প্রেমে সাড়া না দেওয়ায় কলেজ ছাত্রীকে খুন!

একাদশ শ্রেণির চূড়ান্ত পরীক্ষা শেষে আনন্দমনে বাড়ি ফিরছিলেন কোনাবাড়ী ক্যামব্রিজ কলেজের শিক্ষার্থী শারমিন আক্তার লিজা। তার জানা ছিল না, এই পথেই তার জন্য ছুরি হাতে দাঁড়িয়ে আছে এক বর্বর। প্রেম প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় তার বুকে ছুরি ঢুকিয়ে খুন করল মোস্তাকিম রহমান (১৯) নামে এক বখাটে। বুধবার দুপুরে কোনাবাড়ীর কাঁচাবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

 

কোনাবাড়ী মহানগর থানার আমবাগ গ্রামের ঈদগাহ মাঠ এলাকার সাফি ড্রাইভারের মেয়ে শারমিন আক্তার লিজা। মোস্তাকিম জয়দেবপুর সদর থানার সালনা এলাকার আবুল কাশেম মিয়ার ছেলে। সে কোনাবাড়ী লিংকন কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র। তারা কোনাবাড়ীর আমবাগ এলাকায় ভাড়া বাড়িতে থাকে।

 

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বুধবার দুপুরে পরীক্ষা শেষে লিজা তার সহপাঠী খাদিজা আক্তারকে নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। কোনাবাড়ীর কাঁচাবাজার এলাকায় আসামাত্র আরও তিন বখাটেসহ মোস্তাকিম তাদের পথরোধ করে। বখাটেরা লিজার কাছে জানতে চায়, কেন প্রেম করবেন না। লিজা তাদের কোনো উত্তর দেননি। এ সময় কিছু বুঝে ওঠার আগেই মোস্তাকিম লিজার বুকে ছুরি ঢুকিয়ে দেয়। বুকে বিঁধে যাওয়া ছুরি ধরে বাঁচাও বলে চিৎকার করতে থাকেন লিজা। তখন খাদিজা কলেজে গিয়ে শিক্ষক ও সহপাঠীদের বিষয়টি জানান।

 

এদিকে, ঘটনাটি বাজার ব্যবসায়ীরা দেখে বখাটে মোস্তাকিমকে ধরে ফেলেন। তারা ছুরিবিদ্ধ লিজাকে উদ্ধার করে প্রথমে কোনাবাড়ীর একটি ক্লিনিকে নিয়ে গেলে সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে ঢাকায় নেওয়ার জন্য বলেন। পরে লিজার মা তাসলিমা আক্তার ও তার বড় ভাই সুজন তাকে ঢাকায় নিয়ে যান। লিজার অবস্থার চরম অবনতি হলে তড়িঘড়ি করে কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেওয়া হয় তাকে। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক লিজাকে মৃত ঘোষণা করেন।

 

লিজা নিহতের খবর পেয়ে কোনাবাড়ী পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ব্যবসায়ীদের হাতে ধরাপড়া মোস্তাকিমকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়।

 

এদিকে, লিজার মৃত্যুর খবরে তার বাড়িতে এক হৃদয়বিদারক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। স্বজনদের আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠেছে পরিবেশ। কলেজের সহপাঠীরা কান্না ও শোকে ভেঙে পড়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শী কাঁচাবাজারের ব্যবসায়ী শামীম বলেন, হঠাৎ বখাটে মোস্তাকিম ছুরি দিয়ে লিজাকে আঘাত করে। তখন ব্যবসায়ীরা দৌড়ে গিয়ে তাকে ধরে ফেলি এবং পরে পুলিশে সোপর্দ করি। কোনাবাড়ী ক্যামব্রিজ কলেজের ইংরেজি শিক্ষক ইকবাল কবীর জানান, লিজা শান্তশিষ্ট ও মেধারী ছাত্রী ছিল। তার হত্যাকারীর ফাঁসি দাবি করছি।

 

লিজার বাবা সাফি ড্রাইভার বলেন, ওই বখাটে লিজাকে কলেজে আসা-যাওয়ার পথে খুবই উত্ত্যক্ত করত। আমি মেয়ের খুনির ফাঁসি চাই। লিজার বড় ভাই সুজনও একই কথা বলেন।

 

কোনাবাড়ী থানার ওসি এমদাদ হোসেন জানান, ঘটনাস্থলে জনতার হাতে ধরাপড়া মোস্তাকিমকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে এ হত্যাকাণ্ডের মূল রহস্য কী- তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের জন্য লিজার মরদেহ গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» শৈলকুপায় হুইল চেয়ার ও স্মার্ট কার্ড বিতরণ করলেন-এমপি আব্দুল হাই

» ঝিনাইদহের দুর্গাপুর গ্রামে আদালতের নির্দেশ ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে প্রাচীর নির্মান

»  ভূয়া পরিচয়পত্রসহ শৈলকুপায় ভূয়া ডিবি ওসি আটক

» ঝিনাইদহের দোকানের টিন কেটে চুরি,সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়ল চোর

» বন্দরের গাজীপুর পেপার মিলে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

» ফতুল্লায় দাবীকৃত চাঁদা না পেয়ে ইজিবাইক চালককে মারধর

» নদী দখলে প্রধান মন্ত্রীর ছবি সহ দলিল দেখালেও ছাড় দিতে না করেছেন প্রধান মন্ত্রী- মাসুদ রানা

» আজ মাগফিরাতের ৫ম দিবস আল্লাহর আদেশ -নিষেধ মেনে চলার নামই ইবাদত

» বিপিএলে আসছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা?

» ঈদের ছুটির আগেই বেতন-বোনাস পাবেন সরকারি চাকরিজীবীরা



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD



আজ : মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রেমে সাড়া না দেওয়ায় কলেজ ছাত্রীকে খুন!

একাদশ শ্রেণির চূড়ান্ত পরীক্ষা শেষে আনন্দমনে বাড়ি ফিরছিলেন কোনাবাড়ী ক্যামব্রিজ কলেজের শিক্ষার্থী শারমিন আক্তার লিজা। তার জানা ছিল না, এই পথেই তার জন্য ছুরি হাতে দাঁড়িয়ে আছে এক বর্বর। প্রেম প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় তার বুকে ছুরি ঢুকিয়ে খুন করল মোস্তাকিম রহমান (১৯) নামে এক বখাটে। বুধবার দুপুরে কোনাবাড়ীর কাঁচাবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

 

কোনাবাড়ী মহানগর থানার আমবাগ গ্রামের ঈদগাহ মাঠ এলাকার সাফি ড্রাইভারের মেয়ে শারমিন আক্তার লিজা। মোস্তাকিম জয়দেবপুর সদর থানার সালনা এলাকার আবুল কাশেম মিয়ার ছেলে। সে কোনাবাড়ী লিংকন কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র। তারা কোনাবাড়ীর আমবাগ এলাকায় ভাড়া বাড়িতে থাকে।

 

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বুধবার দুপুরে পরীক্ষা শেষে লিজা তার সহপাঠী খাদিজা আক্তারকে নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। কোনাবাড়ীর কাঁচাবাজার এলাকায় আসামাত্র আরও তিন বখাটেসহ মোস্তাকিম তাদের পথরোধ করে। বখাটেরা লিজার কাছে জানতে চায়, কেন প্রেম করবেন না। লিজা তাদের কোনো উত্তর দেননি। এ সময় কিছু বুঝে ওঠার আগেই মোস্তাকিম লিজার বুকে ছুরি ঢুকিয়ে দেয়। বুকে বিঁধে যাওয়া ছুরি ধরে বাঁচাও বলে চিৎকার করতে থাকেন লিজা। তখন খাদিজা কলেজে গিয়ে শিক্ষক ও সহপাঠীদের বিষয়টি জানান।

 

এদিকে, ঘটনাটি বাজার ব্যবসায়ীরা দেখে বখাটে মোস্তাকিমকে ধরে ফেলেন। তারা ছুরিবিদ্ধ লিজাকে উদ্ধার করে প্রথমে কোনাবাড়ীর একটি ক্লিনিকে নিয়ে গেলে সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে ঢাকায় নেওয়ার জন্য বলেন। পরে লিজার মা তাসলিমা আক্তার ও তার বড় ভাই সুজন তাকে ঢাকায় নিয়ে যান। লিজার অবস্থার চরম অবনতি হলে তড়িঘড়ি করে কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেওয়া হয় তাকে। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক লিজাকে মৃত ঘোষণা করেন।

 

লিজা নিহতের খবর পেয়ে কোনাবাড়ী পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ব্যবসায়ীদের হাতে ধরাপড়া মোস্তাকিমকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়।

 

এদিকে, লিজার মৃত্যুর খবরে তার বাড়িতে এক হৃদয়বিদারক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। স্বজনদের আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠেছে পরিবেশ। কলেজের সহপাঠীরা কান্না ও শোকে ভেঙে পড়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শী কাঁচাবাজারের ব্যবসায়ী শামীম বলেন, হঠাৎ বখাটে মোস্তাকিম ছুরি দিয়ে লিজাকে আঘাত করে। তখন ব্যবসায়ীরা দৌড়ে গিয়ে তাকে ধরে ফেলি এবং পরে পুলিশে সোপর্দ করি। কোনাবাড়ী ক্যামব্রিজ কলেজের ইংরেজি শিক্ষক ইকবাল কবীর জানান, লিজা শান্তশিষ্ট ও মেধারী ছাত্রী ছিল। তার হত্যাকারীর ফাঁসি দাবি করছি।

 

লিজার বাবা সাফি ড্রাইভার বলেন, ওই বখাটে লিজাকে কলেজে আসা-যাওয়ার পথে খুবই উত্ত্যক্ত করত। আমি মেয়ের খুনির ফাঁসি চাই। লিজার বড় ভাই সুজনও একই কথা বলেন।

 

কোনাবাড়ী থানার ওসি এমদাদ হোসেন জানান, ঘটনাস্থলে জনতার হাতে ধরাপড়া মোস্তাকিমকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে এ হত্যাকাণ্ডের মূল রহস্য কী- তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের জন্য লিজার মরদেহ গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ





সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD