শার্শার সাবেক চেয়ারম্যান টিংকুর বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন সংবাদ প্রচার

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার:
যশোরের শার্শা উপজেলার কায়বা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হাসান ফিরোজ আহমেদ টিংকুকে সমাজের কাজে হেও প্রতিপন্ন করতে একটি কুচক্রী মহল যেন উঠেপড়ে লেগেছে।

যে মানুষটি দীর্ঘদিন ধরে তার ইউনিয়নকে সাজাতে এবং মানুষের সামাজিক উন্নয়নে শ্রম দিয়ে গেছেন সেই তাকে পদদলিত করতে মরিয়া এই পক্ষটি।
গত দুইদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক, অনলাইন পোর্টাল এবং প্রিন্ট পত্রিকায় তাকে নিয়ে একটি লেখা ঘুরে বেড়াচ্ছে।

লেখাতে বলা হয়েছে নির্বাচনে হেরে তিনি রাগান্বিত হয়ে পরিষদের বিভিন্ন মালামাল নিয়ে গেছেন। মালামাল নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি সত্য হলেও বিষয়টি কেন উল্টো করে বর্ণনা দেওয়া বা মিডিয়ায় ছড়ানো হলো এটা সচেতন মহলের বোধগম্য নয়।

নিউজে বলা হয়েছে নির্বাচনে পরাজিত হয়ে কায়বা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে তিনি নাকি বিভিন্ন আসবাবপত্রসহ দরজা, জানালার পর্দা খুলে বাড়িতে নিয়ে গেছেন।

নিজের অর্থায়নে কেনা মালামাল দিয়ে তিনি জীবনের এত গুলো বছর ফ্রি’তে পরিষদের কাজে ব্যবহার করেছেন। এখন তিনি নির্বাচনে হেরে গিয়ে কেন তার মালামাল বাড়িতে নিয়ে পারবেন না নিয়মটা কোথায় আছে জানতে চায় সাধারণ মানুষ সহ সচেতনতা মহল।

২০১৬ সালে ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন হাসান ফিরোজ টিংকু। ২৮ নভেম্বরের নির্বাচনে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী আলতাফ হোসেনের কাছে পরাজিত হয়েছেন।

কায়বা ইউনিয়ন পরিষদ সচিব আবু জাফর বলেন, চেয়ারম্যান টিংকু যেসব মালামাল ইউনিয়ন পরিষদ থেকে নিয়ে গেছেন এগুলো তার নিজস্ব অর্থায়নে ক্রয় করা। এজন্য আমরা বাধা দিতে পারি না। এখানকার সকল মেম্বার, গ্রাম পুলিশ সহ সাধারণ মানুষ জানেন এগুলো টিংকু চেয়ারম্যান নিজের টাকায় কিনেছিলো। এজন্য পরিষদের সিজার বুকে আনিত মালামালের কোন লিস্টও করা নেই। যারা তাকে নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানোর চেষ্টা করছে আমি বলবো এমনটা করা ঠিক হয়নি। আমি নিজেও এমন ভিত্তিহীন সংবাদের নিন্দা জানাচ্ছি।

জানতে চাইলে হাসান ফিরোজ আহমেদ টিংকু বলেন, আমি ইউনিয়ন পরিষদ থেকে যেসব জিনিসপত্র নিয়ে এসেছি তার একটিও ওই পরিষদের নয়। আমার নিজস্ব অর্থায়নে এসব আসবাপত্র ক্রয় করা। আমার জিনিস যদি না হতো তাহলে ইউনিয়নের সচিবই আমাকে বাধা দিতেন।

সমাজে যারা আমাকে হেও প্রতিপন্ন করার জন্য একটি সার্থন্নাষি মহল যে ভিত্তিহীন তথ্য প্রচার করেছে আমি তার তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। ভবিষ্যতে সঠিক তথ্য উন্মোচন করে প্রচার করার জন্য অনুরোধ জানান তিনি।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» বেনাপোলে ২৫০ বোতল ফেনসিডিলসহ চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী আলম আটক

» আমতলীতে ইয়াবাসহ দুই মাদক কারবারী গ্রেফতার!

» বাবা ফাইন্ডেশনের উদ্যোগে ছিন্নমূল শীতার্ত মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

» আমতলীতে পর্ণগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে নারীর মামলা, গ্রেফতার দুই!

» আমতলীতে একটি খালের লিজ বাতিলের দাবিতে ভূক্তভোগী কৃষকদের মানববন্ধন!

» কুয়েতে এসএটিভি’র ১০তম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে আলোচনা সভা

» হেযবুত তওহীদের কেন্দ্রীয় সম্মেলন-২০২২ অনুষ্ঠিত

» ফতুল্লায় দুই পক্ষের সংঘর্ষ’ আহত দুই পক্ষের ৬’ থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

» কুতুবপুরে কালাম গংয়ের হামলায় আহত এক

» শার্শার গোগায় সস্ত্রাসীরা কেটে নিল ৩ লাখ টাকার গাছ

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : সোমবার, ২৪ জানুয়ারি ২০২২, খ্রিষ্টাব্দ, ১০ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শার্শার সাবেক চেয়ারম্যান টিংকুর বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন সংবাদ প্রচার

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার:
যশোরের শার্শা উপজেলার কায়বা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হাসান ফিরোজ আহমেদ টিংকুকে সমাজের কাজে হেও প্রতিপন্ন করতে একটি কুচক্রী মহল যেন উঠেপড়ে লেগেছে।

যে মানুষটি দীর্ঘদিন ধরে তার ইউনিয়নকে সাজাতে এবং মানুষের সামাজিক উন্নয়নে শ্রম দিয়ে গেছেন সেই তাকে পদদলিত করতে মরিয়া এই পক্ষটি।
গত দুইদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক, অনলাইন পোর্টাল এবং প্রিন্ট পত্রিকায় তাকে নিয়ে একটি লেখা ঘুরে বেড়াচ্ছে।

লেখাতে বলা হয়েছে নির্বাচনে হেরে তিনি রাগান্বিত হয়ে পরিষদের বিভিন্ন মালামাল নিয়ে গেছেন। মালামাল নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি সত্য হলেও বিষয়টি কেন উল্টো করে বর্ণনা দেওয়া বা মিডিয়ায় ছড়ানো হলো এটা সচেতন মহলের বোধগম্য নয়।

নিউজে বলা হয়েছে নির্বাচনে পরাজিত হয়ে কায়বা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে তিনি নাকি বিভিন্ন আসবাবপত্রসহ দরজা, জানালার পর্দা খুলে বাড়িতে নিয়ে গেছেন।

নিজের অর্থায়নে কেনা মালামাল দিয়ে তিনি জীবনের এত গুলো বছর ফ্রি’তে পরিষদের কাজে ব্যবহার করেছেন। এখন তিনি নির্বাচনে হেরে গিয়ে কেন তার মালামাল বাড়িতে নিয়ে পারবেন না নিয়মটা কোথায় আছে জানতে চায় সাধারণ মানুষ সহ সচেতনতা মহল।

২০১৬ সালে ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন হাসান ফিরোজ টিংকু। ২৮ নভেম্বরের নির্বাচনে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী আলতাফ হোসেনের কাছে পরাজিত হয়েছেন।

কায়বা ইউনিয়ন পরিষদ সচিব আবু জাফর বলেন, চেয়ারম্যান টিংকু যেসব মালামাল ইউনিয়ন পরিষদ থেকে নিয়ে গেছেন এগুলো তার নিজস্ব অর্থায়নে ক্রয় করা। এজন্য আমরা বাধা দিতে পারি না। এখানকার সকল মেম্বার, গ্রাম পুলিশ সহ সাধারণ মানুষ জানেন এগুলো টিংকু চেয়ারম্যান নিজের টাকায় কিনেছিলো। এজন্য পরিষদের সিজার বুকে আনিত মালামালের কোন লিস্টও করা নেই। যারা তাকে নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানোর চেষ্টা করছে আমি বলবো এমনটা করা ঠিক হয়নি। আমি নিজেও এমন ভিত্তিহীন সংবাদের নিন্দা জানাচ্ছি।

জানতে চাইলে হাসান ফিরোজ আহমেদ টিংকু বলেন, আমি ইউনিয়ন পরিষদ থেকে যেসব জিনিসপত্র নিয়ে এসেছি তার একটিও ওই পরিষদের নয়। আমার নিজস্ব অর্থায়নে এসব আসবাপত্র ক্রয় করা। আমার জিনিস যদি না হতো তাহলে ইউনিয়নের সচিবই আমাকে বাধা দিতেন।

সমাজে যারা আমাকে হেও প্রতিপন্ন করার জন্য একটি সার্থন্নাষি মহল যে ভিত্তিহীন তথ্য প্রচার করেছে আমি তার তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। ভবিষ্যতে সঠিক তথ্য উন্মোচন করে প্রচার করার জন্য অনুরোধ জানান তিনি।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD