বিএনপির রাজনীতির যত ভুল, দলটির অস্তীত্ব শেষ পর্যন্ত থাকবে কিনা?

৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের ফলাফল যাই হোক না কেন বাংলাদেশের প্রধান বিরোধী দল নি:সন্দেহে বিএনপি। যদি নির্বাচনের ফলাফল বিশ্লেষন করা যায়, তাহলেও বলা যায় যে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টই দেশের প্রধান বিরোধী গ্রুপ। কারণ জাতীয় পার্টি মহাজোটের অংশ হিসেবে নির্বাচন করেছে। মহাজোট এই নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছে। কাজেই জাতীয় পার্টীকে যতভাবেই বিরোধী দলে বসানো হোক না কেন প্রকৃতপক্ষে জাতীয় পার্টিকে বিরোধী দল হিসেবে জনগন মনে করে না। সেই হিসেবে মানুষ মনে করে বিএনপি হলো দেশের প্রধান বিরোধী দল। আসনে হিসেব নয়, কর্মী হিসেবেই বিএনপি এখনো প্রধান বিরোধী দল হিসেবেই রয়ে গেছে। কর্মী হিসেবে সবচেয়ে বড় দল আওয়ামী লীগের সঙ্গেও তাদের ব্যবধান কম। প্রশ্ন হচ্ছে বিরোধী দল হিসেবে বিএনপি কেন ক্রমশ সংকুচিত হয়ে উঠছে। কেন বিএনপি সম্বন্ধে বলা হচ্ছে দলটি আস্তে আস্তে বিলীন হয়ে যাবে? বিএনপির মধ্যে কেনই বা এত হতাশা কেনই বা এক কোন্দল?

 

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন, একটি ক্ষুদ্র ভুল রাজনৈতিক দলকে অনেক বিপদে ফেলে দিতে পারে। বিএনপির এমন ভুল গুলো দলটিকে আজকের এই জায়গায় নিয়ে এসেছে, যেখান থেকে মানুষের মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে যে, দল হিসেবে বিএনপির অস্তীত্ব শেষ পর্যন্ত থাকবে কিনা।বিএনপির ২০০৮ সাল থেকে বিএনপির সবচেয়ে বড় ৮ সেরা ভুল, যে ভুলের কারণে বিএনপি আজ এই অবস্থায় পতিত হয়েছে:

 

১. বিএনপির রাজনীতির সবচেয়ে ভুল হিসেবে চিহ্নিত করা হয় ২০১৪ সালের নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করা। ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে যে ৫ টি সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন হয়েছিল সবগুলোতে বিএনপি জয়লাভ করেছিল। সেখান থেকে বিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না সেই সিদ্ধান্ত ছিল আত্মঘাতি, বিস্ময়কর এবং রাজনীতিতে বিএনপির এ যাবৎকালের সবচেয়ে বড় ভুল হিসেবে স্বীকৃত।

 

২. ২০১৫ সালে সরকারের বর্ষপূর্তী প্রতিপাদে বিএনপির লাগাতার অবরোধ, অনির্দিষ্টকালের অবরোধ চলে। এরকম রাজনৈতিক হটকারী সিদ্ধান্ত একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল কিভাবে নিতে পারে সেটি ছিল একটি অবাক এবং বিস্ময়কর ব্যাপার। আনুষ্ঠানিকভাবে বিএনপি কিন্তু আজও সেই অবরোধ প্রত্যাহার করেনি। যার কারণে বিএনপিকে এবারো মূল্য দিতে হয়েছে। বিএনপি এই অবরোধ, হরতাল, ভাঙচুর, অগ্নি সংযোগ এবং বোমাবাজির কারণে জনগন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে এবং বিএনপিকে মনে করা হয়েছে বিএনপি একটি সন্ত্রাসী দল।

 

৩. যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রেক্ষাপটে সারা বাংলাদেশে একটা যুদ্ধাপরাধী বিরোধী মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে জাগরণ তৈরী হয়েছে। বিশেষ করে গণজাগরন মঞ্চ এবং তরুণ সমাজ মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করছে এবং তারা যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকে স্বাগত জানিয়েছে। আওয়ামী লীগ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে যতটুকু প্রশংসিত হয়েছে, অন্য কোন কাজ করে তার ধারেকাছে প্রশংসা পায়নি। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের কারণেই তরুণ প্রজন্মের একটি বিরাট অংশ আওয়ামী লীগের পক্ষে। কিন্তু বিএনপি যুদ্ধাপরাধীদের সংগঠন জামাত ইসলামের সঙ্গে গাটছাড়া বেধেছিল সেই ২০০১ থেকে। এখনো সেই গাটছাড়া ত্যাগ করেনি। এজন্যই জামাতের পাশাপাশি বিএনপিকে একটি মৌলবাদী যুদ্ধাপরাধীদের দল হিসেবে মনে করা হয়। রাজনীতিতে এটা বিএনপির জন্য এটা একটা বড় ধাক্কা। বিএনপি যে তরুন প্রজন্মের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে তার একটা প্রধান কারণ হলো এটি। জামাত থেকে আলাদা হতে না পারাটাই বিএনপির একটি বড় রাজনৈতিক ভুল বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন।

 

৪. বিএনপি তার ২০ দলীয় ঐক্যফ্রন্ট রেখে আবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করেছে যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা ড. কামাল হোসেন সারাক্ষন বঙ্গবন্ধু এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলেন। যেটা বিএনপির আদর্শের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। যার ফলে যারা আওয়ামী বিরোধী ভোটব্যাংক সেই ভোটব্যাংক হোচট খেয়েছে এবং বিএনপি থেকে বিমুখ হয়ে গেছে। সাধারণ মানুষ মনে করছে বিএনপি শুধুমাত্র ক্ষমতার জন্য যা ইচ্ছে তাই করতে পারে। আদর্শ বলতে কিছু নেই। এটা বিএনপির রাজনীতিতে আরেকটি বড় ভুল।  

 

৫. ২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেনের সময় তারেক জিয়া বিএনপির সবচেয়ে বিতর্কিত ব্যক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হন এবং শুধু দেশে নন বিদেশেও তারেক জিয়াকে জঙ্গিবাদের মদদাতা ও দুর্নীতিবাজ হিসেবেই চিহ্নিত করা হয়। বেগম খালেদা জিয়া যখন গ্রেপ্তার হলেন তখন তারেক জিয়াকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করা হলো। তারেক জিয়ার এই ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করাটাকে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে কেউই সমর্থন করেনি। তারেক জিয়ার মতো কথইত দুর্নীতিবাজ ও জঙ্গবাদের মদদদাতাকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করাটাকে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে কেউই গ্রহণ করেনি। তাঁর মতো একজন দুর্নীতিবাজ ও শীর্ষ সন্ত্রাসী , জঙ্গিবাদের মদদদাতা যখন একটি দলের শীর্ষ পদ দখল করেন তখন সাধারণ মানুষ হতাশ হয়ে পড়েন। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল মনে করেন এটি হলো বিএনপির রাজনীতির আরও একটি বড় ভুল।

 

৬. অসুস্থ, অথর্ব কিছু লোককে স্থায়ী কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করেছে বিএনপি ২০১৬ সালে। বিএনপির যে নীতি নির্ধারণী সংস্থা সেটির অর্ধেক পদ এখন খালি। এদের মধ্যে আবার অর্ধেক অসুস্থ না হয় রাজনীতি থেকে নিজেদের গুটিয়ে রেখেছেন। স্থায়ী কমিটি হলো দলের হৃদপিণ্ডের সমান। দলের নীতি নির্ধারকরাই যখন রাজনীতিক কর্মকান্ড থেকে নিজেদেরকে গুটিয়ে নেন সেই দলের কি ভাগ্য বরণ করতে হয় তা সকলেরই জানা।

 

৭. ভারতের ব্যাপারে দোদুল্যমান নীতি। বিএনপির একটি অংশ ভারত বিরোধীতা করে, অন্য একটি অংশ ভারত বিরোধীতা করতে চায়। বিএনপির এই দোদুল্যমান ভারত নীতি আন্তর্জাতিকভাবে বিএনপিকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বিএনপির রাজনৈতিক অবস্থানকে বিতর্কিত করেছে। ভারতের ব্যাপারে বিএনপির একটি সুস্পষ্ট অবস্থান থাকা উচিৎ বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

 

৮. দুর্নীতিবাজদের লালন। ২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেন আসার পরে বিএনপিতে যারা চিহ্নিত দুর্নীতিবাজ হিসেবে পরিচিত ছিল, যারা কোটি কোটি টাকা লুণ্ঠন এবং দুর্নীতি করেছিল বিএনপি তাদেরকেই দলে রেখেছে এবং ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে এদের অধিকাংশই মনোনয়ন পেয়েছে। দুর্নীতিবাজদের রাজনীতিতে আশ্রয় প্রশ্রয় দেয়াকে বিএনপির রাজনীতির একটি বড় ভুল বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন।

 

মূলত এইসব রাজনৈতিক ভুলের কারণেই বিএনপি ক্রমশ পিছিয়ে পরছে এবং এই ভুলগুলো শোধরাতে পারছে না জন্যই বিএনপি ক্রমশ বিলীন একটি রাজনৈতিক দলে পরিগণিত হচ্ছে। 

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» প্রাথমিক শিক্ষা থেকে বঞ্চিত দেওরাছড়া বাগানের শিশুরা

» আত্রাইয়ে গাঁজাসহ তিন মাদক কারবারী আটক

» বঙ্গোপসাগরে অবৈধ শাড়িসহ ১০ জনকে আটক করেছে কোষ্টগার্ড

» সীমান্ত প্রেসক্লাব’র তত্ত্বাবধানে অগ্নিদ্বগ্ধ মারিয়াকে ঢাকায় বার্ন ইউনিটে পেরন

» মহেশপুরে মহিলা কলেজ সংলগ্ন ড্রেন থেকে বৃদ্ধের মৃতদেহ উদ্ধার

»  জনগনের নিরাপত্তা ও সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করতে ট্রাফিক পক্ষ পালন 

» ফেসবুকের পোষ্ট দেখে প্রতিবন্ধীকে হুইল চেয়ার উপহার

» গ্রাম আদালতের বার্তা মাঠ-পর্যায়ে ছড়িয়ে দেওয়ার আহবান 

» ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ধর্ষণের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

» কমিউনিটি ক্লিনিকের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD



আজ : শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ১৩ই বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিএনপির রাজনীতির যত ভুল, দলটির অস্তীত্ব শেষ পর্যন্ত থাকবে কিনা?

৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের ফলাফল যাই হোক না কেন বাংলাদেশের প্রধান বিরোধী দল নি:সন্দেহে বিএনপি। যদি নির্বাচনের ফলাফল বিশ্লেষন করা যায়, তাহলেও বলা যায় যে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টই দেশের প্রধান বিরোধী গ্রুপ। কারণ জাতীয় পার্টি মহাজোটের অংশ হিসেবে নির্বাচন করেছে। মহাজোট এই নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছে। কাজেই জাতীয় পার্টীকে যতভাবেই বিরোধী দলে বসানো হোক না কেন প্রকৃতপক্ষে জাতীয় পার্টিকে বিরোধী দল হিসেবে জনগন মনে করে না। সেই হিসেবে মানুষ মনে করে বিএনপি হলো দেশের প্রধান বিরোধী দল। আসনে হিসেব নয়, কর্মী হিসেবেই বিএনপি এখনো প্রধান বিরোধী দল হিসেবেই রয়ে গেছে। কর্মী হিসেবে সবচেয়ে বড় দল আওয়ামী লীগের সঙ্গেও তাদের ব্যবধান কম। প্রশ্ন হচ্ছে বিরোধী দল হিসেবে বিএনপি কেন ক্রমশ সংকুচিত হয়ে উঠছে। কেন বিএনপি সম্বন্ধে বলা হচ্ছে দলটি আস্তে আস্তে বিলীন হয়ে যাবে? বিএনপির মধ্যে কেনই বা এত হতাশা কেনই বা এক কোন্দল?

 

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন, একটি ক্ষুদ্র ভুল রাজনৈতিক দলকে অনেক বিপদে ফেলে দিতে পারে। বিএনপির এমন ভুল গুলো দলটিকে আজকের এই জায়গায় নিয়ে এসেছে, যেখান থেকে মানুষের মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে যে, দল হিসেবে বিএনপির অস্তীত্ব শেষ পর্যন্ত থাকবে কিনা।বিএনপির ২০০৮ সাল থেকে বিএনপির সবচেয়ে বড় ৮ সেরা ভুল, যে ভুলের কারণে বিএনপি আজ এই অবস্থায় পতিত হয়েছে:

 

১. বিএনপির রাজনীতির সবচেয়ে ভুল হিসেবে চিহ্নিত করা হয় ২০১৪ সালের নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করা। ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে যে ৫ টি সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন হয়েছিল সবগুলোতে বিএনপি জয়লাভ করেছিল। সেখান থেকে বিএনপি দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না সেই সিদ্ধান্ত ছিল আত্মঘাতি, বিস্ময়কর এবং রাজনীতিতে বিএনপির এ যাবৎকালের সবচেয়ে বড় ভুল হিসেবে স্বীকৃত।

 

২. ২০১৫ সালে সরকারের বর্ষপূর্তী প্রতিপাদে বিএনপির লাগাতার অবরোধ, অনির্দিষ্টকালের অবরোধ চলে। এরকম রাজনৈতিক হটকারী সিদ্ধান্ত একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল কিভাবে নিতে পারে সেটি ছিল একটি অবাক এবং বিস্ময়কর ব্যাপার। আনুষ্ঠানিকভাবে বিএনপি কিন্তু আজও সেই অবরোধ প্রত্যাহার করেনি। যার কারণে বিএনপিকে এবারো মূল্য দিতে হয়েছে। বিএনপি এই অবরোধ, হরতাল, ভাঙচুর, অগ্নি সংযোগ এবং বোমাবাজির কারণে জনগন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে এবং বিএনপিকে মনে করা হয়েছে বিএনপি একটি সন্ত্রাসী দল।

 

৩. যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রেক্ষাপটে সারা বাংলাদেশে একটা যুদ্ধাপরাধী বিরোধী মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে জাগরণ তৈরী হয়েছে। বিশেষ করে গণজাগরন মঞ্চ এবং তরুণ সমাজ মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করছে এবং তারা যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকে স্বাগত জানিয়েছে। আওয়ামী লীগ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে যতটুকু প্রশংসিত হয়েছে, অন্য কোন কাজ করে তার ধারেকাছে প্রশংসা পায়নি। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের কারণেই তরুণ প্রজন্মের একটি বিরাট অংশ আওয়ামী লীগের পক্ষে। কিন্তু বিএনপি যুদ্ধাপরাধীদের সংগঠন জামাত ইসলামের সঙ্গে গাটছাড়া বেধেছিল সেই ২০০১ থেকে। এখনো সেই গাটছাড়া ত্যাগ করেনি। এজন্যই জামাতের পাশাপাশি বিএনপিকে একটি মৌলবাদী যুদ্ধাপরাধীদের দল হিসেবে মনে করা হয়। রাজনীতিতে এটা বিএনপির জন্য এটা একটা বড় ধাক্কা। বিএনপি যে তরুন প্রজন্মের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে তার একটা প্রধান কারণ হলো এটি। জামাত থেকে আলাদা হতে না পারাটাই বিএনপির একটি বড় রাজনৈতিক ভুল বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন।

 

৪. বিএনপি তার ২০ দলীয় ঐক্যফ্রন্ট রেখে আবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করেছে যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা ড. কামাল হোসেন সারাক্ষন বঙ্গবন্ধু এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলেন। যেটা বিএনপির আদর্শের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। যার ফলে যারা আওয়ামী বিরোধী ভোটব্যাংক সেই ভোটব্যাংক হোচট খেয়েছে এবং বিএনপি থেকে বিমুখ হয়ে গেছে। সাধারণ মানুষ মনে করছে বিএনপি শুধুমাত্র ক্ষমতার জন্য যা ইচ্ছে তাই করতে পারে। আদর্শ বলতে কিছু নেই। এটা বিএনপির রাজনীতিতে আরেকটি বড় ভুল।  

 

৫. ২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেনের সময় তারেক জিয়া বিএনপির সবচেয়ে বিতর্কিত ব্যক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হন এবং শুধু দেশে নন বিদেশেও তারেক জিয়াকে জঙ্গিবাদের মদদাতা ও দুর্নীতিবাজ হিসেবেই চিহ্নিত করা হয়। বেগম খালেদা জিয়া যখন গ্রেপ্তার হলেন তখন তারেক জিয়াকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করা হলো। তারেক জিয়ার এই ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করাটাকে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে কেউই সমর্থন করেনি। তারেক জিয়ার মতো কথইত দুর্নীতিবাজ ও জঙ্গবাদের মদদদাতাকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করাটাকে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে কেউই গ্রহণ করেনি। তাঁর মতো একজন দুর্নীতিবাজ ও শীর্ষ সন্ত্রাসী , জঙ্গিবাদের মদদদাতা যখন একটি দলের শীর্ষ পদ দখল করেন তখন সাধারণ মানুষ হতাশ হয়ে পড়েন। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল মনে করেন এটি হলো বিএনপির রাজনীতির আরও একটি বড় ভুল।

 

৬. অসুস্থ, অথর্ব কিছু লোককে স্থায়ী কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করেছে বিএনপি ২০১৬ সালে। বিএনপির যে নীতি নির্ধারণী সংস্থা সেটির অর্ধেক পদ এখন খালি। এদের মধ্যে আবার অর্ধেক অসুস্থ না হয় রাজনীতি থেকে নিজেদের গুটিয়ে রেখেছেন। স্থায়ী কমিটি হলো দলের হৃদপিণ্ডের সমান। দলের নীতি নির্ধারকরাই যখন রাজনীতিক কর্মকান্ড থেকে নিজেদেরকে গুটিয়ে নেন সেই দলের কি ভাগ্য বরণ করতে হয় তা সকলেরই জানা।

 

৭. ভারতের ব্যাপারে দোদুল্যমান নীতি। বিএনপির একটি অংশ ভারত বিরোধীতা করে, অন্য একটি অংশ ভারত বিরোধীতা করতে চায়। বিএনপির এই দোদুল্যমান ভারত নীতি আন্তর্জাতিকভাবে বিএনপিকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বিএনপির রাজনৈতিক অবস্থানকে বিতর্কিত করেছে। ভারতের ব্যাপারে বিএনপির একটি সুস্পষ্ট অবস্থান থাকা উচিৎ বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

 

৮. দুর্নীতিবাজদের লালন। ২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেন আসার পরে বিএনপিতে যারা চিহ্নিত দুর্নীতিবাজ হিসেবে পরিচিত ছিল, যারা কোটি কোটি টাকা লুণ্ঠন এবং দুর্নীতি করেছিল বিএনপি তাদেরকেই দলে রেখেছে এবং ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে এদের অধিকাংশই মনোনয়ন পেয়েছে। দুর্নীতিবাজদের রাজনীতিতে আশ্রয় প্রশ্রয় দেয়াকে বিএনপির রাজনীতির একটি বড় ভুল বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন।

 

মূলত এইসব রাজনৈতিক ভুলের কারণেই বিএনপি ক্রমশ পিছিয়ে পরছে এবং এই ভুলগুলো শোধরাতে পারছে না জন্যই বিএনপি ক্রমশ বিলীন একটি রাজনৈতিক দলে পরিগণিত হচ্ছে। 

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ





সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD