এবার কুতুবপুরের তিন কুতুবকে আইনের আওতায় আনলে শান্ত হবে কুতুবপুর!

উজ্জীবিত বাংলাদেশ:-  নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সবচাইতে জনবহুল এলাকার মধ্যে রয়েছে কুতুবপুর এলাকা আর এই এলাকাতে রইয়েছে চার জন আলো চিত ব্যক্তি যাদের বিরুদ্ধে রইয়েছে ফতুল্লাসহ ঢাকার বিভিন্ন থানায় অভিযোগ ও মামলা, আর কুতুবপুর কে অশান্ত করে রেখেছে এরাই, নিজেদের আখের গুছাতে একের পর এক ঘটাচ্ছে অঘটন, এখন কুতুবপুরকে এক এক জন নিজেদের নিয়ন্ত্রনে রাখতে মরিয়া হয়ে উঠে পরে লেগেছে। কিন্ত বর্তমানে কেউ কাউকে ছাড় দিতে রাজিনা। একাই কুতুবপুরকে ভুগ করাতে তৈরি করছে তাদের বাহিনীধারা নানা কৌশল, চাদাঁবাজী, মাদক ব্যবসায় শেল্টার, ভূমিদস্যুতাসহ সকল ধরনের অপরাধ। তাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে পরেছে এলাকাবসী। মিরু গ্রেফতার হয়েছে এবার কুতুবপুরে রয়েছে আরো তিন কুতুব আব্দুল মালেক, তার ভাই খালেক ও আলাউদ্দিন হাওলাদার এই তিন কুতুবকে আইনের আওতায় আনলে শান্ত হবে কুতুবপুর।

 

কুতুবপুরে দলীয় পদবী ব্যবহার করে নানা অপকর্ম সংঘটিত করেছে খালেক তার ভাই মালেক ও আলাউদ্দিন হাওলাদারের বাহিনী। এই সন্ত্রাসীদের হাত থেকে রক্ষা পেতে স্থানীয় জনগন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েও লিখিত অভিযোগ করেছিল।

 

স্থানীয়দের অভিযোগ চাদাঁবাজী, মাদক ব্যবসায় শেল্টার, ভূমিদস্যুতাসহ সকল ধরনের অপরাধ সংঘটিত করছে প্রায় ডজন খানেক মামলার আসামী, কুতুবপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক আঃ খালেক, তার ভাই মালেক।

 

এলাকাবাসীর সুত্রে এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাবর দায়ের করা অভিযোগ পত্রে সুত্রে জানা গেছে, ফতুল্লা কুতুবপুর ইউনিয়নের আব্দুল খালেক তার ভাই মালেক, সহযোগী আনোয়ার হোসেন, দেলোয়ার হোসেন, নুর ইসলাম, ষ্টিল আনোয়ার, আব্দুর রব, বাদশা, সুমনসহ উল্লেখিত সন্ত্রাসীদের হাতে জিম্মী পুরো কুতুবপুরবাসী। সুত্রে উলেখ্য করা হয়েছে প্রত্যেক সন্ত্রাসীর বিরদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। এছাড়াও কুতুবপুরে সংঘটিত কবীর হত্যা, স্বপন হত্যা, ভূট্রো হত্যা, বাবুল হত্যাসহ চাদাঁবাজী, ডাকাতি, ছিনতাই মামলা রয়েছে ফতুল্লা, শ্যামপুর, ডেমড়া থানাসহ দেশের বিভিন্ন থানায়। কুতুবপুরে যুবলীগের সাধারন সম্পাদক খালেকের বিরদ্ধে।

 

ফতুল্লা থানার মামলার মধ্যে মামলা নং ৩(৯)৯৫,২৬(১)৯৫, ২৩(৩)৯৫, ১৯(২)৯৫, ৪৪(৮)০৪, ২০(১০)৯৮,৩৩(৪)৯৯,শ্যামপুর থানার মামলা ২৪(১)৯৯, ১৪০(১২)৯৭, ফতুল্লা থানার মামলা ৩৬(১০)০১,ডেমড়া থানার মামলা নং ৩৯(১০)৯৮,৯৯(১০)৯৯ এসব মামলা উল্লেখ্য করা হয়েছে। এছাড়াও মাদক ব্যবসা পরিচালনা, অবৈধ অস্ত্রের ব্যবসা এবং অবৈধ অস্ত্র ভাড়া দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে খালেকের ভাই মালেকের বিরদ্ধে। সুত্রের অভিযোগে জানা গেছে, বিগত বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে খালেকের ভাই মালেক তার কাছে রক্ষিত বিভিন্ন অবৈধ অস্ত্র ঢাকার বিভিন্ন পেশাদার সন্ত্রাসী ও কিলারদের কাছে টাকার বিনিময় ভাড়া দিতে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। কুতুবপুরের মূর্তিমান সন্ত্রাসী আঃ খালেক ও তার ভাই মালেক এবং তাদের বাহিনীর অপকর্মের সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর এই চক্রের হাতে শিকার কুতুবপুরের অনেক বাসিন্দা। তাদের সুত্রে জানা গেছে বিগত ওয়ান ইলেভেন সরকারের পর সংসদ নির্বাচনে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ ও তাদের জোট আসীন হওয়ার পর থেকেই কুতুবপুর জুড়ে অপরাধের রাজত্ব কায়েম করতে শুরু করেন যুবলীগ নেতা আঃ খালেক, তার ভাই মালেক ও তাদের বাহিনীর লোকজন।

 

আর এই সকল অপকর্মে খালেক বাহিনীর সাথে সংযুক্ত হন কুতুবপুরের ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আলাউদ্দীন হাওলাদার ও তার বাহিনী।বেপোরোয়া আলাউদ্দিন হাওলাদার পোশাক পাল্টানোর মত পাল্টায় তার রুপ যোগদেন তৎকালীন এমপি সাহরা বেগম কবরীর ও শ্রমিক নেতা কাউসার আহম্মেদ পলাশের সাথে শুরু হয় নীরব চাদাঁবাজী, ভূমিদস্যুতা ও জুয়ারর আসর, স্থানীয়দের অভিমত বিগত আওয়ামী সরকারের আমলে সন্ত্রাসী আঃ খালেক, তার ভাই মালেক ও আলাউদ্দীন হাওলাদার তাদের বাহিনী এমপি কবরীর শেল্টারে নানা অপকর্ম করে যাওয়ার পরও কেন তাদের বিরদ্ধে কোনো আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হলো না। বর্তমান সরকার দলীয় এমপি শামীম ওসমান ক্ষমতায় থাকা সত্যেও এই সকল সন্ত্রাসীরা এখন কিভাবে রাজনীতির আড়ালে নানা অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে? খালেক, মালেক ও আলাউদ্দিন হাওলাদারের বাহিনীর অপকর্ম বন্ধ এবং তাদের আইনের আওতায় আনতে কুতুবপুরের সাধারন মানুষ এমপি শামীম ওসমানের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন। তাদের অভিমত এমপি শামীম ওসমান সর্বকালের সবচেয়ে বৃহৎ উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড করে যাচ্ছেন তার নির্বাচনী এলাকায়। অথচ খালেক, মালেক, ভূমিদস্যু আলাউদ্দীন হাওলাদারের মতো লোকের কারনে তাকে যেনো কোনো ধরনের খেসারত দিতে না হয় এই জন্য কুতুবপুরের সন্ত্রাসী খালেক, তার ভাই মালেক, তাদের বাহিনী এবং আলাউদ্দীন হাওলাদারের মতো বিতর্কিতদের লাগাম টেনে ধরা তাদের দল থেকে বিতাড়িত করে আইনের আওতায় আনা সাধারন মানুষের জোরালো দাবীতে পরিনত হয়েছে। তা হলেই অশান্ত কুতুবপুর হবে শান্ত । খেটে খাওয়া সাধারন মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে পারবে। মিরুর সাথে খালেক, মালেক ও আলাউদ্দিন হাওলাদারকে আইনের আওতায় আনলে তাহলে আর কুতুবপুরে থাকবেনা কোন কুতুব।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» ধর্ষণে নজিরবিহীন রেকর্ড, ১০০ দিনেই শিকার ৩৯৬ নারী ও শিশু!!

» ‘আমিতো ভালা না, ভালা লইয়াই থাইকো’: ডিসি রাব্বী মিয়া

» চাঁনমারি বস্তিতে মাদক বিরোধী অভিযান চালায় ফতুল্লা থানা পুলিশ!

» সবচেয়ে অভিজ্ঞ এ বিশ্বকাপে বাংলাদেশই

» শ্রমিকের পা কেটে নিলেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা!

» আত্মগোপেনে নাজিম উদ্দিন, শামীম ওসমানের হুংকার !

» মোহাম্মদ আলী, আমগো এমপি শামীম ওসমান, এগুলির বেইল নাই: নাজিম উদ্দিন

» পাগলা নয়ামাটিতে নেশার টাকা না পেয়ে মাদকসেবীর আত্মহত্যা!

» গরমে যেসব ফল প্রশান্তিদায়ক

» অনলাইনে জিডি করবেন যেভাবে

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৮ই বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

এবার কুতুবপুরের তিন কুতুবকে আইনের আওতায় আনলে শান্ত হবে কুতুবপুর!

উজ্জীবিত বাংলাদেশ:-  নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সবচাইতে জনবহুল এলাকার মধ্যে রয়েছে কুতুবপুর এলাকা আর এই এলাকাতে রইয়েছে চার জন আলো চিত ব্যক্তি যাদের বিরুদ্ধে রইয়েছে ফতুল্লাসহ ঢাকার বিভিন্ন থানায় অভিযোগ ও মামলা, আর কুতুবপুর কে অশান্ত করে রেখেছে এরাই, নিজেদের আখের গুছাতে একের পর এক ঘটাচ্ছে অঘটন, এখন কুতুবপুরকে এক এক জন নিজেদের নিয়ন্ত্রনে রাখতে মরিয়া হয়ে উঠে পরে লেগেছে। কিন্ত বর্তমানে কেউ কাউকে ছাড় দিতে রাজিনা। একাই কুতুবপুরকে ভুগ করাতে তৈরি করছে তাদের বাহিনীধারা নানা কৌশল, চাদাঁবাজী, মাদক ব্যবসায় শেল্টার, ভূমিদস্যুতাসহ সকল ধরনের অপরাধ। তাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে পরেছে এলাকাবসী। মিরু গ্রেফতার হয়েছে এবার কুতুবপুরে রয়েছে আরো তিন কুতুব আব্দুল মালেক, তার ভাই খালেক ও আলাউদ্দিন হাওলাদার এই তিন কুতুবকে আইনের আওতায় আনলে শান্ত হবে কুতুবপুর।

 

কুতুবপুরে দলীয় পদবী ব্যবহার করে নানা অপকর্ম সংঘটিত করেছে খালেক তার ভাই মালেক ও আলাউদ্দিন হাওলাদারের বাহিনী। এই সন্ত্রাসীদের হাত থেকে রক্ষা পেতে স্থানীয় জনগন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েও লিখিত অভিযোগ করেছিল।

 

স্থানীয়দের অভিযোগ চাদাঁবাজী, মাদক ব্যবসায় শেল্টার, ভূমিদস্যুতাসহ সকল ধরনের অপরাধ সংঘটিত করছে প্রায় ডজন খানেক মামলার আসামী, কুতুবপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক আঃ খালেক, তার ভাই মালেক।

 

এলাকাবাসীর সুত্রে এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাবর দায়ের করা অভিযোগ পত্রে সুত্রে জানা গেছে, ফতুল্লা কুতুবপুর ইউনিয়নের আব্দুল খালেক তার ভাই মালেক, সহযোগী আনোয়ার হোসেন, দেলোয়ার হোসেন, নুর ইসলাম, ষ্টিল আনোয়ার, আব্দুর রব, বাদশা, সুমনসহ উল্লেখিত সন্ত্রাসীদের হাতে জিম্মী পুরো কুতুবপুরবাসী। সুত্রে উলেখ্য করা হয়েছে প্রত্যেক সন্ত্রাসীর বিরদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। এছাড়াও কুতুবপুরে সংঘটিত কবীর হত্যা, স্বপন হত্যা, ভূট্রো হত্যা, বাবুল হত্যাসহ চাদাঁবাজী, ডাকাতি, ছিনতাই মামলা রয়েছে ফতুল্লা, শ্যামপুর, ডেমড়া থানাসহ দেশের বিভিন্ন থানায়। কুতুবপুরে যুবলীগের সাধারন সম্পাদক খালেকের বিরদ্ধে।

 

ফতুল্লা থানার মামলার মধ্যে মামলা নং ৩(৯)৯৫,২৬(১)৯৫, ২৩(৩)৯৫, ১৯(২)৯৫, ৪৪(৮)০৪, ২০(১০)৯৮,৩৩(৪)৯৯,শ্যামপুর থানার মামলা ২৪(১)৯৯, ১৪০(১২)৯৭, ফতুল্লা থানার মামলা ৩৬(১০)০১,ডেমড়া থানার মামলা নং ৩৯(১০)৯৮,৯৯(১০)৯৯ এসব মামলা উল্লেখ্য করা হয়েছে। এছাড়াও মাদক ব্যবসা পরিচালনা, অবৈধ অস্ত্রের ব্যবসা এবং অবৈধ অস্ত্র ভাড়া দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে খালেকের ভাই মালেকের বিরদ্ধে। সুত্রের অভিযোগে জানা গেছে, বিগত বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে খালেকের ভাই মালেক তার কাছে রক্ষিত বিভিন্ন অবৈধ অস্ত্র ঢাকার বিভিন্ন পেশাদার সন্ত্রাসী ও কিলারদের কাছে টাকার বিনিময় ভাড়া দিতে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। কুতুবপুরের মূর্তিমান সন্ত্রাসী আঃ খালেক ও তার ভাই মালেক এবং তাদের বাহিনীর অপকর্মের সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর এই চক্রের হাতে শিকার কুতুবপুরের অনেক বাসিন্দা। তাদের সুত্রে জানা গেছে বিগত ওয়ান ইলেভেন সরকারের পর সংসদ নির্বাচনে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ ও তাদের জোট আসীন হওয়ার পর থেকেই কুতুবপুর জুড়ে অপরাধের রাজত্ব কায়েম করতে শুরু করেন যুবলীগ নেতা আঃ খালেক, তার ভাই মালেক ও তাদের বাহিনীর লোকজন।

 

আর এই সকল অপকর্মে খালেক বাহিনীর সাথে সংযুক্ত হন কুতুবপুরের ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আলাউদ্দীন হাওলাদার ও তার বাহিনী।বেপোরোয়া আলাউদ্দিন হাওলাদার পোশাক পাল্টানোর মত পাল্টায় তার রুপ যোগদেন তৎকালীন এমপি সাহরা বেগম কবরীর ও শ্রমিক নেতা কাউসার আহম্মেদ পলাশের সাথে শুরু হয় নীরব চাদাঁবাজী, ভূমিদস্যুতা ও জুয়ারর আসর, স্থানীয়দের অভিমত বিগত আওয়ামী সরকারের আমলে সন্ত্রাসী আঃ খালেক, তার ভাই মালেক ও আলাউদ্দীন হাওলাদার তাদের বাহিনী এমপি কবরীর শেল্টারে নানা অপকর্ম করে যাওয়ার পরও কেন তাদের বিরদ্ধে কোনো আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হলো না। বর্তমান সরকার দলীয় এমপি শামীম ওসমান ক্ষমতায় থাকা সত্যেও এই সকল সন্ত্রাসীরা এখন কিভাবে রাজনীতির আড়ালে নানা অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে? খালেক, মালেক ও আলাউদ্দিন হাওলাদারের বাহিনীর অপকর্ম বন্ধ এবং তাদের আইনের আওতায় আনতে কুতুবপুরের সাধারন মানুষ এমপি শামীম ওসমানের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন। তাদের অভিমত এমপি শামীম ওসমান সর্বকালের সবচেয়ে বৃহৎ উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড করে যাচ্ছেন তার নির্বাচনী এলাকায়। অথচ খালেক, মালেক, ভূমিদস্যু আলাউদ্দীন হাওলাদারের মতো লোকের কারনে তাকে যেনো কোনো ধরনের খেসারত দিতে না হয় এই জন্য কুতুবপুরের সন্ত্রাসী খালেক, তার ভাই মালেক, তাদের বাহিনী এবং আলাউদ্দীন হাওলাদারের মতো বিতর্কিতদের লাগাম টেনে ধরা তাদের দল থেকে বিতাড়িত করে আইনের আওতায় আনা সাধারন মানুষের জোরালো দাবীতে পরিনত হয়েছে। তা হলেই অশান্ত কুতুবপুর হবে শান্ত । খেটে খাওয়া সাধারন মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে পারবে। মিরুর সাথে খালেক, মালেক ও আলাউদ্দিন হাওলাদারকে আইনের আওতায় আনলে তাহলে আর কুতুবপুরে থাকবেনা কোন কুতুব।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD