র‌্যাবের কাছে এক মাঝির জবানবন্দী” মাজেদকে শ্বাসরোধে হত্যা 

বিশলা আহমেদ:- নারায়ণগঞ্জের ফতুলা থেকে অপহৃত মাজেদ আলীর হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে র‌্যাব-১১ সদস্যরা। অপহৃত মাজেদ আলীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে লাশ মেঘনা নদীতে ফেলে দেয়া হয়। র‌্যাবের হাতে গ্রেফতারকৃত সোহেল নামে এক নৌকার মাঝি জবানবন্দীতে এই হত্যাকান্ডের এমনিই বর্ণনা দেন। এ ঘটনায় র‌্যাব সদস্যরা এ পর্যন্ত মূল হোতা আদম বেপারী মহিউদ্দিন বুলু (৪২)সহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে। সোমবার দিবাগত রাত দেড়টায় ম্ন্সুীগঞ্জের গজারিয়ার গোয়াগাটিয়ার শিমুলিয়া এলাকা থেকে সুলতান মাহমুদ বাবু (৩৬)কে গ্রেফতার করে। গত ১০ মে শুক্রবার কুমিলার দাউদকান্দি বাজার ঘাট থেকে নৌকার মাঝি সোহেল (২১) গ্রেফতার করা হয়। গত ৮ এপ্রিল মহিউদ্দিন ভুলুকে গ্রেফতার করে র‌্যাব সদস্যরা।

 

গ্রেফতারকৃত নৌকার মাঝি সোহেল র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে মাজেদ আলী হত্যাকান্ডের লোমহর্ষক বর্ণনা দেয়। মঙ্গলবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজীর র‌্যাব-১১ এর প্রধান কার্যালয়ে র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক (সিও) লেঃ কর্ণেল কাজী শমসের উদ্দিন অপহৃত মাজেদ আলীর হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনের কথা এক সাংবাদিক সম্মেলনে গণমাধ্যমকে অবহিত করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- মেজর তালুকদার নাজমুছ সাকিব, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আলেপ উদ্দিন ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ জসীম উদ্দিন চৌধুরী।

 

র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক (সিও) লেঃ কর্ণেল কাজী শমসের উদ্দিন বলেন, গত ১৩ মার্চ নাজমা বেগম নামে এক নারী পাবনা থেকে এসে র‌্যাব-১১ বরাবর অভিযোগ দাখিল করে যে, তার স্বামী মোঃ মাজেদ আলী গত ১০ মার্চ হতে নিখোঁজ হয়। এ বিষয়ে তিনি ফতুলা থানায় একটি জিডি করেন। অভিযোগে উলেখ করেন তারা স্বামী-স্ত্রী বিদেশ যাওয়ার উদ্দেশ্যে মহিউদ্দিন বুলু নামের এক আদম বেপারীর কথায় পাবনা থেকে নারায়ণগঞ্জে আসেন। বুলু তাদেরকে ফতুলায় একটি ভাড়া বাড়িতে রাখেন। পরে পাসপোর্ট, ভিসা, মেডিক্যাল ও বিভিন্ন কাজের কথা বলে বুলু তাদের কাছে থেকে ২ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেয়। বুলু তাদের বিদেশ না নিয়ে নানা ছলচাতুির করে কালক্ষেপণ করতে থাকে। গত ১০ মার্চ মহিউদ্দিন বুলু বিকেলে ঘুরতে যাওয়ার কথা বলে কৌশলে মাজেদ আলীকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায়। রাতে বুলু ফিরে আসলেও মাজেদ আলী আর ফিরে আসেনি। তখন থেকে তার মোবাইল বন্ধটি পাওয়া যায়। অভিযোগ পাওয়ার পর র‌্যাব-১১ এর একটি বিশেষ গোয়েন্দা দল নিখোঁজ মাজেদ আলীর সন্ধান ও সন্দেহভাজন মহিউদ্দিন বুলুকে গ্রেফতারের জন্য গোয়েন্দা কার্যক্রম শুরু করে। গত ৮ এপ্রিল ফতুলার শিবু মার্কেট এলাকা হতে মহিউদ্দিন বুলুকে গ্রেফতার করা হয়।

 

ওই কর্মকর্তা আরো জানান, র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত মহিউদ্দিন বুলুকে নিখোঁজ মাজেদ আলীর পরিণতি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে সে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রদান করে। কিন্তু অভিযুক্ত মহিউদ্দিন বুলুর ও নিখোঁজ মাজেদ আলীর মোবাইল কল লিষ্ট ও ঘটনার দিনে তাদের গতিবিধি পর্যালোচনা করে দেখা যায় ঐ দিন তারা নারায়ণগঞ্জ থেকে বিকেলে দাউদকান্দি ব্রিজ এলাকায় ও সন্ধ্যায় মুন্সিগঞ্জ জেলার গজারিয়া থানাধীন মেঘনা নদীর তীর এলাকায় অবস্থান করে। পরবর্তীতে অভিযুক্ত মহিউদ্দিন বুলু নারায়ণগঞ্জে ফিরে আসলেও নিখোঁজ মাজেদ আলীর ব্যবহৃত মোবাইলটি ঐ এলাকা থেকে বন্ধ পাওয়া যায়। এই ঘটনায় র‌্যাবের সহযোগিতায় নিখোঁজ মাজেদ আলীর স্ত্রী নাজমা বেগম বাদী হয়ে ফতুলা মডেল থানায় গত ৯ এপ্রিল একটি মামলা দায়ের করেন। র‌্যাব-১১ এর একটি বিশেষ গোয়েন্দা দল এ ঘটনার রহস্য উদঘাটনের জন্য ছায়া তদন্ত অব্যাহত রাখে।

 

তিনি আরো জানান, ধারাবাহিক অনুসন্ধানে জানা যায় কুমিলার দাউদকান্দি এলাকার সোহেল নামে এক নৌকার মাঝি ঘটনার দিন গত ১০ মার্চ আদম বেপারী মহিউদ্দিন বুলু নিখোঁজ মাজেদ আলী ও অজ্ঞাত এক লোক’কে নিয়ে মেঘনা নদীতে নৌকা চালিয়েছিল। এর ধারাবাহিকতায় শুক্রবার ১০ মে কুমিলার দাউদকান্দি বাজার ঘাট হতে নৌকার মাঝি সোহেলকে আটক এবং তার নৌকাটি জব্দ করা হয়। গ্রেফতারের পর র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নৌকার মাঝি সোহেল ঘটনার লোমহষর্ক বর্ণনা দিয়ে জবানবন্দী প্রদান করে। সোহেল র‌্যাবের কাছে জবানবন্দীতে জানায়, আদম-বেপারী মহিউদ্দিন বুলু ও বাবু একত্রে সোহেলের নৌকায় মাজেদ আলীকে পাশবিক নির্যাতন করে, গলা টিপে ও নাক-মুখ চেপে ধরে শ¡াসরুদ্ধ করে হত্যা করে মেঘনা নদীতে লাশ ভাসিয়ে দেয়। পরে বুলু ও বাবু সোহেলকে ১ হাজার টাকা ভাড়া দিয়ে দাউদকান্দি ব্রিজের পশ্চিম পাশের্¡ নেমে যায়। গ্রেফতারকৃত নৌকার মাঝি সোহেল গত সোমবার নারায়ণগঞ্জ জেলার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী প্রদান করে। পরে র‌্যাব সদস্যরা সোমবার দিবাগত রাত দেড়টায় গজারিয়ার গোয়াগাটিয়ার শিমুলিয়া এলাকায় তার নিজ বাড়ি হতে সুলতান মাহমুদ বাবুকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত বাবুর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে তিনি জানান।

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» ফতুল্লায় ডিবি’র সাথে বন্দুকযুদ্ধে মাদক সম্রাট বিপ্লব নিহত

» নারায়ণগঞ্জে যায়যায়দিন পত্রিকার প্রতিষ্ঠা বাষির্কী পালন

» রাণীনগরে যায়যায় দিন পত্রিকার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন

» স্থানীয়দের নির্মমতা থেকে মুক্তি চায় রাবিয়ানরা

» কলাপাড়ায় খসে পরছে বিদ্যালয় ভবননের ছাদের প্লেস্টার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা আতঙ্কে

» কলাপাড়ায় মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে ধর্ষনের দায়ে আটক-১

» রাজাপুরে খালে ভেসে এলো বিপন্ন মৃত শুশুক, উৎসুক জনতার ভীড়

» ডামুড্যায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাদ ধসে পড়েছে

» ডামুড্যায় যায়যায়দিন পত্রিকার বর্ণাঢ্য প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

» মদনপুরে সেতু থাকলেও চলাচলের সড়ক না থাকায় জনদুর্ভোগ চরমে




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD




আজ : মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ১লা শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

র‌্যাবের কাছে এক মাঝির জবানবন্দী” মাজেদকে শ্বাসরোধে হত্যা 

বিশলা আহমেদ:- নারায়ণগঞ্জের ফতুলা থেকে অপহৃত মাজেদ আলীর হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে র‌্যাব-১১ সদস্যরা। অপহৃত মাজেদ আলীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে লাশ মেঘনা নদীতে ফেলে দেয়া হয়। র‌্যাবের হাতে গ্রেফতারকৃত সোহেল নামে এক নৌকার মাঝি জবানবন্দীতে এই হত্যাকান্ডের এমনিই বর্ণনা দেন। এ ঘটনায় র‌্যাব সদস্যরা এ পর্যন্ত মূল হোতা আদম বেপারী মহিউদ্দিন বুলু (৪২)সহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে। সোমবার দিবাগত রাত দেড়টায় ম্ন্সুীগঞ্জের গজারিয়ার গোয়াগাটিয়ার শিমুলিয়া এলাকা থেকে সুলতান মাহমুদ বাবু (৩৬)কে গ্রেফতার করে। গত ১০ মে শুক্রবার কুমিলার দাউদকান্দি বাজার ঘাট থেকে নৌকার মাঝি সোহেল (২১) গ্রেফতার করা হয়। গত ৮ এপ্রিল মহিউদ্দিন ভুলুকে গ্রেফতার করে র‌্যাব সদস্যরা।

 

গ্রেফতারকৃত নৌকার মাঝি সোহেল র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে মাজেদ আলী হত্যাকান্ডের লোমহর্ষক বর্ণনা দেয়। মঙ্গলবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজীর র‌্যাব-১১ এর প্রধান কার্যালয়ে র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক (সিও) লেঃ কর্ণেল কাজী শমসের উদ্দিন অপহৃত মাজেদ আলীর হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনের কথা এক সাংবাদিক সম্মেলনে গণমাধ্যমকে অবহিত করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- মেজর তালুকদার নাজমুছ সাকিব, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আলেপ উদ্দিন ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ জসীম উদ্দিন চৌধুরী।

 

র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক (সিও) লেঃ কর্ণেল কাজী শমসের উদ্দিন বলেন, গত ১৩ মার্চ নাজমা বেগম নামে এক নারী পাবনা থেকে এসে র‌্যাব-১১ বরাবর অভিযোগ দাখিল করে যে, তার স্বামী মোঃ মাজেদ আলী গত ১০ মার্চ হতে নিখোঁজ হয়। এ বিষয়ে তিনি ফতুলা থানায় একটি জিডি করেন। অভিযোগে উলেখ করেন তারা স্বামী-স্ত্রী বিদেশ যাওয়ার উদ্দেশ্যে মহিউদ্দিন বুলু নামের এক আদম বেপারীর কথায় পাবনা থেকে নারায়ণগঞ্জে আসেন। বুলু তাদেরকে ফতুলায় একটি ভাড়া বাড়িতে রাখেন। পরে পাসপোর্ট, ভিসা, মেডিক্যাল ও বিভিন্ন কাজের কথা বলে বুলু তাদের কাছে থেকে ২ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেয়। বুলু তাদের বিদেশ না নিয়ে নানা ছলচাতুির করে কালক্ষেপণ করতে থাকে। গত ১০ মার্চ মহিউদ্দিন বুলু বিকেলে ঘুরতে যাওয়ার কথা বলে কৌশলে মাজেদ আলীকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায়। রাতে বুলু ফিরে আসলেও মাজেদ আলী আর ফিরে আসেনি। তখন থেকে তার মোবাইল বন্ধটি পাওয়া যায়। অভিযোগ পাওয়ার পর র‌্যাব-১১ এর একটি বিশেষ গোয়েন্দা দল নিখোঁজ মাজেদ আলীর সন্ধান ও সন্দেহভাজন মহিউদ্দিন বুলুকে গ্রেফতারের জন্য গোয়েন্দা কার্যক্রম শুরু করে। গত ৮ এপ্রিল ফতুলার শিবু মার্কেট এলাকা হতে মহিউদ্দিন বুলুকে গ্রেফতার করা হয়।

 

ওই কর্মকর্তা আরো জানান, র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত মহিউদ্দিন বুলুকে নিখোঁজ মাজেদ আলীর পরিণতি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে সে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রদান করে। কিন্তু অভিযুক্ত মহিউদ্দিন বুলুর ও নিখোঁজ মাজেদ আলীর মোবাইল কল লিষ্ট ও ঘটনার দিনে তাদের গতিবিধি পর্যালোচনা করে দেখা যায় ঐ দিন তারা নারায়ণগঞ্জ থেকে বিকেলে দাউদকান্দি ব্রিজ এলাকায় ও সন্ধ্যায় মুন্সিগঞ্জ জেলার গজারিয়া থানাধীন মেঘনা নদীর তীর এলাকায় অবস্থান করে। পরবর্তীতে অভিযুক্ত মহিউদ্দিন বুলু নারায়ণগঞ্জে ফিরে আসলেও নিখোঁজ মাজেদ আলীর ব্যবহৃত মোবাইলটি ঐ এলাকা থেকে বন্ধ পাওয়া যায়। এই ঘটনায় র‌্যাবের সহযোগিতায় নিখোঁজ মাজেদ আলীর স্ত্রী নাজমা বেগম বাদী হয়ে ফতুলা মডেল থানায় গত ৯ এপ্রিল একটি মামলা দায়ের করেন। র‌্যাব-১১ এর একটি বিশেষ গোয়েন্দা দল এ ঘটনার রহস্য উদঘাটনের জন্য ছায়া তদন্ত অব্যাহত রাখে।

 

তিনি আরো জানান, ধারাবাহিক অনুসন্ধানে জানা যায় কুমিলার দাউদকান্দি এলাকার সোহেল নামে এক নৌকার মাঝি ঘটনার দিন গত ১০ মার্চ আদম বেপারী মহিউদ্দিন বুলু নিখোঁজ মাজেদ আলী ও অজ্ঞাত এক লোক’কে নিয়ে মেঘনা নদীতে নৌকা চালিয়েছিল। এর ধারাবাহিকতায় শুক্রবার ১০ মে কুমিলার দাউদকান্দি বাজার ঘাট হতে নৌকার মাঝি সোহেলকে আটক এবং তার নৌকাটি জব্দ করা হয়। গ্রেফতারের পর র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নৌকার মাঝি সোহেল ঘটনার লোমহষর্ক বর্ণনা দিয়ে জবানবন্দী প্রদান করে। সোহেল র‌্যাবের কাছে জবানবন্দীতে জানায়, আদম-বেপারী মহিউদ্দিন বুলু ও বাবু একত্রে সোহেলের নৌকায় মাজেদ আলীকে পাশবিক নির্যাতন করে, গলা টিপে ও নাক-মুখ চেপে ধরে শ¡াসরুদ্ধ করে হত্যা করে মেঘনা নদীতে লাশ ভাসিয়ে দেয়। পরে বুলু ও বাবু সোহেলকে ১ হাজার টাকা ভাড়া দিয়ে দাউদকান্দি ব্রিজের পশ্চিম পাশের্¡ নেমে যায়। গ্রেফতারকৃত নৌকার মাঝি সোহেল গত সোমবার নারায়ণগঞ্জ জেলার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী প্রদান করে। পরে র‌্যাব সদস্যরা সোমবার দিবাগত রাত দেড়টায় গজারিয়ার গোয়াগাটিয়ার শিমুলিয়া এলাকায় তার নিজ বাড়ি হতে সুলতান মাহমুদ বাবুকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত বাবুর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে তিনি জানান।

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD