কুতুবপুরে সাংগঠনিকভাবে এগিয়ে বিএনপি ব্যর্থ আ’লীগ!

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ঘনিয়ে আসছে দ্বাদশ নির্বাচন। আর মাত্র দেড় বছর বাকি রয়েছে সাংসদ নির্বাচনের। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দল গোছাতে ব্যস্ত সময় পার করছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ। ঠিক এ মুহুর্তে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে বিরাজ করছে নেতায় নেতায় কোন্দল। ক্ষমতাসীনদলের মধ্যে বিরাজ করছে স্বার্থ হাছিলের প্রতিযোগিতা। দলীয় কর্মসূচী পালনে ঐক্যবদ্ধভাবে তাদের কর্মসূচী পালন করতে দেখা যায়নি। কুতুবপুরের ইউনিয়ন থেকে শুরু করে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দকে আলাদা আলাদা ভাবে কর্মসূচী পালন করতে দেখা গেছে। নির্বাচনের আগ মুহুর্তে দলীয় কোন্দল নিরসন করা না হলে এর প্রভাব জাতীয় নির্বাচনে পড়ার শংকা করছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকমহল। অপরদিকে, কুতুবপুরের রাজনীতিতে ক্ষমতাসীনদলের মধ্যে নেতায় নেতায় দ্বন্ধের দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে নিজেদের ভীত মজবুত করছে মাঠের প্রধান বিরোধীদল বিএনপি। সাংগঠনিক ভাবে ক্ষমতাসীনদের চেয়ে অনেকটাই এগিয়ে দলটির রাজনীতি। কুতুবপুরের মাটি এখনো বিএনপির নেতৃবৃন্দের দখলে রয়েছে বলে ক্ষোধ আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দরাইদাবি করেছেন। বর্তমান প্রেক্ষাপটে বিএনপির শক্তিশালী জোন হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে কুতুবপুর ইউনিয়ন। ক্ষমতাসীনদলের নেতৃবৃন্দও এটা স্বীকার করেছেন। কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ বলেন, ক্ষমতাসীনদলে নেতায় নেতায় কোন্দলের কারনে আজকে কুতুবপুর ইউনিয়নের বিএনপির ঘাটিঁতে পরিনত হয়েছে। নির্বাচনের আগ মুহুর্তে জনসংখ্যার দিকদিয়ে এগিয়ে বৃহত্তম এ ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের নেতাদের মাঝে ঐক্য ফিরিয়ে আনা না হলে এর প্রভাব নির্বাচনে পড়বে বলে তৃনমূল আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ মনে করছেন। তৃনমূল আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ তাদের অভিমতে বলেন, দল ক্ষমতায় থাকলেও কুতুবপুরের রাজনৈতিক কতৃত্ব বিএনপির হাতে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে কুতুবপুরে কোন দল বেশি শক্তিশালী আওয়ামীলীগ নাকি বিএনপি?

 

সূত্রে জানা যায়, দেড় যুগেরও বেশি সময় ধরে ক্ষমতার স্বাদ গ্রহন করে আসছে ক্ষমতাসীনদল আওয়ামীলীগ। দল ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দলের নাম ভাঙ্গিয়ে অনেকেই আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছেন। অথচ রাজপথে সংগ্রামের মাধ্যমে দলকে ক্ষমতায় আনার জন্য যাদের অবদান সবচেয়ে বেশি সেই তৃনমূলের সাধারন নেতা কর্মীদের জীবন অতিবাহিত হচ্ছে দুঃখ আর দুদর্শার মধ্য দিয়ে। তাদের কোন ভাগ্যের পরিবর্তন না হলেও দলের নাম ভাঙ্গিয়ে আজকে অনেকেই টোকাই থেকে কোটিপতি বনে গেছেন। অথচ দলকে ব্যবহার করে অনেকে লাভবান হলেও দলকে সংগঠিত করার ক্ষেত্রে সে সুবিধা নেতাদের কোন পাত্তাই পাওয়া যাচ্ছে না। অথচ বৃহত্তর এ ইউনিয়নে ক্ষমতাসীনদলের রাজনীতি সাংগঠনিকভাবে অনেকটাই দুর্বল। ক্ষমতাসীনদের মধ্যে বিরাজ করছে ফায়দা হাছিলের প্রতিযোগিতা। কে বেশি লুটপাটের মাধ্যমে অঢেল সম্পদের মালিক হবে তা নিয়ে মগ্ন থাকতে দেখা যায় নেতৃবৃন্দকে। জেলার অন্যনান্য এলাকায় ক্ষমতাসীন দলের নেতৃবৃন্দের সাথে আতাত করে এলাকায় বসবাস থেকে শুরু করাসহ ব্যবসা বানিজ্য করে আসছে বিরোধীদলের নেতৃবৃন্দ। আর কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে বিরাজ করছে এর উল্টোচিত্র! এ ইউনিয়নে ক্ষমতাসীনদলের অনেক নেতাকেই কুতুবপুর ইউনিয়ন বিএনপির নেতাদের সাথে আতাতের মাধ্যমে রাজনীতি করে থাকেন বলে জানা গেছে। এ অবস্থায় তৃনমূল আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের মাঝে প্রশ্ন উঠেছে, কুতুবপুর ইউনিয়নে কোন দল বেশি শক্তিশালী?
এ ব্যাপারে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জসিম উদ্দিন ফতুল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকদের বলেন, কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ ঐক্যবদ্ধ। বৃহত্তম দল হিসেবে নেতায় নেতায় মত পার্থক্য থাকলেও দলীয় কোন্দল নেই। যতটুকুই ছিল সম্প্রতি আলোচনার মাধ্যমে তা সমাধান করা হয়েছে। বিএনপির প্রেসক্রিপশনে আওয়ামীলীগের রাজনীতি পরিচালিত হচ্ছে? নিজ দলের অনেক নেতাই এমন অভিযোগ করেছেন এমন প্রশ্নে জসীম উদ্দিন বলেন, কোন নেতা কি বলল তা মাঠ পর্যায়ে পরিদর্শন করলেওই ফুটে উঠবে। বিএনপির সাথে কেন আমরা আতাত করতে যাবো? যেখানে আমাদের দল ক্ষমতায়! তবে, যে নেতা এসমস্ত উদ্ভব বিভ্রান্তর কথা সাংবাদিকদের সাথে বলে বেড়ায় সে সমস্ত নেতারা দলের বিরুদ্ধে অবস্থান করছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। সুবিধাবাদী এ সমস্ত নেতাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে হুশিয়ারী উচ্চারন করেন।

 

কুতুবপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছোসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক মীর হোসেন মীরু ফতুল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকদের বলেন, কুতুবপুর আওয়ামীলীগে ঐক্যবদ্ধ ছিল ভবিষত্যেও থাকবে। বড় দল হিসেবে সামান্য মত পার্থক্য থাকবে এটাই বাস্তবতা। সম্প্রতি কুতুবুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ একত্রিত হয়ে আলোচনার মাধ্যমে দলীয় কোন্দল ও নেতায় নেতায় মন মালিন্যের বিষয়টি সমাধান করা হয়েছে। তাছাড়া কুতবপুরের মাটিতে বিএনপির চেয়ে অনেকটাই শক্তিশালী আওয়ামীলীগের রাজনীতি।

 

এ ব্যাপারে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা আলাউদ্দিন হাওলাদার ফতুল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকদের বলেন, কুতুবপুরের রাজনীতিতে আওয়ামীলীগের চেয়ে বিএনপি সাংগঠনিকভাবে অনেকটাই শক্তিশালী। কুতুবপুর ইউনিয়নে ক্ষমতাসীনদের মাঝে বিরাজ করছে নেতায় নেতায় কোন্দল। কোন্দলের কারনে সাংগঠনিকভাবে অনেকটাই দুর্বল হয়ে পড়েছে দলটির রাজনীতি। এমনকি কুতুবপুরে এমনও আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ রয়েছেন যারা কিনা বিএনপির নেতাদের প্রেসক্রিপশন মেনে তাদের রাজনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনা করেন। আর এ কারনে কুতুবপুর আওয়ামীলীগের রাজনীতির অবস্থা এতটা দুর্বল। কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগকে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করার জন্য দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন তিনি।

 

আওয়ামীলীগ নেতা আঃ খালেক ফতুল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকদের বলেন, সাংগঠনিকভাবে অনেকটাই দুর্বল কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের রাজনীতি। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকলেও এ ইউনিয়নে বিএনপি সাংগঠনিকভাবে অনেক শক্তিশালী। এ অবস্থা থেকে দ্রুত সময়ের মধ্যে উত্তোরন করা না গেলে ভবিষত্যে আওয়ামীলীগের ভরাডুবির আশংকা করছেন তিনি।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» ফতুল্লায় বিএনপি নেতা নজরুল মাতবর গ্রেফতার

» ফতুল্লায় বিএনপির ৭১ জনের বিরুদ্ধে মামলা

» স্ত্রী ও শিশু সন্তানকে ফিরে পেতে স্বামীর আকুতি!

» সাংবাদিক সোহেল’র মায়ের রোগ মুক্তি কামনায়,ফতুল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটির উদ্যোগে দোয়া

» স্ত্রী ও শিশু সন্তানকে ফিরে পেতে স্বামীর আকুতি!

» ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি নোমানী, সম্পাদক সোহেল

» রাজউক কর্তৃক উচ্ছেদ রূপগঞ্জের আবাসন প্রকল্পের সীমানা প্রাচীর

» নানা আয়োজনে বক্তাবলী দিবস পালন

» ফতুল্লায় হাজারো মানুষের বিষফোঁড়া!

» বেনাপোলে মদ গাঁজা ফেনসিডিলসহ আটক ৩

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : ফয়সাল আহম্মেদ
সহ-বার্তা সম্পাদক : সেলিম হাওলাদার
editor.kuakatanews@gmail.com

প্রধান কার্যালয় : সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সেহাচর, তক্কারমাঠ রোড, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ।
ফোন : +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ০১৬৭৪৬৩২৫০৯
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯।

Email : ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর ২০২২, খ্রিষ্টাব্দ, ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কুতুবপুরে সাংগঠনিকভাবে এগিয়ে বিএনপি ব্যর্থ আ’লীগ!

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ঘনিয়ে আসছে দ্বাদশ নির্বাচন। আর মাত্র দেড় বছর বাকি রয়েছে সাংসদ নির্বাচনের। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দল গোছাতে ব্যস্ত সময় পার করছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ। ঠিক এ মুহুর্তে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে বিরাজ করছে নেতায় নেতায় কোন্দল। ক্ষমতাসীনদলের মধ্যে বিরাজ করছে স্বার্থ হাছিলের প্রতিযোগিতা। দলীয় কর্মসূচী পালনে ঐক্যবদ্ধভাবে তাদের কর্মসূচী পালন করতে দেখা যায়নি। কুতুবপুরের ইউনিয়ন থেকে শুরু করে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দকে আলাদা আলাদা ভাবে কর্মসূচী পালন করতে দেখা গেছে। নির্বাচনের আগ মুহুর্তে দলীয় কোন্দল নিরসন করা না হলে এর প্রভাব জাতীয় নির্বাচনে পড়ার শংকা করছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকমহল। অপরদিকে, কুতুবপুরের রাজনীতিতে ক্ষমতাসীনদলের মধ্যে নেতায় নেতায় দ্বন্ধের দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে নিজেদের ভীত মজবুত করছে মাঠের প্রধান বিরোধীদল বিএনপি। সাংগঠনিক ভাবে ক্ষমতাসীনদের চেয়ে অনেকটাই এগিয়ে দলটির রাজনীতি। কুতুবপুরের মাটি এখনো বিএনপির নেতৃবৃন্দের দখলে রয়েছে বলে ক্ষোধ আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দরাইদাবি করেছেন। বর্তমান প্রেক্ষাপটে বিএনপির শক্তিশালী জোন হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে কুতুবপুর ইউনিয়ন। ক্ষমতাসীনদলের নেতৃবৃন্দও এটা স্বীকার করেছেন। কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ বলেন, ক্ষমতাসীনদলে নেতায় নেতায় কোন্দলের কারনে আজকে কুতুবপুর ইউনিয়নের বিএনপির ঘাটিঁতে পরিনত হয়েছে। নির্বাচনের আগ মুহুর্তে জনসংখ্যার দিকদিয়ে এগিয়ে বৃহত্তম এ ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের নেতাদের মাঝে ঐক্য ফিরিয়ে আনা না হলে এর প্রভাব নির্বাচনে পড়বে বলে তৃনমূল আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ মনে করছেন। তৃনমূল আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ তাদের অভিমতে বলেন, দল ক্ষমতায় থাকলেও কুতুবপুরের রাজনৈতিক কতৃত্ব বিএনপির হাতে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে কুতুবপুরে কোন দল বেশি শক্তিশালী আওয়ামীলীগ নাকি বিএনপি?

 

সূত্রে জানা যায়, দেড় যুগেরও বেশি সময় ধরে ক্ষমতার স্বাদ গ্রহন করে আসছে ক্ষমতাসীনদল আওয়ামীলীগ। দল ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দলের নাম ভাঙ্গিয়ে অনেকেই আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছেন। অথচ রাজপথে সংগ্রামের মাধ্যমে দলকে ক্ষমতায় আনার জন্য যাদের অবদান সবচেয়ে বেশি সেই তৃনমূলের সাধারন নেতা কর্মীদের জীবন অতিবাহিত হচ্ছে দুঃখ আর দুদর্শার মধ্য দিয়ে। তাদের কোন ভাগ্যের পরিবর্তন না হলেও দলের নাম ভাঙ্গিয়ে আজকে অনেকেই টোকাই থেকে কোটিপতি বনে গেছেন। অথচ দলকে ব্যবহার করে অনেকে লাভবান হলেও দলকে সংগঠিত করার ক্ষেত্রে সে সুবিধা নেতাদের কোন পাত্তাই পাওয়া যাচ্ছে না। অথচ বৃহত্তর এ ইউনিয়নে ক্ষমতাসীনদলের রাজনীতি সাংগঠনিকভাবে অনেকটাই দুর্বল। ক্ষমতাসীনদের মধ্যে বিরাজ করছে ফায়দা হাছিলের প্রতিযোগিতা। কে বেশি লুটপাটের মাধ্যমে অঢেল সম্পদের মালিক হবে তা নিয়ে মগ্ন থাকতে দেখা যায় নেতৃবৃন্দকে। জেলার অন্যনান্য এলাকায় ক্ষমতাসীন দলের নেতৃবৃন্দের সাথে আতাত করে এলাকায় বসবাস থেকে শুরু করাসহ ব্যবসা বানিজ্য করে আসছে বিরোধীদলের নেতৃবৃন্দ। আর কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে বিরাজ করছে এর উল্টোচিত্র! এ ইউনিয়নে ক্ষমতাসীনদলের অনেক নেতাকেই কুতুবপুর ইউনিয়ন বিএনপির নেতাদের সাথে আতাতের মাধ্যমে রাজনীতি করে থাকেন বলে জানা গেছে। এ অবস্থায় তৃনমূল আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের মাঝে প্রশ্ন উঠেছে, কুতুবপুর ইউনিয়নে কোন দল বেশি শক্তিশালী?
এ ব্যাপারে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জসিম উদ্দিন ফতুল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকদের বলেন, কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ ঐক্যবদ্ধ। বৃহত্তম দল হিসেবে নেতায় নেতায় মত পার্থক্য থাকলেও দলীয় কোন্দল নেই। যতটুকুই ছিল সম্প্রতি আলোচনার মাধ্যমে তা সমাধান করা হয়েছে। বিএনপির প্রেসক্রিপশনে আওয়ামীলীগের রাজনীতি পরিচালিত হচ্ছে? নিজ দলের অনেক নেতাই এমন অভিযোগ করেছেন এমন প্রশ্নে জসীম উদ্দিন বলেন, কোন নেতা কি বলল তা মাঠ পর্যায়ে পরিদর্শন করলেওই ফুটে উঠবে। বিএনপির সাথে কেন আমরা আতাত করতে যাবো? যেখানে আমাদের দল ক্ষমতায়! তবে, যে নেতা এসমস্ত উদ্ভব বিভ্রান্তর কথা সাংবাদিকদের সাথে বলে বেড়ায় সে সমস্ত নেতারা দলের বিরুদ্ধে অবস্থান করছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। সুবিধাবাদী এ সমস্ত নেতাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে হুশিয়ারী উচ্চারন করেন।

 

কুতুবপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছোসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক মীর হোসেন মীরু ফতুল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকদের বলেন, কুতুবপুর আওয়ামীলীগে ঐক্যবদ্ধ ছিল ভবিষত্যেও থাকবে। বড় দল হিসেবে সামান্য মত পার্থক্য থাকবে এটাই বাস্তবতা। সম্প্রতি কুতুবুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ একত্রিত হয়ে আলোচনার মাধ্যমে দলীয় কোন্দল ও নেতায় নেতায় মন মালিন্যের বিষয়টি সমাধান করা হয়েছে। তাছাড়া কুতবপুরের মাটিতে বিএনপির চেয়ে অনেকটাই শক্তিশালী আওয়ামীলীগের রাজনীতি।

 

এ ব্যাপারে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা আলাউদ্দিন হাওলাদার ফতুল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকদের বলেন, কুতুবপুরের রাজনীতিতে আওয়ামীলীগের চেয়ে বিএনপি সাংগঠনিকভাবে অনেকটাই শক্তিশালী। কুতুবপুর ইউনিয়নে ক্ষমতাসীনদের মাঝে বিরাজ করছে নেতায় নেতায় কোন্দল। কোন্দলের কারনে সাংগঠনিকভাবে অনেকটাই দুর্বল হয়ে পড়েছে দলটির রাজনীতি। এমনকি কুতুবপুরে এমনও আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ রয়েছেন যারা কিনা বিএনপির নেতাদের প্রেসক্রিপশন মেনে তাদের রাজনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনা করেন। আর এ কারনে কুতুবপুর আওয়ামীলীগের রাজনীতির অবস্থা এতটা দুর্বল। কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগকে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করার জন্য দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন তিনি।

 

আওয়ামীলীগ নেতা আঃ খালেক ফতুল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকদের বলেন, সাংগঠনিকভাবে অনেকটাই দুর্বল কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের রাজনীতি। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকলেও এ ইউনিয়নে বিএনপি সাংগঠনিকভাবে অনেক শক্তিশালী। এ অবস্থা থেকে দ্রুত সময়ের মধ্যে উত্তোরন করা না গেলে ভবিষত্যে আওয়ামীলীগের ভরাডুবির আশংকা করছেন তিনি।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : ফয়সাল আহম্মেদ
সহ-বার্তা সম্পাদক : সেলিম হাওলাদার
editor.kuakatanews@gmail.com

প্রধান কার্যালয় : সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সেহাচর, তক্কারমাঠ রোড, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ।
ফোন : +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ০১৬৭৪৬৩২৫০৯
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯।

Email : ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD