হালকা বাতাসে বিস্তির্ন মাঠ জুড়ে কৃষকের স্বপ্নের সোনালী ধানের শীষ

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: হালকা বাতাসে বিস্তির্ন মাঠ জুড়ে কৃষকের স্বপ্নের সোনালী ধানের শীষ দোলা খাচ্ছে। অনেক ক্ষেতের ধানের শীষ ইতিমধ্যে সোনালী বর্ণ ধারণ করেছে। বাকিগুলো ধীরে ধীরে সোনালী হয়ে উঠছে। গন্ধে ভরে উঠেছে সমুদ্র উপক‚লীয় পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় উপজেলার গ্রামীণ জনপদ। আর কদিন পরেই শুরু হবে ধান কাটা, মাড়াই নতুন ধান ঘরে তোলার মহোৎসব। তাই প্রতিটি কৃষক পরিবারের কৃষকদের চোখে মুখে লেগে আছে সোনালী স্বপ্ন পূরনের ছাপ।
বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, মাঠের পর মাঠ জুড়ে সোনালী কাঁচা-পাকা ধানের ফসলি ক্ষেত যেন দিগন্ত ছুঁয়ে গেছে। কৃষকের ঘরে ঘরে শুরু হবে ধান তোলার পালা। তাই ধান কাটার জন্য নতুন কাস্তে তৈরী করতে দিয়েছে অনেকে। কেউ আবার পুরাতন কাস্তে মেরামত করাচ্ছে কামারবাড়িতে। কেউ কেউ নতুন ধান উঠানে রাখার জন্য বাড়ির আঙ্গিনা সুন্দর ভাবে পারিস্কার পরিচ্ছন্ন করছেন। এজনপদে কৃষকের যেন দম ফেলার ফুরসত নেই। তবে ফরিয়া বা মধ্যস্বত্বভোগীদের আনাগোনা আর তৎপরতায় ফসলের কাঙ্খিত মূল্য পাওয়া নিয়ে কৃষকদের মধ্যে রয়েছে শঙ্কা। কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ উপজেলায় দুটি পৌরসভা ও ১২টি ইউনিয়ন নিয়ে এ উপজেলা। এর আয়তন ৪৯২.১২২ বর্গ কিলোমিটার। ৩৫৫০০ জন কৃষক পরিবার রয়েছে। এবছর ৩৩৭২৮ হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষ করেছে কৃষকরা। এর মধ্যে ২৫০১০ হেক্টর জমিতে উফশি ও ৮৭১৮ হেক্টর জমিতে স্থানীয় জাতের আমন ধানের আবাদ করেছেন কৃষকরা। স্থানীয় কৃষকরা জানান, ক্ষেতের ধান পাকতে শুরু করেছে। করোনার কারণে ধান কাটার জন্য দৈনিক ৬শ’ থেকে ৭শ’ টাকা মজুরি দিয়েও শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না।  ফলে বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে তাদের। এখন আবহাওয়া ও বাজারে ধানের দাম ভালো থাকেলেই পুষিয়ে যাবে এমনটাই বলেছেন কৃষকরা। উপজেলার চাম্পাপুর ইউনিয়নের কৃষক মো.মোহসিন বলেন, অতি বৃষ্টির করনে এ বছর চাষাবাদে কিছুটা বিঘœ হয়েছে। তিনি প্রায় তিন হেক্টর জমি জমিতে আমন ধান চাষ করেছে। এতে তিনশ মন ধান পাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেছে।নীলগঞ্জ ইউনিয়নের কৃষক মো. হাবিব মুন্সি বলেন, সে প্রায় দুইশ হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষ করেছে। এখন ক্ষেতের ধান পাকা শুরু করেছে। ক্ষেতে খুব একট ভালো ফসল হয়েনি। তারপরও দুইশ মন ধান পাবেন। তাবে ধান কাটার শ্রমিক না পাওয়ায় দু:চিন্তায় রয়েছে এই কৃষক। অপর এক কৃষক শহজাহান মিয়া বলেন, সার-ঔষধ প্রয়োগ ও ক্ষেতের নিয়মিত পরিচর্যা করে এ পর্যন্ত নিয়ে আসা হয়েছে। শ্রমিক পাওয়া গেলে দুই-চার দিনের মধ্যেই ক্ষেতের ধান কাটবেন বলে তিনি জানান।

 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এমআরএম সাইফুল্লাহ বলেন, কৃষি ক্ষেত্রে আধুনিকায়নের লক্ষ্যে এ উপজেলায় কৃষকদের মাঝে ১০টি কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। এটি দিয়ে ক্ষেতের ধান খুব অল্প সময়ে একই সাথে ধান কাটতে ও মাড়াই করা করতে পারবে কৃষকরা। এছাড়া উচ্চফলনশীন জাতের ধানের বীজ দেয় হয়েছে। আর মাঠ পর্যায়ে গিয়ে কৃষকদের নিবিড় তত্বাবধানে রেখেছে উপ-সহকারী কর্মকর্তারা। এর ফলে আমন ফসলের তেমন ক্ষতি হয়নি। তবে আবহাওয়া অনুকলে থাকলে কৃষকরা কাঙ্খিত ফসল সুন্দর ভাবে কাটতে পারবে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» সুমিলপাড়া সুন্নীয়া ছোট জামে মসজিদের ছাদ ঢালাই কাজের উদ্ধোধন করেন সিরাজুল ইসলাম মন্ডল

» সিদ্ধিরগঞ্জে ১২ কেজি গাঁজাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক

» সিদ্ধিরগঞ্জে ফেন্সিডিল- গাঁজাসহ আটক ২

» আমতলীতে শেখ হাসিনা সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজে অভিভাবক সমাবেশ ও আলোচনা সভা

» আমতলী পৌর শহরে ২ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দূর্ধর্ষ চুরি!

» শার্শায় টানা বৃষ্টিতে কৃষকের স্বপ্ন পানিতে

» ফতুল্লা ইউপির নির্বাচনে ৩নং ওয়ার্ডে ঘুড়ি পতিক পেয়েছেন মেম্বার প্রার্থী আব্দুল বাতেন

» আমতলীতে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে ৩৬ হাজার ২০০ শিশুকে

» ঢাকার পথে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ব্যবহৃত ট্যাংক

» ফতুল্লা ইউ‌পি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী মহসিন মিয়ার মনোনয়ন প্রত্যাহার

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : বৃহস্পতিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২১, খ্রিষ্টাব্দ, ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

হালকা বাতাসে বিস্তির্ন মাঠ জুড়ে কৃষকের স্বপ্নের সোনালী ধানের শীষ

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: হালকা বাতাসে বিস্তির্ন মাঠ জুড়ে কৃষকের স্বপ্নের সোনালী ধানের শীষ দোলা খাচ্ছে। অনেক ক্ষেতের ধানের শীষ ইতিমধ্যে সোনালী বর্ণ ধারণ করেছে। বাকিগুলো ধীরে ধীরে সোনালী হয়ে উঠছে। গন্ধে ভরে উঠেছে সমুদ্র উপক‚লীয় পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় উপজেলার গ্রামীণ জনপদ। আর কদিন পরেই শুরু হবে ধান কাটা, মাড়াই নতুন ধান ঘরে তোলার মহোৎসব। তাই প্রতিটি কৃষক পরিবারের কৃষকদের চোখে মুখে লেগে আছে সোনালী স্বপ্ন পূরনের ছাপ।
বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, মাঠের পর মাঠ জুড়ে সোনালী কাঁচা-পাকা ধানের ফসলি ক্ষেত যেন দিগন্ত ছুঁয়ে গেছে। কৃষকের ঘরে ঘরে শুরু হবে ধান তোলার পালা। তাই ধান কাটার জন্য নতুন কাস্তে তৈরী করতে দিয়েছে অনেকে। কেউ আবার পুরাতন কাস্তে মেরামত করাচ্ছে কামারবাড়িতে। কেউ কেউ নতুন ধান উঠানে রাখার জন্য বাড়ির আঙ্গিনা সুন্দর ভাবে পারিস্কার পরিচ্ছন্ন করছেন। এজনপদে কৃষকের যেন দম ফেলার ফুরসত নেই। তবে ফরিয়া বা মধ্যস্বত্বভোগীদের আনাগোনা আর তৎপরতায় ফসলের কাঙ্খিত মূল্য পাওয়া নিয়ে কৃষকদের মধ্যে রয়েছে শঙ্কা। কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ উপজেলায় দুটি পৌরসভা ও ১২টি ইউনিয়ন নিয়ে এ উপজেলা। এর আয়তন ৪৯২.১২২ বর্গ কিলোমিটার। ৩৫৫০০ জন কৃষক পরিবার রয়েছে। এবছর ৩৩৭২৮ হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষ করেছে কৃষকরা। এর মধ্যে ২৫০১০ হেক্টর জমিতে উফশি ও ৮৭১৮ হেক্টর জমিতে স্থানীয় জাতের আমন ধানের আবাদ করেছেন কৃষকরা। স্থানীয় কৃষকরা জানান, ক্ষেতের ধান পাকতে শুরু করেছে। করোনার কারণে ধান কাটার জন্য দৈনিক ৬শ’ থেকে ৭শ’ টাকা মজুরি দিয়েও শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না।  ফলে বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে তাদের। এখন আবহাওয়া ও বাজারে ধানের দাম ভালো থাকেলেই পুষিয়ে যাবে এমনটাই বলেছেন কৃষকরা। উপজেলার চাম্পাপুর ইউনিয়নের কৃষক মো.মোহসিন বলেন, অতি বৃষ্টির করনে এ বছর চাষাবাদে কিছুটা বিঘœ হয়েছে। তিনি প্রায় তিন হেক্টর জমি জমিতে আমন ধান চাষ করেছে। এতে তিনশ মন ধান পাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেছে।নীলগঞ্জ ইউনিয়নের কৃষক মো. হাবিব মুন্সি বলেন, সে প্রায় দুইশ হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষ করেছে। এখন ক্ষেতের ধান পাকা শুরু করেছে। ক্ষেতে খুব একট ভালো ফসল হয়েনি। তারপরও দুইশ মন ধান পাবেন। তাবে ধান কাটার শ্রমিক না পাওয়ায় দু:চিন্তায় রয়েছে এই কৃষক। অপর এক কৃষক শহজাহান মিয়া বলেন, সার-ঔষধ প্রয়োগ ও ক্ষেতের নিয়মিত পরিচর্যা করে এ পর্যন্ত নিয়ে আসা হয়েছে। শ্রমিক পাওয়া গেলে দুই-চার দিনের মধ্যেই ক্ষেতের ধান কাটবেন বলে তিনি জানান।

 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এমআরএম সাইফুল্লাহ বলেন, কৃষি ক্ষেত্রে আধুনিকায়নের লক্ষ্যে এ উপজেলায় কৃষকদের মাঝে ১০টি কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। এটি দিয়ে ক্ষেতের ধান খুব অল্প সময়ে একই সাথে ধান কাটতে ও মাড়াই করা করতে পারবে কৃষকরা। এছাড়া উচ্চফলনশীন জাতের ধানের বীজ দেয় হয়েছে। আর মাঠ পর্যায়ে গিয়ে কৃষকদের নিবিড় তত্বাবধানে রেখেছে উপ-সহকারী কর্মকর্তারা। এর ফলে আমন ফসলের তেমন ক্ষতি হয়নি। তবে আবহাওয়া অনুকলে থাকলে কৃষকরা কাঙ্খিত ফসল সুন্দর ভাবে কাটতে পারবে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪৬৩২৫০৯, ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ।

News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD