সুরের পাখি শাহনাজ রহমতউল্লাহ আর নেই…

দেশের বরেণ্য সংগীতশিল্পী শাহনাজ রহমতউল্লাহ আর নেই। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করে গণমাধ্যমকে জানান নৃত্যশিল্পী ডলি ইকবাল।

ডলি ইকবাল জানান, বারিধারায় নিজ বাসায় শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার কারণে শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে মারা যান শাহনাজ রহমতউল্লাহ। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর। তিনি স্বামী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন। স্বামী মেজর (অব.) আবুল বাশার রহমতউল্লাহ ব্যবসায়ী, মেয়ে নাহিদ রহমতউল্লাহ থাকেন লন্ডনে আর ছেলে এ কে এম সায়েফ রহমতউল্লাহ যুক্তরাষ্ট্রের এক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ করে এখন কানাডায় থাকেন।

বাংলা গানের এই কিংবদন্তি শিল্পীকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে কোনো আনুষ্ঠানিকতা রাখা হয়েছে কিনা তা জানাতে না পারলেও বারিধারা পার্ক মসজিদে বাদ জোহর জানাজা সম্পন্ন হবে বলে  তাঁর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে। তাঁকে বনানী সামরিক কবরস্থানে দাফন করা হবে ।

স্বামী মেজর (অব.) আবুল বাশার রহমতুল্লাহ একজন ব্যবসায়ি। ব্যক্তি জীবনে শাহনাজ রহমতউল্লাহ এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন। মেয়ে নাহিদ রহমতউল্লাহ লন্ডনে থাকেন আর ছেলে এ কে এম সায়েফ রহমতউল্লাহ থাকেন কানাডায়।

শাহনাজ রহমতউল্লাহ’র ভাই  জাফর ইকবাল ছিলেন বাংলা চলচ্চিত্রের একজন জনপ্রিয় নায়ক। আরেক ভাই আনোয়ার পারভেজ এদেশের প্রখ্যাত সুরকার ও সংগীত পরিচালক ছিলেন।

বিবিসির এক জরিপে সর্বকালের সেরা ২০টি বাংলা গানের তালিকা তৈরি করে। এতে শাহনাজ রহমতউল্লাহ’র গাওয়া চারটি গান স্থান পায়।

শাহনাজ রহমতউল্লাহ গান গেয়ে শুধু জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারই পাননি, আরো অনেক অর্জন রয়েছে তাঁর। ১৯৯২ সালে একুশে পদকেও ভূষিত হন তিনি।

শাহনাজ রহমতউল্লাহ ১৯৬৩ সালে ‘নতুন সুর’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে গান গাওয়া শুরু করেছিলেন। গানের জগতে ৫০ বছরে  প্রকাশিত হয়েছে  শাহনাজ রহমতউল্লাহর চারটি অ্যালবাম। যার প্রথমটি ছিল প্রণব ঘোষের সুরে ‘বারটি বছর পরে’, এরপর প্রকাশিত হয় আলাউদ্দীন আলীর সুরে ‘শুধু কি আমার ভুল’।

‘একবার যেতে দে না আমার ছোট্ট সোনার গাঁয়’, ‘প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ’, ‘এক নদী রক্ত পেরিয়ে’, ‘আমার দেশের মাটির গন্ধে’, ‘একতারা তুই দেশের কথা বল রে আমায় বল’, ‘আমায় যদি প্রশ্ন করে’, ‘কে যেন সোনার কাঠি’, ‘মানিক সে তো মানিক নয়’, ‘যদি চোখের দৃষ্টি’, ‘সাগরের তীর থেকে’, ‘খোলা জানালা’, ‘পারি না ভুলে যেতে’, ‘ফুলের কানে ভ্রমর এসে’, ‘আমি তো আমার গল্প বলেছি’, ‘আরও কিছু দাও না’, ‘একটি কুসুম তুলে নিয়েছি’—এ রকম অসংখ্য কালজয়ী গান গেয়ে শাহনাজ রহমতউল্লাহ অগণিত শ্রোতার মনে জায়গা করে নিয়েছেন।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» ঢাকার চিহ্নিত খুনি, কিলার মোহন ফতুল্লায় পিস্তল ও গুলিসহ গ্রেফতার!

» কমলগঞ্চে ভোক্তা অধিকার আইনে ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

» মৌলভীবাজারে বিশ্ব ম্যালেরিয়া দিবস পালিত

» প্রাথমিক শিক্ষা থেকে বঞ্চিত দেওরাছড়া বাগানের শিশুরা

» আত্রাইয়ে গাঁজাসহ তিন মাদক কারবারী আটক

» বঙ্গোপসাগরে অবৈধ শাড়িসহ ১০ জনকে আটক করেছে কোষ্টগার্ড

» সীমান্ত প্রেসক্লাব’র তত্ত্বাবধানে অগ্নিদ্বগ্ধ মারিয়াকে ঢাকায় বার্ন ইউনিটে পেরন

» মহেশপুরে মহিলা কলেজ সংলগ্ন ড্রেন থেকে বৃদ্ধের মৃতদেহ উদ্ধার

»  জনগনের নিরাপত্তা ও সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করতে ট্রাফিক পক্ষ পালন 

» ফেসবুকের পোষ্ট দেখে প্রতিবন্ধীকে হুইল চেয়ার উপহার



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD



আজ : শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ১৩ই বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সুরের পাখি শাহনাজ রহমতউল্লাহ আর নেই…

দেশের বরেণ্য সংগীতশিল্পী শাহনাজ রহমতউল্লাহ আর নেই। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করে গণমাধ্যমকে জানান নৃত্যশিল্পী ডলি ইকবাল।

ডলি ইকবাল জানান, বারিধারায় নিজ বাসায় শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার কারণে শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে মারা যান শাহনাজ রহমতউল্লাহ। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর। তিনি স্বামী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন। স্বামী মেজর (অব.) আবুল বাশার রহমতউল্লাহ ব্যবসায়ী, মেয়ে নাহিদ রহমতউল্লাহ থাকেন লন্ডনে আর ছেলে এ কে এম সায়েফ রহমতউল্লাহ যুক্তরাষ্ট্রের এক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ করে এখন কানাডায় থাকেন।

বাংলা গানের এই কিংবদন্তি শিল্পীকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে কোনো আনুষ্ঠানিকতা রাখা হয়েছে কিনা তা জানাতে না পারলেও বারিধারা পার্ক মসজিদে বাদ জোহর জানাজা সম্পন্ন হবে বলে  তাঁর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে। তাঁকে বনানী সামরিক কবরস্থানে দাফন করা হবে ।

স্বামী মেজর (অব.) আবুল বাশার রহমতুল্লাহ একজন ব্যবসায়ি। ব্যক্তি জীবনে শাহনাজ রহমতউল্লাহ এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন। মেয়ে নাহিদ রহমতউল্লাহ লন্ডনে থাকেন আর ছেলে এ কে এম সায়েফ রহমতউল্লাহ থাকেন কানাডায়।

শাহনাজ রহমতউল্লাহ’র ভাই  জাফর ইকবাল ছিলেন বাংলা চলচ্চিত্রের একজন জনপ্রিয় নায়ক। আরেক ভাই আনোয়ার পারভেজ এদেশের প্রখ্যাত সুরকার ও সংগীত পরিচালক ছিলেন।

বিবিসির এক জরিপে সর্বকালের সেরা ২০টি বাংলা গানের তালিকা তৈরি করে। এতে শাহনাজ রহমতউল্লাহ’র গাওয়া চারটি গান স্থান পায়।

শাহনাজ রহমতউল্লাহ গান গেয়ে শুধু জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারই পাননি, আরো অনেক অর্জন রয়েছে তাঁর। ১৯৯২ সালে একুশে পদকেও ভূষিত হন তিনি।

শাহনাজ রহমতউল্লাহ ১৯৬৩ সালে ‘নতুন সুর’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে গান গাওয়া শুরু করেছিলেন। গানের জগতে ৫০ বছরে  প্রকাশিত হয়েছে  শাহনাজ রহমতউল্লাহর চারটি অ্যালবাম। যার প্রথমটি ছিল প্রণব ঘোষের সুরে ‘বারটি বছর পরে’, এরপর প্রকাশিত হয় আলাউদ্দীন আলীর সুরে ‘শুধু কি আমার ভুল’।

‘একবার যেতে দে না আমার ছোট্ট সোনার গাঁয়’, ‘প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ’, ‘এক নদী রক্ত পেরিয়ে’, ‘আমার দেশের মাটির গন্ধে’, ‘একতারা তুই দেশের কথা বল রে আমায় বল’, ‘আমায় যদি প্রশ্ন করে’, ‘কে যেন সোনার কাঠি’, ‘মানিক সে তো মানিক নয়’, ‘যদি চোখের দৃষ্টি’, ‘সাগরের তীর থেকে’, ‘খোলা জানালা’, ‘পারি না ভুলে যেতে’, ‘ফুলের কানে ভ্রমর এসে’, ‘আমি তো আমার গল্প বলেছি’, ‘আরও কিছু দাও না’, ‘একটি কুসুম তুলে নিয়েছি’—এ রকম অসংখ্য কালজয়ী গান গেয়ে শাহনাজ রহমতউল্লাহ অগণিত শ্রোতার মনে জায়গা করে নিয়েছেন।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ





সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD