ছিনতাইকারীর স্ত্রী থেকে দুর্ধর্ষ ইয়াবা সম্রাজ্ঞী পিংকী!

উজ্জীবিত বাংলাদেশ: পুরান ঢাকার কদমতলীর মাদক জগতে রীতিমতো আতঙ্ক ইয়াবা সম্রাজ্ঞী পিংকী। দীর্ঘ দিন দাপটের সঙ্গে কদমতলী এলাকায় ইয়াবার ব্যবসা চালিয়ে এলেও কেউ ভয়ে তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতেন না।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও ছিল তার ভয়ে তটস্থ। কদমতলী এলাকায় ইয়াবা ব্যবসার ঘাঁটি গেড়ে বসেছিল পিংকী। কেউ তাকে গ্রেফতার করতে গেলে পাল্টা তার নামে অপবাদ দিত সে। আর এলাকায় কাউকে প্রতিপক্ষ মনে করলেই পরিকল্পনা করত তাকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেয়ার। দীর্ঘদিন ইয়াবার ব্যবসা করে এলেও সম্প্রতি পিংকীকে একটি হত্যা মামলায় গ্রেফতার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআই ঢাকা মেট্রো উত্তর বিভাগের একটি টিম। এরপর জিজ্ঞাসাবাদে সে পিবিআইকে জানিয়েছে, মাদক জগতে জড়ানো এবং তার সম্রাজ্ঞী হয়ে উঠার কাহিনী।

 

পিংকী পিবিআইকে জানিয়েছে, তার বাবার বাড়ি দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের পানগাঁও। তিন ভাই ও তিন বোনের মধ্যে পিংকী মেঝ। ১২ বছর বয়সেই সে বাবলু নামে এক তরুণের প্রেমে পড়ে। বাবলু তখন দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে থাকত। সম্পর্কের এক বছরের মাথায় বাবলুর সঙ্গে বিয়ে হয় তার। বিয়ের পর পিংকী জানতে পারে বাবলু পেশাদার ছিনতাইকারী। আরও জানায়, বাবলু পিংকীকে অনেক বিশ্বাস করত। সে ছিনতাইয়ের টাকা ও জিনিসপত্র এনে পিংকীর হাতে তুলে দিত। কদমতলী এলাকায় একটি ছিনতাই গ্রুপ নিয়ন্ত্রণ করত বাবলু। এজন্য বাবলু জেলে গেলেও অন্যরা ছিনতাইয়ের টাকার ভাগ এনে পিংকীর হাতে তুলে দিত।

 

এভাবেই অপরাধ জগতের সঙ্গে পিংকীর পরিচয়। বাবলু পিংকীকে সঙ্গে নিয়েই ইয়াবা সেবন করত। এক পর্যায়ে বাবলু ও পিংকী ইয়াবার ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। তখন কদমতলী এলাকায় মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ করত টাইগার সবুজের গ্রুপ। পিংকী-বাবলু ইয়াবা ব্যবসা শুরু করলে তারা হয়ে উঠে প্রতিপক্ষ। পিংকী তার পক্ষের শক্তি খুঁজতে থাকে। এরই মধ্যে পরিচয় হয় কদমতলী এলাকার সানুর সঙ্গে। সানু স্থানীয় এক শ্রমিক নেতার কথিত ছেলে। কদমতলী ট্রাক স্ট্যান্ড ও আশপাশের এলাকায় চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণ করত সানু। সানুর সঙ্গে পিংকীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ২০১৫ সালে বাবলুকে মাদকসহ ধরিয়ে দিয়ে জেলে পাঠানোর পর পিংকী ও সানু বিয়ে করে। এরপর এলাকায় পিংকীর দাপট আরও বেড়ে যায়। সানু-পিংকী মিলে বড় বড় ইয়াবার চালান এনে বিক্রি করতে থাকে এলাকায়।

এদিকে টাইগার সবুজ ও তার ভাই পারভেজের বাড়াবাড়ি সহ্য হচ্ছিল না পিংকীর। সে টাইগার সবুজের ভাই পারভেজকে খুন করাতে কিলার ভাড়া করে। ২০১৫ সালের ১০ অক্টোবর খুনের মিশনে পারভেজ বেঁচে গেলেও মারা যায় রাসেল নামের নিরীহ এক তরুণ। রাসেল হত্যাকাণ্ডটি ছিল ক্লুলেস। এ ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে গিয়ে পিবিআই জানতে পারে ইয়াবা সম্রাজ্ঞী পিংকীর সংশ্লিষ্টতার ঘটনা। অন্য ঘাতকদের গ্রেফতারের পর পিবিআইর ঢাকা মেট্রো উত্তর বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদের নির্দেশে সম্প্রতি পিংকী ও তার স্বামী সানুকে গ্রেফতার করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আলআমিন শেখ। তিনি যুগান্তরকে বলেন, পিংকী খুবই দুর্ধর্ষ। রাসেল হত্যাকাণ্ডের পর প্রায় তিন বছর সে এলাকায় দাপটের সঙ্গেই মাদক ব্যবসা চালিয়ে গেছে। এ ঘটনায় ভাড়াটে কিলারদের গ্রেফতারের পর তাদের জবানবন্দিতে পিংকীর সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি ওঠে আসে। এরপর এলাকা ছেড়ে চট্টগ্রামে গা-ঢাকা দেয় পিংকী।

 

সম্প্রতি চট্টগ্রামে পিংকীর এক আত্মীয় বাসায় অভিযান চালিয়ে পিংকী ও তার দ্বিতীয় স্বামী সানুকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে সে ইয়াবার সম্রাজ্ঞী হওয়ার বিস্তারিত জানিয়েছে। তিনি জানান, গ্রেফতারকৃত সানু জানিয়েছে, সে মাদক ব্যবসার পাশাপাশি শ্যামপুর কদমতলী সিএনজি স্ট্যান্ডে চাঁদাবাজি করত। প্রতিদিন সেখান থেকে সে ৬ হাজার টাকা করে চাঁদা তুলত।   – যুগান্তর রিপোর্ট

Facebook Comments

সর্বশেষ সংবাদ



» দেশের মানুষ কষ্ট পেলে আমার বাবার আত্মা কষ্ট পাবে

» কলাপাড়ায় যাত্রীবাহি বাস নিয়ন্ত্রন হারিয়ে পুকুরে- আহত-১৫

» মৌলভীবাজারে দিনব্যাপী দাবা প্রতিযোগিতা

» বেনাপোল সীমান্তে চোরাচালানী সিন্ডিকেট প্রধান জাহিদ আটক, ৬ নারী পুরুষ উদ্ধার

» সিডনিতে শরীয়তপুর এসোসিয়েশন অব অস্ট্রেলিয়া এর ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

» যে কারণে বিশ্বকাপে আলো ছড়িয়েই যাচ্ছেন সাকিব

» পল্টনে ছাত্রদলের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, ককটেল বিস্ফোরণ

» অব্যাহতি

» ৩০ কোটি টাকার সড়ক নির্মাণে অনিয়ম : ঢালাইয়ের পরেরদিন উঠে যাচ্ছে কার্পেটিং

» বাল্য বিয়ে দিতে গিয়ে হরিণাকুন্ডুর ৪ ইউপি চেয়ারম্যানকে জরিমানা !




প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
বার্তা সম্পাদকঃ সাদ্দাম হো‌সেন শুভ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD




আজ : মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, খ্রিষ্টাব্দ, ১১ই আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ছিনতাইকারীর স্ত্রী থেকে দুর্ধর্ষ ইয়াবা সম্রাজ্ঞী পিংকী!

উজ্জীবিত বাংলাদেশ: পুরান ঢাকার কদমতলীর মাদক জগতে রীতিমতো আতঙ্ক ইয়াবা সম্রাজ্ঞী পিংকী। দীর্ঘ দিন দাপটের সঙ্গে কদমতলী এলাকায় ইয়াবার ব্যবসা চালিয়ে এলেও কেউ ভয়ে তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতেন না।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও ছিল তার ভয়ে তটস্থ। কদমতলী এলাকায় ইয়াবা ব্যবসার ঘাঁটি গেড়ে বসেছিল পিংকী। কেউ তাকে গ্রেফতার করতে গেলে পাল্টা তার নামে অপবাদ দিত সে। আর এলাকায় কাউকে প্রতিপক্ষ মনে করলেই পরিকল্পনা করত তাকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেয়ার। দীর্ঘদিন ইয়াবার ব্যবসা করে এলেও সম্প্রতি পিংকীকে একটি হত্যা মামলায় গ্রেফতার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআই ঢাকা মেট্রো উত্তর বিভাগের একটি টিম। এরপর জিজ্ঞাসাবাদে সে পিবিআইকে জানিয়েছে, মাদক জগতে জড়ানো এবং তার সম্রাজ্ঞী হয়ে উঠার কাহিনী।

 

পিংকী পিবিআইকে জানিয়েছে, তার বাবার বাড়ি দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের পানগাঁও। তিন ভাই ও তিন বোনের মধ্যে পিংকী মেঝ। ১২ বছর বয়সেই সে বাবলু নামে এক তরুণের প্রেমে পড়ে। বাবলু তখন দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে থাকত। সম্পর্কের এক বছরের মাথায় বাবলুর সঙ্গে বিয়ে হয় তার। বিয়ের পর পিংকী জানতে পারে বাবলু পেশাদার ছিনতাইকারী। আরও জানায়, বাবলু পিংকীকে অনেক বিশ্বাস করত। সে ছিনতাইয়ের টাকা ও জিনিসপত্র এনে পিংকীর হাতে তুলে দিত। কদমতলী এলাকায় একটি ছিনতাই গ্রুপ নিয়ন্ত্রণ করত বাবলু। এজন্য বাবলু জেলে গেলেও অন্যরা ছিনতাইয়ের টাকার ভাগ এনে পিংকীর হাতে তুলে দিত।

 

এভাবেই অপরাধ জগতের সঙ্গে পিংকীর পরিচয়। বাবলু পিংকীকে সঙ্গে নিয়েই ইয়াবা সেবন করত। এক পর্যায়ে বাবলু ও পিংকী ইয়াবার ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। তখন কদমতলী এলাকায় মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ করত টাইগার সবুজের গ্রুপ। পিংকী-বাবলু ইয়াবা ব্যবসা শুরু করলে তারা হয়ে উঠে প্রতিপক্ষ। পিংকী তার পক্ষের শক্তি খুঁজতে থাকে। এরই মধ্যে পরিচয় হয় কদমতলী এলাকার সানুর সঙ্গে। সানু স্থানীয় এক শ্রমিক নেতার কথিত ছেলে। কদমতলী ট্রাক স্ট্যান্ড ও আশপাশের এলাকায় চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণ করত সানু। সানুর সঙ্গে পিংকীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ২০১৫ সালে বাবলুকে মাদকসহ ধরিয়ে দিয়ে জেলে পাঠানোর পর পিংকী ও সানু বিয়ে করে। এরপর এলাকায় পিংকীর দাপট আরও বেড়ে যায়। সানু-পিংকী মিলে বড় বড় ইয়াবার চালান এনে বিক্রি করতে থাকে এলাকায়।

এদিকে টাইগার সবুজ ও তার ভাই পারভেজের বাড়াবাড়ি সহ্য হচ্ছিল না পিংকীর। সে টাইগার সবুজের ভাই পারভেজকে খুন করাতে কিলার ভাড়া করে। ২০১৫ সালের ১০ অক্টোবর খুনের মিশনে পারভেজ বেঁচে গেলেও মারা যায় রাসেল নামের নিরীহ এক তরুণ। রাসেল হত্যাকাণ্ডটি ছিল ক্লুলেস। এ ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে গিয়ে পিবিআই জানতে পারে ইয়াবা সম্রাজ্ঞী পিংকীর সংশ্লিষ্টতার ঘটনা। অন্য ঘাতকদের গ্রেফতারের পর পিবিআইর ঢাকা মেট্রো উত্তর বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদের নির্দেশে সম্প্রতি পিংকী ও তার স্বামী সানুকে গ্রেফতার করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আলআমিন শেখ। তিনি যুগান্তরকে বলেন, পিংকী খুবই দুর্ধর্ষ। রাসেল হত্যাকাণ্ডের পর প্রায় তিন বছর সে এলাকায় দাপটের সঙ্গেই মাদক ব্যবসা চালিয়ে গেছে। এ ঘটনায় ভাড়াটে কিলারদের গ্রেফতারের পর তাদের জবানবন্দিতে পিংকীর সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি ওঠে আসে। এরপর এলাকা ছেড়ে চট্টগ্রামে গা-ঢাকা দেয় পিংকী।

 

সম্প্রতি চট্টগ্রামে পিংকীর এক আত্মীয় বাসায় অভিযান চালিয়ে পিংকী ও তার দ্বিতীয় স্বামী সানুকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে সে ইয়াবার সম্রাজ্ঞী হওয়ার বিস্তারিত জানিয়েছে। তিনি জানান, গ্রেফতারকৃত সানু জানিয়েছে, সে মাদক ব্যবসার পাশাপাশি শ্যামপুর কদমতলী সিএনজি স্ট্যান্ডে চাঁদাবাজি করত। প্রতিদিন সেখান থেকে সে ৬ হাজার টাকা করে চাঁদা তুলত।   – যুগান্তর রিপোর্ট

Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

প্রকাশক : মো:  আবদুল মালেক
সম্পাদক : মো: সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
বার্তা সম্পাদকঃ সাদ্দাম হো‌সেন শুভ
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন

Info@ujjibitobd.com

যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
News: ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD