সংবাদপত্রকর্মী ও তাদের গাড়ী চলাচল করতে পারবে ‘লক ডাউনে’র পথে মৌলভীবাজার

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার: মৌলভীবাজারে সরকারিভাবে লক ডাউনের কোন সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি। কিন্তু সাধারণ মানুষ স্বেচ্ছায় যাচ্ছেন লক ডাউনে। বাসাবাড়ি থেকে মানুষ তেমন বের হচ্ছেন না। সবাই আতংকিত সময় পার করছেন। সারা দিন বাসায় বসে টেলিভিশন, ফেসবুক কিংবা অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলোতে চোখ রাখছেন। বাসাবাড়ীতে বসে এভাবেই দিন কাটাচ্ছেন শহরের লোকজন।

 

এমনটাই জানিয়েছেন শহরের বেশ কয়েকটি এলাকার বাসিন্ধা। বাসায় সময় কাটাচ্ছেন। করোনাভাইরাস যাতে ছড়াতে না পারে সচেতনতা হিসেবে এটি করছেন বলে জানিয়েছেন তারা। কর্মব্যস্ত মৌলভীবাজারের চেহারা অনেকটাই পাল্টে গেছে। গত সোমবার মৌলভীবাজারে করোনা সন্দেহে এক নারীর মৃত্যুর পর ছড়িয়ে পড়ে আতংক। যুত্তরাজ্য ফেরত ওই মহিলা গত ২০/২৫ পূর্বে দেশে এসেছিলেন। সোমবার ভোররাতে তিনি হটাৎ হ্নদরোগে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানের কর্তব্যরত ডাক্তাররা ওই মহিলাকে মৃত ঘোষনা করেন। তখন পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা তাকে তড়িঘরি করে দাফনের কাজ সম্পন্ন করে।

 

এরপরে হটাৎ করে নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। উনার ব্যাবহ্ত পৌর-শহরের কাশিনাথ রোডস্থ বাসাসহ আশেপাশের ৫টি বাসা হোম কোয়ারেন্টাইন ঘোষনা করে জেলা পুলিশ । এরপর জেলা সিভিল সার্জন ড: তওহীদ আহমদসহ ডাক্তারের একটা টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং মৃতঃ নারীর ব্যবহ্ত বিভিন্ন জিনিসের আলামত সংগ্রহ করেন। আলামত সংগ্রহ করে বের হওয়ার সময় সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাংবাদিকরা উনাকে প্রশ্ন করেন -যে নিহত মহিলা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন কী না ? এ সময় সিভিল সার্জন জানান এখনও নিশ্চিত করে কোন কিছু বলা যাবে না ।

 

আমরা খুব শিঘ্রই প্রেস বিফ্রিং করে আপনাদের’কে জানাব। এরপর দফায় দফায় সাংবাদিকরা সিভিল সার্জনের সাথে যোগাযোগ করলে সিভিল সার্জন ওই দিনই রাত ১১.২০ মিনিটে জানান -যে যুক্তরাজ্য প্রবাসী মহিলা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন না। উনারা যুক্তরাজ্য প্রবাসী নারীর পরিবারের সাথে যোগাযোগ করে পূর্বের চিকিৎসার সকল প্রকার হিস্ট্রি পর্যালোচনা করে দেখেছেন যে মহিলা হ্নদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এরপর ওই দিন রাতেই জেলার বড় বড় মার্কেট বন্ধ রাখার ঘোষনা দেন ব্যবসায়ীরা। এতে আতংক আরেকধাপ বাড়ে মানুষের মাঝে। ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সারা দেশে ১০দিনের ছুটি ঘোষণা করলেও গতকাল মঙ্গলবার থেকে মৌলভীবাজারে এর প্রভাব পড়েছে।

 

শহর ও শহরতলীর ৯০ ভাগ মার্কেট ও দোকান-পাট বন্ধ রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। শহরের বিভিন্ন কুসুমবাগ,চৌমোহনা চত্বর, কোর্টরোড,শ্রীমঙ্গল সড়কসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এমন দৃশ্যই দেখা গেছে । করোনা আতঙ্ক কেড়ে নিয়েছে ব্যস্ততম শহরের ব্যস্থতম রোড় সেন্ট্রাল রোডের সেই নিত্যদিনের সেই চিরচেনা যানজটও। চৌমোহনা চত্বরে রাস্তার মাঝে দাঁড়িয়ে থেকে গাড়িগুলোকে আর সঠিক পথে চলার নির্দেশনারও দেওয়ার প্রয়োজন পড়ছে না দায়িত্বরত ট্রাফিকদের। খুব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হচ্ছেন না শহর ও শহরতলীর কেউ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি বিভিন্ন অফিস বন্ধ হওয়ার ধরুন অহেতুক রাস্তায় বের হচ্ছে না কেউই। তবে, করোনা ভাইরাসের কারনে সংবাদপত্রকর্মী ও তাদের গাড়ী চলাচল করতে পারবে।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» দেশে করোনাভাইরাসে আরও একজনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ১৮

» করোনাভাইরাস: প্রায় ৭৩ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা (ভিডিও)

» ব্রিটেনের রানী এলিজাবেথ রবিবার করোনা ভাইরাস সংকট নিয়ে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন

» ফতুল্লা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এর ৯১ব্যাচের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে খাদ‍্য সামগ্রী বিতরন

» ফতুল্লা মানব কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

» পুরাতন বাজারে দূরত্ব বজায় না রাখা ও দোকান খোলার অপরাধে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে জরিমানা

» মৃতদের শরীর থেকে করোনা ছড়ায় না: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

» করোনা সন্দেহে কলাপাড়ার দুই জনের নমুনা সংগ্রহ

» করোনা: ইউনিসেফকে প্রায় ৮ কোটি টাকা দিলেন নেইমার

» দুস্থদের মাঝে পলাশের ত্রান সামগ্রী বিতরন’ করোনায় কোন ভেদাভেদ নেই-ডিসি




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : রবিবার, ৫ এপ্রিল ২০২০, খ্রিষ্টাব্দ, ২২শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সংবাদপত্রকর্মী ও তাদের গাড়ী চলাচল করতে পারবে ‘লক ডাউনে’র পথে মৌলভীবাজার

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার: মৌলভীবাজারে সরকারিভাবে লক ডাউনের কোন সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি। কিন্তু সাধারণ মানুষ স্বেচ্ছায় যাচ্ছেন লক ডাউনে। বাসাবাড়ি থেকে মানুষ তেমন বের হচ্ছেন না। সবাই আতংকিত সময় পার করছেন। সারা দিন বাসায় বসে টেলিভিশন, ফেসবুক কিংবা অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলোতে চোখ রাখছেন। বাসাবাড়ীতে বসে এভাবেই দিন কাটাচ্ছেন শহরের লোকজন।

 

এমনটাই জানিয়েছেন শহরের বেশ কয়েকটি এলাকার বাসিন্ধা। বাসায় সময় কাটাচ্ছেন। করোনাভাইরাস যাতে ছড়াতে না পারে সচেতনতা হিসেবে এটি করছেন বলে জানিয়েছেন তারা। কর্মব্যস্ত মৌলভীবাজারের চেহারা অনেকটাই পাল্টে গেছে। গত সোমবার মৌলভীবাজারে করোনা সন্দেহে এক নারীর মৃত্যুর পর ছড়িয়ে পড়ে আতংক। যুত্তরাজ্য ফেরত ওই মহিলা গত ২০/২৫ পূর্বে দেশে এসেছিলেন। সোমবার ভোররাতে তিনি হটাৎ হ্নদরোগে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানের কর্তব্যরত ডাক্তাররা ওই মহিলাকে মৃত ঘোষনা করেন। তখন পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা তাকে তড়িঘরি করে দাফনের কাজ সম্পন্ন করে।

 

এরপরে হটাৎ করে নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। উনার ব্যাবহ্ত পৌর-শহরের কাশিনাথ রোডস্থ বাসাসহ আশেপাশের ৫টি বাসা হোম কোয়ারেন্টাইন ঘোষনা করে জেলা পুলিশ । এরপর জেলা সিভিল সার্জন ড: তওহীদ আহমদসহ ডাক্তারের একটা টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং মৃতঃ নারীর ব্যবহ্ত বিভিন্ন জিনিসের আলামত সংগ্রহ করেন। আলামত সংগ্রহ করে বের হওয়ার সময় সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাংবাদিকরা উনাকে প্রশ্ন করেন -যে নিহত মহিলা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন কী না ? এ সময় সিভিল সার্জন জানান এখনও নিশ্চিত করে কোন কিছু বলা যাবে না ।

 

আমরা খুব শিঘ্রই প্রেস বিফ্রিং করে আপনাদের’কে জানাব। এরপর দফায় দফায় সাংবাদিকরা সিভিল সার্জনের সাথে যোগাযোগ করলে সিভিল সার্জন ওই দিনই রাত ১১.২০ মিনিটে জানান -যে যুক্তরাজ্য প্রবাসী মহিলা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন না। উনারা যুক্তরাজ্য প্রবাসী নারীর পরিবারের সাথে যোগাযোগ করে পূর্বের চিকিৎসার সকল প্রকার হিস্ট্রি পর্যালোচনা করে দেখেছেন যে মহিলা হ্নদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এরপর ওই দিন রাতেই জেলার বড় বড় মার্কেট বন্ধ রাখার ঘোষনা দেন ব্যবসায়ীরা। এতে আতংক আরেকধাপ বাড়ে মানুষের মাঝে। ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সারা দেশে ১০দিনের ছুটি ঘোষণা করলেও গতকাল মঙ্গলবার থেকে মৌলভীবাজারে এর প্রভাব পড়েছে।

 

শহর ও শহরতলীর ৯০ ভাগ মার্কেট ও দোকান-পাট বন্ধ রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। শহরের বিভিন্ন কুসুমবাগ,চৌমোহনা চত্বর, কোর্টরোড,শ্রীমঙ্গল সড়কসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এমন দৃশ্যই দেখা গেছে । করোনা আতঙ্ক কেড়ে নিয়েছে ব্যস্ততম শহরের ব্যস্থতম রোড় সেন্ট্রাল রোডের সেই নিত্যদিনের সেই চিরচেনা যানজটও। চৌমোহনা চত্বরে রাস্তার মাঝে দাঁড়িয়ে থেকে গাড়িগুলোকে আর সঠিক পথে চলার নির্দেশনারও দেওয়ার প্রয়োজন পড়ছে না দায়িত্বরত ট্রাফিকদের। খুব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হচ্ছেন না শহর ও শহরতলীর কেউ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি বিভিন্ন অফিস বন্ধ হওয়ার ধরুন অহেতুক রাস্তায় বের হচ্ছে না কেউই। তবে, করোনা ভাইরাসের কারনে সংবাদপত্রকর্মী ও তাদের গাড়ী চলাচল করতে পারবে।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD