কালের বিবর্তনে আবার ফিরে আসতে পারে বিএনপির রাজনীতিতে সেন্টু!

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

মনিরুল আলম সেন্টু কিছুদিন আগেও ছিলেন ফতুল্লা থানা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক, যুবদলের সফল সভাপতি। দীর্ঘদিন যাবত বিএনপির রাজনীতিতে তিনি শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শ নিয়েই রাজনীতি করেছেন। কিন্তু বর্তমানে তিনি আওয়ামীলীগ নেতা কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। এখন হয়তবা তার মুখেই শোনা যাবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের গুনগান আর বলে বেড়াবেন আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রেনিত হয়েই বিএনপি ছেড়ে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে সর্ম্পৃক্ত হয়েছি।

 

ফতুল্লার রাজনীতিতে যিনি অল্প বয়সে অর্জন করেছিলেন ডায়নামিক লিডারের খেতাব, কর্মী বান্ধব নেতা হিসেবে যার খ্যাতি রয়েছে আকাশ ছোঁয়া, পাশাপাশি পল্টির রাজনীতিতেও অর্জন করেছেন ঈর্ষান্বিত সাফল্য।
১৯৯৮ সালের জুলাই মাসে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কাউন্সিলের মাধ্যমে ফতুল্লা থানা যুবদলের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন মনিরুল আলম সেন্টু। তৎকালীন সময়ে বিরোধী দলের নেতা হিসেবে জেল, জুলুম, মামলা, হামলা, জুলুম নির্যাতন অতিক্রম করে অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে স্থানীয় রাজনীতিতে তৈরী করেন শক্ত অবস্থান।

 

২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে আলহাজ্ব মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন এমপি হলে তৃনমূলের নেতা হিসেবে তার নজরে আসেন সেন্টু। ২০০৩ সালে পাগলা মেরী এন্ডারসনে ফতুল্লা থানা বিএনপির কাউন্সিলে এমপি গিয়াসউদ্দিনের আর্শিবাদে সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন কাউন্সিলরদের বিপুল ভোটে।
পরবর্তীতে দলীয় ক্ষমতার নিদর্শন স্বরুপ ফতুল্লার শিল্পাঞ্চলের আহরনকৃত আয়ের ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে এমপির গিয়াসউদ্দিনের সাথে দ্বন্দ্বে দুজনের সম্পর্কের অবনতি ঘটে। ২০০৬ সালের ২২ জানুয়ারী বিএনপির এক তরফা নির্বাচন( পরবর্তীতে হয়নি) সে নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী গিয়াসউদ্দিনের ধানের শীষের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী সফর আলী ভূইয়ার পালকিতে ওঠেছিলেন তিনি। ২০০৮ সালের নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ -৪ আসনে বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে শিল্পপতি শাহ আলম আওয়ামিলীগের প্রার্থী সারাহ বেগম কবরীর নিকট পরাজিত হওয়ার পর রাজনীতিতে আসা নতুন মুখ শিল্পপতি শাহ আলম ফতুল্লা থানা বিএনপির দায়িত্ব নেন। নিজে সভাপতি হয়ে ভায়রা এড. আজাদ বিশ্বাসকে সাধারণ সম্পাদক বানালে মনিরুল আলম সেন্টুর সাথে তৈরী রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব। যে দ্বন্দ্ব চলমান ছিল দীর্ঘদিন।

 

শিল্পপতি শাহ আলম প্রকাশ্যে রাজনীতি থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখলেও অন্তরালে চালিয়ে যাচ্ছেন নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ। আর তাই ফতুল্লায় বিএনপির রাজনীতিতে সৃষ্টি হয়েছে শক্তিশালী দুটি বলয়।
বিএনপি বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচনে না যাওয়ার ঘোষনা দিলে নিজের অবস্থান সুসংহত করার লক্ষে কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানি টিকিয়ে রাখতে যে দলের মাধ্যমে তার রাজনৈতিক ও সামাজিক সফলতা সে দল বিএনপির মায়া ত্যাগ করে সাংসদ শামীম ওসমানের হাত ধরে নৌকায় উঠেন মনিরুল আলম সেন্টু।

 

২০২২ সালের ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের টিকিটে নৌকা প্রতীক নিয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়াম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।

 

কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের অনেক নেতার ভাষ্যমতে জানা যায়, সেন্টু আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নৌকা মার্কায় চেয়াম্যান হলেও তার কার্যক্রম ও পথচলা বিএনপির নেতাকর্মীদের নিয়ে। আওয়ামী লীগের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাকর্মীরা তার কাছে কোনো অবহেলিত। ক্ষমতায় থেকেও কুতুবপুরে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাকর্মীরা এখন অসহায়।

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ফতুল্লা থানা বিএনপির এক নেতা জানান, মনিরুল আলম সেন্টু আওয়ামী লীগে যোগদান করে সাংসদ শামীম শামীম ওসমানের হাতে সোনার নৌকা উপহার দিয়ে কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হয়েছেন। বিএনপি ক্ষমতায় আসলে যে এমপি হবেন তাকে সোনার ধানের ছড়া উপহার দিয়ে চেয়ারম্যান হবেন এটাই স্বাভাবিক। তবে অনেকেই বলেন,রাজনীতির মাঠে এখন অনেক নেতাই শামীম ওসমানের আদর্শের অধিকারী বনে গেছেন। যেমনটা আমাদের চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টু।
বর্তমানে ফতুল্লা থানা বিএনপির নিয়ন্ত্রনকর্তা এখন তিনি। কারন ফতুল্লা থানা বিএনপির আহবায়ক শহিদুল ইসলাম টিটু যে তার প্রধান সেনাপতি এটা রাজনৈতিক অঙ্গনের সবারই জানা।

 

শুধু শহিদুল ইসলাম টিটু না যুগ্ম আহবায়ক বিল্লাল হোসেন, হাজী মোঃ শহিদুল্লাহ, আনোয়ার হোসেন আনু,অধ্যাপক মনির, সদস্য সচিব এড. আবদুল বারী ভূইয়া সহ বেশ কয়েকজন নেতা রয়েছেন যারা মনিরুল আলম সেন্টুর দীর্ঘদিনের অনুসারী।

 

বর্তমানে তিনি বিএনপির রাজনীতিতে না থাকলেও শহিদুল ইসলাম টিটুর সহ অনুসারীদের মাধ্যমেই ফতুল্লা থানা বিএনপির রাজনীতিটাকে রেখেছেন নিজের নিয়ন্ত্রণে। ফতুল্লা থানা বিএনপির প্রতিটা ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটিতে শাহ আলম পন্থীদের মাইনাস করে পদায়ন করছেন নিজের লোকদের।

 

ক্ষমতামূখী এ রাজনৈতিক নেতা কালের বিবর্তনে আবার ফিরে আসতে পারে বিএনপির রাজনীতিতে তখন তার অনুসারীদের মুখে শোনা যাবে ঘরের ছেলে ঘরে ফিরে এসেছে।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» আমতলীতে বিয়ের হাইএক্স মাইক্রোসসহ সেতু ধসে খালে ৯জনের লাশ উদ্ধার, নিখোঁজ ৩

» আমতলীতে ছাগলে ধানগাছ খাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, আহত ৫!

» আমতলীতে খাদ্যদ্রব্যে বিষাক্ত কাপড়ের রং ব্যবহারে হোটেল মালিককে জরিমানা!

» ঈদকে সামনে রেখে বেনাপোলে ব্যাংক কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীদের সাথে পুলিশের আলোচনা সভা

» আমতলীতে ঘরের দলিল ও চাবি পেল ১০০ ভূমিহীন পরিবার

» শিক্ষকদের অনুপুস্থিতি আর অবহেলায় চলছে পাগলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

» ছিনতাই মামলার আসামী অমল এখন মাসদাইর পৌর শ্মশানের ডোম!

» ফতুল্লায় গ্যাস সংকট নিরসনে মানববন্ধন

» আমতলীতে ভূমি সেবা সপ্তাহ উদ্বোধন!

» শার্শায় স্থানীয় সম্পদ আহরণ ও ব্যবস্থাপনা প্রশিক্ষণ

সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

প্রকাশক : মো: আবদুল মালেক
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯।
editor.kuakatanews@gmail.com

প্রধান কার্যালয় : সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সেহাচর, তক্কারমাঠ রোড, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ।
ফোন : +৮৮ ০১৬৭৪-৬৩২৫০৯, ০১৯১৮-১৭৮৬৫৯

Email : ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, খ্রিষ্টাব্দ, ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কালের বিবর্তনে আবার ফিরে আসতে পারে বিএনপির রাজনীতিতে সেন্টু!

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

মনিরুল আলম সেন্টু কিছুদিন আগেও ছিলেন ফতুল্লা থানা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক, যুবদলের সফল সভাপতি। দীর্ঘদিন যাবত বিএনপির রাজনীতিতে তিনি শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শ নিয়েই রাজনীতি করেছেন। কিন্তু বর্তমানে তিনি আওয়ামীলীগ নেতা কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। এখন হয়তবা তার মুখেই শোনা যাবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের গুনগান আর বলে বেড়াবেন আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রেনিত হয়েই বিএনপি ছেড়ে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে সর্ম্পৃক্ত হয়েছি।

 

ফতুল্লার রাজনীতিতে যিনি অল্প বয়সে অর্জন করেছিলেন ডায়নামিক লিডারের খেতাব, কর্মী বান্ধব নেতা হিসেবে যার খ্যাতি রয়েছে আকাশ ছোঁয়া, পাশাপাশি পল্টির রাজনীতিতেও অর্জন করেছেন ঈর্ষান্বিত সাফল্য।
১৯৯৮ সালের জুলাই মাসে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কাউন্সিলের মাধ্যমে ফতুল্লা থানা যুবদলের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন মনিরুল আলম সেন্টু। তৎকালীন সময়ে বিরোধী দলের নেতা হিসেবে জেল, জুলুম, মামলা, হামলা, জুলুম নির্যাতন অতিক্রম করে অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে স্থানীয় রাজনীতিতে তৈরী করেন শক্ত অবস্থান।

 

২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে আলহাজ্ব মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন এমপি হলে তৃনমূলের নেতা হিসেবে তার নজরে আসেন সেন্টু। ২০০৩ সালে পাগলা মেরী এন্ডারসনে ফতুল্লা থানা বিএনপির কাউন্সিলে এমপি গিয়াসউদ্দিনের আর্শিবাদে সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন কাউন্সিলরদের বিপুল ভোটে।
পরবর্তীতে দলীয় ক্ষমতার নিদর্শন স্বরুপ ফতুল্লার শিল্পাঞ্চলের আহরনকৃত আয়ের ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে এমপির গিয়াসউদ্দিনের সাথে দ্বন্দ্বে দুজনের সম্পর্কের অবনতি ঘটে। ২০০৬ সালের ২২ জানুয়ারী বিএনপির এক তরফা নির্বাচন( পরবর্তীতে হয়নি) সে নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী গিয়াসউদ্দিনের ধানের শীষের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী সফর আলী ভূইয়ার পালকিতে ওঠেছিলেন তিনি। ২০০৮ সালের নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ -৪ আসনে বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে শিল্পপতি শাহ আলম আওয়ামিলীগের প্রার্থী সারাহ বেগম কবরীর নিকট পরাজিত হওয়ার পর রাজনীতিতে আসা নতুন মুখ শিল্পপতি শাহ আলম ফতুল্লা থানা বিএনপির দায়িত্ব নেন। নিজে সভাপতি হয়ে ভায়রা এড. আজাদ বিশ্বাসকে সাধারণ সম্পাদক বানালে মনিরুল আলম সেন্টুর সাথে তৈরী রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব। যে দ্বন্দ্ব চলমান ছিল দীর্ঘদিন।

 

শিল্পপতি শাহ আলম প্রকাশ্যে রাজনীতি থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখলেও অন্তরালে চালিয়ে যাচ্ছেন নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ। আর তাই ফতুল্লায় বিএনপির রাজনীতিতে সৃষ্টি হয়েছে শক্তিশালী দুটি বলয়।
বিএনপি বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচনে না যাওয়ার ঘোষনা দিলে নিজের অবস্থান সুসংহত করার লক্ষে কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানি টিকিয়ে রাখতে যে দলের মাধ্যমে তার রাজনৈতিক ও সামাজিক সফলতা সে দল বিএনপির মায়া ত্যাগ করে সাংসদ শামীম ওসমানের হাত ধরে নৌকায় উঠেন মনিরুল আলম সেন্টু।

 

২০২২ সালের ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের টিকিটে নৌকা প্রতীক নিয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়াম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।

 

কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের অনেক নেতার ভাষ্যমতে জানা যায়, সেন্টু আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নৌকা মার্কায় চেয়াম্যান হলেও তার কার্যক্রম ও পথচলা বিএনপির নেতাকর্মীদের নিয়ে। আওয়ামী লীগের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাকর্মীরা তার কাছে কোনো অবহেলিত। ক্ষমতায় থেকেও কুতুবপুরে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাকর্মীরা এখন অসহায়।

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ফতুল্লা থানা বিএনপির এক নেতা জানান, মনিরুল আলম সেন্টু আওয়ামী লীগে যোগদান করে সাংসদ শামীম শামীম ওসমানের হাতে সোনার নৌকা উপহার দিয়ে কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হয়েছেন। বিএনপি ক্ষমতায় আসলে যে এমপি হবেন তাকে সোনার ধানের ছড়া উপহার দিয়ে চেয়ারম্যান হবেন এটাই স্বাভাবিক। তবে অনেকেই বলেন,রাজনীতির মাঠে এখন অনেক নেতাই শামীম ওসমানের আদর্শের অধিকারী বনে গেছেন। যেমনটা আমাদের চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টু।
বর্তমানে ফতুল্লা থানা বিএনপির নিয়ন্ত্রনকর্তা এখন তিনি। কারন ফতুল্লা থানা বিএনপির আহবায়ক শহিদুল ইসলাম টিটু যে তার প্রধান সেনাপতি এটা রাজনৈতিক অঙ্গনের সবারই জানা।

 

শুধু শহিদুল ইসলাম টিটু না যুগ্ম আহবায়ক বিল্লাল হোসেন, হাজী মোঃ শহিদুল্লাহ, আনোয়ার হোসেন আনু,অধ্যাপক মনির, সদস্য সচিব এড. আবদুল বারী ভূইয়া সহ বেশ কয়েকজন নেতা রয়েছেন যারা মনিরুল আলম সেন্টুর দীর্ঘদিনের অনুসারী।

 

বর্তমানে তিনি বিএনপির রাজনীতিতে না থাকলেও শহিদুল ইসলাম টিটুর সহ অনুসারীদের মাধ্যমেই ফতুল্লা থানা বিএনপির রাজনীতিটাকে রেখেছেন নিজের নিয়ন্ত্রণে। ফতুল্লা থানা বিএনপির প্রতিটা ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটিতে শাহ আলম পন্থীদের মাইনাস করে পদায়ন করছেন নিজের লোকদের।

 

ক্ষমতামূখী এ রাজনৈতিক নেতা কালের বিবর্তনে আবার ফিরে আসতে পারে বিএনপির রাজনীতিতে তখন তার অনুসারীদের মুখে শোনা যাবে ঘরের ছেলে ঘরে ফিরে এসেছে।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

প্রকাশক : মো: আবদুল মালেক
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯।
editor.kuakatanews@gmail.com

প্রধান কার্যালয় : সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সেহাচর, তক্কারমাঠ রোড, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ।
ফোন : +৮৮ ০১৬৭৪-৬৩২৫০৯, ০১৯১৮-১৭৮৬৫৯

Email : ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD