অনুপ্রেবশকারীদের হাতে জিম্মি কুতুবপুর আ’লীগ!

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে আওয়ামীলীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত কুতুবপুর ইউনিয়ন। কিন্তু সময়ের পরিবর্তনে সেই আওয়ামীলীগের ঘাঁিট হিসেবে পরিচিত কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগকে ধ্বংস করতে মাঠে নেমেছেন বিএনপি জামায়াতের এজেন্টরা। বিএনপি জামায়াতের এজেন্ডা বাস্তবায়নে রাজপথের লড়াকু সৈনিকেদের ধ্বংস করতে মাঠে নেমেছেন তারা। সে মোতাবেক বিভিন্ন ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে দলের দুঃসময়ের নেতৃবৃন্দকে জিম্মি দশায় আবদ্ধ করে রেখেছেন। নব্য আওয়ামীলীগারদের অব্যাহত নির্যাতনের মধ্য দিয়ে তাদের জীবন অতিবাহিত করতে হচ্ছে। এমনকি নব্য আওয়ামীলীগে যোগদান করা বিএনপির নেতৃবৃন্দ তাদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে সূক্ষè পরিকল্পনায় বিভিন্নভাবে হয়রানী করে যাচ্ছেন কুতুবপুরে আওয়ামীলীগের তৃণমূল পর্যায়ের নেতৃবৃন্দকে। এঅবস্থায় কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের মাঝে অস্বস্তি বিরাজ করছে। কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের সাথে কথা বললে তারা জানান, কুতুবপুর আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ দলীয় স্বার্থ অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন। বিএনপি জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে এলাকায়ও থাকতে পারেননি তারা। একের পর এক মিথ্যা মামলায় তারা এলাকা ছাড়া ছিলেন দীর্ঘ সময়। তবুও দলীয় স্বার্থে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাজপথে অবস্থানের মাধ্যমে নৌকার পক্ষে শ্লোগান দিয়ে কুতুবপুরের মাটিতে আওয়ামীলীগের অস্তিত্বের জাগান দিয়ে এসেছেন নেতৃবৃন্দ। অথচ দল ক্ষমতায় আসার পর একটু ভাল থাকবোতো দূরের কথা উল্টো আওয়ামীলীগের দুঃসময়ে থাকা নেতৃবৃন্দকেই অনুপ্রবেশকারীদের আক্রোশের স্বীকার হতে হচ্ছে। কুতুবপুর আওয়ামীলীগের তৃনমূল নেতৃবৃন্দ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ক্ষমতাসীনদলের কতিপয় কিছু প্রভাবশালী নেতৃবৃন্দকে ম্যানেজ করে বিএনপি জামায়াতের লোকজন আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে অনুপ্রবেশের মাধ্যমে দলের মধ্যে বিশৃংখলা সৃষ্টি করে আসছেন। মূলত বিএনপি জামায়াতের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করার জন্যই বিএনপির লোকজন আওয়ামীলীগে যোগদানের নাটক মঞ্চস্থ করেছেন। উপরি উপরি আওয়ামীলীগের কথা বললেও তাদের উদ্দেশ্যেই হচ্ছে বিএনপির জামায়াতের নীল নকশা বাস্তবায়নের মাধ্যমে কুতুবপুর আওয়ামীলীগের অস্তিত্ব বিনাশ করা।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের একাধিক নেতৃবৃন্দ বলেন, কুতুবপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক মীর হোসেন মীরু। দলের জন্য রয়েছে তার অগনিত ত্যাগের নজির। দলের বিভিন্ন দলীয় র্কসূচীতে তার রয়েছে সরব উপস্থিতি। এমনকি বিএনপি জামায়াত জোট সরকারের আমলে একাধিক মিথ্যা মামলার স্বীকারসহ বিএনপি জামায়াতের হামলার স্বীকারও হয়েছে দলের দুঃসময়ের রাজপথের সৈনিক মীর হোসেন মীরু। অথচ এই মীরুসহ কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জসীম উদ্দিনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন কুৎসা রটানো হচ্ছে। সমাজে তাদের বিতর্কিত করার অপচেষ্টা লিপ্ত রয়েছে অনুপ্রবেশ কারীরা। বিএনপি জামায়াত ক্যাডারদের এজেন্ডা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন গণমাধ্যমে তাদের সন্ত্রাসী বলে আখ্যা দিয়ে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছে। মূলত কুতুবপুর আওামীলীগকে ধ্বংস করার জন্যই অনুপ্রবেশকারীরা তাদের বিশেষ মিশন বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছেন। অথচ ঐ সকল অনুপ্রবেশকারীরা জানেনা না, মাটি থেকে উঠে আসা মীরু আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। দলের জন্য রয়েছে তার অকৃতিম ত্যাগ। কোন ষড়যন্ত্রই কুতুবপুর আওয়ামীলীগকে ধ্বংস করতে পারবেন না। যে সকল কতিপয় অনুপ্রবেশকারীরা কুতুবপুর আওয়ামীলীগকে ধ্বংস করার চেষ্টা করবে তাদেরকেই দাতভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে বলেও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ হুশিয়ারী উচ্চারন করেন। কুতুবপুর আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ মনে করেন, বিএনপির প্রভাবশালী নেতৃবৃন্দের অভয়রাণ্যে ভরপুর ছিল কুতুবপুর ইউনিয়ন। বিএনপির শক্তিশালী ঘাঁটি হিসেবেও পরিচিত ছিল কুতুবপুর ইউনিয়ন। বৃহত্তর এ ইউনিয়নটিকে আওয়ামীলীগের ঘাঁটিতে রূপান্তর করাটা এতটা সহজ ছিল না! কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জসীম উদ্দিন এবং স্বেচ্ছাস্বেকলীগ নেতা মীর হোসেন মীরুর মত ত্যাগী নেতৃবৃন্দের কারনেই আজকে শক্তিশালী অবস্থানে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের রাজনীতি।

 

কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জসীম উদ্দিন বলেন, কুতুবপুর ইউনিয়ন উপজেলার অন্যান্য ইউনিয়নের মধ্যে বৃহত্তম একটি ইউনিয়ন। এ ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা দলীয় স্বার্থ হাছিলে অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন। হঠাৎ করে এক সময়ের বিএনপির ক্যাডার নব্য আওয়ামীলীগে যোগদানের মাধ্যমে দলের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করতে চাইছে। মূলত বিএনপি জামায়াত শিবিরের এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্যই অনুপ্রবেশকারীরা তাদের অপচেষ্টা চালিয়ে আসছেন। কিন্তু কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ বর্তমানে ঐক্যবদ্ধ রয়েছেন। যতই ষড়যন্ত্র করুক না কেন কুতুবপুর আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের মাঝে বিভেদ সৃষ্টি করতে পারবে না। তবে নব্য আওয়ামীলীগাররা যদি তাদের এসকল কর্মকান্ড বন্ধ না করেন তাহলে রাজপথে অবস্থানের মাধ্যমে এক সময়ের বিএনপির নেতৃত্বদানকারী নব্য আওয়ামীলীগারদের চিহ্নিত করে তাদের দাত ভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে বলেও তিনি হুশিয়ারী উচ্চারন করেন।

 

কুতুবপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক মীর হোসেন মীরু বলেন, দলের জন্য আমরা রাজপথে অবস্থানের মাধ্যমে দাবি আদায় করেছি। আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে কুতুবপুরকে আওয়ামীলীগের ঘাঁটিতে রূপান্তর করেছি। অথচ বিএনপি ঘেষা গুটি কয়েক নেতৃবৃন্দ যাদের কিনা অনুপ্রবেশকারী হিসেবে চিহ্নিত করা হয় সে সকল লোকজন আমাকে নিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে। অথচ তারা জানেন না, যদি আল্লাহ কাউকে সম্মানিত করেন তাহলে কারো সাধ্য নেই তাকে হেও করার। আল্লাহর রহমত আছে বলেই গুলি খাওয়ার পরও বেঁচে আছি। পঙ্গু বরন করেও দলকে ভালবেসে রাজপথে এখনো জয় বাংলা শ্লোগান দেওয়ার মাধ্যমে আওয়ামীলীগের পতাকা ধরে আছি। অথচ দলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারী অনুপ্রবেশকারীদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে বাধা হয়ে দাড়িয়েছি বলেই আমাকে নিয়ে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। মূলত, কুতুবপুর আওয়ামীলীগকে ধ্বংস করার পেছনেই ঐ সকল অনুপ্রবেশকারীরা আমাকে নিয়ে মিথ্যা কল্পকাহিনী বানিয়ে কুৎসা রটাচ্ছেন। যতই ষড়যন্ত্র করুক না কেন কুতুবপুরে বিএএনপি জামায়াত শিবিরের কোন এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে দেয়া হবে না। দাতভাঙ্গা জবাব দেওয়ার মাধ্যমে সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করা হবে বলে হুশিয়ারী উচ্চারন করেন তিনি।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» যৌতুক মামলায় আর্থিক দন্ডপ্রাপ্ত হয়েও সরকারী চাকুরীতে বহাল তবিয়তে প্রধান শিক্ষিকা

» গাজীপুর আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন এডভোকেট শামসুল হক

» ৬ষ্ঠ বছরে পদার্পণ উপলক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ অনলাইন প্রেসক্লাবের অভিষেক অনুষ্ঠিত

» মৌলভীবাজারে দৈনিক গণমুক্তি‘র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

» বুড়িগঙ্গা নদী থেকে অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার

» ফতুল্লায় ইয়াবা ট্যাবলেটসহ শান্ত ও বাবু গ্রেফতার

» আমতলীতে ৪০০ গ্রাম গাঁজা এবং ১০ পিস ইয়াবাসহ আটক ৩ কারবারী

» ফতুল্লায় যমুনা ডিপো গেইট থেকে তেলসহ চুরি হওয়া ট্যাকলড়ী কাচপুরে উদ্ধার

» ফতুল্লায় লঞ্চের ধাক্কায় ট্রলার চালক নিহত

» সাংবাদিকের বাবা-মায়ের উপর হামলা, রক্তাক্ত জখম

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : ফয়সাল আহম্মেদ
সহ-বার্তা সম্পাদক : সেলিম হাওলাদার
editor.kuakatanews@gmail.com

প্রধান কার্যালয় : সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সেহাচর, তক্কারমাঠ রোড, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ।
ফোন : +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ০১৬৭৪৬৩২৫০৯
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯।

Email : ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : বুধবার, ১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, খ্রিষ্টাব্দ, ১৮ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অনুপ্রেবশকারীদের হাতে জিম্মি কুতুবপুর আ’লীগ!

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে আওয়ামীলীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত কুতুবপুর ইউনিয়ন। কিন্তু সময়ের পরিবর্তনে সেই আওয়ামীলীগের ঘাঁিট হিসেবে পরিচিত কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগকে ধ্বংস করতে মাঠে নেমেছেন বিএনপি জামায়াতের এজেন্টরা। বিএনপি জামায়াতের এজেন্ডা বাস্তবায়নে রাজপথের লড়াকু সৈনিকেদের ধ্বংস করতে মাঠে নেমেছেন তারা। সে মোতাবেক বিভিন্ন ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে দলের দুঃসময়ের নেতৃবৃন্দকে জিম্মি দশায় আবদ্ধ করে রেখেছেন। নব্য আওয়ামীলীগারদের অব্যাহত নির্যাতনের মধ্য দিয়ে তাদের জীবন অতিবাহিত করতে হচ্ছে। এমনকি নব্য আওয়ামীলীগে যোগদান করা বিএনপির নেতৃবৃন্দ তাদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে সূক্ষè পরিকল্পনায় বিভিন্নভাবে হয়রানী করে যাচ্ছেন কুতুবপুরে আওয়ামীলীগের তৃণমূল পর্যায়ের নেতৃবৃন্দকে। এঅবস্থায় কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের মাঝে অস্বস্তি বিরাজ করছে। কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের সাথে কথা বললে তারা জানান, কুতুবপুর আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ দলীয় স্বার্থ অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন। বিএনপি জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে এলাকায়ও থাকতে পারেননি তারা। একের পর এক মিথ্যা মামলায় তারা এলাকা ছাড়া ছিলেন দীর্ঘ সময়। তবুও দলীয় স্বার্থে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাজপথে অবস্থানের মাধ্যমে নৌকার পক্ষে শ্লোগান দিয়ে কুতুবপুরের মাটিতে আওয়ামীলীগের অস্তিত্বের জাগান দিয়ে এসেছেন নেতৃবৃন্দ। অথচ দল ক্ষমতায় আসার পর একটু ভাল থাকবোতো দূরের কথা উল্টো আওয়ামীলীগের দুঃসময়ে থাকা নেতৃবৃন্দকেই অনুপ্রবেশকারীদের আক্রোশের স্বীকার হতে হচ্ছে। কুতুবপুর আওয়ামীলীগের তৃনমূল নেতৃবৃন্দ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ক্ষমতাসীনদলের কতিপয় কিছু প্রভাবশালী নেতৃবৃন্দকে ম্যানেজ করে বিএনপি জামায়াতের লোকজন আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে অনুপ্রবেশের মাধ্যমে দলের মধ্যে বিশৃংখলা সৃষ্টি করে আসছেন। মূলত বিএনপি জামায়াতের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করার জন্যই বিএনপির লোকজন আওয়ামীলীগে যোগদানের নাটক মঞ্চস্থ করেছেন। উপরি উপরি আওয়ামীলীগের কথা বললেও তাদের উদ্দেশ্যেই হচ্ছে বিএনপির জামায়াতের নীল নকশা বাস্তবায়নের মাধ্যমে কুতুবপুর আওয়ামীলীগের অস্তিত্ব বিনাশ করা।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের একাধিক নেতৃবৃন্দ বলেন, কুতুবপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক মীর হোসেন মীরু। দলের জন্য রয়েছে তার অগনিত ত্যাগের নজির। দলের বিভিন্ন দলীয় র্কসূচীতে তার রয়েছে সরব উপস্থিতি। এমনকি বিএনপি জামায়াত জোট সরকারের আমলে একাধিক মিথ্যা মামলার স্বীকারসহ বিএনপি জামায়াতের হামলার স্বীকারও হয়েছে দলের দুঃসময়ের রাজপথের সৈনিক মীর হোসেন মীরু। অথচ এই মীরুসহ কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জসীম উদ্দিনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন কুৎসা রটানো হচ্ছে। সমাজে তাদের বিতর্কিত করার অপচেষ্টা লিপ্ত রয়েছে অনুপ্রবেশ কারীরা। বিএনপি জামায়াত ক্যাডারদের এজেন্ডা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন গণমাধ্যমে তাদের সন্ত্রাসী বলে আখ্যা দিয়ে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছে। মূলত কুতুবপুর আওামীলীগকে ধ্বংস করার জন্যই অনুপ্রবেশকারীরা তাদের বিশেষ মিশন বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছেন। অথচ ঐ সকল অনুপ্রবেশকারীরা জানেনা না, মাটি থেকে উঠে আসা মীরু আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। দলের জন্য রয়েছে তার অকৃতিম ত্যাগ। কোন ষড়যন্ত্রই কুতুবপুর আওয়ামীলীগকে ধ্বংস করতে পারবেন না। যে সকল কতিপয় অনুপ্রবেশকারীরা কুতুবপুর আওয়ামীলীগকে ধ্বংস করার চেষ্টা করবে তাদেরকেই দাতভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে বলেও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ হুশিয়ারী উচ্চারন করেন। কুতুবপুর আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ মনে করেন, বিএনপির প্রভাবশালী নেতৃবৃন্দের অভয়রাণ্যে ভরপুর ছিল কুতুবপুর ইউনিয়ন। বিএনপির শক্তিশালী ঘাঁটি হিসেবেও পরিচিত ছিল কুতুবপুর ইউনিয়ন। বৃহত্তর এ ইউনিয়নটিকে আওয়ামীলীগের ঘাঁটিতে রূপান্তর করাটা এতটা সহজ ছিল না! কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জসীম উদ্দিন এবং স্বেচ্ছাস্বেকলীগ নেতা মীর হোসেন মীরুর মত ত্যাগী নেতৃবৃন্দের কারনেই আজকে শক্তিশালী অবস্থানে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের রাজনীতি।

 

কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি জসীম উদ্দিন বলেন, কুতুবপুর ইউনিয়ন উপজেলার অন্যান্য ইউনিয়নের মধ্যে বৃহত্তম একটি ইউনিয়ন। এ ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা দলীয় স্বার্থ হাছিলে অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন। হঠাৎ করে এক সময়ের বিএনপির ক্যাডার নব্য আওয়ামীলীগে যোগদানের মাধ্যমে দলের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করতে চাইছে। মূলত বিএনপি জামায়াত শিবিরের এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্যই অনুপ্রবেশকারীরা তাদের অপচেষ্টা চালিয়ে আসছেন। কিন্তু কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ বর্তমানে ঐক্যবদ্ধ রয়েছেন। যতই ষড়যন্ত্র করুক না কেন কুতুবপুর আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের মাঝে বিভেদ সৃষ্টি করতে পারবে না। তবে নব্য আওয়ামীলীগাররা যদি তাদের এসকল কর্মকান্ড বন্ধ না করেন তাহলে রাজপথে অবস্থানের মাধ্যমে এক সময়ের বিএনপির নেতৃত্বদানকারী নব্য আওয়ামীলীগারদের চিহ্নিত করে তাদের দাত ভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে বলেও তিনি হুশিয়ারী উচ্চারন করেন।

 

কুতুবপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক মীর হোসেন মীরু বলেন, দলের জন্য আমরা রাজপথে অবস্থানের মাধ্যমে দাবি আদায় করেছি। আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে কুতুবপুরকে আওয়ামীলীগের ঘাঁটিতে রূপান্তর করেছি। অথচ বিএনপি ঘেষা গুটি কয়েক নেতৃবৃন্দ যাদের কিনা অনুপ্রবেশকারী হিসেবে চিহ্নিত করা হয় সে সকল লোকজন আমাকে নিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে। অথচ তারা জানেন না, যদি আল্লাহ কাউকে সম্মানিত করেন তাহলে কারো সাধ্য নেই তাকে হেও করার। আল্লাহর রহমত আছে বলেই গুলি খাওয়ার পরও বেঁচে আছি। পঙ্গু বরন করেও দলকে ভালবেসে রাজপথে এখনো জয় বাংলা শ্লোগান দেওয়ার মাধ্যমে আওয়ামীলীগের পতাকা ধরে আছি। অথচ দলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারী অনুপ্রবেশকারীদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে বাধা হয়ে দাড়িয়েছি বলেই আমাকে নিয়ে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। মূলত, কুতুবপুর আওয়ামীলীগকে ধ্বংস করার পেছনেই ঐ সকল অনুপ্রবেশকারীরা আমাকে নিয়ে মিথ্যা কল্পকাহিনী বানিয়ে কুৎসা রটাচ্ছেন। যতই ষড়যন্ত্র করুক না কেন কুতুবপুরে বিএএনপি জামায়াত শিবিরের কোন এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে দেয়া হবে না। দাতভাঙ্গা জবাব দেওয়ার মাধ্যমে সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করা হবে বলে হুশিয়ারী উচ্চারন করেন তিনি।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : ফয়সাল আহম্মেদ
সহ-বার্তা সম্পাদক : সেলিম হাওলাদার
editor.kuakatanews@gmail.com

প্রধান কার্যালয় : সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সেহাচর, তক্কারমাঠ রোড, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ।
ফোন : +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ০১৬৭৪৬৩২৫০৯
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯।

Email : ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD