ফতুল্লায় সাধারন মানুষের আতংক সোর্স আসিফ ও নিশাদ

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

অপরাধীদের সম্বন্ধে নিয়মিত তথ্যদাতারা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী পুলিশ ও র‌্যাবের কাছে ‘সোর্স’ হিসেবে পরিচিত। নাম-পরিচয় গোপন রেখে সম্ভাব্য ও সংঘটিত অপরাধ এবং অপরাধীদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করে তারা। পরে তা পুলিশ বা র‌্যাবকে সরবরাহ করে। নিরাপত্তার কারণে তাদের পরিচয় গোপন রাখা হয়। এ জন্য তাদের নিয়মিত আর্থিক সহায়তা (সোর্স মানি) দেওয়া হয়। অনেক ক্ষেত্রে এলাকার দাগি, সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীরাও নিজেদের স্বার্থে থানায় সোর্স হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়ে নানা অপকর্ম করছে। ধরা পড়ার ভয়ে খোদ পেশাদার সন্ত্রাসীরাও এসব সোর্সকে ভয় পায়। সন্ত্রাসী ও পুলিশের সঙ্গে সখ্যের কারণে সাধারণ মানুষ তাদের নিয়ে থাকেন আতঙ্কে। তথ্য পাওয়ার জন্য পুলিশ যেমন তাদের খাতির করে, তেমনি অসাধু পুলিশ সদস্যদের কাছে এ সোর্সরাই ‘সোনার ডিমপাড়া হাঁস’। তাদের মাধ্যমেই নির্দিষ্ট ব্যক্তিদের কাছ থেকে কথিত ‘আটক বাণিজ্যে’র নামে হাতিয়ে নেওয়া হয় অর্থ।

 

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আর সন্ত্রাসীদের আশীর্বাদপুষ্ট হয়ে ইদানীং নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা থানাধীন পাগলা নন্দলালপুর এলাকার সম্ভুর ছেলে সোর্স আসিফ (২৭), একই এলাকার শিল্পীর ছেলে সোর্স নিশাদ (২২), তারা বেপরোয়া এবং ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে।

 

সোর্স আসিফ ও নিশাদের কথায় নাকি নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) এবং ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ চলে। তারা সমাজে পুলিশের সোর্সের নাম ব্যবহার করে বিভিন্ন অপরাধ করে বেড়াই। যদি কেউ সোর্স আসিফ ও সোর্স নিশাদের অপকর্মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে তাহলে তাদের পুলিশি হয়রানির মাধ্যমে আদায় করা হয় বিশাল অর্থ। তেমনি একজন ভুক্তভোগীর নাম ওমর ফারুক তিনি একটি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী তার একটি সরকার অনুমোদিত মেহেদীর কারখানা ছিল। গত কয়েক বছর আগে সে কারখানা ছেড়ে দেয়। সেই কারখানার কিছুসংখ্যক মালামাল বিক্রি না হওয়ায় তার ভারা বাড়ীর একটি রোমে তালা লাগিয়ে রেখে দেই তিনি। আর সেই মালামাল রাখাতে তার কাছে সোর্স আসিফ ও নিশাদ ১০ হাজার টাকা চাদাঁ দাবী করে। ফারুক তাদের চাওয়া অর্থ দিতে রাজি না হওয়ায়, সোর্স আসিফ ও নিশাদের ইশারায় গত (১৯ মে) শনিবার দিবাগত ভোর রাতে ফতুল্লা মডেল থানার এক এসআইকে দিয়ে আটক করে ১লাখ টাকা দাবী করে। পরে দরকষাকষির একপর্যায়ে ফারুক ১০ হাজার টাকা দিতে রাজি হলে তাকে ১৫ হাজার টাকা বিনিময়ে ছেড়ে দিয়ে চলে যান তারা।

 

সোর্স আসিফ ও নিশাদের খুব মিঠাতে গত (১৯ মে) শনিবার বিকালে পুর্নরায় নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা শাখার একটি টিম আমার বাসায় নিয়ে প্রবেশ করে সাথে সোর্স আসিফ ও নিশাদ তাদের সহযোগিতায় আমাকে গাড়ীতে উঠিয়ে নিয়ে যায় নারায়ণগঞ্জ ডিবি অফিসে সেখানে একজন সরকারী কর্মকর্তা ফারুকের বিষয়ে জানতে চাইলে তাকে বলে ফারুকে ছেড়ে দিবো ৫ লাখ টাকা নিয়ে আসেন এমন কথা শুনে তিনি চলে এলেন সেখান থেকে। পরে ফারুকে বাবা ও তার বন্ধুদের সহযোগিতায় ১ লাখ টাকার বিনিময়ে রাত ২ টার দিকে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

 

এলাকাবাসীর অভিযোগ সোর্স আসিফ ও নিশাদের কথামত প্রশাসন একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীকে যদি সকালে ও বিকালে এমন হয়রানি করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে সমাজের কেউ কি ভাবে কথা বলবে। সোর্স আসিফ ও নিশাদের বিরুদ্ধে অনেক অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে যেমন মাদক বিক্রি, মোবাইল চুরি, ছিনতাই, ডাকাতির সহ বিভিন্ন অপরাধের অভিযোগ থানায় এবং এসপি অফিসে জমা রয়েছে। তাদের অপকর্মে বিরুদ্ধে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় অসংখ্য সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। তাতেও তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছেন না বলেও অনেকের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

এ বিষয়ে অত্র এলাকাবাসির দাবী নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) হারুন অর-রশিদ মহোদয়ের হস্তক্ষেপ কামনা ও অপরাধী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে জরুরী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করে আমাদের বাচান!!

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» ফতুল্লায় আবাসিক এলাকায় বাণিজ্যিক গরুর খামার বিপর্যস্ত জনজীবন

» শরীয়তপুরে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

» রেশমা’র ঘাতকের বিচারের দাবীতে সেভ দ্য রোড-এর সমাবেশ

» শার্শা উপজেলা যুবলীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদৎ বার্ষিকীতে বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত

» কুয়াকাটা পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযানের সমাপ্তি

» আজ রক্তঝরা ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস

» পিতার স্বপ্ন পূরণ করবো বলে শোক ভুলে আছি: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

» নারী ও শিশু নির্যাতন বিরোধী আলোচনা ও করোনা যোদ্ধাদের সনদ প্রদান

» সোনারগাঁয়ে দু’সন্তান রেখে প্রেমিকের সঙ্গে উধাও প্রবাসীর স্ত্রী

» প্রতি বছর আগষ্ট মাসে কোন না কোন ঘটনা ঘটবেই – শিপন সরকার




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০, খ্রিষ্টাব্দ, ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ফতুল্লায় সাধারন মানুষের আতংক সোর্স আসিফ ও নিশাদ

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

অপরাধীদের সম্বন্ধে নিয়মিত তথ্যদাতারা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী পুলিশ ও র‌্যাবের কাছে ‘সোর্স’ হিসেবে পরিচিত। নাম-পরিচয় গোপন রেখে সম্ভাব্য ও সংঘটিত অপরাধ এবং অপরাধীদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করে তারা। পরে তা পুলিশ বা র‌্যাবকে সরবরাহ করে। নিরাপত্তার কারণে তাদের পরিচয় গোপন রাখা হয়। এ জন্য তাদের নিয়মিত আর্থিক সহায়তা (সোর্স মানি) দেওয়া হয়। অনেক ক্ষেত্রে এলাকার দাগি, সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীরাও নিজেদের স্বার্থে থানায় সোর্স হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়ে নানা অপকর্ম করছে। ধরা পড়ার ভয়ে খোদ পেশাদার সন্ত্রাসীরাও এসব সোর্সকে ভয় পায়। সন্ত্রাসী ও পুলিশের সঙ্গে সখ্যের কারণে সাধারণ মানুষ তাদের নিয়ে থাকেন আতঙ্কে। তথ্য পাওয়ার জন্য পুলিশ যেমন তাদের খাতির করে, তেমনি অসাধু পুলিশ সদস্যদের কাছে এ সোর্সরাই ‘সোনার ডিমপাড়া হাঁস’। তাদের মাধ্যমেই নির্দিষ্ট ব্যক্তিদের কাছ থেকে কথিত ‘আটক বাণিজ্যে’র নামে হাতিয়ে নেওয়া হয় অর্থ।

 

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আর সন্ত্রাসীদের আশীর্বাদপুষ্ট হয়ে ইদানীং নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা থানাধীন পাগলা নন্দলালপুর এলাকার সম্ভুর ছেলে সোর্স আসিফ (২৭), একই এলাকার শিল্পীর ছেলে সোর্স নিশাদ (২২), তারা বেপরোয়া এবং ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে।

 

সোর্স আসিফ ও নিশাদের কথায় নাকি নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) এবং ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ চলে। তারা সমাজে পুলিশের সোর্সের নাম ব্যবহার করে বিভিন্ন অপরাধ করে বেড়াই। যদি কেউ সোর্স আসিফ ও সোর্স নিশাদের অপকর্মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে তাহলে তাদের পুলিশি হয়রানির মাধ্যমে আদায় করা হয় বিশাল অর্থ। তেমনি একজন ভুক্তভোগীর নাম ওমর ফারুক তিনি একটি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী তার একটি সরকার অনুমোদিত মেহেদীর কারখানা ছিল। গত কয়েক বছর আগে সে কারখানা ছেড়ে দেয়। সেই কারখানার কিছুসংখ্যক মালামাল বিক্রি না হওয়ায় তার ভারা বাড়ীর একটি রোমে তালা লাগিয়ে রেখে দেই তিনি। আর সেই মালামাল রাখাতে তার কাছে সোর্স আসিফ ও নিশাদ ১০ হাজার টাকা চাদাঁ দাবী করে। ফারুক তাদের চাওয়া অর্থ দিতে রাজি না হওয়ায়, সোর্স আসিফ ও নিশাদের ইশারায় গত (১৯ মে) শনিবার দিবাগত ভোর রাতে ফতুল্লা মডেল থানার এক এসআইকে দিয়ে আটক করে ১লাখ টাকা দাবী করে। পরে দরকষাকষির একপর্যায়ে ফারুক ১০ হাজার টাকা দিতে রাজি হলে তাকে ১৫ হাজার টাকা বিনিময়ে ছেড়ে দিয়ে চলে যান তারা।

 

সোর্স আসিফ ও নিশাদের খুব মিঠাতে গত (১৯ মে) শনিবার বিকালে পুর্নরায় নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা শাখার একটি টিম আমার বাসায় নিয়ে প্রবেশ করে সাথে সোর্স আসিফ ও নিশাদ তাদের সহযোগিতায় আমাকে গাড়ীতে উঠিয়ে নিয়ে যায় নারায়ণগঞ্জ ডিবি অফিসে সেখানে একজন সরকারী কর্মকর্তা ফারুকের বিষয়ে জানতে চাইলে তাকে বলে ফারুকে ছেড়ে দিবো ৫ লাখ টাকা নিয়ে আসেন এমন কথা শুনে তিনি চলে এলেন সেখান থেকে। পরে ফারুকে বাবা ও তার বন্ধুদের সহযোগিতায় ১ লাখ টাকার বিনিময়ে রাত ২ টার দিকে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

 

এলাকাবাসীর অভিযোগ সোর্স আসিফ ও নিশাদের কথামত প্রশাসন একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীকে যদি সকালে ও বিকালে এমন হয়রানি করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে সমাজের কেউ কি ভাবে কথা বলবে। সোর্স আসিফ ও নিশাদের বিরুদ্ধে অনেক অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে যেমন মাদক বিক্রি, মোবাইল চুরি, ছিনতাই, ডাকাতির সহ বিভিন্ন অপরাধের অভিযোগ থানায় এবং এসপি অফিসে জমা রয়েছে। তাদের অপকর্মে বিরুদ্ধে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় অসংখ্য সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। তাতেও তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছেন না বলেও অনেকের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

এ বিষয়ে অত্র এলাকাবাসির দাবী নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) হারুন অর-রশিদ মহোদয়ের হস্তক্ষেপ কামনা ও অপরাধী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে জরুরী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করে আমাদের বাচান!!

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
সহ সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা সম্পাদক : কাজী আবু তাহের মো. নাছির
editor.kuakatanews@gmail.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯ ,

বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৭১৪ ০৪৩ ১৯৮।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD