ফতুল্লায় কোচিংয়ে ছাত্রী ধর্ষণকারী লম্পট তাপস’র সহায়তাকারী কে এই আশা!!

উজ্জীবিত বাংলাদেশ:- ফতুল্লায় এডুকেশনাল কোচিং সেন্টারের আড়ালে লম্পট শিক্ষকের যৌন লালসার শিকার হয়ে ধর্ষিত হয় দশম শ্রেণির এক ছাত্রী । আর এ কাজে সহায়তার অভিযোগ উঠেছে ওই কোচিংয়ে কর্মরত আশা নামের এক মহিলা শিক্ষিকার বিরুদ্ধে। ধর্ষিতার পরিবার ও এলাকাবাসীর দাবি লম্পট তাপসের পাশাপাশি অপকর্মের সহায়তাকারী কথিত শিক্ষিকা আশাকেও আইনের আওতায় আনা হোক।

 

২১ অক্টোবর সন্ধ্যায় দশম শ্রেণির ওই ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়। ওই ছাত্রীর মায়ের করা মামলায় গত ২৩ অক্টোবর তাপস কুমারকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

 

জানা যায়, ফতুল্লা রেলস্টেশন সংলগ্ন এডুকেশনাল কেয়ার নামে তাপস কুমার সিংয়ের কোচিং সেন্টার রয়েছে। ওই কোচিংয়ে ষষ্ঠ থেকে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কোচিং করানো হয়। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার সস্তাপুর এলাকার দশম শ্রেণির ওই ছাত্রী দেড় মাস আগে তাপস সিংয়ের কোচিংয়ে ভর্তি হয়। ছাত্রীর মা অভিযোগ করেন, এসএসসি পরীক্ষা সামনে রেখে তিনি তার মেয়েকে ওই কোচিংয়ে ভর্তি করান। কোচিং সেন্টারের প্রতিটি কক্ষে সিসি টিভি ক্যামেরা থাকায় তিনি নিশ্চিন্ত হয়ে মেয়েকে ওই কোচিংয়ে দেন।

 

২১ অক্টোবর সন্ধ্যায় বাসায় ফিরে মেয়ে তাকে জানায়, সে ওই কোচিংয়ে আর পড়বে না। তাপস স্যারের ব্যবহার তার ভালো লাগে না। এরপর তিনি মেয়েকে জেরা করে ঘটনা সম্পর্কে জেনে থানায় গিয়ে মামলা করলে পরদিন পুলিশ তাপসকে গ্রেফতার করে।

 

ওই ছাত্রী জানায়, ঘটনার দিন সে যথারীতি কোচিংয়ে যায়। কোচিংয়ে সে-ই একমাত্র মানবিক বিভাগের ছাত্রী। বাকিরা বিজ্ঞান এবং ব্যবসায় শিক্ষার শিক্ষার্থী। কোচিং শেষে সব শিক্ষার্থী চলে গেলেও তাকে কোচিংয়ের আশা ম্যাডাম বলে- তুমি দোতলায় গিয়ে তাপস স্যারের কাছে ভূগোল পড়ে এসো। ওই ছাত্রী আশা ম্যাডামকে জানান, ভূগোল ক্লাস তো অন্য ম্যাডাম পড়ান, তিনি তো আজ আসেননি। তারপরেও আশা ম্যাডাম বলেন, তুমি দোতলায় যাও তাপস স্যারের কাছে গিয়ে ভূগোল পড়ে আসো। আশা ম্যাডামের কথায় ওই ছাত্রী দোতলার একটি কক্ষে গেলে তাপস ওই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করে। ঘটনাটি কাউকে না বলতে তাকে হুমকি দেওয়া হয়। ওই ছাত্রীর অভিযোগ, ঘটনার সঙ্গে আশা ম্যাডামও জড়িত।

 

এ বিষয়ে ছাত্রীর বাবা মিজানুর রহমান অপুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার মেয়ে এই কোচিংয়ে পড়ে তিনমাস যাবত। এর আগেও তাপসের বিরুদ্ধে ফতুল্লা থানায় আরেক ছাত্রী শ্লীলতাহানীর অভিযোগ করেছিল। এই অভিযোগে সে গ্রেপ্তারও হয়েছিল। এর কয়েক বছর আগে লম্পট শিক্ষক তাপস ফতুল্লা পোষ্টা অফিস এলাকায় এক ছাত্রীকে প্রাইভেট পড়াতে গিয়ে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে ফতুল্লা ষ্টেশন এলাকায় প্রকাশ্যে গণধোলাইয়ের শিকারও হয়। ফতুল্লা মডেল থানার ওসি শাহ মঞ্জুর কাদের বলেন, আমরা ঘটনার তদন্ত করেছি। ওই কোচিংয়ের একজন ছাত্রের বক্তব্য নিয়েছি। প্রাথমিকভাবে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।

 

উল্লেখ্য, তাপসের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ দীর্ঘদিনের। ইতোমধ্যে ফতুল্লা ষ্টেশন এলাকায় প্রকাশ্যে গণধোলাইয়ের শিকার হয় এই কথিত শিক্ষক। এছাড়া গত বছর একই অভিযোগে ফতুল্লা থানা পুলিশের হাতে আটক হয়। যা পরে প্রভাবশালীদের মাধ্যমে ধামাচাপাা দেয়া হয়। প্রসঙ্গত, গত ২৯ অক্টোবর দুপুরে শিক্ষক তাপসের পক্ষে তার পরিবারের সদস্যরা নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সংবাদ সম্মেলন ও মানববন্ধন করে তাপসকে নির্দোষ দাবি করেন।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» মাশরাফি-মাহমুদউল্লাহর পারিশ্রমিক ৩৫ লাখ টাকা করে

» মেয়র প্রার্থীর মা স্ত্রী ও ভাইসহ ৫ জনকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠালো নৌকার সমর্থকরা

» ঝিনাইদহের চাকলা পাড়ার আলোচিত মিনি পতিতালয় ও মাদকের গডফাদার এলাকাবাসীর অভিযোগ

» নষ্ট হচ্ছে ৫০ বিঘা জমির আবাদি ফসল, প্রতিকার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন

» আপত্তিকর ভিডিও পোস্ট: অভিনেত্রী সানাই সুপ্রভা আটক

» ছবিতে কি বলে! তাহলে পলাশ সমর্থকদের জন্য কি চাদাঁবাজি জায়েজ ?

» গলাচিপায় ৭ লক্ষ ২৪ হাজার রেণু পোনা জব্দ

» র‌্যাব-৬ এর পৃথক দুটি অভিযানে গাঁজাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক

» ১১ সদস্যের বিএসএফ প্রতিনিধি দল এখন বাংলাদেশে

» সেন্সরে আটকে গেল রণভীর-আলিয়ার চুমু

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

বার্তা সম্পাদক : মোঃ খোকন প্রধান

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৬ই ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ফতুল্লায় কোচিংয়ে ছাত্রী ধর্ষণকারী লম্পট তাপস’র সহায়তাকারী কে এই আশা!!

উজ্জীবিত বাংলাদেশ:- ফতুল্লায় এডুকেশনাল কোচিং সেন্টারের আড়ালে লম্পট শিক্ষকের যৌন লালসার শিকার হয়ে ধর্ষিত হয় দশম শ্রেণির এক ছাত্রী । আর এ কাজে সহায়তার অভিযোগ উঠেছে ওই কোচিংয়ে কর্মরত আশা নামের এক মহিলা শিক্ষিকার বিরুদ্ধে। ধর্ষিতার পরিবার ও এলাকাবাসীর দাবি লম্পট তাপসের পাশাপাশি অপকর্মের সহায়তাকারী কথিত শিক্ষিকা আশাকেও আইনের আওতায় আনা হোক।

 

২১ অক্টোবর সন্ধ্যায় দশম শ্রেণির ওই ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়। ওই ছাত্রীর মায়ের করা মামলায় গত ২৩ অক্টোবর তাপস কুমারকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

 

জানা যায়, ফতুল্লা রেলস্টেশন সংলগ্ন এডুকেশনাল কেয়ার নামে তাপস কুমার সিংয়ের কোচিং সেন্টার রয়েছে। ওই কোচিংয়ে ষষ্ঠ থেকে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কোচিং করানো হয়। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার সস্তাপুর এলাকার দশম শ্রেণির ওই ছাত্রী দেড় মাস আগে তাপস সিংয়ের কোচিংয়ে ভর্তি হয়। ছাত্রীর মা অভিযোগ করেন, এসএসসি পরীক্ষা সামনে রেখে তিনি তার মেয়েকে ওই কোচিংয়ে ভর্তি করান। কোচিং সেন্টারের প্রতিটি কক্ষে সিসি টিভি ক্যামেরা থাকায় তিনি নিশ্চিন্ত হয়ে মেয়েকে ওই কোচিংয়ে দেন।

 

২১ অক্টোবর সন্ধ্যায় বাসায় ফিরে মেয়ে তাকে জানায়, সে ওই কোচিংয়ে আর পড়বে না। তাপস স্যারের ব্যবহার তার ভালো লাগে না। এরপর তিনি মেয়েকে জেরা করে ঘটনা সম্পর্কে জেনে থানায় গিয়ে মামলা করলে পরদিন পুলিশ তাপসকে গ্রেফতার করে।

 

ওই ছাত্রী জানায়, ঘটনার দিন সে যথারীতি কোচিংয়ে যায়। কোচিংয়ে সে-ই একমাত্র মানবিক বিভাগের ছাত্রী। বাকিরা বিজ্ঞান এবং ব্যবসায় শিক্ষার শিক্ষার্থী। কোচিং শেষে সব শিক্ষার্থী চলে গেলেও তাকে কোচিংয়ের আশা ম্যাডাম বলে- তুমি দোতলায় গিয়ে তাপস স্যারের কাছে ভূগোল পড়ে এসো। ওই ছাত্রী আশা ম্যাডামকে জানান, ভূগোল ক্লাস তো অন্য ম্যাডাম পড়ান, তিনি তো আজ আসেননি। তারপরেও আশা ম্যাডাম বলেন, তুমি দোতলায় যাও তাপস স্যারের কাছে গিয়ে ভূগোল পড়ে আসো। আশা ম্যাডামের কথায় ওই ছাত্রী দোতলার একটি কক্ষে গেলে তাপস ওই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করে। ঘটনাটি কাউকে না বলতে তাকে হুমকি দেওয়া হয়। ওই ছাত্রীর অভিযোগ, ঘটনার সঙ্গে আশা ম্যাডামও জড়িত।

 

এ বিষয়ে ছাত্রীর বাবা মিজানুর রহমান অপুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার মেয়ে এই কোচিংয়ে পড়ে তিনমাস যাবত। এর আগেও তাপসের বিরুদ্ধে ফতুল্লা থানায় আরেক ছাত্রী শ্লীলতাহানীর অভিযোগ করেছিল। এই অভিযোগে সে গ্রেপ্তারও হয়েছিল। এর কয়েক বছর আগে লম্পট শিক্ষক তাপস ফতুল্লা পোষ্টা অফিস এলাকায় এক ছাত্রীকে প্রাইভেট পড়াতে গিয়ে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে ফতুল্লা ষ্টেশন এলাকায় প্রকাশ্যে গণধোলাইয়ের শিকারও হয়। ফতুল্লা মডেল থানার ওসি শাহ মঞ্জুর কাদের বলেন, আমরা ঘটনার তদন্ত করেছি। ওই কোচিংয়ের একজন ছাত্রের বক্তব্য নিয়েছি। প্রাথমিকভাবে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।

 

উল্লেখ্য, তাপসের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ দীর্ঘদিনের। ইতোমধ্যে ফতুল্লা ষ্টেশন এলাকায় প্রকাশ্যে গণধোলাইয়ের শিকার হয় এই কথিত শিক্ষক। এছাড়া গত বছর একই অভিযোগে ফতুল্লা থানা পুলিশের হাতে আটক হয়। যা পরে প্রভাবশালীদের মাধ্যমে ধামাচাপাা দেয়া হয়। প্রসঙ্গত, গত ২৯ অক্টোবর দুপুরে শিক্ষক তাপসের পক্ষে তার পরিবারের সদস্যরা নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সংবাদ সম্মেলন ও মানববন্ধন করে তাপসকে নির্দোষ দাবি করেন।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

বার্তা সম্পাদক : মোঃ খোকন প্রধান

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY দৈনিক উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD