শেষ ওভারের নাটকীয়তায় ভারতকে হারিয়ে সিরিজ বাংলাদেশের

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

শেষ বলটি হতেই গ্যালারি থেকে ভেসে এলো গর্জন। চওড়া হাসিতে ছুটতে থাকলেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল। মুষ্ঠিবদ্ধ হাত বাতাসে ছুড়ে লাফিয়ে উঠলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। মাঠের নানা প্রান্ত ছুটে এসে সবাই অভিনন্দন বোলার জানালেন হাসান মাহমুদকে। এমনিতে যিনি উদযাপন আগ্রহী নন খুব একটা, সেই হাসানও মেতে উঠলেন উদযাপনে। সব মিলিয়ে চেমসফোর্ডর কাউন্টি গ্রাউন্ড রূপ নিল বাংলাদেশের উল্লাসের মঞ্চে।

 

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে এই জয়। খুবই প্রত্যাশিত জয়। তার পরও এত উত্তচনা, এত উচ্ছ্বাসের কারণ, জয়ের ধরন। ম্যাচ ছিল আইরিশদের একরকম মুঠোয়। স্রেফ সময়ের ব্যাপার যেন। সেই সময়টাকেই নিজেদের করে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর আখ্যান রচনা করল বাংলাদেশ।

 

বল হাতে নাজমুল হোসেন শান্ত অভাবনীয় এক ব্রেক থ্রু এনে দেওয়ার পর শেষ দিকে চেনা চেহারায় ফিরে মুস্তাফিজুর রহমানের দুর্দান্ত বোলিং আর হাসান মাহমুদের শেষ ওভারের বীরত্বে ধরা দিল ৫ রানের রোমাঞ্চকর জয়।

 

তৃতীয় ওয়ানডেতে এই জয়ে নিশ্চিত হলো ২-০ ব্যবধনে সিরিজ জয়ও। তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথমটি ভেস্তে গিয়েছিল বৃষ্টিতে।

 

এই ম্যাচ দিয়ে শেষ আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ সুপার লিগের অভিযানও। বিশ্বকাপের বাছাই হিসেবে চালু হওয়া গৌরবময় পথচলায় বাংলাদেশ শেষ করল তিন নম্বরে থেকে। সমান পয়েন্ট নিয়েও রান রেটে এগিয়ে থেকে দুইয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড।

 

এই সিরিজের প্রাপ্তির চেয়ে বাংলাদেশের হারানোর শঙ্কা ছিল বেশি। এ দিন উঁকি দিচ্ছিল সেই শঙ্কাই। শেষ ৯ ওভারে আয়ারল্যান্ডের দরকার ছিল স্রেফ ৫২ রানের। উইকেট তখনও বাকি ৭টি। হ্যারি টেক্টর ও লর্কান টাকার ছুটছিলেন অপ্রতিরোধ্য গতিতে। বাংলাদেশের তখন পিষ্ট হওয়াই বাকি।

 

তখনই একটটু ফাটকা খেললেন তামিম ইকবাল। বোলিংয়ে আনলেন শান্তকে। টেক্টরকে বিদায়কে করে ওই ওভারেই তিনি ভাঙলেন জুটি। এরপর মুস্তাফিজ ফিরলেন আপন রূপে, যে ভূমিকায় একসময় তাকে নিয়মিতই দেখা যেত। প্রথম দুই ম্যাচে তিনি একাদেই জায়গা পাননি। শেষ ম্যাচে সুযোগ পেয়ে নিজেকে মেলে ধরলেন দারুণভাবে।

 

আয়ারল্যান্ড হাল ছাড়ে না তবু। মার্ক অ্যাডায়ার ক্যামিও ইনিংস খেলে জমিয়ে দেন ম্যাচ। কিন্তু শেষ ওভারে বাংলাদেশকে জিতিয়ে দেন নতুন দিনের তারকা হাসান মাহমুদ।

 

চেমসফোর্ডে এ দিন টস হেরে আগে ব্যাটিং পায় বাংলাদেশ। গোটা ইনিংস ছিল যেন অপূর্ণতার গল্প। প্রথম সাত ব্যাটসম্যানর পাঁচজন ৩৫ ছুঁলেও ফিফটি করতে পারেন কেবল তামিম। তিনিও ইনিংস বড় করতে না পেরে আউট হন ৬৯ রানে। তিনশর সম্ভাবনা জাগানো বাংলাদেশ আটকে যায় ২৭৪ রানে।

 

রান তাড়ায় বেশির ভাগ সময় দাপটে এগিয়ে শেষ দিকে গড়বড় করে আইরিশরা থমকে যায় ২৬৯ রানে।
জশ লিটলের ওয়াইড থেকে বাউন্ডারিসহ ৫ রানে শুরু হয় ম্যাচ। লিটলের বলেই একটু পর ১ রানে জীবন পান তামিম। দ্বিতীয় স্লিপে সহজ ক্যাচ ছাড়েন আইরিশ অধিনায়ক অ্যান্ড্রু বালবার্নি।

 

পরের ওভারে উইকেট আসে অন্যপ্রান্ত থেকে। ৩২ বছর বয়সে ওয়ানডে অভিষেকে রনি তালুকদার ফেরেন ৪ রানে। প্রথম ১২ বলে বারবার শট খেলার চেষ্টা করেও রানের দেখা পাননি তিনি। অবশেষে একটি বাউন্ডারিতে প্রথম রানের দেখা পান। পরের বলেই আলগা শটে হারান উইকেট।

 

তবে তিনে নেমে আইরিশদের উল্টো চাপে ফেলে দেন নাজমুল হোসেন শান্ত। আগের ম্যাচে যেখানে শেষ করেছিলেন, সেখান থেকেই যেন শুরু করেন এই ম্যাচে। তামিমকে দর্শক বানিয়ে তিনি খেলতে থাকেন দুর্দান্ত সব শট। আগের দিনের মতো বড় ইনিংস অবশ্য খেলতে পারেননি। ৭ চারে তার বিনোদনদায়ী ইনিংস শেষ হয় ৩২ বলে ৩৫ রান করে।

 

এরপর লিটন দাসের পালা। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে মাত্র দ্বিতীয়বার চার নম্বরে ব্যাট করতে নেমে তিনিও অনুসরণ করেন শান্তকে। স্ট্রোকসমৃদ্ধ ইনিংস ঠিক ৩৫ করেই আউট। অ্যান্ডি ম্যাকব্রাইনের জোরের ওপর করা বুদ্ধিদীপ্ত ডেলিভারিতে উড়িয়ে মারতে গিয়ে শেষ হয় তার সম্ভাবনাময় ইনিংস। সিরিজটি শেষ হলো তার ফিফটি ছাড়াই।

 

তামিম ততক্ষণে ধীরস্থির ব্যাটিংয়ে পঞ্চাশের কাছে। ৯ ইনিংস পর ফিফটির দেখা পান তিনি ৬১ বলে। তবে বাংলাদেশ আরেকটি ধাক্কা খায় তাওহিদ হৃদয়কে হারিয়ে। জর্জ ডকরেলের বলের লেংথ পড়তে ভুল করে বোল্ড হন তরুণ ব্যাটসম্যান।

 

দুই স্পিনার ম্যাকব্রাইন ও ডকরেলকে দিয়ে বাংলাদেশকে বেশ চেপে ধরে আয়ারল্যান্ড। তখনও ৩০ ওভার পেরোয়নি। দলকে টেনে নেওয়ার দায়িত্ব দেশের সফলতম দুই ব্যাটসম্যান তামিম ও মুশফিকের কাঁধে। কিন্তু জুটি জমে ওঠার মুখে মুহূর্তের জন্য সেই দায়িত্ব ভুলে গেলেন তামিম। ডকরেলকে তেড়েফুঁড়ে মারতে গিয়ে দৃষ্টিকটূভাবে উইকেট ছুড়ে আসেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। ৮২ বলে ৬৯ রানের ইনিংসটি তাকে রানের ফেরার স্বস্তি দিলেও আক্ষেপ জোগাবে পরিস্থিতির দাবি মেটাতে না পারায়।

 

বাংলাদেশ সেরা জুটি পায় এরপরই। সাত নম্বরে দলের ভরসার প্রতিদান দিতে যেভাবে খেলা উচিত, সেভাবেই ব্যাট করতে থাকেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ফর্মে থাকা মুশফিক তো শুরু থেকেই স্বচ্ছন্দ। বলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রান করে দলকে তিনশর পথে এগিয়ে নিতে থাকেন দুজন।

 

অপেক্ষা ছিল কেবল শেষ ৫ ওভারে ঝড় তোলার। সেখানেই পথ হারান তারা দুজন। সুইপ করার চেষ্টায় মুশফিক এলবিডব্লিউ হন ৪৫ রান করে (৫৬ বলে)। পরের ওভারে মার্ক অ্যাডায়ারকে স্কুপ করার চেষ্টায় গড়বড় করে মিরাজ ফেরেন ৩৯ বলে ৩৭ রান করে।

 

এরপর লোয়ার অর্ডার ভেঙে পড়ে হুড়মুড়িয়ে। অভিষেকে নিজের ব্যাটিং সামর্থ্যের ঝলক মেলে ধরতে পারেননি মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরি। অন্য তিন পেসার পারেনি ব্যাট হাতে অবদান রাখতে। ২০ বলের মধ্যে ১৩ রানে শেষ ৫ উইকেট হারিয়ে তিনশর অনেক আগেই থমকে যায় বাংলাদেশ।

 

বোলিংয়ের শুরুতে আইরিশ ওপেনারদের চেপে ধরেন বাংলাদেশের দুই পেসার হাসান মাহমুদ ও সিরিজে প্রথমবার মাঠে নামা মুস্তাফিজুর রহমান। প্রথম ৫ ওভারে উইকেট না পড়লেও দুই ওপেনারের নামের পাশে রান ছিল স্রেফ ৪ করে।

 

আগের ম্যাচগুলির ব্যর্থতার ধারাবাহিকতায় ওই ৪ রানেই স্টিভেন ডোহেনি বিদায় নেন মুস্তাফিজুর রহমানের বলে।

 

পল স্টার্লিং ও বালবার্নি দ্বিতীয় উইকেটে বদলে দেন চিত্র। দ্রুত কয়েকটি বাউন্ডারিতে প্রাথমিক চাপ উড়িয়ে দেন দুজন। এরপর মনোযোগ দেন জুটি গড়ায়। তাতে সফলও হন তারা। বাংলাদেশের সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে ফিফটি করেন দুজনই। জুটির শতরান আসে ১১৫ বলে।

 

পেসারদের ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে ব্যবহারের এক পর্যায়ে নতুন স্পেলে ফিরে ইবাদত হোসেন চৌধুরি ভাঙতে পারেন এই জুটি। লেংথ বলে পুল করে সীমানায় ধরা পড়েন ৫৩ রান করা বালবার্নি।

 

একটু পর বাংলাদেশকে আরও স্বস্তি এনে দেন মেহেদী হাসান মিরাজ। বড় বাধা হয়ে থাকা পল স্টার্লিংকে বিদায় নেন ৭৩ বলে ৬০ রান করে।

 

তবে দুই থিতু ব্যাটসম্যানকে হারিয়েও ভড়কে যায়নি আয়ারল্যান্ড। হ্যারি টেক্টর ও লর্কান টাকার ভয়ডরহীন ব্যাটিংয়ে নতুন গতি দেন আইরিশ ইনিংসকে। বাংলাদেশকে হতাশ তরতর করে বাড়তে থাকে রান। আক্রমণের শুরুটা করেন আগের ম্যাচে অসাধারণ সেঞ্চুরি করা টেক্টর। পরে তার সঙ্গে যোগ দেন টাকার।
মৃত্যুঞ্জয়ের এক ওভার থেকে আসে ২১ রান। ইবাদতের পরপর দুই ওভারে দুই ব্যাটসম্যান মারেন ছক্কা। সমীকরণ নেমে আসে ৯ ওভারে স্রেফ ৫২ রানে।

 

ভিন্ন কিছুর চেষ্টায় শান্তর হাতে বল তুলে দেন তামিম। এই ফাটকাই কাজে লেগে যায়। নির্বিষ এক শর্ট বলে উড়িয়ে মারেন টেক্টর। মিড উইকেট সীমানায় দারুণ ক্যাচ নেন লিটন।

 

বিপজজ্জনক টেক্টর বিদায় নেন ৪৫ রানে। থেমে যায় ৬৫ বলে ৭৯ রানের জুটি।

 

মুস্তাফিজ এরপর বুঝে নেন নিজের করণীয়। কার্টিস ক্যাম্পারকে দ্রুত ফেরান তিনি। জমে উঠতে দেননি আগের ম্যাচে ঝড় তোলা জর্জ ডকরেলকেও। বুলেট গতিতে আসা বলে শর্ট কাভারে দারুণ রিফ্লেক্স ক্যাচ নেন বদলি ফিল্ডার ইয়াসির আলি।

 

মূল বাধা হয়ে তখন টিকে আছেন টাকার। ফিফটি ছোঁয়ার পর তাকেও ফেরান মুস্তাফিজ। ফুল লেংথ বলে স্কুপ খেলতে গিয়ে বোল্ড হন তিনি ঠিক ৫০ রানেই।

 

ম্যাচ তখন বাংলাদেশের দিকেই হেলে। আইরিশদের প্রয়োজন ৩ ওভারে ৩২ রান। পরের ওভারে হাসান দিলেন ৮ রান। তবে নাটকীয়তার তখনও বাকি।

 

অভিষেকে স্নায়ুর চাপ ধরে রাখতে পারেননি মৃত্যুঞ্জয়। ৪৯তম ওভারে তার বলে ছক্কা ও চার মারলেন অ্যাডায়ার, ওভার থেকে আসে ১৪ রান। শেষ ওভারে প্রয়োজন ১০ রান। স্ট্রাইকে সেই অ্যাডায়ার।

 

কিন্তু আবারও স্কুপের চেষ্টাতেই আইরিশদের সর্বনাশ। প্রবল চাপের মধ্যেও ‘ব্যাক অব দা হ্যান্ড’ স্লোয়ার করার দুঃসাহস দেখালেন হাসান। তাতেই বোল্ড ১০ বলে ২০ রান করা অ্যাডায়ার। পরে এই ওভারে আরেকটি উইকেট নিয়ে শেষটাও তিনি করলেন দারুণ। জয়ের আনন্দে মাঠ ছাড়ল বাংলাদেশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ৪৮.৫ ওভারে ২৭৪ (তামিম ৬৯, রনি ৪, শান্ত ৩৫, লিটন ৩৫, হৃদয় ১৩, মুশফিক ৪৫, মিরাজ ৩৭, মৃত্যুঞ্জয় ৮, হাসান ১, মুস্তাফিজ ০, ইবাদত ১*; লিটল ৯-০-৬৫-০, অ্যাডায়ার ৮.৫-০-৪০-৪, ইয়াং ১০-০-৫৩-১, ক্যাম্পার ৫-০-৩৭-০, ম্যাকব্রাইন ৯-০-৩৯-২, ডকরেল ৭-০-৩১-২)।

আয়ারল্যান্ড: ৫০ ওভারে ২৬৯/৯ (ডোহেনি ৪, স্টার্লিং ৬০, বালবার্নি ৫৩, টেক্টর ৪৫, টাকার ৫০, ক্যাম্পার ১, ডকরেল ৩, অ্যাডায়ার ২০, ম্যাকব্রাইন ১০, ইয়াং ৩*, লিটল ১*; হাসান ৯-০-৪৪-২, মুস্তাফিজ ১০-১-৪৪-৪, ইবাদত ১০-১-৫৩-১, মৃত্যুঞ্জয় ৮-০-৬৪-০, মিরাজ ১০-১-৩৮-১, শান্ত ৩-০-১০-১)।

ফল: বাংলাদেশ ৫ রানে জয়ী।

সিরিজ: ৩ ম্যাচের বাংলাদেশ ২-০ ব্যবধানে জয়ী।

ম্যান অব দা ম্যাচ: মুস্তাফিজুর রহমান।

ম্যান অব দা সিরিজ: নাজমুল হোসেন শান্ত।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

সর্বশেষ সংবাদ



» শার্শায় ফসলি জমির মাটি বিক্রির সিন্ডিকেট বেপরোয়া।। জড়িত খোদ ইউপি সদস্যরা

» ঝিকরগাছায় পুলিশের অভিযানে ১২কেজি গাঁজা ও সাজাপ্রাপ্ত আসামী আটক

» পাগলায় সন্ত্রাসীদের চাঁদাবাজি ও হুমকির কারনে কারখানা বন্ধর ঘোষনা

» আমতলী উপজেলা নির্বাচনে দুই প্রার্থীর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার!

» ফতুল্লায় রাজমিস্ত্রি রাজ্জাক হত্যা মামলার প্রধান আসামী মাসুম গ্রেফতার

» শার্শায় নির্বাচনী প্রচারণা

» ফতুল্লায় শিশু অপহরণের ৩৬ ঘণ্টা পর জামালপুরে উদ্ধার

» নারীকে উত্যাক্তের প্রতিবাদ করায় গ্রাম আদালতের পেশকারকে কুপিয়ে জখম! 

» আমতলীর ১০ হাজার কৃষক পেল বীনামূল্যে সার ও বীজ!

» কদমতলী থানা প্রেস ক্লাবের উদ্যোগে সাংবাদিক নির্যাতনের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

প্রকাশক : মো: আবদুল মালেক
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯।
editor.kuakatanews@gmail.com

প্রধান কার্যালয় : সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সেহাচর, তক্কারমাঠ রোড, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ।
ফোন : +৮৮ ০১৬৭৪-৬৩২৫০৯, ০১৯১৮-১৭৮৬৫৯

Email : ujjibitobd@gmail.com

Desing & Developed BY RL IT BD
আজ : সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, খ্রিষ্টাব্দ, ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শেষ ওভারের নাটকীয়তায় ভারতকে হারিয়ে সিরিজ বাংলাদেশের

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

শেষ বলটি হতেই গ্যালারি থেকে ভেসে এলো গর্জন। চওড়া হাসিতে ছুটতে থাকলেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল। মুষ্ঠিবদ্ধ হাত বাতাসে ছুড়ে লাফিয়ে উঠলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। মাঠের নানা প্রান্ত ছুটে এসে সবাই অভিনন্দন বোলার জানালেন হাসান মাহমুদকে। এমনিতে যিনি উদযাপন আগ্রহী নন খুব একটা, সেই হাসানও মেতে উঠলেন উদযাপনে। সব মিলিয়ে চেমসফোর্ডর কাউন্টি গ্রাউন্ড রূপ নিল বাংলাদেশের উল্লাসের মঞ্চে।

 

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে এই জয়। খুবই প্রত্যাশিত জয়। তার পরও এত উত্তচনা, এত উচ্ছ্বাসের কারণ, জয়ের ধরন। ম্যাচ ছিল আইরিশদের একরকম মুঠোয়। স্রেফ সময়ের ব্যাপার যেন। সেই সময়টাকেই নিজেদের করে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর আখ্যান রচনা করল বাংলাদেশ।

 

বল হাতে নাজমুল হোসেন শান্ত অভাবনীয় এক ব্রেক থ্রু এনে দেওয়ার পর শেষ দিকে চেনা চেহারায় ফিরে মুস্তাফিজুর রহমানের দুর্দান্ত বোলিং আর হাসান মাহমুদের শেষ ওভারের বীরত্বে ধরা দিল ৫ রানের রোমাঞ্চকর জয়।

 

তৃতীয় ওয়ানডেতে এই জয়ে নিশ্চিত হলো ২-০ ব্যবধনে সিরিজ জয়ও। তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথমটি ভেস্তে গিয়েছিল বৃষ্টিতে।

 

এই ম্যাচ দিয়ে শেষ আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ সুপার লিগের অভিযানও। বিশ্বকাপের বাছাই হিসেবে চালু হওয়া গৌরবময় পথচলায় বাংলাদেশ শেষ করল তিন নম্বরে থেকে। সমান পয়েন্ট নিয়েও রান রেটে এগিয়ে থেকে দুইয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড।

 

এই সিরিজের প্রাপ্তির চেয়ে বাংলাদেশের হারানোর শঙ্কা ছিল বেশি। এ দিন উঁকি দিচ্ছিল সেই শঙ্কাই। শেষ ৯ ওভারে আয়ারল্যান্ডের দরকার ছিল স্রেফ ৫২ রানের। উইকেট তখনও বাকি ৭টি। হ্যারি টেক্টর ও লর্কান টাকার ছুটছিলেন অপ্রতিরোধ্য গতিতে। বাংলাদেশের তখন পিষ্ট হওয়াই বাকি।

 

তখনই একটটু ফাটকা খেললেন তামিম ইকবাল। বোলিংয়ে আনলেন শান্তকে। টেক্টরকে বিদায়কে করে ওই ওভারেই তিনি ভাঙলেন জুটি। এরপর মুস্তাফিজ ফিরলেন আপন রূপে, যে ভূমিকায় একসময় তাকে নিয়মিতই দেখা যেত। প্রথম দুই ম্যাচে তিনি একাদেই জায়গা পাননি। শেষ ম্যাচে সুযোগ পেয়ে নিজেকে মেলে ধরলেন দারুণভাবে।

 

আয়ারল্যান্ড হাল ছাড়ে না তবু। মার্ক অ্যাডায়ার ক্যামিও ইনিংস খেলে জমিয়ে দেন ম্যাচ। কিন্তু শেষ ওভারে বাংলাদেশকে জিতিয়ে দেন নতুন দিনের তারকা হাসান মাহমুদ।

 

চেমসফোর্ডে এ দিন টস হেরে আগে ব্যাটিং পায় বাংলাদেশ। গোটা ইনিংস ছিল যেন অপূর্ণতার গল্প। প্রথম সাত ব্যাটসম্যানর পাঁচজন ৩৫ ছুঁলেও ফিফটি করতে পারেন কেবল তামিম। তিনিও ইনিংস বড় করতে না পেরে আউট হন ৬৯ রানে। তিনশর সম্ভাবনা জাগানো বাংলাদেশ আটকে যায় ২৭৪ রানে।

 

রান তাড়ায় বেশির ভাগ সময় দাপটে এগিয়ে শেষ দিকে গড়বড় করে আইরিশরা থমকে যায় ২৬৯ রানে।
জশ লিটলের ওয়াইড থেকে বাউন্ডারিসহ ৫ রানে শুরু হয় ম্যাচ। লিটলের বলেই একটু পর ১ রানে জীবন পান তামিম। দ্বিতীয় স্লিপে সহজ ক্যাচ ছাড়েন আইরিশ অধিনায়ক অ্যান্ড্রু বালবার্নি।

 

পরের ওভারে উইকেট আসে অন্যপ্রান্ত থেকে। ৩২ বছর বয়সে ওয়ানডে অভিষেকে রনি তালুকদার ফেরেন ৪ রানে। প্রথম ১২ বলে বারবার শট খেলার চেষ্টা করেও রানের দেখা পাননি তিনি। অবশেষে একটি বাউন্ডারিতে প্রথম রানের দেখা পান। পরের বলেই আলগা শটে হারান উইকেট।

 

তবে তিনে নেমে আইরিশদের উল্টো চাপে ফেলে দেন নাজমুল হোসেন শান্ত। আগের ম্যাচে যেখানে শেষ করেছিলেন, সেখান থেকেই যেন শুরু করেন এই ম্যাচে। তামিমকে দর্শক বানিয়ে তিনি খেলতে থাকেন দুর্দান্ত সব শট। আগের দিনের মতো বড় ইনিংস অবশ্য খেলতে পারেননি। ৭ চারে তার বিনোদনদায়ী ইনিংস শেষ হয় ৩২ বলে ৩৫ রান করে।

 

এরপর লিটন দাসের পালা। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে মাত্র দ্বিতীয়বার চার নম্বরে ব্যাট করতে নেমে তিনিও অনুসরণ করেন শান্তকে। স্ট্রোকসমৃদ্ধ ইনিংস ঠিক ৩৫ করেই আউট। অ্যান্ডি ম্যাকব্রাইনের জোরের ওপর করা বুদ্ধিদীপ্ত ডেলিভারিতে উড়িয়ে মারতে গিয়ে শেষ হয় তার সম্ভাবনাময় ইনিংস। সিরিজটি শেষ হলো তার ফিফটি ছাড়াই।

 

তামিম ততক্ষণে ধীরস্থির ব্যাটিংয়ে পঞ্চাশের কাছে। ৯ ইনিংস পর ফিফটির দেখা পান তিনি ৬১ বলে। তবে বাংলাদেশ আরেকটি ধাক্কা খায় তাওহিদ হৃদয়কে হারিয়ে। জর্জ ডকরেলের বলের লেংথ পড়তে ভুল করে বোল্ড হন তরুণ ব্যাটসম্যান।

 

দুই স্পিনার ম্যাকব্রাইন ও ডকরেলকে দিয়ে বাংলাদেশকে বেশ চেপে ধরে আয়ারল্যান্ড। তখনও ৩০ ওভার পেরোয়নি। দলকে টেনে নেওয়ার দায়িত্ব দেশের সফলতম দুই ব্যাটসম্যান তামিম ও মুশফিকের কাঁধে। কিন্তু জুটি জমে ওঠার মুখে মুহূর্তের জন্য সেই দায়িত্ব ভুলে গেলেন তামিম। ডকরেলকে তেড়েফুঁড়ে মারতে গিয়ে দৃষ্টিকটূভাবে উইকেট ছুড়ে আসেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। ৮২ বলে ৬৯ রানের ইনিংসটি তাকে রানের ফেরার স্বস্তি দিলেও আক্ষেপ জোগাবে পরিস্থিতির দাবি মেটাতে না পারায়।

 

বাংলাদেশ সেরা জুটি পায় এরপরই। সাত নম্বরে দলের ভরসার প্রতিদান দিতে যেভাবে খেলা উচিত, সেভাবেই ব্যাট করতে থাকেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ফর্মে থাকা মুশফিক তো শুরু থেকেই স্বচ্ছন্দ। বলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রান করে দলকে তিনশর পথে এগিয়ে নিতে থাকেন দুজন।

 

অপেক্ষা ছিল কেবল শেষ ৫ ওভারে ঝড় তোলার। সেখানেই পথ হারান তারা দুজন। সুইপ করার চেষ্টায় মুশফিক এলবিডব্লিউ হন ৪৫ রান করে (৫৬ বলে)। পরের ওভারে মার্ক অ্যাডায়ারকে স্কুপ করার চেষ্টায় গড়বড় করে মিরাজ ফেরেন ৩৯ বলে ৩৭ রান করে।

 

এরপর লোয়ার অর্ডার ভেঙে পড়ে হুড়মুড়িয়ে। অভিষেকে নিজের ব্যাটিং সামর্থ্যের ঝলক মেলে ধরতে পারেননি মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরি। অন্য তিন পেসার পারেনি ব্যাট হাতে অবদান রাখতে। ২০ বলের মধ্যে ১৩ রানে শেষ ৫ উইকেট হারিয়ে তিনশর অনেক আগেই থমকে যায় বাংলাদেশ।

 

বোলিংয়ের শুরুতে আইরিশ ওপেনারদের চেপে ধরেন বাংলাদেশের দুই পেসার হাসান মাহমুদ ও সিরিজে প্রথমবার মাঠে নামা মুস্তাফিজুর রহমান। প্রথম ৫ ওভারে উইকেট না পড়লেও দুই ওপেনারের নামের পাশে রান ছিল স্রেফ ৪ করে।

 

আগের ম্যাচগুলির ব্যর্থতার ধারাবাহিকতায় ওই ৪ রানেই স্টিভেন ডোহেনি বিদায় নেন মুস্তাফিজুর রহমানের বলে।

 

পল স্টার্লিং ও বালবার্নি দ্বিতীয় উইকেটে বদলে দেন চিত্র। দ্রুত কয়েকটি বাউন্ডারিতে প্রাথমিক চাপ উড়িয়ে দেন দুজন। এরপর মনোযোগ দেন জুটি গড়ায়। তাতে সফলও হন তারা। বাংলাদেশের সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে ফিফটি করেন দুজনই। জুটির শতরান আসে ১১৫ বলে।

 

পেসারদের ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে ব্যবহারের এক পর্যায়ে নতুন স্পেলে ফিরে ইবাদত হোসেন চৌধুরি ভাঙতে পারেন এই জুটি। লেংথ বলে পুল করে সীমানায় ধরা পড়েন ৫৩ রান করা বালবার্নি।

 

একটু পর বাংলাদেশকে আরও স্বস্তি এনে দেন মেহেদী হাসান মিরাজ। বড় বাধা হয়ে থাকা পল স্টার্লিংকে বিদায় নেন ৭৩ বলে ৬০ রান করে।

 

তবে দুই থিতু ব্যাটসম্যানকে হারিয়েও ভড়কে যায়নি আয়ারল্যান্ড। হ্যারি টেক্টর ও লর্কান টাকার ভয়ডরহীন ব্যাটিংয়ে নতুন গতি দেন আইরিশ ইনিংসকে। বাংলাদেশকে হতাশ তরতর করে বাড়তে থাকে রান। আক্রমণের শুরুটা করেন আগের ম্যাচে অসাধারণ সেঞ্চুরি করা টেক্টর। পরে তার সঙ্গে যোগ দেন টাকার।
মৃত্যুঞ্জয়ের এক ওভার থেকে আসে ২১ রান। ইবাদতের পরপর দুই ওভারে দুই ব্যাটসম্যান মারেন ছক্কা। সমীকরণ নেমে আসে ৯ ওভারে স্রেফ ৫২ রানে।

 

ভিন্ন কিছুর চেষ্টায় শান্তর হাতে বল তুলে দেন তামিম। এই ফাটকাই কাজে লেগে যায়। নির্বিষ এক শর্ট বলে উড়িয়ে মারেন টেক্টর। মিড উইকেট সীমানায় দারুণ ক্যাচ নেন লিটন।

 

বিপজজ্জনক টেক্টর বিদায় নেন ৪৫ রানে। থেমে যায় ৬৫ বলে ৭৯ রানের জুটি।

 

মুস্তাফিজ এরপর বুঝে নেন নিজের করণীয়। কার্টিস ক্যাম্পারকে দ্রুত ফেরান তিনি। জমে উঠতে দেননি আগের ম্যাচে ঝড় তোলা জর্জ ডকরেলকেও। বুলেট গতিতে আসা বলে শর্ট কাভারে দারুণ রিফ্লেক্স ক্যাচ নেন বদলি ফিল্ডার ইয়াসির আলি।

 

মূল বাধা হয়ে তখন টিকে আছেন টাকার। ফিফটি ছোঁয়ার পর তাকেও ফেরান মুস্তাফিজ। ফুল লেংথ বলে স্কুপ খেলতে গিয়ে বোল্ড হন তিনি ঠিক ৫০ রানেই।

 

ম্যাচ তখন বাংলাদেশের দিকেই হেলে। আইরিশদের প্রয়োজন ৩ ওভারে ৩২ রান। পরের ওভারে হাসান দিলেন ৮ রান। তবে নাটকীয়তার তখনও বাকি।

 

অভিষেকে স্নায়ুর চাপ ধরে রাখতে পারেননি মৃত্যুঞ্জয়। ৪৯তম ওভারে তার বলে ছক্কা ও চার মারলেন অ্যাডায়ার, ওভার থেকে আসে ১৪ রান। শেষ ওভারে প্রয়োজন ১০ রান। স্ট্রাইকে সেই অ্যাডায়ার।

 

কিন্তু আবারও স্কুপের চেষ্টাতেই আইরিশদের সর্বনাশ। প্রবল চাপের মধ্যেও ‘ব্যাক অব দা হ্যান্ড’ স্লোয়ার করার দুঃসাহস দেখালেন হাসান। তাতেই বোল্ড ১০ বলে ২০ রান করা অ্যাডায়ার। পরে এই ওভারে আরেকটি উইকেট নিয়ে শেষটাও তিনি করলেন দারুণ। জয়ের আনন্দে মাঠ ছাড়ল বাংলাদেশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ৪৮.৫ ওভারে ২৭৪ (তামিম ৬৯, রনি ৪, শান্ত ৩৫, লিটন ৩৫, হৃদয় ১৩, মুশফিক ৪৫, মিরাজ ৩৭, মৃত্যুঞ্জয় ৮, হাসান ১, মুস্তাফিজ ০, ইবাদত ১*; লিটল ৯-০-৬৫-০, অ্যাডায়ার ৮.৫-০-৪০-৪, ইয়াং ১০-০-৫৩-১, ক্যাম্পার ৫-০-৩৭-০, ম্যাকব্রাইন ৯-০-৩৯-২, ডকরেল ৭-০-৩১-২)।

আয়ারল্যান্ড: ৫০ ওভারে ২৬৯/৯ (ডোহেনি ৪, স্টার্লিং ৬০, বালবার্নি ৫৩, টেক্টর ৪৫, টাকার ৫০, ক্যাম্পার ১, ডকরেল ৩, অ্যাডায়ার ২০, ম্যাকব্রাইন ১০, ইয়াং ৩*, লিটল ১*; হাসান ৯-০-৪৪-২, মুস্তাফিজ ১০-১-৪৪-৪, ইবাদত ১০-১-৫৩-১, মৃত্যুঞ্জয় ৮-০-৬৪-০, মিরাজ ১০-১-৩৮-১, শান্ত ৩-০-১০-১)।

ফল: বাংলাদেশ ৫ রানে জয়ী।

সিরিজ: ৩ ম্যাচের বাংলাদেশ ২-০ ব্যবধানে জয়ী।

ম্যান অব দা ম্যাচ: মুস্তাফিজুর রহমান।

ম্যান অব দা সিরিজ: নাজমুল হোসেন শান্ত।

ফেসবুক মন্তব্য করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here




সর্বশেষ সংবাদ



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us

সম্পাদক : সো‌হেল আহ‌ম্মেদ
নির্বাহী সম্পাদক : কামাল হোসেন খান

প্রকাশক : মো: আবদুল মালেক
উপদেষ্টা সম্পাদক : রফিকুল্লাহ রিপন
বার্তা : + ৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯।
editor.kuakatanews@gmail.com

প্রধান কার্যালয় : সৌদি ভিলা- চ ৩৫/৫ উত্তর বাড্ডা,
গুলশান, ঢাকা- ১২১২।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সেহাচর, তক্কারমাঠ রোড, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ।
ফোন : +৮৮ ০১৬৭৪-৬৩২৫০৯, ০১৯১৮-১৭৮৬৫৯

Email : ujjibitobd@gmail.com

© Copyright BY উজ্জীবিত বাংলাদেশ

Design & Developed BY Popular IT BD