সোনারগাঁও সাব-রেজিষ্টার অফিসে বেপরোয়া প্রতারক চক্র

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ডাক নাম ‘ইসহাক’। হ্যাংলা পাতলা দেহ গড়ন। গায়ের রং কালো। পেশায় অত্যন্ত বিশ্বাসী কাজ দলিল লিখক। ইসহাককে দেখতে সাদাসিধে সরল প্রকৃতির দেখালেও আদতে তা নয়। তার সাদাসিধে ও সরল চেহারাকে পুঁজি করে গ্রুপের সদস্যদের দিয়ে একের পর করে যাচ্ছে অপকর্ম ।

 

অভিযোগ রয়েছে, উপজেলার জয়রামপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে ও বৈদ্যের বাজার সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের সাবেক সভাপতি শাহ মো: আবু ইসহাক তার একক আধিপত্য টিকিয়ে রাখতে বৈদ্যেরবাজার সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের সাবেক সভাপতি শাহ মো: আবু ইসহাক তার ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে সিন্ডিকেট করে তার গ্রæপের অন্যান্য সদস্যরা সরকার ও জনস্বার্থ বিরোধী কর্মকাÐে লিপ্ত। এমন কি বৈদ্যের বাজার সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের দলিল লিখক ও ভেন্ডার সমিতির নির্বাচনে পরাজিত হয়ে আক্রোশে বশবর্তী হয়ে প্রতিপক্ষের উপর হামলা চালিয়ে বেশ কয়েকজনকে শুধু আহতই করেননি তাদের সাথে থাকা নগদ টাকা-পয়সাও ছিনিয়ে নিয়েছে গ্রুপটির সদস্যরা। এ ব্যাপারে সোনারগাঁও থানায় একটি মামলা (৩৮/৬৩ তারিখ ২৭ ফেব্রæয়ারী ২০২১ ইং) হয়েছিল। যদিও মামলাটিতে বর্তমানে জামিনে আছেন ইসহাক গ্রুপের ইসহাক (৫০) ও তার ভাই আলী হায়দার (৪৫), আমজাদ হোসেন (৩৯) ও তার ভাই নুরনবী (৩৫), ইসহাকের ভাগিনা মির্জা গাজী (২৪), ইসহাকের বোনের স্বামী হযরত আলীসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৪/৫ জন।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বৈদ্যেরবাজার সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের একাধিক সূত্র জানায়, ইসহাক গ্রুপের বর্তমান কর্মকাÐে তাদের ধারণা এ গ্রুপটি পূর্বপরিকল্পিতভাবে বিভিন্ন অপকর্মের মাধ্যমে তাদের আখের ঘোঁচাতেই তার ভাই, বোন, বোনের স্বামী, ভাগনিসহ বিভিন্ন স্বজনদেরকে নকল কারক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন।

 

অভিযোগ রয়েছে, ইসহাক গ্রুপের সদস্যদের মধ্যে উপজেলার পৌর এলাকার দরপত ঠেটালিয়া গ্রামের আহসান উল্লাহর ছেলে ও তার ভাগীনা আমজাদ হোসেন, তার ভাগিনা মির্জা গাজী ও ইসহাকের বোনের স্বামী হযরত আলী’র দলিল লিখকের কোন সনদ না থাকলেও প্রকাশ্য দিবালোকে সাবরেজিষ্ট্রি অফিসে ইসহাকের কক্ষের ভেতর বসে বীরদর্পে দলিল লিখার কাজ করে যাচ্ছে।

 

সূত্রটি দাবি করে, ইসহাক ও তার ভাই আলী হায়দার তার গ্রুপের আমজাদ হোসেন, তার ভাগিনা মির্জা গাজী ও ইসহাকের বোনের স্বামী হযরত আলী’র মাধ্যমে অফিসের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সরিয়ে পরে মোটা অংঙ্কের টাকার বিনিময়ে তাদের উদ্দেশ্য সফল করে। এমনও অভিযোগ রয়েছে, এই গ্রুপটি বর্তমান সোনারগাঁওয়ে জাল দলিল প্রতারক ইসহাক গ্রুপ নামে ব্যাপক পরিচিতি।

 

সূত্রটি জানায়, ইসহাক গ্রুপ শুধু তাদের স্বজনদের মাধ্যমে সিন্ডিকেট করেই ক্ষ্যান্ত নয়। এই গ্রুপটি অন্য একটি চক্রের সাথে মিলে দীর্ঘ দিন ধরে অফিসে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি করে সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে আসা মানুষদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। কেউ কোন প্রতিবাদ করলে তাদের উপর চড়াও হয়ে আহত করে।

 

ভুয়া ও জাল দলিল লিখক প্রতারক ইসহাক গ্রুপের অপকর্মের বিষয়ে সম্প্রতি বৈদ্যের বাজার সাব-রেজিষ্টার অফিসের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ অন্যান্য দলিল লিখকরা তাদের স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ দূর্নীতি দমন কমিশন, মহাপরিদর্শক নিবন্ধন অধিদপ্তর, ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক, জেলা রেজিষ্টার, নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপারসহ বিভিন্ন দফতরে অভিযোগও দিয়েছে।

 

এছাড়া, তার ভাগিনা আমজাদ এক সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী এক বিশেষ বাহিনীতে ছিল। পরে দুর্নীতির কারণে তার চাকুরি চলে যায়। এখনও বিভিন্ন সময় ওই বিশেষ বাহিনীর পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম করে যাচ্ছে। এমনকি কিছু দিন আগে এক নারীসহ বন্দর উপজেলার মদনপুরে এক রেস্তোরায় তার প্রথম স্ত্রী ও শশুর বাড়ির লোকদের হাতে সকলের সামনে হেনস্তা হয়। বিষয়টি নিয়ে থানা পুলিশ করলে তার প্রথম স্ত্রীকে ছেড়ে দেয়াসহ প্রাণনাশেরও হুমকী দিয়েছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্র জানায়। এছাড়া, সে প্রায় সময় তার আগের পেশার নাম ব্যবহার করে মানুষকে ভয়ভীতি দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

 

বৈদ্যেরবাজার সাব রেজিষ্টার অফিসের দলিল লিখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শহীদ সরকার জানান, ইসহাকসহ একাধিক চক্র দলিল লিখক সমিতিকে নানা ভাবে হেয় করতে আঁদাজল খেয়ে নেমেছে। প্রতিবাদ করলে হামলা-মামলা করে। আমরা বিভিন্ন দফতরে অভিযোগও করেছি। সমিতির সদস্যরা অনেক বুঝানোর পরও তারা সুধরাচ্ছেনা। আমরা প্রশাসনের মাধ্যমে তাদের অপকর্মের অবসান চাই।

 

এ ব্যাপারে ইসহাকের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



»  ঝিনাইদহে পুলিশ কর্মকর্তা দুই ভাইয়ের মৃত্যু, গ্রামজুড়ে চলছে শোকের মাতম!

» কাউন্সিলর ও মেয়রের সাথে বাকবিতন্ডা: কুয়াকাটায় অর্ধশতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

» গলাচিপায় নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রীর আগমনে উপজেলা আওয়ামী লীগের ফুলেল শুভেচ্ছা

» কলাপাড়ায় যুবলীগের বৃক্ষরোপণ

» ফতুল্লা থানায় এবার কাউন্সিলর খোরশেদের স্ত্রীর আফরোজার জিডি

» এক মাস ধরে নিখোঁজ ফতুল্লার যুবক রতন

» পেরুকে পাত্তাই দিলো না নেইমার-স্যান্দ্রোরা

» কুতুবপুরের অপরাধযজ্ঞের মুকুটবিহীন সম্রাট এরা…!

» ফতুল্লার চানমারী থে‌কে গাজাঁসহ তিন মাদক বি‌ক্রেতা গ্রেফতার

» ফতুল্লায় বাবার সাথে ঘুরতে বের হয়ে ট্রাক চাপায় শিশুর মৃত্যু




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, খ্রিষ্টাব্দ, ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সোনারগাঁও সাব-রেজিষ্টার অফিসে বেপরোয়া প্রতারক চক্র

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

ডাক নাম ‘ইসহাক’। হ্যাংলা পাতলা দেহ গড়ন। গায়ের রং কালো। পেশায় অত্যন্ত বিশ্বাসী কাজ দলিল লিখক। ইসহাককে দেখতে সাদাসিধে সরল প্রকৃতির দেখালেও আদতে তা নয়। তার সাদাসিধে ও সরল চেহারাকে পুঁজি করে গ্রুপের সদস্যদের দিয়ে একের পর করে যাচ্ছে অপকর্ম ।

 

অভিযোগ রয়েছে, উপজেলার জয়রামপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে ও বৈদ্যের বাজার সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের সাবেক সভাপতি শাহ মো: আবু ইসহাক তার একক আধিপত্য টিকিয়ে রাখতে বৈদ্যেরবাজার সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের সাবেক সভাপতি শাহ মো: আবু ইসহাক তার ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে সিন্ডিকেট করে তার গ্রæপের অন্যান্য সদস্যরা সরকার ও জনস্বার্থ বিরোধী কর্মকাÐে লিপ্ত। এমন কি বৈদ্যের বাজার সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের দলিল লিখক ও ভেন্ডার সমিতির নির্বাচনে পরাজিত হয়ে আক্রোশে বশবর্তী হয়ে প্রতিপক্ষের উপর হামলা চালিয়ে বেশ কয়েকজনকে শুধু আহতই করেননি তাদের সাথে থাকা নগদ টাকা-পয়সাও ছিনিয়ে নিয়েছে গ্রুপটির সদস্যরা। এ ব্যাপারে সোনারগাঁও থানায় একটি মামলা (৩৮/৬৩ তারিখ ২৭ ফেব্রæয়ারী ২০২১ ইং) হয়েছিল। যদিও মামলাটিতে বর্তমানে জামিনে আছেন ইসহাক গ্রুপের ইসহাক (৫০) ও তার ভাই আলী হায়দার (৪৫), আমজাদ হোসেন (৩৯) ও তার ভাই নুরনবী (৩৫), ইসহাকের ভাগিনা মির্জা গাজী (২৪), ইসহাকের বোনের স্বামী হযরত আলীসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৪/৫ জন।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বৈদ্যেরবাজার সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের একাধিক সূত্র জানায়, ইসহাক গ্রুপের বর্তমান কর্মকাÐে তাদের ধারণা এ গ্রুপটি পূর্বপরিকল্পিতভাবে বিভিন্ন অপকর্মের মাধ্যমে তাদের আখের ঘোঁচাতেই তার ভাই, বোন, বোনের স্বামী, ভাগনিসহ বিভিন্ন স্বজনদেরকে নকল কারক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন।

 

অভিযোগ রয়েছে, ইসহাক গ্রুপের সদস্যদের মধ্যে উপজেলার পৌর এলাকার দরপত ঠেটালিয়া গ্রামের আহসান উল্লাহর ছেলে ও তার ভাগীনা আমজাদ হোসেন, তার ভাগিনা মির্জা গাজী ও ইসহাকের বোনের স্বামী হযরত আলী’র দলিল লিখকের কোন সনদ না থাকলেও প্রকাশ্য দিবালোকে সাবরেজিষ্ট্রি অফিসে ইসহাকের কক্ষের ভেতর বসে বীরদর্পে দলিল লিখার কাজ করে যাচ্ছে।

 

সূত্রটি দাবি করে, ইসহাক ও তার ভাই আলী হায়দার তার গ্রুপের আমজাদ হোসেন, তার ভাগিনা মির্জা গাজী ও ইসহাকের বোনের স্বামী হযরত আলী’র মাধ্যমে অফিসের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সরিয়ে পরে মোটা অংঙ্কের টাকার বিনিময়ে তাদের উদ্দেশ্য সফল করে। এমনও অভিযোগ রয়েছে, এই গ্রুপটি বর্তমান সোনারগাঁওয়ে জাল দলিল প্রতারক ইসহাক গ্রুপ নামে ব্যাপক পরিচিতি।

 

সূত্রটি জানায়, ইসহাক গ্রুপ শুধু তাদের স্বজনদের মাধ্যমে সিন্ডিকেট করেই ক্ষ্যান্ত নয়। এই গ্রুপটি অন্য একটি চক্রের সাথে মিলে দীর্ঘ দিন ধরে অফিসে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি করে সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে আসা মানুষদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। কেউ কোন প্রতিবাদ করলে তাদের উপর চড়াও হয়ে আহত করে।

 

ভুয়া ও জাল দলিল লিখক প্রতারক ইসহাক গ্রুপের অপকর্মের বিষয়ে সম্প্রতি বৈদ্যের বাজার সাব-রেজিষ্টার অফিসের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ অন্যান্য দলিল লিখকরা তাদের স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ দূর্নীতি দমন কমিশন, মহাপরিদর্শক নিবন্ধন অধিদপ্তর, ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক, জেলা রেজিষ্টার, নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপারসহ বিভিন্ন দফতরে অভিযোগও দিয়েছে।

 

এছাড়া, তার ভাগিনা আমজাদ এক সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী এক বিশেষ বাহিনীতে ছিল। পরে দুর্নীতির কারণে তার চাকুরি চলে যায়। এখনও বিভিন্ন সময় ওই বিশেষ বাহিনীর পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম করে যাচ্ছে। এমনকি কিছু দিন আগে এক নারীসহ বন্দর উপজেলার মদনপুরে এক রেস্তোরায় তার প্রথম স্ত্রী ও শশুর বাড়ির লোকদের হাতে সকলের সামনে হেনস্তা হয়। বিষয়টি নিয়ে থানা পুলিশ করলে তার প্রথম স্ত্রীকে ছেড়ে দেয়াসহ প্রাণনাশেরও হুমকী দিয়েছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্র জানায়। এছাড়া, সে প্রায় সময় তার আগের পেশার নাম ব্যবহার করে মানুষকে ভয়ভীতি দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

 

বৈদ্যেরবাজার সাব রেজিষ্টার অফিসের দলিল লিখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শহীদ সরকার জানান, ইসহাকসহ একাধিক চক্র দলিল লিখক সমিতিকে নানা ভাবে হেয় করতে আঁদাজল খেয়ে নেমেছে। প্রতিবাদ করলে হামলা-মামলা করে। আমরা বিভিন্ন দফতরে অভিযোগও করেছি। সমিতির সদস্যরা অনেক বুঝানোর পরও তারা সুধরাচ্ছেনা। আমরা প্রশাসনের মাধ্যমে তাদের অপকর্মের অবসান চাই।

 

এ ব্যাপারে ইসহাকের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD