গফরগাঁওয়ে পুলিশের ধাওয়ায় আহত আ’লীগ কর্মীর মৃত্যু

উজ্জীবিত বিডি ডটকম:- ময়মনসিংহের গফরগাঁও পুলিশের ধাওয়া খেয়ে পালাতে গিয়ে আওয়ামী লীগের আহত কর্মী লিটন মিয়ার (৩০) মৃত্যু হয়েছে। আহত হওয়ার ১৭ দিন পর বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা তিনি মারা যান।

 

এলাকাবাসী ও লিটন মিয়ার পরিবার সূত্রে জানা গেছে , গত ২৪ এপ্রিল রাত ১টার দিকে গফরগাঁও থানার ওসি আবদুল আহাদ খান, এসআই রুবেল, এসআই নূর শাহীন, এএসআই সুখময় দত্তের নেতৃত্বে ৮-১০ জন পুলিশ লিটনের বাড়ির পাশে পাকাটি বাজারে আসেন। পাকাটি বাজারের ব্যবসায়ী ও ওইদিনের বাজার পাহারাদার আল আমিন (৩৮) ও বাচ্চু মিয়ার কাছে কামরুজ্জামান পিতা-মইজউদ্দিনকে খোঁজ করে। আল আমিন ও বাচ্চু মিয়া পুলিশকে সঠিক তথ্য দিতে পারে না।

 

রাত দেড়টার দিকে এসআই রুবেল, এসআই নূর শাহীন, এএসআই সুখময় দত্তের নেতৃত্বে ৮-১০ জন পুলিশ বাড়ি লিটনের বাড়ি ঘেরাও করে। পুলিশ লিটনকে বসত ঘরের দরজা খুলতে বলে এবং বসত ঘরের দরজাতে লাঠি জাতীয় জিনিস দিয়ে আঘাত করে। ভয়ে লিটন ঘরের টিনের চালা কেটে পালাতে গিয়ে ঘরের টিনের চালা থেকে পড়ে গুরুতর আহত হয়।

লিটনকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে এবং পরে ঢাকার লালমাটিয়ার একটি হাসপাতালে আইসিইউতে রাখা হয়। বৃহস্পতিবার রাতে তার মৃত্যু হয়। গফরহাঁও থানার এসআই নূর শাহীন বলেন, পালাতে গিয়ে লিটন টিনের চালা থেকে পড়ে আহত হলে তার সুচিকিৎসার জন্য থানা পুলিশ দ্রুত তাকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

 

স্থানীয় ইউপি সদন্য হিরু মেম্বারের সঙ্গে কথা বলে লিটনের বাড়িতে অভিযান চালানো হয় বলে জানান এসআই নূর শাহীন।

 

লিটনের পিতা মইজ উদ্দিন (৭০) ও মা ওজুফা খাতুন (৬০) বলেন, তাদের ছেলে লিটন মিয়ার নামে কোনো মামলা নেই। পুলিশ এলাকার কিছু লোকের ইন্ধনে পড়ে আমার ছেলেকে গ্রেফতার করতে আমার বাড়িতে অভিযান চালায়। আমার ছেলে লিটন মিয়া পুলিশের ভয়ে ঘরের চালায় উঠে, চালা থেকে লাফ দিয়ে মাটিতে পড়ে। থানা পুলিশ এ সময় লিটনকে অচেতন লিটনকে টেনে হেঁচড়ে অনেকদুর পর্যন্ত নিয়ে যায়।

 

বারবাড়িয়া ই্উনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি আনিছুর রহমান বলেন, লিটন আওয়ামী লীগের সক্রিয় কর্মী ছিল। গফরগাঁও উপজেলা সদরে যুবলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় ওই সময়ে মামলা হয়, লিটন হয়ত ভেবেছিল পুলিশ এই মামলায় তাকে গ্রেফতার করতে এসেছে। এই ভয়ে হয়ত সে পালাতে চায়।

 

গফরগাঁও থানার ওসি আব্দুল আহাদ বলেন, লিটনের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা ছিল। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করতে গেলে পালাতে গিয়ে তিনি আহত হন।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» শৈলকুপায় হুইল চেয়ার ও স্মার্ট কার্ড বিতরণ করলেন-এমপি আব্দুল হাই

» ঝিনাইদহের দুর্গাপুর গ্রামে আদালতের নির্দেশ ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে প্রাচীর নির্মান

»  ভূয়া পরিচয়পত্রসহ শৈলকুপায় ভূয়া ডিবি ওসি আটক

» ঝিনাইদহের দোকানের টিন কেটে চুরি,সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়ল চোর

» বন্দরের গাজীপুর পেপার মিলে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

» ফতুল্লায় দাবীকৃত চাঁদা না পেয়ে ইজিবাইক চালককে মারধর

» নদী দখলে প্রধান মন্ত্রীর ছবি সহ দলিল দেখালেও ছাড় দিতে না করেছেন প্রধান মন্ত্রী- মাসুদ রানা

» আজ মাগফিরাতের ৫ম দিবস আল্লাহর আদেশ -নিষেধ মেনে চলার নামই ইবাদত

» বিপিএলে আসছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা?

» ঈদের ছুটির আগেই বেতন-বোনাস পাবেন সরকারি চাকরিজীবীরা



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD



আজ : মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গফরগাঁওয়ে পুলিশের ধাওয়ায় আহত আ’লীগ কর্মীর মৃত্যু

উজ্জীবিত বিডি ডটকম:- ময়মনসিংহের গফরগাঁও পুলিশের ধাওয়া খেয়ে পালাতে গিয়ে আওয়ামী লীগের আহত কর্মী লিটন মিয়ার (৩০) মৃত্যু হয়েছে। আহত হওয়ার ১৭ দিন পর বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা তিনি মারা যান।

 

এলাকাবাসী ও লিটন মিয়ার পরিবার সূত্রে জানা গেছে , গত ২৪ এপ্রিল রাত ১টার দিকে গফরগাঁও থানার ওসি আবদুল আহাদ খান, এসআই রুবেল, এসআই নূর শাহীন, এএসআই সুখময় দত্তের নেতৃত্বে ৮-১০ জন পুলিশ লিটনের বাড়ির পাশে পাকাটি বাজারে আসেন। পাকাটি বাজারের ব্যবসায়ী ও ওইদিনের বাজার পাহারাদার আল আমিন (৩৮) ও বাচ্চু মিয়ার কাছে কামরুজ্জামান পিতা-মইজউদ্দিনকে খোঁজ করে। আল আমিন ও বাচ্চু মিয়া পুলিশকে সঠিক তথ্য দিতে পারে না।

 

রাত দেড়টার দিকে এসআই রুবেল, এসআই নূর শাহীন, এএসআই সুখময় দত্তের নেতৃত্বে ৮-১০ জন পুলিশ বাড়ি লিটনের বাড়ি ঘেরাও করে। পুলিশ লিটনকে বসত ঘরের দরজা খুলতে বলে এবং বসত ঘরের দরজাতে লাঠি জাতীয় জিনিস দিয়ে আঘাত করে। ভয়ে লিটন ঘরের টিনের চালা কেটে পালাতে গিয়ে ঘরের টিনের চালা থেকে পড়ে গুরুতর আহত হয়।

লিটনকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে এবং পরে ঢাকার লালমাটিয়ার একটি হাসপাতালে আইসিইউতে রাখা হয়। বৃহস্পতিবার রাতে তার মৃত্যু হয়। গফরহাঁও থানার এসআই নূর শাহীন বলেন, পালাতে গিয়ে লিটন টিনের চালা থেকে পড়ে আহত হলে তার সুচিকিৎসার জন্য থানা পুলিশ দ্রুত তাকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

 

স্থানীয় ইউপি সদন্য হিরু মেম্বারের সঙ্গে কথা বলে লিটনের বাড়িতে অভিযান চালানো হয় বলে জানান এসআই নূর শাহীন।

 

লিটনের পিতা মইজ উদ্দিন (৭০) ও মা ওজুফা খাতুন (৬০) বলেন, তাদের ছেলে লিটন মিয়ার নামে কোনো মামলা নেই। পুলিশ এলাকার কিছু লোকের ইন্ধনে পড়ে আমার ছেলেকে গ্রেফতার করতে আমার বাড়িতে অভিযান চালায়। আমার ছেলে লিটন মিয়া পুলিশের ভয়ে ঘরের চালায় উঠে, চালা থেকে লাফ দিয়ে মাটিতে পড়ে। থানা পুলিশ এ সময় লিটনকে অচেতন লিটনকে টেনে হেঁচড়ে অনেকদুর পর্যন্ত নিয়ে যায়।

 

বারবাড়িয়া ই্উনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি আনিছুর রহমান বলেন, লিটন আওয়ামী লীগের সক্রিয় কর্মী ছিল। গফরগাঁও উপজেলা সদরে যুবলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় ওই সময়ে মামলা হয়, লিটন হয়ত ভেবেছিল পুলিশ এই মামলায় তাকে গ্রেফতার করতে এসেছে। এই ভয়ে হয়ত সে পালাতে চায়।

 

গফরগাঁও থানার ওসি আব্দুল আহাদ বলেন, লিটনের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা ছিল। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করতে গেলে পালাতে গিয়ে তিনি আহত হন।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ





সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD