সর্বোচ্চ কঠোর এসপি হারুন তবুও পুলিশের উপর হামলাকারীরা বীরদর্পে!

সন্ত্রাস, মাদকসহ যে কোনো অপরাধীর ক্ষেত্রে কঠোর ভূমিকা পালন করছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ। এমনকী তার কোনো পুলিশ সদস্যও যদি কোনো অন্যায়ের সাথে জড়িত থেকেছেন তাকেও ছাড় দেননি। অথচ এতটা কঠোর তিনি তারপরও তার এলাকাতে পুলিশ পিটিয়ে ও প্রকাশ্যে হুমকি দেওয়া ব্যক্তিরা পার পেয়ে যাচ্ছেন! যা অনেকটা ‘বাতির নিচে অন্ধকার’ অন্ধকার বলে মনে করছেন অনেকেই।

 

সূত্র বলছে, ১ মার্চ শুক্রবার রাতে আলীগঞ্জস্থ তিন রাস্তার মোড়ে গার্মেন্টস সংলগ্ন নাছিরউদ্দিনের ছেলে সোয়েবের বিয়ে উপলক্ষে আবাসিক এলাকায় প্যান্ডেল করে উচ্চস্বরে সাউন্ড সিস্টেমের মাধ্যমে গানবাজনা হচ্ছিল। এতে আশপাশের বাড়ির লোকজনের সমস্যা হলেও এ ব্যাপারে কোনো প্রতিকার না পেয়ে এলাকাবাসী পুলিশে সংবাদ দেয়।

 

পরে রাত ৩টায় ফোর্সসহ ফতুল্লা মডেল থানার কর্তব্যরত এসআই মঈনুল ইসলাম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ভলিউম কমিয়ে গানবাজনার জন্যে অনুরোধ জানায়। কিন্তু পুলিশের অনুরোধে কর্নপাত না করে উল্টো আলীগঞ্জের সাহাবুদ্দিন মিয়ার ছেলে নব্য আওয়ামী লীগার হাজী মনিরউদ্দিনের নেতৃত্বে জালাল, মোক্তার, নঈমসহ আরো ২০/২৫ সন্ত্রাসী একত্রিত হয়ে এসআই মঈনুলকে টানাহেচড়া করে প্যান্ডেল থেকে বাইরে নিয়ে যায়। এ সময় কনস্টেবলরা এগিয়ে গেলে কনস্টেবল জাহিদুল ইসলামকে পোষাক ধরে টানাহেচড়া করে প্যান্ডেলের পেছনে নিয়ে তার সাথে থাকা সরকারি গুলি ও অস্ত্র ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে।

 

এ ঘটনায় এসআই মঈনুল ইসলাম বাদি হয়ে ৩ মার্চ লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে মামলাটি নথিভুক্ত হয়। এ মামলায় জালাল, মোক্তার, হাজী মনিরউদ্দিন ও তার ইটখোলার ম্যানেজার ভাগিনা নঈমের নাম উল্লেখ করে ২০/২৫ জনকে আসামী করা হয়েছে। তবে, পুলিশ সূত্র জানায় এ ঘটনার পর তাদের কেউ আটক হয়নি। বর্তমানে তারা জামিনে রয়েছেন।

 

এ প্রসঙ্গে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মো. আসলাম হোসেন বলেন, আমি এখানে নতুন এসেছি। বিষয়টি জানা নেই। এখনই খোঁজ নেব মামলাটি কি অবস্থায় আছে, কেন তাদের আটক করা হয়নি অথবা তারা জামিনে আছেন কিনা।

 

তিনি বলেন, অপরাধী যেই হোক, যে দলেরই হোক আমরা প্রকৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার আছি। কাউকেই আমরা ছাড় দেব না।

 

অপরদিকে ২৯ মার্চে আড়াইহাজার উপজেলা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী আড়াইহাজার থানায় প্রবেশ করে এবং একটি জিডিকে কেন্দ্র থানার ভেতরই পুলিশকে হুমকি ধামকি দিয়ে বীরত্ব দেখায়। শুধু তাই নয়, থানা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় আড়াইহাজার সরকারি সফর আলী কলেজের সাবেক সাধারণ সম্পাদক (জিএস) ও ছাত্রলীগ নেতা আল-আমিন এবং তার কর্মীরা এ হুমকি দেন। এ ঘটনার একটি ভিডিও ইতোমধ্যে ব্যাপক ভাইরালও হয়। কিন্তু অপ্রিয় হলেও সত্য যে, এখনও পর্যন্ত এসব আসামীদের বিরুদ্ধে কোনো রকম শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

 

এ প্রসঙ্গে জানতে আড়াইহাজার থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) আক্তার হোসেনের মুঠোফোনে কল করা হলে তিনি জানান, এখন আমি রূপগঞ্জ একটি প্রোগ্রামে আছি। একটু পরে কথা বলতে হবে।

 

এছাড়াও শহরের শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী সালাউদ্দিন বিটুকে গ্রেফতার করতে গেলে সদর মডেল থানা পুলিশের এসআই শাহাদাতের উপর হামলা চালায় বিটু ও তার বাহিনী। এ ঘটনার পরপরই পালিয়ে যায় এই শীর্ষ মাদক বিক্রেতা। বর্তমানে সে ভারতে অবস্থান করছে। তবে তার অবর্তমানে সনি নামের এক যুবকের কিছু লোকজন এই মাদক ব্যবসা চালিয়ে নিচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

 

এ প্রসঙ্গে সদর মডেল থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মো. কামরুল ইসলাম বলেন, আমাদের বেশ কয়েকটি ফোর্স ইতোমধ্যে মাঠে কাজ করছে তাকে গ্রেফতারের জন্য। আশা করছি খুব অচিরেই তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হবো।

সূত্র-নারায়ণগঞ্জ টুডে

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» প্রাথমিক শিক্ষা থেকে বঞ্চিত দেওরাছড়া বাগানের শিশুরা

» আত্রাইয়ে গাঁজাসহ তিন মাদক কারবারী আটক

» বঙ্গোপসাগরে অবৈধ শাড়িসহ ১০ জনকে আটক করেছে কোষ্টগার্ড

» সীমান্ত প্রেসক্লাব’র তত্ত্বাবধানে অগ্নিদ্বগ্ধ মারিয়াকে ঢাকায় বার্ন ইউনিটে পেরন

» মহেশপুরে মহিলা কলেজ সংলগ্ন ড্রেন থেকে বৃদ্ধের মৃতদেহ উদ্ধার

»  জনগনের নিরাপত্তা ও সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করতে ট্রাফিক পক্ষ পালন 

» ফেসবুকের পোষ্ট দেখে প্রতিবন্ধীকে হুইল চেয়ার উপহার

» গ্রাম আদালতের বার্তা মাঠ-পর্যায়ে ছড়িয়ে দেওয়ার আহবান 

» ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ধর্ষণের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

» কমিউনিটি ক্লিনিকের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD



আজ : শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ১৩ই বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সর্বোচ্চ কঠোর এসপি হারুন তবুও পুলিশের উপর হামলাকারীরা বীরদর্পে!

সন্ত্রাস, মাদকসহ যে কোনো অপরাধীর ক্ষেত্রে কঠোর ভূমিকা পালন করছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ। এমনকী তার কোনো পুলিশ সদস্যও যদি কোনো অন্যায়ের সাথে জড়িত থেকেছেন তাকেও ছাড় দেননি। অথচ এতটা কঠোর তিনি তারপরও তার এলাকাতে পুলিশ পিটিয়ে ও প্রকাশ্যে হুমকি দেওয়া ব্যক্তিরা পার পেয়ে যাচ্ছেন! যা অনেকটা ‘বাতির নিচে অন্ধকার’ অন্ধকার বলে মনে করছেন অনেকেই।

 

সূত্র বলছে, ১ মার্চ শুক্রবার রাতে আলীগঞ্জস্থ তিন রাস্তার মোড়ে গার্মেন্টস সংলগ্ন নাছিরউদ্দিনের ছেলে সোয়েবের বিয়ে উপলক্ষে আবাসিক এলাকায় প্যান্ডেল করে উচ্চস্বরে সাউন্ড সিস্টেমের মাধ্যমে গানবাজনা হচ্ছিল। এতে আশপাশের বাড়ির লোকজনের সমস্যা হলেও এ ব্যাপারে কোনো প্রতিকার না পেয়ে এলাকাবাসী পুলিশে সংবাদ দেয়।

 

পরে রাত ৩টায় ফোর্সসহ ফতুল্লা মডেল থানার কর্তব্যরত এসআই মঈনুল ইসলাম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ভলিউম কমিয়ে গানবাজনার জন্যে অনুরোধ জানায়। কিন্তু পুলিশের অনুরোধে কর্নপাত না করে উল্টো আলীগঞ্জের সাহাবুদ্দিন মিয়ার ছেলে নব্য আওয়ামী লীগার হাজী মনিরউদ্দিনের নেতৃত্বে জালাল, মোক্তার, নঈমসহ আরো ২০/২৫ সন্ত্রাসী একত্রিত হয়ে এসআই মঈনুলকে টানাহেচড়া করে প্যান্ডেল থেকে বাইরে নিয়ে যায়। এ সময় কনস্টেবলরা এগিয়ে গেলে কনস্টেবল জাহিদুল ইসলামকে পোষাক ধরে টানাহেচড়া করে প্যান্ডেলের পেছনে নিয়ে তার সাথে থাকা সরকারি গুলি ও অস্ত্র ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে।

 

এ ঘটনায় এসআই মঈনুল ইসলাম বাদি হয়ে ৩ মার্চ লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে মামলাটি নথিভুক্ত হয়। এ মামলায় জালাল, মোক্তার, হাজী মনিরউদ্দিন ও তার ইটখোলার ম্যানেজার ভাগিনা নঈমের নাম উল্লেখ করে ২০/২৫ জনকে আসামী করা হয়েছে। তবে, পুলিশ সূত্র জানায় এ ঘটনার পর তাদের কেউ আটক হয়নি। বর্তমানে তারা জামিনে রয়েছেন।

 

এ প্রসঙ্গে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মো. আসলাম হোসেন বলেন, আমি এখানে নতুন এসেছি। বিষয়টি জানা নেই। এখনই খোঁজ নেব মামলাটি কি অবস্থায় আছে, কেন তাদের আটক করা হয়নি অথবা তারা জামিনে আছেন কিনা।

 

তিনি বলেন, অপরাধী যেই হোক, যে দলেরই হোক আমরা প্রকৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার আছি। কাউকেই আমরা ছাড় দেব না।

 

অপরদিকে ২৯ মার্চে আড়াইহাজার উপজেলা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী আড়াইহাজার থানায় প্রবেশ করে এবং একটি জিডিকে কেন্দ্র থানার ভেতরই পুলিশকে হুমকি ধামকি দিয়ে বীরত্ব দেখায়। শুধু তাই নয়, থানা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় আড়াইহাজার সরকারি সফর আলী কলেজের সাবেক সাধারণ সম্পাদক (জিএস) ও ছাত্রলীগ নেতা আল-আমিন এবং তার কর্মীরা এ হুমকি দেন। এ ঘটনার একটি ভিডিও ইতোমধ্যে ব্যাপক ভাইরালও হয়। কিন্তু অপ্রিয় হলেও সত্য যে, এখনও পর্যন্ত এসব আসামীদের বিরুদ্ধে কোনো রকম শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

 

এ প্রসঙ্গে জানতে আড়াইহাজার থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) আক্তার হোসেনের মুঠোফোনে কল করা হলে তিনি জানান, এখন আমি রূপগঞ্জ একটি প্রোগ্রামে আছি। একটু পরে কথা বলতে হবে।

 

এছাড়াও শহরের শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী সালাউদ্দিন বিটুকে গ্রেফতার করতে গেলে সদর মডেল থানা পুলিশের এসআই শাহাদাতের উপর হামলা চালায় বিটু ও তার বাহিনী। এ ঘটনার পরপরই পালিয়ে যায় এই শীর্ষ মাদক বিক্রেতা। বর্তমানে সে ভারতে অবস্থান করছে। তবে তার অবর্তমানে সনি নামের এক যুবকের কিছু লোকজন এই মাদক ব্যবসা চালিয়ে নিচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

 

এ প্রসঙ্গে সদর মডেল থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মো. কামরুল ইসলাম বলেন, আমাদের বেশ কয়েকটি ফোর্স ইতোমধ্যে মাঠে কাজ করছে তাকে গ্রেফতারের জন্য। আশা করছি খুব অচিরেই তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হবো।

সূত্র-নারায়ণগঞ্জ টুডে

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ





সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ

সহ- সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

বার্তা সম্পাদক: সাদ্দাম হো‌সেন শুভ

উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

 

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD