকেই জেলখানার ভেতরে এই মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ড সংগঠিত করে তারা।

 

জাতীয় চার নেতা মুক্তিযুদ্ধকালে মুজিবনগর সরকারের গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে থেকে ঐতিহাসিক দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা ঘোষণার পর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে মুক্তিযুদ্ধের সময় গঠিত বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি ছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম। ওই সরকারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তাজউদ্দীন আহমদ, অর্থমন্ত্রী ক্যাপ্টেন মুনসুর আলী, খাদ্য ও ত্রাণমন্ত্রী এ এইচ এম কামারুজ্জামান। এই সরকারের নেতৃত্বেই দীর্ঘ ৯ মাস মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনার মধ্য দিয়ে বিজয় অর্জিত হয়।

 

কেবল মুক্তিযুদ্ধ নয়, দেশের সকল আন্দোলন-সংগ্রামে এই চার নেতা বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহযোদ্ধা হিসেবে তার পাশে থেকেছেন। বিভিন্ন সময় বঙ্গবন্ধুকে যখন কারাগারে বন্দি রাখা হয়েছে তখন আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিয়ে আন্দোলন-সংগ্রামকে এগিয়ে নিয়েছেন এই চার নেতা।

 

মানবতাবোধের চরম নির্মমতা ও নিষ্ঠুরতার সাক্ষী হচ্ছে জেল হত্যা দিবস। দেশের আপামর জনতা যাদের নেতৃত্বে ও নির্দেশে এ দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামকে এগিয়ে নিয়ে মাত্র নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে দেশকে স্বাধীন করেছিল, যারা মুক্তিযুদ্ধকালে মুজিবনগর সরকারের বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করে, এ দেশের জনগণকে একত্রিত করে ও দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামকে বেগবান করে বিজয়ের পতাকা উঁচিয়ে ধরেছেন, সেই জাতীয় চার নেতাকে চরম নির্মমতার স্বাক্ষর রেখে ৩ নভেম্বর কারাগারের ভেতরে রাতের অন্ধকারে হত্যা করা হয়।

 

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» সুমিলপাড়া সুন্নীয়া ছোট জামে মসজিদের ছাদ ঢালাই কাজের উদ্ধোধন করেন সিরাজুল ইসলাম মন্ডল

» সিদ্ধিরগঞ্জে ১২ কেজি গাঁজাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক

» সিদ্ধিরগঞ্জে ফেন্সিডিল- গাঁজাসহ আটক ২

» আমতলীতে শেখ হাসিনা সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজে অভিভাবক সমাবেশ ও আলোচনা সভা

» আমতলী পৌর শহরে ২ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দূর্ধর্ষ চুরি!

» শার্শায় টানা বৃষ্টিতে কৃষকের স্বপ্ন পানিতে

» ফতুল্লা ইউপির নির্বাচনে ৩নং ওয়ার্ডে ঘুড়ি পতিক পেয়েছেন মেম্বার প্রার্থী আব্দুল বাতেন

» আমতলীতে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে ৩৬ হাজার ২০০ শিশুকে

» ঢাকার পথে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ব্যবহৃত ট্যাংক

» ফতুল্লা ইউ‌পি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী মহসিন মিয়ার মনোনয়ন প্রত্যাহার

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : বৃহস্পতিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২১, খ্রিষ্টাব্দ, ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মানবতাবোধের চরম নিষ্ঠুরতার সাক্ষী ‘জেল হত্যা দিবস’

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

বাঙালি জাতির ইতিহাসে এক কলঙ্কময় দিন আজ (৩ নভেম্বর)। ইতিহাসের এই দিনে সৃষ্টি হয়েছিল এক কলঙ্কিত অধ্যায়ের। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর কারাগারের অভ্যন্তরে বিনাবিচারে হত্যা করা হয় জাতীয় চার নেতাকে। এই চার নেতার নৃশংস মৃত্যুর স্মরণে প্রতিবছর ৩ নভেম্বর পালন করা হয় জেল হত্যা দিবস।

 

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট স্বাধীনতাবিরোধী দেশি-বিদেশি চক্র বর্বরোচিতভাবে সপরিবারে হত্যা করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ সেই নেতাকে হারানোর ঘা শুকিয়ে ওঠার আগেই ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ইতিহাসের আরেকটি বর্বর হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হয়। বাংলাদেশকে নেতৃত্বশূন্য করতে হত্যা করা হয় বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সহযোদ্ধা জাতীয় চার নেতাকে।

 

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর স্বাধীনতাবিরোধী ঘাতকচক্র বঙ্গবন্ধুর আজীবন রাজনৈতিক সহকর্মী, তার অবর্তমানে যারা মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়ে দেশকে স্বাধীন করেন সেই জাতীয় চার নেতা— সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমেদ, ক্যাপ্টেন মুনসুর আলী ও এ এইচ এম কামারুজ্জামানকে জেলখানার ভেতরে গুলি করে ও বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে।

 

১৯৭১ সালে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে বাংলাদেশ জয়ী হলেও, পরাজিত শত্রুরা এ দেশের স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেননি। পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে স্বাধীনতাবিরোধী দেশি-বিদেশি ওই চক্রটি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ’৭৫ এর ১৫ আগস্ট সপরিবারে হত্যা করে। এতে থেমে থাকেনি তারা। বাংলাদেশকে পুনরায় পাকিস্তান বানানোর ষড়যন্ত্রে মেতে ওঠে।

 

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বাংলাদেশ যেন আর ঘুরে দাঁড়াতে না পারে, স্বাধীনতা যেন ব্যর্থ হয়, সর্বোপরি বাংলাদেশ যেন ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত হয় সেই লক্ষ্যেই নতুন চক্রান্ত করে তারা। এরই অংশ হিসেবে এবং এ দেশে যাতে কোনো দিন স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তি মাথা তুলে দাঁড়াতে না পারে, সে জন্য রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের ওপর অত্যাচার, হত্যা, নির্যাতনের ষড়যন্ত্র শুরু করে। সেই ষড়যন্ত্র থেকেই জেলখানার ভেতরে এই মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ড সংগঠিত করে তারা।

 

জাতীয় চার নেতা মুক্তিযুদ্ধকালে মুজিবনগর সরকারের গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে থেকে ঐতিহাসিক দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা ঘোষণার পর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে মুক্তিযুদ্ধের সময় গঠিত বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি ছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম। ওই সরকারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তাজউদ্দীন আহমদ, অর্থমন্ত্রী ক্যাপ্টেন মুনসুর আলী, খাদ্য ও ত্রাণমন্ত্রী এ এইচ এম কামারুজ্জামান। এই সরকারের নেতৃত্বেই দীর্ঘ ৯ মাস মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনার মধ্য দিয়ে বিজয় অর্জিত হয়।

 

কেবল মুক্তিযুদ্ধ নয়, দেশের সকল আন্দোলন-সংগ্রামে এই চার নেতা বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহযোদ্ধা হিসেবে তার পাশে থেকেছেন। বিভিন্ন সময় বঙ্গবন্ধুকে যখন কারাগারে বন্দি রাখা হয়েছে তখন আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিয়ে আন্দোলন-সংগ্রামকে এগিয়ে নিয়েছেন এই চার নেতা।

 

মানবতাবোধের চরম নির্মমতা ও নিষ্ঠুরতার সাক্ষী হচ্ছে জেল হত্যা দিবস। দেশের আপামর জনতা যাদের নেতৃত্বে ও নির্দেশে এ দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামকে এগিয়ে নিয়ে মাত্র নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে দেশকে স্বাধীন করেছিল, যারা মুক্তিযুদ্ধকালে মুজিবনগর সরকারের বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করে, এ দেশের জনগণকে একত্রিত করে ও দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামকে বেগবান করে বিজয়ের পতাকা উঁচিয়ে ধরেছেন, সেই জাতীয় চার নেতাকে চরম নির্মমতার স্বাক্ষর রেখে ৩ নভেম্বর কারাগারের ভেতরে রাতের অন্ধকারে হত্যা করা হয়।

 

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD