বেরিয়ে আসছে নানা তথ্য: আবরারকে আগেও হুমকি দিয়েছিলেন অমিত সাহা

বেশ কিছুদিন ধরেই আবরার ফাহাদকে ফেসবুকে নজরদারি করছিলেন বুয়েট ছাত্রলীগের কিছু নেতা। তাঁরা আবরারকে শিবির বলে সন্দেহ করেন। এ ছাড়া ভিন্ন মতাদর্শীদের কক্ষে ডেকে নিয়ে হুমকি ও নি*র্যাতন চালাতেন তাঁরা। ফেসবুক পোস্টের কারণে আবরারকে ২০১১ নম্বর রুমে ডেকে সতর্ক করেছিলেন বুয়েট ছাত্রলীগের অমিত সাহা। এদিকে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে রাজধানীর সবুজবাগের কালিবাড়ি থেকে সকাল ১১টায় গ্রেফতার করা হয় অমিতকে। অমিত ছাত্রলীগের বুয়েট শাখার আইনবিষয়ক উপসম্পাদক এবং পুরকৌশল বিভাগের ছাত্র।

 

গত ৩ অক্টোবর একটি ফেসবুক পোস্টের কারণে আবরারকে ২০১১ নম্বর রুমে ডেকে সতর্ক করেছিলেন অমিত সাহা। হ*ত্যাকাণ্ডের দিন রাসেল ও ফুয়াদ আবরারকে মা*রধর করার কথা বলেন। এটাকে তাঁদের ভাষায় ‘ট্রিটমেন্ট দিতে’ বলা হয়। গত রবিবার রাতে আবরারকে হলের কক্ষ থেকে ডেকে নিয়ে যায় ছাত্রলীগের বুয়েট শাখার কয়েকজন সদস্য। তাঁকে নি*র্যাতনের পর রাত আড়াইটার দিকে হলের সিঁড়ির পাশে আবরারকে ফেলে রাখে তারা। পরে ডাক্তারকে খবর দিলে তিনি এসে আবরারকে মৃত ঘোষণা করেন।

 

আবরারের মৃত্যুর পর দায়ের করা মামলায় ২০১১ নম্বর কক্ষের বাসিন্দা অমিতের নাম না থাকা নিয়ে চলছিল দেশজুড়ে বিতর্ক। সবশেষ এতে নতুন করে মাত্রা যোগ করে অমিতের একটি মেসেজ ফাঁস। যা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে ওঠে। এতে দেখা যায়, হ*ত্যাকাণ্ডের আগে আবরারের সহপাঠী এক শিক্ষার্থীকে অমিত মেসেঞ্জারে জিজ্ঞেস করেছেন, আবরার ফাহাদ কি হলে আছে? এ ধরনের একটি স্ক্রিনশট সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ১৭তম ব্যাচের ওই শিক্ষার্থী নিজের পরিচয় প্রকাশ করতে না চাওয়ায় তারই এক সিনিয়র এ বিষয়টি ফেসবুকে প্রকাশ করেন। ‘আবরার হ*ত্যায় অমিত জড়িত নয়’ বলে তার বন্ধুরা প্রথমে স্ট্যাটাস দিলেও পরে নতুন স্ক্রিনশটটি প্রচারিত হলে তারাও সমর্থন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। সূত্র : কালের কন্ঠ

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» জয়পুরহাটে ৯১০ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ চাষের লক্ষ্যমাত্রা

» চলমান সংকটের মাঝে রাতারাতি পেঁয়াজের দাম একলাফে কমলো ৫০ টাকা

» শপথ নিলেন ভারতের নতুন প্রধান বিচারপতি এসএ বোবদে

» আমি মুখ খুললে কাদের সাহেবের রাজনীতি শেষ হয়ে যাবে: বিদিশা

» আজ ভাসানীর ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী

» বাগেরহাটে মাদ্রাসার জেডিসিতে বহিষ্কৃত হওয়ায় ছাত্রীর আত্মহত্যা

» কলাপাড়ায় “বর্ণমালা” নামের লিটল পত্রিকার মোড়ক উম্মোচন

» দুর্নীতি-ধর্মব্যবসা সমানভাবে বাড়ছে -মোমিন মেহেদী

» বিএনপির রাজনীতি এখন ‘আত্মরক্ষামূলক’ প্রয়োজন ‘আক্রমণাত্মক’: গয়েশ্বর

» মহানগর বিএনপির উদ্যোগে জালাল হাজ্বীর কবরে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯,

বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৩রা অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বেরিয়ে আসছে নানা তথ্য: আবরারকে আগেও হুমকি দিয়েছিলেন অমিত সাহা

বেশ কিছুদিন ধরেই আবরার ফাহাদকে ফেসবুকে নজরদারি করছিলেন বুয়েট ছাত্রলীগের কিছু নেতা। তাঁরা আবরারকে শিবির বলে সন্দেহ করেন। এ ছাড়া ভিন্ন মতাদর্শীদের কক্ষে ডেকে নিয়ে হুমকি ও নি*র্যাতন চালাতেন তাঁরা। ফেসবুক পোস্টের কারণে আবরারকে ২০১১ নম্বর রুমে ডেকে সতর্ক করেছিলেন বুয়েট ছাত্রলীগের অমিত সাহা। এদিকে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে রাজধানীর সবুজবাগের কালিবাড়ি থেকে সকাল ১১টায় গ্রেফতার করা হয় অমিতকে। অমিত ছাত্রলীগের বুয়েট শাখার আইনবিষয়ক উপসম্পাদক এবং পুরকৌশল বিভাগের ছাত্র।

 

গত ৩ অক্টোবর একটি ফেসবুক পোস্টের কারণে আবরারকে ২০১১ নম্বর রুমে ডেকে সতর্ক করেছিলেন অমিত সাহা। হ*ত্যাকাণ্ডের দিন রাসেল ও ফুয়াদ আবরারকে মা*রধর করার কথা বলেন। এটাকে তাঁদের ভাষায় ‘ট্রিটমেন্ট দিতে’ বলা হয়। গত রবিবার রাতে আবরারকে হলের কক্ষ থেকে ডেকে নিয়ে যায় ছাত্রলীগের বুয়েট শাখার কয়েকজন সদস্য। তাঁকে নি*র্যাতনের পর রাত আড়াইটার দিকে হলের সিঁড়ির পাশে আবরারকে ফেলে রাখে তারা। পরে ডাক্তারকে খবর দিলে তিনি এসে আবরারকে মৃত ঘোষণা করেন।

 

আবরারের মৃত্যুর পর দায়ের করা মামলায় ২০১১ নম্বর কক্ষের বাসিন্দা অমিতের নাম না থাকা নিয়ে চলছিল দেশজুড়ে বিতর্ক। সবশেষ এতে নতুন করে মাত্রা যোগ করে অমিতের একটি মেসেজ ফাঁস। যা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে ওঠে। এতে দেখা যায়, হ*ত্যাকাণ্ডের আগে আবরারের সহপাঠী এক শিক্ষার্থীকে অমিত মেসেঞ্জারে জিজ্ঞেস করেছেন, আবরার ফাহাদ কি হলে আছে? এ ধরনের একটি স্ক্রিনশট সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ১৭তম ব্যাচের ওই শিক্ষার্থী নিজের পরিচয় প্রকাশ করতে না চাওয়ায় তারই এক সিনিয়র এ বিষয়টি ফেসবুকে প্রকাশ করেন। ‘আবরার হ*ত্যায় অমিত জড়িত নয়’ বলে তার বন্ধুরা প্রথমে স্ট্যাটাস দিলেও পরে নতুন স্ক্রিনশটটি প্রচারিত হলে তারাও সমর্থন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। সূত্র : কালের কন্ঠ

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯,

বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD