মেয়রের নির্দেশে ঘরের প্রতিমা বাহিরে ফেললো সংকর-সুজন সাহাগং!

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর নির্দেশে মাসদাইর পৌর শ্মশানের সৎকারকর্মী টনি ডোমের ঘর থেকে প্রতিমাগুলো বের করে দিলেন পৌর শ্মশানের সভাপতি দাবীদার সংকর সাহা ও সেক্রেটারী দাবীদার সুজন সাহা, শ্মশানের পুরোহিত শান্তি ঘোষালগং। বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় পৌর শ্মশানের ভেতরে ন্যাক্কারজনক ঘটনার জন্ম দেয় উক্ত দুই হিন্দু নেতা। এ নিয়ে খোদ হিন্দু সম্প্রদায় মাঝে চলছে নানা প্রকার জল্পনা-কল্পনা।

 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দুপুরে প্রায় সোয়া ১২টায় মাসদাইর পৌর শ্মশান নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের উচ্ছেদ অফিসার হিরন এবং শ্যামল পালসহ শ্মশানের সভাপতি ও সেক্রেটারী দাবীদার সংকর সাহা ও সুজন সাহা,শ্মশানের পুরোহিত শান্তি ঘোষালগং সৎকারকর্মী টনি ডোমের তালাবদ্ধ ঘরে অভিযান চালিয়ে সেই ঘরে রক্ষিত মহাকাল ভৈরব,মা শ্যামা কালীর পাথরের প্রতিমা,গনেশের প্রতিমা,শ্রীকৃঞ্চ ভগবানের প্রতিমা,লক্ষী প্রতিমাসহ বেশ কয়েকটি প্রতিমাগুলো ঘর থেকে বাহিরে ফেলে দেয়। এ সময় টনি সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। শংকর সাহা ও সুজন সাহার নির্দেশে কালী প্রতিমার চোখে থাকা স্বর্নের মনি চাকু দিয়ে খুচিয়ে উপড়ে ফেলা হয় এবং তা নিয়ে চলে যায়। সেখানে উপস্থিত টনির স্বজনসহ অনেক সনাতন ধর্মের লোকজন প্রতিমার কপাল থেকে স্বর্ন উপড়ে ফেলার প্রতিবাদ করলেও তারা তা আমলে নেয়নি। সংবাদ পেয়ে টনি দ্রুত শ্মশানে এসে শংকর সাহা ও সুজন সাহার কাছে জানতে চায় যে,আপনারা এখানে এসেছেন আমাকে কেন জানানো হলোনা। এমন প্রশ্নের কোন উত্তর না দিয়ে তারা বলেন,আমরা মেয়রের নির্দেশে এখানে এসেছি এবং ঘর থেকে প্রতিমাগুলো বাহিরে রেখেছি। প্রতিমা থেকে স্বর্ন কেনো খুললেন বা আপনিও হিন্দু মানুষ আপনি কি জানেন না যেন প্রতিমার গা থেকে স্বর্ন খোলা যায়না। এমন প্রশ্নের কোন সদুত্তর দিতে পারেনি সংকর সাহা,সুজন সাহা,হিরন ও শ্যামল পালগং। টনির আগমনের পর তারা দ্রুত শ্মশান থেকে বাহিরে চলে যান।

 

এদিকে কালী প্রতিমার চোখে থাকা স্বর্নের মনি চাকু দিয়ে খুচিয়ে উপড়ে ফেলার ঘটনাটি নিয়ে শ্মশানের ভেতরে থাকা সনাতন ধর্মের মানুষের মাঝে দেখা দিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। তারা অনেকেই বলেন,মেয়র কিভাবে নির্দেশ দেন একটি ঘর থেকে প্রতিমা বের করে বাহিরে ফেলে দিতে। তার কথাই বা কিভাবে পালন করেন হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতারা।
ঘর থেকে প্রতিমা বের করা প্রসঙ্গে সিটি কর্পোরেশনের উচ্ছেদ কর্মকর্তা হিরন ও শ্যামল পাল বলেন,এখানে আমাদের কিছুই করার নাই। আমরা মেয়র মহোদয়ের নির্দেশ পালন করেছি।

 

টনি সনাতন বলেন, একটি মিথ্যা অযুহাতে প্রায় ২মাস পুর্বে তারা আমাকে আমার পরিবারসহ উচ্ছেদ করেন তারা। আজ তারা এখানে আসবেন সে বিষয়ে আমাকে অবগত করেননি। আমি তাদের কাছে একদিনের সময় চেয়েছি কিন্তু তারা আমাকে সে সময়টুকু দেয়নি। বরং তারা আমার ঘরে থাকা প্রতিমাগুলো বাহিরে ফেলে রেখে সেই কালী প্রতিমার চোখের মনি স্বর্নগুলো চাকু দিয়ে খুচিয়ে উপড়ে তা নিয়ে চলে যায়।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» সংবাদ প্রকাশের পর প্রাপ্তি সিটিতে তিতাসের অভিযান, অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

» আজ পবিত্র শবে বরাত

» ফতুল্লায় শেখ রাসেল ডিগবার ফুটবল টুর্নামেন্ট এর ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত

» কুতুবপুরে পিটিয়ে যুবককে হত্যা, ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা

» নৃত্য আর গানে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানালো পাগলা উচ্চ বিদ্যালয়!

» ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে ফতুল্লা প্রেসক্লাব

» রিয়াদ মো.চৌধূরীর নেতৃত্বে ভাষা শহীদদের প্রতি ফতুল্লা থানা বিএনপির শ্রদ্ধাঞ্জলি 

» ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন আলাউদ্দিন হাওলাদার

» ফতুল্লায় সাড়ে ১০ লাখ টাকা নিয়ে উধাও ছালেহা দম্পতি

» দৈনিক ঘোষণার ৩০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

প্রকাশক : মো: আবদুল মালেক
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯।
editor.kuakatanews@gmail.com

প্রধান কার্যালয় : সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সেহাচর, তক্কারমাঠ রোড, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ।
ফোন : +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ০১৬৭৪৬৩২৫০৯

Email : ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, খ্রিষ্টাব্দ, ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মেয়রের নির্দেশে ঘরের প্রতিমা বাহিরে ফেললো সংকর-সুজন সাহাগং!

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর নির্দেশে মাসদাইর পৌর শ্মশানের সৎকারকর্মী টনি ডোমের ঘর থেকে প্রতিমাগুলো বের করে দিলেন পৌর শ্মশানের সভাপতি দাবীদার সংকর সাহা ও সেক্রেটারী দাবীদার সুজন সাহা, শ্মশানের পুরোহিত শান্তি ঘোষালগং। বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় পৌর শ্মশানের ভেতরে ন্যাক্কারজনক ঘটনার জন্ম দেয় উক্ত দুই হিন্দু নেতা। এ নিয়ে খোদ হিন্দু সম্প্রদায় মাঝে চলছে নানা প্রকার জল্পনা-কল্পনা।

 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দুপুরে প্রায় সোয়া ১২টায় মাসদাইর পৌর শ্মশান নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের উচ্ছেদ অফিসার হিরন এবং শ্যামল পালসহ শ্মশানের সভাপতি ও সেক্রেটারী দাবীদার সংকর সাহা ও সুজন সাহা,শ্মশানের পুরোহিত শান্তি ঘোষালগং সৎকারকর্মী টনি ডোমের তালাবদ্ধ ঘরে অভিযান চালিয়ে সেই ঘরে রক্ষিত মহাকাল ভৈরব,মা শ্যামা কালীর পাথরের প্রতিমা,গনেশের প্রতিমা,শ্রীকৃঞ্চ ভগবানের প্রতিমা,লক্ষী প্রতিমাসহ বেশ কয়েকটি প্রতিমাগুলো ঘর থেকে বাহিরে ফেলে দেয়। এ সময় টনি সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। শংকর সাহা ও সুজন সাহার নির্দেশে কালী প্রতিমার চোখে থাকা স্বর্নের মনি চাকু দিয়ে খুচিয়ে উপড়ে ফেলা হয় এবং তা নিয়ে চলে যায়। সেখানে উপস্থিত টনির স্বজনসহ অনেক সনাতন ধর্মের লোকজন প্রতিমার কপাল থেকে স্বর্ন উপড়ে ফেলার প্রতিবাদ করলেও তারা তা আমলে নেয়নি। সংবাদ পেয়ে টনি দ্রুত শ্মশানে এসে শংকর সাহা ও সুজন সাহার কাছে জানতে চায় যে,আপনারা এখানে এসেছেন আমাকে কেন জানানো হলোনা। এমন প্রশ্নের কোন উত্তর না দিয়ে তারা বলেন,আমরা মেয়রের নির্দেশে এখানে এসেছি এবং ঘর থেকে প্রতিমাগুলো বাহিরে রেখেছি। প্রতিমা থেকে স্বর্ন কেনো খুললেন বা আপনিও হিন্দু মানুষ আপনি কি জানেন না যেন প্রতিমার গা থেকে স্বর্ন খোলা যায়না। এমন প্রশ্নের কোন সদুত্তর দিতে পারেনি সংকর সাহা,সুজন সাহা,হিরন ও শ্যামল পালগং। টনির আগমনের পর তারা দ্রুত শ্মশান থেকে বাহিরে চলে যান।

 

এদিকে কালী প্রতিমার চোখে থাকা স্বর্নের মনি চাকু দিয়ে খুচিয়ে উপড়ে ফেলার ঘটনাটি নিয়ে শ্মশানের ভেতরে থাকা সনাতন ধর্মের মানুষের মাঝে দেখা দিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। তারা অনেকেই বলেন,মেয়র কিভাবে নির্দেশ দেন একটি ঘর থেকে প্রতিমা বের করে বাহিরে ফেলে দিতে। তার কথাই বা কিভাবে পালন করেন হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতারা।
ঘর থেকে প্রতিমা বের করা প্রসঙ্গে সিটি কর্পোরেশনের উচ্ছেদ কর্মকর্তা হিরন ও শ্যামল পাল বলেন,এখানে আমাদের কিছুই করার নাই। আমরা মেয়র মহোদয়ের নির্দেশ পালন করেছি।

 

টনি সনাতন বলেন, একটি মিথ্যা অযুহাতে প্রায় ২মাস পুর্বে তারা আমাকে আমার পরিবারসহ উচ্ছেদ করেন তারা। আজ তারা এখানে আসবেন সে বিষয়ে আমাকে অবগত করেননি। আমি তাদের কাছে একদিনের সময় চেয়েছি কিন্তু তারা আমাকে সে সময়টুকু দেয়নি। বরং তারা আমার ঘরে থাকা প্রতিমাগুলো বাহিরে ফেলে রেখে সেই কালী প্রতিমার চোখের মনি স্বর্নগুলো চাকু দিয়ে খুচিয়ে উপড়ে তা নিয়ে চলে যায়।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

প্রকাশক : মো: আবদুল মালেক
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯।
editor.kuakatanews@gmail.com

প্রধান কার্যালয় : সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সেহাচর, তক্কারমাঠ রোড, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ।
ফোন : +৮৮ ০১৯৭৪ ৬৩২ ৫০৯, ০১৬৭৪৬৩২৫০৯

Email : ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD