ক্ষমা চাইলেন ফেরদৌস

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের প্রচারণায় অংশ নেয়ায় আলোচনা-সমালোচনা চলছে দুই বাংলার জনপ্রিয় নায়ক ফেরদৌসকে নিয়ে। এ ঘটনায় এরই মধ্যে তার ভারতীয় ভিসা বাতিল হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ভারত ছেড়ে দেশে এসেছেন এ নায়ক। বিষয়টি নিয়ে কথা হয় তার সঙ্গে।

 

ফেরদৌস বলেন, ‘অভিনয় শিল্প আমার একমাত্র নেশা ও পেশা। অভিনয় শিল্পের মাধ্যমে বাংলা ভাষাভাষী সকলের মধ্যে মেলবন্ধন তৈরিতে সর্বদা কাজ করার চেষ্টা করেছি। ভাবতে ভাল লাগে আমি দুই বাংলায় সমান জনপ্রিয়। দুই বঙ্গের মানুষের সংস্কৃতি ও জীবনাচারে অনেক সাদৃশ্য রয়েছে। আবার ভারত বহু কৃষ্টি-কালচারের সমন্বয়ে সমৃদ্ধ একটি দেশ। ১৯৭১ সালে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রতিবেশী দেশ হিসাবে ভারতের অবদান আমরা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করি। পাশাপাশি ভারতের জনগণের ত্যাগ-তিতিক্ষা আমাদের চিরঋণী করে রেখেছে। পশ্চিমবঙ্গের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সাথে আমার সম্পর্ক বহুদিনের। এখানের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অনেক শিল্পী, সাহিত্যিক আমার বন্ধু। যাদের সাথে আমি সবসময় হৃদ্যতা অনুভব করি। এজন্য বিভিন্ন সময় কারণে অকারণে আমি এখানে চলে যাই।’

 

ভারতীয় নির্বাচনে নিজে প্রচারণায় অংশ নেয়ার বিষয়টি সামনে এনে ফেরদৌস বলেন, ‘ভারতে জাতীয় নির্বাচন হচ্ছে। বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতান্ত্রিক দেশের এই নির্বাচন পূর্বের মতো সাড়া বিশ্বে সাড়া ফেলেছে। এই সময়ে আমি ভারতে অবস্থান করছিলাম। সবার মতো আমারও আগ্রহের জায়াগায় ছিল এই নির্বাচন। ফলে ভাবাবাগে তাড়িত হয়ে পশ্চিমবঙ্গের একটি নির্বাচনী প্রচারণায় সহকর্মীদের সঙ্গে অংশগ্রহণ করি। এটা পূর্বপরিকল্পনার কোন অংশ ছিল না। শুধু আবেগের বশবর্তী হয়ে আমি অংশগ্রহণ করেছি। কারো প্রতি বিশেষ আনুগত্য প্রদর্শন বা কোন বিশেষ দলের প্রচারণার লক্ষ্যে নয়। আবার কারো প্রতি অসম্মান প্রদর্শন করাও আমার উদ্দেশ্য নয়। ভারতের সকল রাজনৈতিক দল এবং নেতার প্রতি আমার সম্মান রয়েছে। আমি ভারতের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।’

 

প্রচারণায় অংশ নেয়াটা তার জন্য ভুল ছিলো বলেই মন্তব্য দুই বাঙলার জনপ্রিয় এ নায়কের। এ বিষয়ে  ‘হঠাৎবৃষ্টি’ ছবির এ নায়ক বলেন, ‘আমি আগেও বলেছি পশ্চিমবঙ্গের মানুষের প্রতি আমার ভালোবাসা অগাধ। সেই ভালোবাসা আমাকে আবেগ তাড়িত করেছে। আমি বুঝতে পেরেছি, আবেগের বশবর্তী হয়ে সহকর্মীদের সাথে এই নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ করাটা আমার ভুল ছিল। যেটা থেকে অনেক ভ্রান্তি তৈরি হয়েছে এবং অনেকে ভুলভাবে নিয়েছেন। আমি স্বাধীন বাংলাদেশের একজন নাগরিক। একটি স্বধীন দেশের নাগরিক হিসাবে অন্য একটি দেশের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ কোনভাবেই উচিত নয়। আমার অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য আমি ক্ষমা প্রর্থনা করছি। আশা করি, সংশ্লিষ্ট সকলে আমার অনিচ্ছাকৃত ভুলকে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।’

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» শৈলকুপায় হুইল চেয়ার ও স্মার্ট কার্ড বিতরণ করলেন-এমপি আব্দুল হাই

» ঝিনাইদহের দুর্গাপুর গ্রামে আদালতের নির্দেশ ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে প্রাচীর নির্মান

»  ভূয়া পরিচয়পত্রসহ শৈলকুপায় ভূয়া ডিবি ওসি আটক

» ঝিনাইদহের দোকানের টিন কেটে চুরি,সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়ল চোর

» বন্দরের গাজীপুর পেপার মিলে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

» ফতুল্লায় দাবীকৃত চাঁদা না পেয়ে ইজিবাইক চালককে মারধর

» নদী দখলে প্রধান মন্ত্রীর ছবি সহ দলিল দেখালেও ছাড় দিতে না করেছেন প্রধান মন্ত্রী- মাসুদ রানা

» আজ মাগফিরাতের ৫ম দিবস আল্লাহর আদেশ -নিষেধ মেনে চলার নামই ইবাদত

» বিপিএলে আসছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা?

» ঈদের ছুটির আগেই বেতন-বোনাস পাবেন সরকারি চাকরিজীবীরা



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD



আজ : মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ক্ষমা চাইলেন ফেরদৌস

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের প্রচারণায় অংশ নেয়ায় আলোচনা-সমালোচনা চলছে দুই বাংলার জনপ্রিয় নায়ক ফেরদৌসকে নিয়ে। এ ঘটনায় এরই মধ্যে তার ভারতীয় ভিসা বাতিল হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ভারত ছেড়ে দেশে এসেছেন এ নায়ক। বিষয়টি নিয়ে কথা হয় তার সঙ্গে।

 

ফেরদৌস বলেন, ‘অভিনয় শিল্প আমার একমাত্র নেশা ও পেশা। অভিনয় শিল্পের মাধ্যমে বাংলা ভাষাভাষী সকলের মধ্যে মেলবন্ধন তৈরিতে সর্বদা কাজ করার চেষ্টা করেছি। ভাবতে ভাল লাগে আমি দুই বাংলায় সমান জনপ্রিয়। দুই বঙ্গের মানুষের সংস্কৃতি ও জীবনাচারে অনেক সাদৃশ্য রয়েছে। আবার ভারত বহু কৃষ্টি-কালচারের সমন্বয়ে সমৃদ্ধ একটি দেশ। ১৯৭১ সালে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রতিবেশী দেশ হিসাবে ভারতের অবদান আমরা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করি। পাশাপাশি ভারতের জনগণের ত্যাগ-তিতিক্ষা আমাদের চিরঋণী করে রেখেছে। পশ্চিমবঙ্গের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সাথে আমার সম্পর্ক বহুদিনের। এখানের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অনেক শিল্পী, সাহিত্যিক আমার বন্ধু। যাদের সাথে আমি সবসময় হৃদ্যতা অনুভব করি। এজন্য বিভিন্ন সময় কারণে অকারণে আমি এখানে চলে যাই।’

 

ভারতীয় নির্বাচনে নিজে প্রচারণায় অংশ নেয়ার বিষয়টি সামনে এনে ফেরদৌস বলেন, ‘ভারতে জাতীয় নির্বাচন হচ্ছে। বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতান্ত্রিক দেশের এই নির্বাচন পূর্বের মতো সাড়া বিশ্বে সাড়া ফেলেছে। এই সময়ে আমি ভারতে অবস্থান করছিলাম। সবার মতো আমারও আগ্রহের জায়াগায় ছিল এই নির্বাচন। ফলে ভাবাবাগে তাড়িত হয়ে পশ্চিমবঙ্গের একটি নির্বাচনী প্রচারণায় সহকর্মীদের সঙ্গে অংশগ্রহণ করি। এটা পূর্বপরিকল্পনার কোন অংশ ছিল না। শুধু আবেগের বশবর্তী হয়ে আমি অংশগ্রহণ করেছি। কারো প্রতি বিশেষ আনুগত্য প্রদর্শন বা কোন বিশেষ দলের প্রচারণার লক্ষ্যে নয়। আবার কারো প্রতি অসম্মান প্রদর্শন করাও আমার উদ্দেশ্য নয়। ভারতের সকল রাজনৈতিক দল এবং নেতার প্রতি আমার সম্মান রয়েছে। আমি ভারতের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।’

 

প্রচারণায় অংশ নেয়াটা তার জন্য ভুল ছিলো বলেই মন্তব্য দুই বাঙলার জনপ্রিয় এ নায়কের। এ বিষয়ে  ‘হঠাৎবৃষ্টি’ ছবির এ নায়ক বলেন, ‘আমি আগেও বলেছি পশ্চিমবঙ্গের মানুষের প্রতি আমার ভালোবাসা অগাধ। সেই ভালোবাসা আমাকে আবেগ তাড়িত করেছে। আমি বুঝতে পেরেছি, আবেগের বশবর্তী হয়ে সহকর্মীদের সাথে এই নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ করাটা আমার ভুল ছিল। যেটা থেকে অনেক ভ্রান্তি তৈরি হয়েছে এবং অনেকে ভুলভাবে নিয়েছেন। আমি স্বাধীন বাংলাদেশের একজন নাগরিক। একটি স্বধীন দেশের নাগরিক হিসাবে অন্য একটি দেশের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ কোনভাবেই উচিত নয়। আমার অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য আমি ক্ষমা প্রর্থনা করছি। আশা করি, সংশ্লিষ্ট সকলে আমার অনিচ্ছাকৃত ভুলকে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।’

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ





সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD